রিসপনসিভ ওয়েবডিজাইনের উপর এক্সপার্ট ওয়েব ডিজাইনার ভাইয়েরা আছেন ‍কি?

কিছু প্রফেশনাল লেভেলের ওয়েবডিজাইনার দরকার জাস্ট একটা ওয়েবসাইটকে কিছুটা মডিফাই করার জন্য। আর কয়েকটা পেজকে রিসপনসিভ করতে হবে এবং কিছু সহজ ফিচার যোগ করতে হবে। Skilled ওয়েব ডিজাইনারদের ঘন্টা, দেড়ঘন্টার বেশি লাগার কথা না।

কাজটি আমি-ই করতাম, কিন্তু হাতে আরো কয়েকটি কাজ পড়ে আছে, আর হাতে সময় কম। তাই প্রফেশনাল ওয়েব ডিজাইনার কোন ভাইয়ের কাছে সাহায্য চাচ্ছি। তাই কারো হাতে ঘন্টা-দেড় ঘন্টা খানেক সময় থাকলে তাহলেই জানাবেন। তবে আপনার সময়ের অপচয় হবে না। বিকাশের মাধ্যমে সাধ্যমত পুরষ্কৃত করার চেষ্টা করব।

আর কাজ যদি পছন্দ হয় এবং ভালো লাগে, আমি আরো ভালো ভালো Opportunity এবং সুযোগ দিতে পারব।

আগ্রহী ভাইদের যেই কয়েকটা Skill এ পারদর্শী হতে হবে:
১. Responsive Web Design
২. CSS3 Animation
৩. HTML/CSS
৪. JS/jQuery.

আবারো বলি. কাজের ধরণটা হবে অনেকটা এরকম: কয়েকটা পেজকে Responsive বানাতে হবে, একটা মেনুবার বানাতে হবে, আরো কয়েকটা সহজ কাজ।

 

আগ্রহী থাকলে আমাকে ফেসবুকে নক করুন: http://www.facebook.com/msa208
না পেলে: +01965091692

২৫০ শব্দ পূর্ণ হয়নি, তাই শেয়ার করি:

ইসলামের নাম ব্যবহার করে বিভিন্ন মুসলিম রাষ্ট্রে হামলা এবং মুসলমান হত্যায় পারদর্শী হয়ে ওঠা জঙ্গি সংগঠন আইএস’র বিষয়ে মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) এবং তার উত্তরসূরীরাও বলে গেছেন। নবী (সা.) ভবিষ্যদ্বাণী করেছিলেন, এমন এক সময় আসবে যখন ইসলামের নাম ছাড়া কিছু থাকবে না, আর কোরআনে থাকবে কেবল অক্ষর। মসজিদ জাকজমকে পূর্ণ থাকবে, তবে সত্য পথের নির্দেশনা থাকবে না।” বর্তমানের সময়টা পর্যালোচনা করলে আমরা সেই বিষয়টাই অনেক বেশি করে উপলব্ধি করতে পারি। আইএস সম্পর্কে সাবধান করেছিলেন মহানবী (সা.)?
হাদিস সংকলন ‘মিশকাতুল মাসাবীহ’ বলা হয়েছে ‘সেই দিনগুলোতে’ ইসলামের আধ্যাত্মিক মর্ম ‘হারিয়ে যাবে’ এবং অধিকাংশের কাছে ধর্ম ‘সীমাবদ্ধ থাকবে’ কেবল আচারের মধ্যে। আর ইমামরা ‘দুর্নীতিতে নিমজ্জিত’ হবেন, পরিণত হবেন ‘তত্ত্বীয় বিবাদের কেন্দ্রে’। “মুসলিম বিশ্বের একটি উগ্রপন্থি অংশের নেতাদের ক্ষেত্রে এই বাক্যগুলো হুবুহু মিলে যাচ্ছে। যারা মিম্বর ব্যবহার করে বিভক্তি আর বিদ্বেষ ছড়াচ্ছেন।”
মহানবী আজকের আইএস-এর বিষয়েই সতর্ক করেছিলেন কি-না, সে প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে গিয়ে হাদিস গ্রন্থ সহিহ মুসলিম থেকে পাওয়া যায়, “তিনি (মহানবী) এটাও বলেছিলেন, আইএস-এর মতো সন্ত্রাসী গোষ্ঠীগুলো ইসলামের বিশ্বাসকে ছিনতাইয়ের চেষ্টা করবে। তিনি বলেছিলেন, ‘একদল তরুণের আবির্ভাব ঘটবে, যারা চিন্তায় হবে অপরিণত’। তারা সুন্দর সুন্দর কথা বলবে, কিন্তু করবে সবচেয়ে ঘৃণ্য কাজ। তারা এত বেশি ধর্ম পালন করবে, যার কাছে মুসলমানদের ইবাদত তুচ্ছ বলে মনে হবে।
“তারা মানুষকে কোরআনের কথা বলবে, কিন্তু তা হবে কেবল তাদের মুখের কথা। অর্থাৎ, তারা এর মর্মার্থ বুঝবে না, কেবল বেছে বেছে কিছু অংশ আওড়াতে থাকবে। মহানবী তাদের ‘সৃষ্টির সবচেয়ে নিকৃষ্ট’ বলেছেন।”আইএস সম্পর্কে সাবধান করেছিলেন মহানবী (সা.)?
কিতাব আল ফিতানে মহানবীর চতুর্থ উত্তরসূরি খলিফা আলী (রা) বর্ণিত আরেকটি হাদিসের কথা বলা যায়। সেখানে এদের বর্ণনা করা হয়েছে ‘কালো পতাকাধারী দীর্ঘ চুলের পুরুষ’ হিসেবে। বলা হয়েছে, তাদের ‘অন্তর হবে লোহার মতো শক্ত’ এবং তারা একটি রাজ্যের (আসাব উল দাউলা) প্রতিনিধিত্ব করবে। মজার বিষয় হল, আইএস নিজেদের ইসলামিক স্টেট বা দাউলা হিসেবেই পরিচয় দেয়।

(Collected)

 

 

Level 0

আমি শফিউল আলম। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 9 বছর 10 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 2 টি টিউন ও 30 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 0 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 0 টিউনারকে ফলো করি।


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস