Blaze – শুধু মাত্র ব্রাউজারের মাধ্যমেই WebRTC ও P2P টেকনোলজি ব্যবহার করে ফাইল আদান প্রদান করুন আরও নিরাপদে ও দ্রুত গতিতে!

টিউন বিভাগ ওয়েবওয়্যার
প্রকাশিত
জোসস করেছেন
Level 28
সুপ্রিম টিউনার, টেকটিউনস, ঢাকা

আসসালামু আলাইকুম, কেমন আছেন টেকটিউনস কমিউনিটি? আশা করছি সবাই ভাল আছেন। আজকে আবার হাজির হলাম নতুন টিউন নিয়ে। আজকে আলোচনা করব কিভাবে আগের চেয়ে আরও দ্রুত এবং নিরাপদে ফাইল আদান প্রদান করতে পারবেন। চলুন শুরু করা যাক।

আমরা যদি অনলাইনে কোন ফাইল বা ডাটা কাউকে পাঠাতে চাই তাহলে অবশ্যই ইমেইল ব্যবহার করি অথবা বিভিন্ন ইনস্ট্যান্ট মেসেজিং ব্যবহার করি যেমন, Facebook Messenger, Line ইত্যাদি। তবে এই মাধ্যম গুলোতে ফাইল ট্রান্সফার অনেক স্লো হয় আবার বড় ধরনের ফাইল পাঠাতে গেলে ঘটে না বিপত্তি। আবার সব ধরনের ফাইলও পাঠানো যায় না।

যেমন অনলাইনে ফাইল আদান-প্রদান করার ভাল একটি মাধ্যম বলা যায় ফায়ার-ফক্সের ফাইল ট্রান্সফার। যেখানে দ্রুত এবং 2.5 জিবি ফাইল ট্রান্সফার করা যায়। তাছাড়া ড্রপ-বক্সের মাধ্যমেও ফাইল আদান-প্রদান করা যায়, যার গতিও যথেষ্ট ভাল এবং এর মাধ্যমে চেক করা যায় কতবার ডাউনলোড করা হয়েছে। এছাড়াও আরও অনেক অনলাইন স্টোরেজ রয়েছে কিছু সেগুলোতে আলাদা ভাবে রেজিস্ট্রেশন করতে হয় এবং থাকে এড এর ঝামেলা।

আজকে আমি আপনার পরিচয় করিয়ে দেব চমৎকার এক ফাইল ট্রান্সফার সার্ভিসের সাথে।

Blaze কি?

Blaze একটি আধুনিক এবং মাল্টি-পারসোনাল অনলাইন ফাইল ট্রান্সফার সার্ভিস। এটি ব্যবহার করে ব্রাউজারের মাধ্যমেই ফাইল আদান-প্রদান করা যায়। এটি ব্রাউজারের WebRTC ও WebSockets টেকনোলজি ব্যবহার করে তথ্য আদান-প্রদানে সহায়তা করে। স্মার্ট ফোনেও এটি ব্যবহার করা যায় কোন অ্যাপ ইন্সটল দেয়া ছাড়া। এই সার্ভিসটির Backend এ কাজ করে socket.io এবং front-end এ কাজ করে vanilla JavaScript।

Blaze এর ওয়েবসাইটে ঢুকে আপনি ফাইল শেয়ারিং করার জন্য আলাদা একটি রুম তৈরি করবেন। আপনিও অন্য কারো রুমে ঢুকতে পারবেন এবং সেখানে ফাইল আদান-প্রদান করতে পারবেন। এই সার্ভিসটি কয়েকটি ডিভাইসে যেমন, কম্পিউটার, স্মার্ট-ফোন, টেবলেট কম্পিউটারে সাপোর্ট করে। দ্রুত তথ্য আদান-প্রদান করার জন্য এই সার্ভিস ডেভেলপাররা ফোনে এবং কম্পিউটারেও সেট করেছে।

আপনি যদি সহজে এবং দ্রুত ফাইল আদান-প্রদান করতে চান তাহলে এই সার্ভিস ব্যবহার করতে পারেন।

Blaze

অফিশিয়াল ওয়েবসাইট @ Blaze

Blaze কিভাবে ব্যবহার করবেন:

চলুন দেখে নেয়া যাক কিভাবে ব্যবহার করবেন এই Blaze এর ফাইল ট্রান্সফার সার্ভিস।

ধাপ ১

প্রথমে Blaze এর অফিশিয়াল ওয়েবসাইটে প্রবেশ করুন। নিচের মত একটি ইন্টারফেস দেখতে পাবেন, Start Sharing  এ ক্লিক করুন।

ধাপ ২

আপনার যেকোনো একটি নাম দিন এবং রুম নাম্বার দিন।

ধাপ ৩

ফাইনালি এটি আপনার ফাইল ট্রান্সফার রুম। আপনি যাদেরকে লিংক পাঠাবেন সবাই এই রুমে জয়েন করতে পারবে এবং ফাইল শেয়ার করতে পারবে।

আমি আরেকজনকে লিংকটি পাঠালাম, সে যখন যোগ দিল তখন দেখুন নিচের মত উইন্ডো আসবে এবং এবার আমি এখানে ফাইল এড করতে পারব।

ফাইল পাঠানো হয়ে গেলে ব্রাউজারে ডাউনলোড উইন্ডো আসবে এবং ফাইল সেভ করে নিতে পারবেন।

ধাপ ৪

এর মাধ্যমে ফাইল ট্রান্সফার করা গতানুগতিক ফাইল ট্রান্সফার গুলোর মত নয়। এখানে আপনার ফাইল থার্ড পার্টি কোন সার্ভারে আপলোড হবে না। এখানে ফাইল ট্রান্সফার হবে পয়েন্ট টু পয়েন্ট ট্রান্সমিশন পদ্ধতিতে। এই ব্যবস্থায় আপনার ফাইল ট্রান্সফারে নিরাপত্তা এবং প্রাইভেসি বৃদ্ধি পাবে।

যেহেতু এটি ট্রান্সমিশন তাই ফাইল ট্রান্সফার শেষ না হওয়া পর্যন্ত ব্রাউজার Tab ক্লোজ করা যাবে না।

Blaze সুবিধা

চলুন জেনে নেয়া যাক কেন ব্যবহার করবেন Blaze এবং এর কিছু সুবিধা।

  • একসাথে একাধিক ব্যক্তি শুধু মাত্র ব্রাউজারের মাধ্যমে ফাইল আদান-প্রদান করতে পারবে।
  • WebRTC ও WebSockets টেকনোলজি ব্যবহার হবে বলে ফাইল আদান-প্রদান হবে আরও নিরাপদ।
  • আপনাকে আলাদা কোন সফটওয়্যার ডাউনলোড বা ইন্সটল করতে হবে না।
  • আপনার ফাইল থার্ড পার্টি কোন ওয়েব সার্ভারে আপলোড হবে না।
  • ফাইল ট্রান্সফার হয়ে গেলে সরাসরি ব্রাউজারের মাধ্যমে ডাউনলোড করে ফেলতে পারবেন।

শেষ কথাঃ

আমার ব্যক্তিগত ভাবে এই টুলটি চমৎকার লেগেছে কারণ এই পদ্ধতি ব্যবহার করলে ফাইল থার্ট-পার্টির কোন সার্ভারে আপলোড হয় না, পয়েন্ট টু পয়েন্ট এর মাধ্যমে ফাইল চলে আসে। আপনিও দ্রুত যেকোনো ফাইল আদান-প্রদান করতে এই টুলটি ব্যবহার করতে পারেন। যখন দরকার রুম তৈরি করবেন যাদের কানেক্ট করতে চান তাদের কাছে লিংক পাঠাবে এবং ফাইল পাঠানো শেষ হলে ডাউনলোড করে নেবেন।

কেমন হল আজকের টিউন তা অবশ্যই টিউমেন্টের মাধ্যমে জানাবেন। আমাদের জানান আপনার কাছে কেমন লেগেছে এই ওয়েব-ওয়্যারটি।

পরবর্তী টিউন পর্যন্ত ভাল থাকুন। আমাদের সমসাময়িক যে সংকট চলছে এর থেকে রক্ষা পেতে সবাই সচেতন থাকবেন কারণ আপনার সচেতনতাই পারে আমাদের সবাইকে খারাপ অবস্থা থেকে বাঁচাতে। সবাই বাসায় থাকুন আর আল্লাহর উপর ভরসা রাখুন, আল্লাহ হা-ফেজ।

Level 28

আমি সোহানুর রহমান। সুপ্রিম টিউনার, টেকটিউনস, ঢাকা। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 7 বছর 7 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 480 টি টিউন ও 186 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 56 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 0 টিউনারকে ফলো করি।

কখনো কখনো প্রজাপতির ডানা ঝাপটানোর মত ঘটনা পুরো পৃথিবী বদলে দিতে পারে।


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস

অনেক কাজের আছে। ধন্যবাদ।