Unlim – ফ্রিতে-ই নিন আনলিমিটেড ক্লাউড স্টোরেজ!

Level 4
Sonic টিউনার, টেকটিউনস, গাইবান্ধা, রংপুর

আসসালামু আলাইকুম। টেকটিউনস ওয়েবসাইটের নতুন আরো একটি টিউনে আপনাকে স্বাগতম। আমি স্বপন আছি আপনাদের সাথে, আশাকরি সকলেই অনেক অনেক ভালো আছেন। আধুনিক প্রযুক্তির যুগে আমরা সবাই আমাদের সকল গুরুত্বপূর্ণ ডাটাগুলো সংরক্ষণ করার চেষ্টা করি। কারণ বর্তমান সময়ে আমাদের সকল ডেটা সংরক্ষণ করার গুরুত্বপূর্ণ অনেক কারণ থাকে অথবা আমাদের ডেটাগুলো সহজেই দূরের কোথায় শেয়ার করার জন্য ডেটা স্টোর করা অনেক গুরুত্বপূর্ণ হয়ে যায়। মনে করুন, আপনার পিসিতে অনেকগুলো ফাইল আছে যেগুলো আপনি বর্তমানে সরাসরি অ্যাক্সেস করতে পারবেন না এমনকি বর্তমানে আপনি এমন কোথাও আছে যেখানে আপনার কাছে আপনার সেই পিসিটি নেই। এই ধরনের সমস্যার সমাধানে একমাত্র উপায় হচ্ছে ফ্রি ক্লাউড স্টোরেজ। অথবা অনলাইনের এমন কোনো বিশ্বাস যোগ্য স্টোরেজ যেখানে আপনার সমস্ত ডেটা নিরাপদ থাকবে।

ফ্রি ক্লাউড স্টোরেজ কী?

ফ্রি ক্লাউড স্টোরেজ হলো একটি অনলাইন স্টোরেজ সেবা, যেখানে আপনি বিনামূল্যে আপনার গুরুত্বপূর্ণ ডেটাগুলো সংরক্ষণ করে রাখতে পারবেন। অনেকেই এই ফ্রি ক্লাউড স্টোরেজ সম্পর্কে সন্দেহভাজন হতে পারেন, কিন্তু ফ্রি ক্লাউড স্টোরেজ আপনার ডেটার সর্বোচ্চ সুরক্ষা প্রদান করবে। ফ্রি ক্লাউড স্টোরেজ আপনার ডেটাগুলো অনেক গুরুত্বসহকারে সংরক্ষণ করে রাখবে। ক্লাউড স্টোরেজে তাদের ইউজারদের সুবিধার জন্য তারা তাদের অনলাইন স্টোরেজ ফ্রিতেই প্রদান করে থাকেন।

ফ্রি ক্লাউড স্টোরেজের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বৈশিষ্ট্য হলো, আপনি এই ক্লাউড স্টোরেজ ব্যবহার করে খুব সহজেই আপনার ডেটাগুলো সংরক্ষণ করতে পারবেন এবং প্রয়োজনে যেকোনো সময়ে সেই ফাইলগুলো অ্যাক্সেস করতে পারবেন। আপনি যেকোনো ডিভাইস থেকেই আপনার ডেটা অথবা ফাইলগুলো দেখতে পারবেন এবং প্রয়োজন হলে তা সরাসরি ডাউনলোড করতে পারবেন। এছাড়াও, ফ্রি ক্লাউড স্টোরেজের মাধ্যমে আপনি আপনার ফাইলগুলো অন্যদের সাথে একটি সাধারণ লিঙ্কের মাধ্যমে খুব সহজেই শেয়ার করতে পারবেন। ফ্রি ক্লাউড স্টোরেজ সুবিধাটি অনেকগুলো প্লাটফর্ম ও কোম্পানি দিয়ে থাকে তাদের মধ্য জনপ্রিয় কিছু ফ্রি ক্লাউড স্টোরেজ সার্ভিস হলোঃ

  1. Google Drive,
  2. Dropbox,
  3. OneDrive,

এই ক্লাউড স্টোরেজ সেবাগুলো বর্তমান সময়ে জনপ্রিয় ফ্রি অনলাইন স্টোরেজ। তবে তাদের স্টোরেজগুলো ব্যবহারে একটি নিদিষ্ট পরিমাণ জায়গা থাকে, যার বেশি MB ফাইল আপনি স্টোরেজে রাখতে পারবেন না। এই সেবাগুলো ব্যবহার করলে আপনাকে আপনার ফাইলগুলো ম্যানেজমেন্ট করা নিয়ে আলাদা করে চিন্তা করতে হবে না, কারণ সবকিছু স্বয়ংক্রিয়ভাবে সাজানো হয় এবং আপনি সহজেই নিয়ন্ত্রণ রাখতে পারবেন।

ক্লাউড স্টোরেজের সুবিধাগুলো কী?

ক্লাউড স্টোরেজ ব্যবহার করলে আপনি আপনার ডেটা অথবা গুরুত্বপূর্ণ ফাইলগুলোর জন্য একাধিক সুবিধা পাবেন। নিম্নে ক্লাউড স্টোরেজের গুরুত্বপূর্ণ সুবিধাগুলি বর্ণনা করা হলোঃ

  1. ফাইল সংরক্ষণ: ক্লাউড স্টোরেজ ব্যবহার করলে আপনি আপনার ফাইলগুলি অনলাইনে সংরক্ষণ করতে পারেন, পরবর্তী আপনি আপনার ফাইলগুলো যেকোনো ডিভাইস থেকে সহজেই অ্যাক্সেস করতে পারবেন। আপনার ফাইলগুলি আপলোড করার সাথে সাথে তা অটোমেটিকভাবে সিঙ্ক্রোনাইজ হয়, যার কারণে আপনি আপনার আপলোড করা ফাইলগুলো কখনোই হারিয়ে ফেলবেন না অথবা মুছে যাবে না।
  2. ফাইল শেয়ারিং: ফ্রি ক্লাউড স্টোরেজ আপলোড করা যেকোনো ফাইল আপনি খুব সহজেই অনলাইনের মাধ্যমে অন্যজনের সাথে শেয়ারি করতে পারবেন। তাদেরকে একটি সাধারণ লিঙ্কের মাধ্যমে আপনার আপলোড করা ফাইলগুলোর ডাউনলোড এক্সেস দিতে পারবেন।
  3. আপলোড ফাইল ম্যানেজমেন্ট: ক্লাউড স্টোরেজে আপলোড করা প্রতিটি ফাইল আপনি খুব সহজেই ম্যানেজ করতে পারবেন। আপনি আপনার আপলোড করা প্রতিটি ফাইলের জন্য আলাদা আলাদা ক্যাটাগরি অথবা সাব ক্যাটাগরিতে আপনার ফাইলগুলি সংরক্ষণ করে রাখতে পারবেন। যা পরে সার্চের মাধ্যমে খুব সহজেই আপনার আপলোড করা নিদিষ্ট ফাইল খুঁজে পাবেন।

এছাড়াও, প্রতিটি ক্লাউড স্টোরেজের সেবা সাধারণত সুরক্ষিত অথবা নিরাপদ সেবা হয়, যাতে আপনার আপলোড করা সকল ডেটা এনক্রিপ্টেড অবস্থায় থাকে এবং বিনা অনুমতি ব্যতীত আপনার ফাইলগুলো কেউ এক্সেস করতে পারবে না। আপনি যাকে আপনার ফাইলগুলো এক্সেস করার অনুমতি দিবেন কেবলমাত্র সেই ব্যক্তি আপনার আপলোড করা ডেটাগুলো এক্সেস করতে পারবে।

বন্ধুরা, এতক্ষণ তো আমরা আলোচনা করলাম - ক্লাউড স্টোরেজ কি?ক্লাউড স্টোরেজের সুবিধাগুলো কী কী? আপনি যদি এই সমস্ত বিষয়গুলো মনোযোগ সহকারে পড়ে থাকেন তাহলে আপনি অবশ্যই জেনে থাকবেন যে, এসব ক্লাউড স্টোরেজ নিদিষ্ট মাত্রার থেকে বেশি ব্যবহার করতে চাইলে আপনার তার জন্য নিদিষ্ট পরিমাণ ফি প্রদান করতে হবে।

বন্ধুরা, আপনারা একদম চিন্তা করবেন না। আজকে আমি আপনাদের দেখাবো কীভাবে আনলিমিটেড ক্লাউড স্টোরেজ ব্যবহার করবেন একদম ফ্রিতেই৷ এখানে আপনার আপলোড করা সমস্ত ডেটাগুলো সর্বোচ্চ নিরাপদে সুরক্ষিত থাকবে৷ অন্যান্য জনপ্রিয় ক্লাউড স্টোরেজের মতোই জনপ্রিয় সব স্টোরেজ ফিচার একদম ফ্রিতেই ব্যবহার করতে পারবেন। তো চলুন দেখা নেওয়া যাক কীভাবে একদম ফ্রিতেই আনলিমিটেড ক্লাউড স্টোরেজ নিবেন?

Unlim

Official Download @ Unlim

আপনারা যারা Unlim অ্যাপটির সকল ফিচার ব্যবহার করতে চান তারা প্লেস্টোর অথবা গুগলে সার্চ করে Unlim অ্যাপটি আপনাদের ফোনে ইন্সটল করে নিতে পারবেন। আমি আপনাদের সবার সুবিধার জন্য Unlim অ্যাপটির Play Store দিয়ে দিলাম। তবুও কারো কোথাও সমস্যা হলে অবশ্যই টিউমেন্ট করে জানাবেন আমি যতটা পারি রিপ্লাই দেওয়ার মাধ্যমে সমস্যাগুলো সমাধান করে দিবো ইনশাআল্লাহ।

১. কাজটি করার জন্য নিচের ইন্সটল লিংক থেকে Unlim অ্যাপটি আপনাদের ফোনে ইন্সটল করে নিবেন।

২. তারপর অ্যাপটি আপনাদের ফোনে ওপেন করবেন। অ্যাপটি ওপেন করার পর নিচের মতো ইন্টারফেস দেখতে পারবেন।

৩. এবার আপনারা একটু নিচে তীরের মতো আইকনে ক্লিক করুন।

৪. তারপর আপনারা লগ-ইন অপশনে আপনাদের কান্ট্রি কোডসহ আপনাদের টেলিগ্রাম অ্যাকাউন্টের নম্বরটি দিয়ে দিন। যদি আগে থেকেই একটি টেলিগ্রাম অ্যাকাউন্ট না থেকে থাকে তাহলে নতুন করে একটি টেলিগ্রাম অ্যাকাউন্ট খুলে নিন।

৫. এবার আপনারা আবারো Yes অপশনে ক্লিক করুন।

৬. তারপর একটু লোডিং হবে আপনারা অপেক্ষা করবেন। এবার আপনাদেরকে কোড দিয়ে ভেরিফাই করতে বলবে। কোডটি আপনারা পাবেন আপনাদের টেলিগ্রাম অ্যাকাউন্টে। কোডটি নেওয়ার জন্য আপনারা আপনাদের টেলিগ্রাম অ্যাকাউন্টে যান।

৭. এবার আপনারা টেলিগ্রাম থেকে আপনাদের ভেরিফিকেশন কোডটি কপি করে নিন। তারপর আবারো চলে যান Unlim Cloud Storage অ্যাপটিতে। তারপর এখানে আপনাদের কোডটি দিয়ে ভেরিফাই করে নিন।

৮. এবার আপনাদের Unlim অ্যাপের মেইন ড্যাশবোর্ড দেখতে পাবেন। এখান থেকে আপনারা আপনাদের ফোনের স্টোরেজ পারমিশন দিয়ে দিবেন।

৯. তারপর এখানে Upload ক্লিক করে আনলিমিটেড আপনাদের ফাইলগুলো আপলোড করতে পারবেন।

বন্ধুরা, এখানে ফাইল আপলোড করার কোনো নিদিষ্ট লিমিট নেই। আপনার যত খুশি, আপনি যত চান ততোগুলো ফাইল এখানে আপলোড করতে পারবেন। আপনার সব ফাইল সর্বোচ্চ সুরক্ষিত থাকবে। এতে আপনার টেলিগ্রাম অ্যাপের কোনো সমস্যা হবে না। তো বন্ধুরা চলুন এবার আমরা Unlim ক্লাউড স্টোরেজ সম্পর্কে আরো বিস্তারিত জেনে নেই।

Unlim ক্লাউড স্টোরেজের বিশেষ সুবিধা কী?

Unlim ক্লাউড স্টোরেজের সবচেয়ে বড়ো সুবিধা হলো এর আনলিমিটেড স্টোরেজ। আপনি এই স্টোরেজ যত খুশি ততো ব্যবহার করতে পারবেন। Unlim ক্লাউডের আনলিমিটেড স্টোরেজের জন্য আলাদা করে আপনাকে কোনো অর্থ প্রদান করতে হবে না। এছাড়াও Unlim ক্লাউড স্টোরেজের বিশেষ কিছু সুবিধা রয়েছে৷ ক্লাউড স্টোরেজের সুবিধাগুলো নিম্নে উল্লেখ করা হলোঃ

  • Unlimited Storage.
  • Super Fast Upload/Download Speed.
  • Lifetime File Protector.
  • Simple User Interface.
  • File Makeing.
  • User Friendly Dashboard.

এই সমস্ত প্রিমিয়াম ফিচারগুলো Unlim ক্লাউড স্টোরেজের একদম ফ্রিতেই উপভোগ করতে পারবেন। তাই আর দেরি না করে এখনই ব্যবহার মরা শুরু করতে পারেন।

Unlim অ্যাকাউন্টের জন্য কতটা সেইফ?

Unlim ব্যবহার করায় অ্যাকাউন্টের ক্ষতি হয়েছে এমন কোনো তথ্য এখন পর্যন্ত পাওয়া যায় নাই। তবে আপনি যদি নিজেকে আরো বেশি সেইফ রাখতে চান, তাহলে আলাদা একটি নাম্বারে Unlim অ্যাকাউন্ট করে ব্যবহার করতে পারবেন। এক্ষেত্রে আপনি সবদিক থেকেই সুরক্ষিত থাকবেন। এছাড়াও Unlim অ্যাকাউন্ট অনেক বেশি সুরক্ষিত, আপনি চাইলে নিশ্চিন্তে Unlim অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করতে পারেন।

শেষ কথা

বর্তমান সময়ে ক্লাউড স্টোরেজ একদম ফ্রিতে ব্যবহার করা প্রায় অসম্ভব। যেখানে ফ্রিতে ব্যবহার করতে পারবেন না সেখানে আনলিমিটেড ক্লাউড স্টোরেজ পাওয়া তো প্রায় দুঃস্বপ্নের মত। তবে বর্তমান সময়ে অনলাইন জগৎটা একটা প্রতিযোগিতামূলক বাজার হওয়ায় সবাই তাদের নিজ নিজ জায়গা ধরে রাখার জন্য যতটা পারছে সুবিধা প্রদান করে যাচ্ছে। অনলাইনে আনলিমিটেড ফ্রিতে ক্লাউড স্টোরিজ পাওয়ার তেমন একটি সুবিধা দিচ্ছে Unlim ক্লাউড প্রতিষ্ঠান। এখানে আপনারা আপনাদের যেকোনো ডকুমেন্ট ছবি, ফটো, ভিডিও আপনাদের প্রয়োজন অনুযায়ী ইচ্ছামতো সংরক্ষণ করে রাখতে পারেন। এতে সংরক্ষণ করা আপনার সকল ডকুমেন্ট অন্যান্য ক্লাউড স্টোরেজ এর মতই সুরক্ষিত থাকবে। Unlim তাদের ডকুমেন্টস রেখে হ্যারেসমেন্টের শিকার হয়েছে এমন ইউজার এখন পর্যন্ত পাওয়া যায়নি। তাই আপনি এদের আনলিমিটেড ক্লাউড স্টোরেজ সার্ভিসটি নিশ্চিন্তে ব্যবহার করতে পারেন। বন্ধুরা, একদম ফ্রিতেই আনলিমিটেড ক্লাউড স্টোরেজ ব্যবহার করার অসাধারণ একটি ট্রিক আমি আপনাদের মাঝে শেয়ার করলাম। আপনি চাইলে আজকের এই Unlim ক্লাউড স্টোরেজ টির সকল ফিচার উপভোগ করতে পারবেন।

তো বন্ধুরা, এই ছিল আমাদের আজকের টিউন, কীভাবে একদম ফ্রিতেই আনলিমিটেড ক্লাউড স্টোরেজ নিবেন! আশাকরি টিউন টি আপনাদের একটু হলেও হেল্পফুল হবে। আজকের মতো এখানেই বিদায় নিচ্ছি, দেখা হবে পরবর্তী টিউনে নতুন কোন বিষয় নিয়ে। ততক্ষণ অবধি সবাই ভালো থাকবেন সুস্থ থাকবেন এবং টেকটিউনস এর সাথেই থাকবেন।

Level 4

আমি স্বপন মিয়া। Sonic টিউনার, টেকটিউনস, গাইবান্ধা, রংপুর। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 1 বছর 2 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 66 টি টিউন ও 28 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 3 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 0 টিউনারকে ফলো করি।

টেকনোলজি বিষয়ে জানতে শিখতে ও যেটুকু পারি তা অন্যর মাঝে তুলে ধরতে অনেক ভালো লাগে। এই ভালো লাগা থেকেই আমি নিয়মিত রাইটিং করি। আশা করি নতুন অনেক কিছুই জানতে ও শিখতে পারবেন।


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস