অ্যান্ড্রয়েড ‘ফোন Spy’ থেকে বেঁচে থাকার ১১ টি ফরমুলা

Level 34
সুপ্রিম টিউনার, টেকটিউনস, ঢাকা

আসসালামু আলাইকুম, কেমন আছেন টেকটিউনস কমিউনিটি? আশা করছি সবাই ভাল আছেন। আজকে আবার হাজির হলাম নতুন টিউন নিয়ে।

বর্তমানে বিভিন্ন ভাবে আপনার ফোনের ডেটা চলে যেতে পারে বিভিন্ন পক্ষের কাছে। এই বিভিন্ন পক্ষ বলতে এখানে আমি বড় বড় টেক জায়েন্টদেরও বুঝাব। গুগল, ফেসবুক, এর মত কোম্পানি আমাদের কাছে বিশ্বস্ত মনে হলেও এটা আমরা সবাই জানি তারা কি পরিমাণ ডেটা আমাদের ফোন গুলো থেকে কালেক্ট করে। আজকে আমরা জানব কীভাবে আপনি অ্যান্ড্রয়েড ফোনের Spy থেকে বেঁচে থাকবেন। শতভাগ Spy মুক্ত থাকা সম্ভব না তবে যতটুকু পারা যায় ততটুকু তো আমরা করতেই পারি।

১. ফোনের সেন্সর গুলো ডিজেবল রাখুন

আপনি হয়তো জানেন না সেন্সরের মাধ্যমেও আপনার ফোন নজরদারিতে থাকতে পারে। আমাদের ফোন যে সেন্সর গুলো থাকে সেগুলোর ডেটাও টেক কোম্পানি গুলো প্রতিনিয়ত ব্যবহার করছে। আপনি যখন প্রতিদিন বাসে করে কোথাও যাচ্ছেন তখন সেটা তারা বুঝতে পারবে ফোনের সেন্সরের মাধ্যমে। কারণ আমাদের ফোনে এমন কিছু সেন্সর রয়েছে যেগুলো ফোনের মুভমেন্ট ট্র‍্যাক করতে ব্যবহার করা হয়।

সেন্সর ডিজেবল করতে আপনাকে ফোনের ডেভেলপার মুড এনেভল করে নিতে হবে। আমরা সবাই হয়তো জানি কীভাবে ফোনের ডেভেলপার মুড এনেভল করা যায়। তারপরেও যারা জানেন না তাদের জন্য, সেটিংস থেকে About Phone এ যান সেখানে থেকে Build Number এ সাত বার ক্লিক করুন এবং বের হয়ে আসুন। এবার সেটিংস এ এসে সবার নিচে Developer Options নামে নতুন একটি অপশন দেখতে পাবেন।

Developer Options থেকে Qiuck Settings Developet tiles এ যান Sensors off অপশনটি এনেভল করে দিন। এটা এনেভল করে দিলে স্ট্যাটাস বারে নতুন একটি আইকন পাবেন। এখন থেকে ফোনের সব সেন্সর যেমন, ক্যামেরা, মাইক্রোফোন সব সেন্সর ডিজেবল হয়ে যাবে। নির্দিষ্ট অ্যাপ ব্যবহারের সময় সেন্সর এনেভল করতে পারেন বাকি সময় অফ রাখুন। আইফোনে আবার এমনটি করা যায় না। বলা যায় এইদিক থেকে অ্যান্ড্রয়েড এগিয়ে আছে।

২. নির্ধারণ করুন কোন অ্যাপ Contact পারমিশন পাবে

আমরা বিভিন্ন অ্যাপ ইন্সটল করার সময় বুঝে না বুঝে অনেক ধরনের পারমিশন দিয়ে ফেলি। এটা করা একদমই উচিৎ নয়। ফোনকে Spy থেকে বাঁচাতে এখনি চেক করুন কোন অ্যাপ Contact পারমিশন নিয়ে রেখেছে। কারণ এটার মাধ্যমে নির্দিষ্ট অ্যাপ আপনার Contact লিস্ট চুরি করতে পারে।

Settings থেকে App এ যান, থ্রিডটে ক্লিক করে Permission Manager ওপেন করুন। Contacts এ ট্যাপ করে দেখে নিন কোন কোন অ্যাপ আপনার Contacts পারমিশন নিয়ে রেখেছে। দরকারি অ্যাপ বাদে সব গুলো অ্যাপ থেকে পারমিশন সরিয়ে নিন।

৩. নির্ধারণ করুন কোন অ্যাপ Location পারমিশন পাবে

Contact এর মতই ফোনের Location এক্সেস সব অ্যাপ এর জন্য দরকারি নয়। অপ্রয়োজনীয় ভাবে লোকেশন এক্সেস থাকলে একদিকে যেমন ডেটা চুরি হয় অন্যদিকে ফোনের চার্জও বেশি ফুরাতে পারে। কিছু অ্যাপ এর লোকেশন এক্সেস দরকার তবে সব সময় নয়।

Settings থেকে App এ যান, থ্রিডটে ক্লিক করে Permission Manager ওপেন করুন। Location এ ট্যাপ করে দেখে নিন কোন কোন অ্যাপ আপনার Location পারমিশন নিয়ে রেখেছে। যেসব অ্যাপে লোকেশন পারমিশন লাগবেই সেগুলোকে Ask every time দিয়ে রাখতে পারেন।

Google এর লোকেশন পারমিশন প্রয়োজন হয় সেক্ষেত্রে এটা Ask every time দিয়ে রাখতে পারেন একই সাথে Use Precise location ডিজেবল করে দিন।

৪. নির্ধারণ করুন কোন কোন অ্যাপ আপনার মেসেজ দেখতে পারবে

True caller এর মত বিভিন্ন অ্যাপ ফোনের SMS পারমিশন চাইতে পারে কারণ নির্দিষ্ট ফিচার ব্যবহার করতে হলে এই পারমিশনটি লাগে। কিন্তু এই ধরনের অ্যাপ ছাড়া অন্য কোন অ্যাপকে SMS পারমিশন দেবার কোন দরকার নেই। এখনি চেক করুন কোন কোন অ্যাপ SMS পারমিশন নিয়ে রেখেছে।

Settings থেকে App এ যান, থ্রিডটে ক্লিক করে Permission Manager ওপেন করুন। SMS এ ট্যাপ করে দেখে নিন কোন কোন অ্যাপ মেসেজ দেখতে পারবে। কাজের অ্যাপ গুলো ছাড়া অন্য অ্যাপ গুলোর পারমিশন বন্ধ করে দিন। Samsung, Google এর মত কোম্পানি গুলোও বিভিন্ন সময় ডেটা লিকের শিকার হয় সুতরাং আমাদের সাবধানে থাকা আবশ্যক।

উপরে উল্লেখিত পারমিশন গুলো ছাড়া অন্যান্য যে পারমিশন গুলো আছে সেগুলোও ভাল মত চেক করে দেখুন। অপ্রাসঙ্গিক কোন অ্যাপ কোন পারমিশন নিয়ে রাখলে সেটা Deny করে দিন।

৫. Samsung এর কাস্টমাইজড এড এবং ডাইরেক্ট মার্কেটিং ডিজেবল করুন

যারা Samsung ফোন ইউজার আছেন তারা প্রাইভেসি রক্ষায় তাদের কাস্টমাইজড এড ডিজেবল করে রাখতে পারেন। এটা আমরা সবাই জানি যে কাস্টমাইজড কথাটা যেখানে আসবে সেখানেই আপনার ডেটা কালেক্ট করা হবে। কারণ আপনার ডেটা তাদের কাছে থাকলেও কেবল আপনাকে কাস্টমাইজড অভিজ্ঞতা প্রদান করতে পারবে।

Settings থেকে Privacy তে যান Customization Service এ ট্যাপ করুন Customized ads and Direct Marketing ডিজেবল করে দিন। এত দিন যত ডেটা তারা কালেক্ট করেছে সেগুলো ডিলিট করতে Erase your data তে ক্লিক করুন।

Samsung কাস্টমাইজড সার্ভিসের মত Privacy তে আপনি আরেকটি অপশন পাবেন, Android Personalization Service নামে। বিভিন্ন কারণে বিভিন্ন ভাবে এই ফিচারটিও মিস-ইউজ হতেই পারে তাই ভাল হয় এটা ডিজেবল করে দিন।

সেটিংস থেকে Privacy তে যান এবং Android Personalization Service অপশনটি ডিজেবল করে দিন।

৬. Send Diagnostic Data অফ করে দিন

Diagnostic ডাটা সেন্ড হওয়া মানে কী সেটা আমরা সবাই জানি। বিভিন্ন ইস্যু মেইন সার্ভারে পাঠানো হয় যাতে পরবর্তীতে এই সকল ইস্যু সলভ করা যায়। কিন্তু যেহেতু এই অপশনটির মাধ্যমে আমাদের ফোন থেকে ডেটা বাইরে যাচ্ছে সেহেতু এখানে রিস্ক কিছুটা থেকেই যায়। ভাল হয় আপনি এই ফিচারটি অফ করে দিতে পারেন।

Settings থেকে Privacy তে যান এবং Send Diagnostic Data ডিজেবল করে দিন।

৭. Google Location History, ডিজেবল করুন

বিভিন্ন কারণে গুগল আমাদের লোকেশন পারমিশন নেয় এবং সেটা সার্ভারে সেভ রাখে। আপনি চাইলে লোকেশন হিস্ট্রি অফ করে রাখতে পারেন।

লোকেশন হিস্ট্রি অফ করতে প্রথমে Google Accounts এ যান Data & Privacy থেকে Location History তে ট্যাপ করুন। এবার Turn off করে দিন। আপনি চাইলে এখান থেকে পূর্বের হিস্ট্রি গুলোও ডিলিট করে দিতে পারবেন। লোকেশন হিস্ট্রি টার্ন অফ করা মানে এটা অন করার আগ পর্যন্ত Pause হয়ে থাকবে।

৮. গুগলের পারসোনালাইজড এড অফ করুন

গুগল আপনার সার্চ ডেটার উপর ভিত্তি করে আপনাকে বিভিন্ন এড দেখাতে পারে এটাই মূলত পারসোনাইজেশন এডের মুল কথা। কিন্তু এর মাধ্যমে তারা আপনার সার্চ ডেটা নিয়ে যেতে পারে। এটা ডিজেবল করা দেওয়াই ভাল।

Google Accounts এ যান Data & Privacy থেকে Personalized Ads এ যান এবং সেটা অফ করে দিন।

৯. Usage and diagnostics ডিজেবল করে দিন

Settings থেকে Privacy তে গেলে সবার নিচে আপনি Usage and Diagnostics নামে আরেকটি অপশন পাবেন। এটা হচ্ছে পুরো অ্যান্ড্রয়েড সিস্টেম এর Diagnostics রিপোর্ট সেন্ড মাধ্যম। এর মাধ্যমেও আপনার ফোনের ডেটা যেতে পারে রিমোট লোকেশনে। নিরাপত্তার স্বার্থে এটা ডিজেবল করে দিন।

১০. Turn off Install Unknown অফ করে দিন

এই অপশনটি আপনার ফোনের জন্য বেশ ভয়ানক হতে পারে। নির্দিষ্ট অ্যাপ এর ক্ষেত্রে এই ফিচারটি অফ করে দেয়া জরুরি তা না হলে এটি অন্য অ্যাপ আপনার অজান্তেই ইন্সটল করে নিতে পারবে। যা পরবর্তীতে ইচ্ছে মত ডেটা আপনার ফোন থেকে কালেক্ট করতে থাকবে। এর মাধ্যমে ফোনে ইন্সটল হয়ে যেতে পারে বিভিন্ন ম্যালওয়্যার।

এটি বন্ধ করতে প্রথমে সেটিংস এ যান এর পর Biometrics and Security তে ট্যাপ করুন Install unknown apps সিলেক্ট করে যেসব অ্যাপে এটি এনেভল করা আছে সেগুলো ডিজেবল করে দিন। অ্যাপ ইন্সটল করার ক্ষেত্রে সব সময় Google Play Store ব্যবহার করুন।

১১. এডমিন এক্সেস নেয়া অ্যাপ গুলো ডিএক্টিভেট করুন

কোন নির্দিষ্ট অ্যাপ আপনার ফোনের এডমিন এক্সেস নিতে পারে এটা হয়তো আপনি জানেন না। এডমিন এক্সেস নেয়া অ্যাপ চাইলে ফোনে যেকোনো কিছুই করতে পারে, আপনার ফোনের ডাটা ডিলিট করে দিতে পারে, লক স্ক্রিন চেঞ্জ করতে পারে আরও অনেক কিছুই করতে পারে। এখনি চেক করুন কোন কোন অ্যাপ এডমিন এক্সেস নিয়ে রেখেছে।

এটা দেখতে সেটিংস থেকে Biometrics and Security তে যান। এর পর Other security settings এ যান, এখান থেকে Device admin apps এ ট্যাপ করুন। দেখুন কোন অ্যাপ এনেভল করা আছে কিনা। থাকলে সেটা দ্রুত ডিজেবল করুন।

শেষ কথা

পারসোনালাইজড এড বা আপনি যা চান সেই অনুযায়ী বিজ্ঞাপণ প্রদর্শনের কথা বলে টেক কোম্পানি গুলো আমাদের ফোনের ডেটা কালেক্ট করছে। ডেটা কালেক্ট করে কী করছে বা কোথায় এই সব ডেটা কাজে লাগে বা বিক্রি হয় সে বিষয়ে না হয় অন্যদিন কোন দিন কথা হবে। আশা করছি ১০ টি টিপস আপনাকে ফোন Spy থেকে বাঁচতে সাহায্য করবে।

তো আজকে এ পর্যন্তই পরবর্তী টিউন পর্যন্ত ভাল থাকুন, আল্লাহ হাফেজ।

 

Level 34

আমি সোহানুর রহমান। সুপ্রিম টিউনার, টেকটিউনস, ঢাকা। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 10 বছর 8 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 517 টি টিউন ও 200 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 114 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 0 টিউনারকে ফলো করি।

কখনো কখনো প্রজাপতির ডানা ঝাপটানোর মত ঘটনা পুরো পৃথিবী বদলে দিতে পারে।


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস