ওয়েব কি? ওয়েব কিভাবে কাজ করে?

Level 4
টিউনার, সেনবাগ রেসিডেন্সিয়াল দাখিল মাদ্রাসা, নোয়াখালী

হ্যালো বন্ধুরা, আশা করি অনেক ভালো রয়েছেন। আজকে আবার আপনাদের জন্য একটি নতুন টিউন নিয়ে হাজির হয়েছি। আশা করি টিউন টি আপনাদের অনেক উপকারে আশাকরি পুরো টিউন টি পড়বেন।

আজকে আমরা একটি অনেক গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়ে আলোচনা করবো। আপনারা যারা ওয়েব সাইট তৈরী করে থাকেন কিন্তু আপনাদের মধ্যে অনেকেই আছে যারা জানে না ওয়েব কি? এবং এটি কিভাবে কাজ করে থাকে। সেজন্য আজকে এই বিষয় নিয়ে আলোচনা করবো।

ইন্টারনেট এবং ওয়েব কিভাবে কাজ করে?

ওয়েব কিভাবে কাজ করে তা জানতে হলে আমাদের কে প্রথমে জানতে হবে বা বুজতে হবে ইন্টারনেট কিভাবে কাজ করে। ইন্টারনেট এর মাদ্ধমে একটি কম্পিউটার অন্য আরেকটি কম্পিউটের সাথে কানেক্ট বা সংযুক্ত হয়। আর ওয়েবের মাদ্ধমে একজন মানুষ অন্য আরেকজন মানুষের সাথে সংযুক্ত হয়। আরো সহজ ভাবে বলতে গেলে, বর্তমানে আমরা তো সবাই ফেইসবুক ব্যবহার করে থাকি। ফেসবুকে একেকজনের এক হাজার দুই হাজার করে ফ্রেন্ড থাকে। আর ফ্রেন্ড গুলো হলো মানুষ। এবং ফেইসবুক হচ্ছে একটি ওয়েব বা ওয়েব সাইট। অর্থাৎ ওয়েবই আমাদের সাথে ঐ মানুষ গুলোর সাথে সংযোগ করে দিচ্ছে। আর ইন্টারনেট আপনার কম্পিউটের সাথে ঐ এক হাজার বা তার অধিক মানুষের কম্পিউটের সাথে কানেক্ট করে দিচ্ছে।

ইন্টারনেট আসলে অনেক অনেক নেটওয়ার্ক এর সমন্বয়ে তৈরী হয়। ইন্টারনেট এর সাথে শুধু কম্পিঊটার বা ল্যাপটপ না চাইলে যেকোনো কিছু কানেক্ট হতে পারবে। আপনার ঘরে থাকা ফ্রিজ এসি থেকে সবকিছুই. ফ্রিজ বা এসি সংযুক্ত করার জন্য একটি টেকনোলজি নিয়ে মানুষ কাজ করতেছে, যার নাম IOT (INTERNET OF THINGS)। IOT এর মাদ্ধমে পুরো পৃথিবী পাল্টে যাবে। আপনি আপনার পাখা ফ্রিজ এসি এবং আরো অনেক কিছুর সাথে কমিউনিকেশন বা যোগাযোগ করতে পারবেন। এই কাজের জন্য ভূমিকা রাখতেছে ইন্টারনেট।

আরো একটি উদাহরণ দিলে আপনারা আরো সহজেই বুজতে পারবেন। উইকিপিডিয়ার কথা চিন্তা করুন যেখানে অনেক অনেক তথ্য রয়েছে। যে তথ্য গুলো রয়েছে অন্য আরেক জনের কম্পিউটারে। এখন আপনার কম্পিঊটার যদি ইন্টারনেট এর সাথে সংযুক্ত না থাকে তাহলে কি আপনি উইকিপিডিয়াতে প্রবেশ করতে পারবেন? শুধু উইকিপিডিয়াই না আপনি ইন্টারনেট ছাড়া কোনো ওয়েব সাইটই প্রবেশ করতে পারবেন না। আবার ধরেন আপনার কমপিউটার ইন্টারনেটের সাথে সংযুক্ত কিন্তু উইকিপিডিয়ার তথ্যগুলো যে কম্পিউটারে রয়েছে তা ইন্টারনেটের সাথে সংযুক্ত না তাহলে কি আপনি তথ্য গুলো দেখতে পাবেন? উত্তর হলো না। অর্থাৎ আপনাকে উইকিপিডিয়ার তথ্য গুলো দেখতে হলে দুটো কম্পিঊটারই ইন্টারনেটের সাথে সংযুক্ত থাকতে হবে। আর একটা কম্পিউটারের তথ্য গুলো অন্য কম্পিউটারে যে টেকনোলজিটা দেখাচ্ছে তা হলো ওয়েব।

ওয়েব হচ্ছে এমন একটা টেকনোলজি যা ইন্টারনেটের উপর ভিত্তি করে তৈরী করা হয়েছে। অর্থাৎ ইন্টারনেটের মাদ্ধমেই ওয়েব টেকনোলজিটা তৈরী করা হয়েছে। ইন্টারনেটের মাদ্ধমে আমরা অন্যের কম্পিউটারে থাকা ডাটা বা তথ্যের সাথে সম্পর্ক করি। আর ওয়েবের মাদ্ধমে তা আমাদের সামনে সুন্দরভাবে দেখি। আপনারা যে সিস্টেমের মাদ্ধমে আপনার এই টিউনটি পড়তেছেন সেটিই হচ্ছে ওয়েব। একটি কম্পিঊটার থেকে অন্য কম্পিউটারে ডাটা শেয়ার করার জন্য ওয়েব একটি ব্রিজের মতো কাজ করে। ওয়েব মূলত দুটি কম্পিউটারের সাথে যোগাযোগ করার জন্য HTTP (Hypertext Transfer Protocol) ব্যবহার করে থাকে।

ওয়েবের কয়েকটা প্রচলিত শব্দ

ওয়েবের সাথে অনেক গুলো শব্দ জড়িয়ে রয়েছে। যেগুলো সম্পর্কে এখন আমরা সঠিক ভাবে জানবো। নিচে শব্দ গুলো সম্পর্কে কিছুটা ধারণা দেওয়ার চেষ্টা করলাম।

১/ ওয়েব পেজ (web page) : আপনারা techtunes এর যে পেজটিতে আমার এই টিউনটি পড়তেছেন সেটিই হচ্ছে মূলত ওয়েব পেজ।

২/ ওয়েব সাইট (web site) : অনেক গুলো ওয়েব পেজ মিলে একটি ওয়েব সাইট তৈরী হয়. অর্থাৎ আপনারা যেখানে এই টিউনটি পড়তেছেন সেটি একটি পেজ। আবার যদি হোম পেজে আসেন তাহলে সেটি একটি পেজ। লগইন করার জন্য যে পেজে যান সেটি একটি পেজ। এইরকম অসংখ পেজ মিলে একটি ওয়েব সাইট তৈরী হয়।

৩/ ওয়েব এপ্লিকেশন (web application) : ওয়েব এপ্লিকেশন মূলত ওয়েবসাইট। তবে এখানে কিছুটা পার্থক্য রয়েছে। আপনি আমার এই টিউনটি পড়তেছেন এটি একটি ওয়েব সাইট। কিন্তু যখন সেখানে একটি টিউন লিখে সাবমিট করার সিস্টেম থাকবে, লগইন করার সিস্টেম থাকবে তখন সেটি ওয়েব এপ্লিকেশন। আসলে সত্যি বলতে গেলে ওয়েব সাইট এবং ওয়েব এপ্লিকেশন দুটো একই। যদি আপনারা দুটোর মধ্যে পার্থক্য করতে চান তাহলে এভাবে চিন্তা করতে পারেন। আবার যদিও এখন ওয়েব এপ্লিকেশন বলতে সিঙ্গেল পেজ এপ্লিকেশন (SPA) কে বুজানো হয়। আপনাদেরকে জানানোর জন্য দুটোই বলে রাখলাম।

৪/ ওয়েব সার্ভার (web server) : ওয়েব সার্ভার মূলত একটি কম্পিঊটার। যেখানে ওয়েব সাইটএ দেখানো সকল তথ্য জমা থাকে।

৫/ ওয়েব হোস্টিং (web hosting) : ওয়েব হোস্টিং সম্পর্কে সহজভাবে বলতে গেলে ওয়েব সাইটের ফাইল ছবি ভিডিও ইত্যাদি যেখানে রাখা হয় সেটিই ওয়েব হোস্টিং।

ব্রাউজারে কোনো ওয়েব সাইট সার্চ করলে কি কি ঘটে?

আপনারা যারা আমার এই টিউনটি পড়তেছেন আশা করি তারা জানেন যেকোনো ওয়েব সাইটএ প্রবেশ করতে হলে একটি ব্রাউজারএর প্রয়োজন হয়। তাই এখন আমরা জানবো ব্রাউজারের এড্রেস বারে একটি ওয়েব সাইটের এড্রেস লিখে এন্টার দেওয়ার পরে ওয়েব সাইটটিতে এক্সেস করার জন্য কি কি প্রক্ক্রিয়ার মদ্ধ দিয়ে যেতে হয়।

আমরা প্রথমে আমাদের ব্রাউজারে যেকোনো একটি ওয়েব সাইটের এড্রেস লিখে সার্চ দিলাম। যেমন ধরুন https://www.facebook.com/। যখন আমরা ফেসবুকের এড্রেস লিখে সার্চ করবো তখন এটি একটি HTTP রিকোয়েস্ট পাঠায় ISP (INTERNET service provider) এর কাছে। ISP হচ্ছে যারা আপনাকে ইন্টারনেট দিয়ে থাকে। ISP এর কাছে রিকোয়েস্টটা আসার পরে তারা তাদের ক্যাশ মেমোরিতে খুঁজতে থাকে facebook.com নাম কিছু আছে কিনা। যদি থাকে তাহলে তো ভালোই। আর যদি না থাকে তাহলে সে আরেকটা রিকোয়েস্ট করে DNS server এর কাছে। DNS server হচ্ছে domain name system যার একটি সার্ভার রয়েছে। dns server এর কাজ হচ্ছে ফেইসবুক বা যেকোন এড্রেস কে আইপি এড্ড্রেসে রূপান্তর করা। কারণ কম্পিঊটার আইপি বা নম্বর ছাড়া কোনো কিছু বুজতে পারেন না। এখানে একটি মজার বিষয় হচ্ছে আপনি যদি ব্রাউজারে ফেসবুকের এড্রেসটি টাইপ না করে আইপি দিয়ে সার্চ করেন তবুও আপনাকে ফেসবুকের পেজটি দেখাবে.। এটি সব ওয়েব সাইটের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য। dns server নামটাকে আইপিতে রূপান্তর করে আবার isp এর কাছে পাঠিয়ে দেয়। এখন isp জানে তাকে কোন কম্পিউটারের কাছে যেতে হবে। আইপিটি হচ্ছে একটি সার্ভারের তখন isp সেই সার্ভারে একটি রিকোয়েস্ট করবে। এখন সব দায়িত্ব হচ্ছে সার্ভারের। সার্ভার প্রথমে বুজতে চেষ্টা করবে তার কাছে কোন পেজ চাওয়া হয়েছে। তার কাছে হোম পেজ চাওয়া হয়েছে নাকি মেসেজ পেজ চাওয়া হয়েছে। যখন বুজতে পারবে কোন পেজ চাওয়া হয়েছে তখন সার্ভার সেই পেজের ডাটার জন্য ডাটাবেসএ যাবে। এবং প্রয়োজনীয় ডাটা গুলো সংগ্রহ করবে। তারপর ডাটাগুলো নিয়ে সার্ভার html, css, js ফাইল তৈরী করবে। কারণ ব্রাউজার সার্ভার কোড বুজতে পারে না। এরপর সার্ভার পেজ গুলো isp এর কাছে পাঠিয়ে দিলে তারপর isp পেজ গুলো ব্রাউসারএর কাছে পাঠিয়ে দিবে। সবশেষে আমরা আমাদের কাঙ্ক্ষিত ওয়েব সাইটটি দেখতে পা।
এত গুলো কাজ করার পড়ে আমরা যেকোনো ওয়েব সাইট দেখতে পাই।

Level 4

আমি রাশেদুল ইসলাম। টিউনার, সেনবাগ রেসিডেন্সিয়াল দাখিল মাদ্রাসা, নোয়াখালী। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 2 বছর 9 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 62 টি টিউন ও 61 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 16 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 0 টিউনারকে ফলো করি।


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস