নতুন ইউটিউব চ্যানেল ভাইরাল করার অভিনব ফর্মুলা

Level 6
শিক্ষার্থী, ন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি, গাজীপুর

আপনারা দেখে থাকবেন খুব ভালো মানের কনটেন্ট তৈরি করার পরেও নতুন ইউটিউব চ্যানেল গুলোতে একদমই ভিউ হয় না। কেননা পাবলিক কোনো ভিডিও দেখার আগে ঐ ভিডিওর ভিউ কেমন ও চ্যানেলটি পপুলার কিনা তা খেয়াল করে। একদমই পপুলার নয় এমন ভিডিও যতো ভালোই হোক না কেন তা দর্শকদের আকৃষ্ট করতে পারে না। তাই ভিডিও ভাইরাল করতে চাইলে ভালো মানের কনটেন্ট এর পাশাপাশি কিছু ফর্মুলা ফলো করতে পারেন।

আজকের টিউনে আমি আপনাদের সাথে ইউটিউব ভিডিও ভাইরাল করার খুবই আনকমন একটা উপায় শেয়ার করবো। আশাকরি এই ফর্মুলায় নিয়মিত ভিডিও তৈরি করলে খুব সহজেই ভিডিও ভাইরাল করতে পারবেন৷ চলুন দেরি না করে ধাপে ধাপে ভিডিও তৈরির পুরো পদ্ধতিটি জেনে নেয়া যাক।

ভাইরাল টিকটক ভিডিও ডাউনলোড করুন

টিকটক ভিডিও ডাউনলোড করে ইউটিউব ভিডিও তৈরি

আপনার ইউটিউব চ্যানেলের জন্য দর্শক আকর্ষণকারী ভিডিও তৈরির জন্য ভাইরাল টিকটক ভিডিও ব্যবহার করতে পারেন। মনে রাখবেন প্রাথমিক অবস্থায় কেউই আপনার চেহারা দেখে বা আপনার ভয়েস শুনে আপনার ভিডিও দেখবে না। কেননা আপনি একদমই নতুন একজন ইউটিউবার। আপনি এখনও পর্যন্ত কারো কাছে পরিচিত হতে পারেননি। তাই প্রাথমিক পর্যায়ে টিকটক স্টার দের চেহারা এবং ভয়েস ব্যবহার করে আপনার চ্যানেলের জন্য ভিডিও তৈরি করতে হবে।

এখন প্রশ্ন আসতে পারে যে, টিকটকের ভিডিও আপলোড করলে তো ইউটিউব থেকে মানিটাইজেশন প্রদান করবে না। হ্যাঁ, এটা একদমই সঠিক কথা। তবে এই সমস্যা থেকে কীভাবে বেরিয়ে আসবেন তা জানতে পুরো টিউনটি মনোযোগ সহকারে পড়ার অনুরোধ রইল।

তাহলে আপনার প্রথম কাজ হবে টিকটক থেকে ভাইরাল একটি ভিডিও ডাউনলোড করা। ভিডিওটা ১৫ থেকে ২০ সেকেন্ডের মধ্যে হলে ভালো হয়। ভিডিওটা ডাউনলোড করে আপনার গ্যালারিতে নিয়ে আসতে হবে।

মোবাইলের ক্যামেরা চালু করে নিজে ভিডিও করুন

ক্যামেরার সামনে এসে ভিডিও তৈরি

এই পর্যায়ে আপনার মোবাইলের ক্যামেরা চালু করুন এবং নিজে ক্যামেরার সামনে দাঁড়িয়ে একটা ভিডিও তৈরি করুন। যে ভিডিওটা টিকটক থেকে ডাউনলোড করেছেন ঐ ভিডিও সম্পর্কে কিছু কথা বলতে পারেন আপনার ভিডিওতে। অথবা ডাউনলোড করা ঐ ভিডিওর ডায়ালগ কপি করে বলতে পারেন। কিংবা ঐ ভিডিওর রিভিউ করতে পারেন। মোটকথা আপনার ডাউনলোড করা ভিডিওর সাথে সামঞ্জস্য রেখে নিজের ফেস ক্যামেরার সামনে উপস্থাপন করে একটি ভিডিও তৈরি করুন। ডাউনলোড করা ভিডিওর থেকে আপনার ভিডিওটি একটু বড় করবেন। অর্থাৎ ৪০ থেকে ৫০ সেকেন্ডের একটি ভিডিও তৈরি করবেন।

ভিডিও এডিটর ব্যবহার করে দুটো ভিডিও একত্রিত করুন

ভিডিও এডিটরের সাহায্যে ভিডিও এডিট

যে কোনো ভিডিও এডিটর ব্যবহার করে দুটো ভিডিও যোগ করে একটি ভিডিও তৈরি করতে হবে। এক্ষেত্রে ডাউনলোড করা টিকটক ভিডিওটা প্রথমে রাখতে হবে। এর পরে আপনার নিজের ভিডিওটা রাখতে হবে। এর ফলে যে নতুন ভিডিও তৈরি হবে তাকে বলা হয় Reaction Video। এই ধরনের ভিডিও আপলোড করা চ্যানেল গুলোতে ইউটিউব থেকে মানিটাইজেশন প্রদান করা হয়। যেহেতু এখানে পুরো ভিডিওটা ডাউনলোড করা ভিডিও না, আপনার নিজের ভয়েস এবং ফেস ব্যবহার করে ভিডিও তৈরি করা হয়েছে। সুতরাং এক্ষেত্রে মানিটাইজেশন নিয়ে কোনো সমস্যা হবে না।

Reaction Video দিয়ে যেভাবে রিচ বাড়বে

reaction video এর মাধ্যমে যেভাবে রিচ বাড়বে

দুটো ভিডিও একত্রিত করে Reaction Video হিসেবে আপনার তৈরি করা ভিডিওটা সরাসরি ইউটিউবে আপলোড করে দিতে পারবেন। এই ভিডিও আপলোড করার ফলে দর্শক আপনার চ্যানেলের ভিডিও দেখবে। দর্শকের আকর্ষণের মূল বিষয় কিন্তু আপনার কনটেন্ট বা ভিডিও নয়। ঐ যে ডাউনলোড করা ভাইরাল টিকটক ভিডিও দিয়ে আপনার ভিডিওটা শুরু করেছেন সেজন্য দর্শক আপনার চ্যানেলের ভিডিওটা দেখবে। এতে করে আস্তে আস্তে আপনার চ্যানেলের দর্শক বাড়বে।

ভিডিওর প্রথম ১৫ থেকে ২০ সেকেন্ড দেখার পরে যদি আপনার আপলোড করা ভিডিওটি দর্শক আর না-ও দেখে তাতেও কোনো সমস্যা নেই। কেননা এক মিনিটের একটা ভিডিওতে যদি প্রথম ২০ সেকেন্ড ভিউ হয় তাহলেই ভিডিও ধীরে ধীরে ভাইরাল হতে থাকে। আর ভিডিও ভিউ হওয়ার সাথে সাথেই যদি দর্শক সেটা Skip করে যায় তবে ভিডিও Down হতে থাকে। এক্ষেত্রে টিকটকের ভাইরাল ১৫ থেকে ২০ মিনিটের ভিডিওটা আপনার ভিডিওতে দর্শক ধরে রাখবে।

এভাবে একটানা বেশ কয়েকদিন ভিডিও তৈরি করে দেখুন, আশাকরি নিরাশ হবেন না। একবার এই ফর্মুলা অনুসরণ করে চ্যানেলটি ভাইরাল করতে পারলে এরপর আপনি যা আপলোড করবেন তা-ই ভাইরাল হতে থাকবে৷ তারমানে প্রথম কাজ হচ্ছে আপনার চ্যানেল ভাইরাল করা। চ্যানেলটি একবার ভাইরাল হলে সব ধরনের ভিডিও-ই দর্শকের কাছে গ্রহনযোগ্যতা পাবে। তো দেরি না করে আজ থেকেই চেষ্টা শুরু করে দিন। দেখবেন ভালো ফলাফল পেতে খুব বেশি সময় লাগবে না।

আপনার নতুন ইউটিউব চ্যানেলের জন্য শুভকামনা রইল।

Level 6

আমি শারমিন আক্তার। শিক্ষার্থী, ন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি, গাজীপুর। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 7 মাস 3 সপ্তাহ যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 88 টি টিউন ও 29 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 6 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 1 টিউনারকে ফলো করি।


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস