কম দামে কম্পিউটার বা ল্যাপটপ কেনার সেরা সময় কখন?

Level 12
কন্টেন্ট রাইটার, টেল টেক আইটি, গাইবান্ধা

আসসালামু আলাইকুম। আমাদের কাজের প্রয়োজনে অথবা শখের বশে কম্পিউটার কেনার দরকার পড়ে। তবে, আমরা সব সময় কম দামে একটি কম্পিউটার কেনার চেষ্টা করতে পারি। আপনিও কি একটি নতুন কম্পিউটার Lowest Price এ কিনতে চান? একটি নতুন ল্যাপটপ বা একটি কম্পিউটার কেনার সেরা সময় কখন?

আমাদের জন্য একটি নতুন কম্পিউটার অথবা ল্যাপটপ কেনা ব্যয়বহুল হতে পারে। তাই আমাদেরকে এমন সময় ল্যাপটপ বা কম্পিউটার কিনতে হবে, যখন সেটির দাম থাকবে তুলনামূলকভাবে কম।

স্বাভাবিকভাবে, ইলেকট্রনিক্স এসব পণ্যগুলোর দাম সর্বদাই পরিবর্তনশীল। এক্ষেত্রে বার্ষিক বিক্রয় বা নতুন হার্ডওয়্যার লঞ্চ করার সময় বেশিরভাগ ছাড় দেখা যায় এবং এ সময়েই আপনার জন্য উপযুক্ত হতে পারে। যাইহোক, আপনি বাজারের সেসব পণ্যগুলোর দাম কমার প্রতি লক্ষ্য করতে পারেন, যখন সেগুলোর দাম হ্রাস পাবে। আপনার যদি একটি ল্যাপটপের বা কম্পিউটারের খুব জরুরী প্রয়োজন পড়ে, তাহলে আপনি অপেক্ষা না করে কিনে নিতে পারেন।

আর অন্যদিকে আপনি যদি কম্পিউটার সামগ্রী কেনার জন্য ডিসকাউন্ট খুঁজে থাকেন, তাহলে অবশ্যই উপযুক্ত সময়ের জন্য অপেক্ষা করা উচিত। প্রত্যেক বছরে এমন কিছু সময় থাকে, যখন কম্পিউটার সহ যাবতীয় ইলেকট্রনিক্স পণ্যের দামে বিশাল পরিমাণ ডিসকাউন্ট দেয়া হয়। তাই, আমাদেরকে এ সকল দিনগুলোর ব্যাপারে জানতে হবে, যাতে করে আমরা সেই সময়ের আগে টাকা ম্যানেজ করতে পারি।

আজকের এই টিউনে ল্যাপটপ বা কম্পিউটার কেনার কয়েকটি সেরা সময় নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে, যেগুলো অনুসরণ করে আপনি কম দামে কম্পিউটার কিনতে পারেন।

১. মৌসুম ভিত্তিক বিক্রয়

মৌসুম ভিত্তিক বিক্রয়

সমস্ত কোম্পানিগুলো বিভিন্ন মৌসুমকে উপলক্ষ করে তাদের পণ্যে ডিসকাউন্ট দিয়ে থাকে। বাংলাদেশের ক্ষেত্রে দেখা যায়, দুই ঈদের আগে প্রায় সকল ধরনের পণ্যে ডিসকাউন্ট দেখা যায়। এক্ষেত্রে টিভি, রেফ্রিজারেটর, এসি কিংবা অন্য আরো হোম এপ্লায়েন্সের জন্য তারা ডিসকাউন্ট অফার করে। মূলত, দুই ঈদের আগে প্রত্যেক চাকুরীজীবীরা তাদের মূল বেতনের সাথে অতিরিক্ত বোনাস পায় এবং এক্ষেত্রে তারা অতিরিক্ত কেনাকাটা করার চেষ্টা করে। আর, অনেকেই তাদের পণ্যটি কেনার ক্ষেত্রে ঈদের জন্য অপেক্ষা করে।

আর এজন্যই আপনি দেখবেন যে, প্রত্যেক কুরবানি ঈদের আগে রেফ্রিজারেটর কেনার ক্ষেত্রে অনেক অফার থাকে এবং কখনো কখনো ১০০% ক্যাশব্যাক এর মত ও অফার দেখা যায়। যাইহোক, দেশভেদে এরকম বিভিন্ন দিনকে উপলক্ষ করে কোম্পানিগুলো তাদের পণ্যে ডিসকাউন্ট দিয়ে থাকে। বাংলাদেশের ক্ষেত্রে ২ ঈদ এবং ভারতের ক্ষেত্রে হয়তোবা দুই পূজার সময় এই অফার দেখা যায়।

বিভিন্ন মৌসুম উপলক্ষে চাকরিজীবীরা বোনাস পাওয়ায়, এ সময়ে খুচরা বিক্রেতারা সেই অর্থের সুবিধা নিতে চাইবে। আর তারা ক্রেতাদের আকৃষ্ট করতে এবং বছরের শেষে তাদের স্টক বিক্রি করার জন্য পণ্যগুলোতে ছাড় প্রয়োগ করে।

কোন একটি পণ্যের ডিসকাউন্টের পদ্ধতি বিভিন্নভাবে হতে পারে। এক্ষেত্রে, যেমন Traditional Discount, Cashback Offer এবং Voucher Codes। খুচরা বিক্রেতারা সাধারণত কোন একটি নববর্ষের দিনের মতো গুরুত্বপূর্ণ দিনকে লক্ষ্য করে একদিন অথবা কয়েক দিনের জন্য এ ধরনের বিক্রির অফার করে। তাই এই সময়গুলোতে আপনি অবশ্যই তাদের ওয়েবসাইট ক্রমাগত চেক করতে ভুলবেন না। আপনি অবশ্যই তাদের পণ্য বিক্রির অফার সম্পর্কে নজর রাখুন।

২. স্টক শেষ করার জন্য অফার

স্টক শেষ করার জন্য অফার

বর্তমানে বিভিন্ন পণ্যের উপর এই ধরনের ডিসকাউন্ট অফার অনেক জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। বিক্রেতারা বিভিন্ন কারণে সীমিত সময়ের জন্য অথবা নির্দিষ্ট পরিমাণ স্টকের জন্য ডিসকাউন্ট অফার করে। এ ধরনের ডিসকাউন্ট গুলো অস্বাভাবিকভাবে আসতে পারে। তারা তাদের নির্দিষ্ট কোন মডেলের ল্যাপটপ অথবা হার্ডওয়্যার সামগ্রী বিক্রি করে দ্রুত শেষ করার জন্য এই ধরনের Discount অফার দেয়। এক্ষেত্রে দেখা যায় যে, সেই মডেলের ল্যাপটপগুলোতে কয়েক হাজার টাকা পরিমাণ ডিসকাউন্ট থাকে।

যাইহোক, এই দিনগুলোতে বিক্রেতারা তাদের পুরাতন পণ্যগুলো দুর্দান্ত দামে অনেক বেশি পরিমাণে সেল করে। তবে আপনি সেই নির্দিষ্ট মডেলের কম্পিউটার বা ল্যাপটপটি কেনার আগে অবশ্যই সেটি নিয়ে গবেষণা করুন। সেই মডেলের ল্যাপটপটি আপনার চাহিদা পূরণ করতে পারবে কিনা, তা দেখা উচিত। আপনি যেন আপাতত সেই আকর্ষণীয় মূল্য দেখে আকৃষ্ট না হন। এক্ষেত্রে আপনি অন্য কোন মডেল বা ব্রান্ডের প্রতি লক্ষ্য করতে পারেন, যেগুলো আপনাকে একই দামের চেয়ে ভালো কিছু অফার করছে।

তাই, আপনি কম্পিউটার কেনার জন্য কোন একটি ব্র্যান্ডের বর্তমান সময়ের ডিসকাউন্ট মডেল গুলো অনুসন্ধান করুন এবং কম দামে আপনার কম্পিউটারটি বেছে নিন।

৩. শিক্ষার্থীদের লক্ষ্য করে ল্যাপটপ বা কম্পিউটারের দামে ডিসকাউন্ট

শিক্ষার্থীদের লক্ষ্য করে ল্যাপটপ বা কম্পিউটারের দামে ডিসকাউন্ট

সাধারণত, Back-to-school Period আগস্ট থেকে সেপ্টেম্বর মাসে চলে (যদিও এটি আগেও শুধু হতে পারে)। যাইহোক, খুচরা বিক্রেতারা শিক্ষার্থী এবং অভিভাবকদের লক্ষ্য করে এই সময়গুলোতে তাদের পণ্যের ডিসকাউন্ট দিয়ে থাকে। আর তাই একটি ডেস্কটপ কম্পিউটারের পরিবর্তে একটি নতুন ল্যাপটপ কেনার জন্য এটি একটি উপযুক্ত সেরা সময় হতে পারে।

ল্যাপটপের জন্য আকর্ষণীয় ডিলগুলো সাধারণত এই সময়ের মধ্যেই বেশি হয়ে থাকে। কারণ, কলেজ এবং বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া ছাত্রছাত্রীরা এই সময়ে কেনাকাটা করে। তাই আপনি আপনার জন্য একটি সেরা ল্যাপটপ বাছাই করে নিতে এই সময়ের অপেক্ষায় থাকুন।

বিভিন্ন বিক্রেতাদের মধ্যে, Microsoft Apple এবং Sony এর মত প্রতিষ্ঠানগুলো শিক্ষার্থীদের জন্য Exclusive Discount দেয়। ‌ আর এ ধরনের ডিলগুলো সাধারণত একটি Student ID এবং Valid Academic Email Address এ পাওয়া যায়। এমনকি Apple শিক্ষক এবং অভিভাবকদের জন্য Educational Pricing কমিয়ে রাখে, যেগুলো তারা তাদের সন্তানদের জন্য কিনছেন।

৪. নতুন হার্ডওয়ার রিলিজ

নতুন হার্ডওয়ার রিলিজ

নতুন হার্ডওয়্যার বাজারে রিলিজ হওয়ার সাথে সাথে পুরাতন পণ্যগুলোর চাহিদা ব্যাপকভাবে কমে যায়। আপনি সাধারণত দেখতে পাবেন যে, খুচরা বিক্রেতারা যদি নতুন হার্ডওয়্যার পাওয়ার আশা করে, তাহলে তারা তাদের বর্তমান স্টক গুলোতে ছাড় দেওয়া শুরু করে। আর এক্ষেত্রে আপনি এই সুযোগটি কাজে লাগাতে পারেন।

যদিও বিভিন্ন ম্যানুফ্যাকচাররা বিভিন্ন সময়ে তাদের নতুন ডিভাইস বাজারে ছাড়ে। তাই, তারা কোন সময়ে তাদের নতুন পণ্য বাজারে ছাড়বে এবং আপনি ডিসকাউন্ট দিয়ে কম্পিউটার কিনবেন, তা সঠিকভাবে বলা সম্ভব নয়। তবে, সাধারণত নতুন প্রোডাক্টগুলো বসন্তে অথবা বছরের মাঝামাঝি সময়ে রিলিজ হয়। এক্ষেত্রে সেপ্টেম্বরের দিকে নতুন প্রোডাক্ট বেশি বাজারে আসে।

বিভিন্ন ম্যানুফ্যাকচারদের মধ্যে Dell, HP এবং Acer প্রায়শই একই টাইমলাইনের তাদের New Product রিলিজ করে। যাইহোক, এক্ষেত্রে আপনাকে অবশ্যই তাদের ওয়েবসাইট এবং Tech News এ চোখ রাখতে হবে, যাতে করে আপনি সেই দিনগুলোর জন্য প্রস্তুত হতে পারেন।

নতুন ম্যাকবুক সাধারণত বসন্ত এবং শীতকালে রিলিজ হয়। আর অ্যাপল সাধারণত মার্চ, জুন এবং সেপ্টেম্বরের দিকে মিডিয়া ইভেন্টের মাধ্যমে তাদের নতুন প্রোডাক্টগুলো উন্মুক্ত করে। তাই, অ্যাপল ল্যাপটপ কেনার উপযুক্ত সময় হল তাদের নতুন হার্ডওয়্যার ঘোষণার ঠিক আগে। কেননা, এই সময়গুলোতে গ্রাহকগণ নতুন প্রোডাক্ট কেনার জন্য বসে থাকে এবং পুরাতন প্রোডাক্ট গুলোর চাহিদা তেমন থাকে না। আর এজন্য, পুরাতন মডেলের ল্যাপটপ এবং মোবাইলের ক্ষেত্রে বিক্রেতারা Discount অফার করতে পারে।

মাইক্রোসফট অক্টোবরে তাদের ইভেন্টের আয়োজন করে এবং যেখানে তারা তাদের Latest Surface প্রোডাক্টের ঘোষণা দেয়। আর গুগল ও একই সময়ে তাদের ইভেন্ট রাখে, তাই আপনি Pixelbook‌ নেওয়ার জন্য এই সময়ের অপেক্ষা করতে পারেন।

আপনি বড় Hardware রিলিজ হওয়ার খবরগুলোতে নজর রাখুন এবং এই সময়গুলোতে সম্ভবত খুচরা বিক্রেতারা তাদের পুরনো স্টকে একটি চমৎকার ছাড় দিতে পারে।

তবে, রিটেইলাররা যখন তাদের কোন একটি নির্দিষ্ট মডেলের ল্যাপটপে ডিসকাউন্ট দেয়, তখন এটি আপনার চাহিদা অনুযায়ী নাও হতে পারে। এক্ষেত্রে আপনি তাদের Discount Offer মিস করতে পারেন। তবে, প্রায় সকলেই নতুন প্রযুক্তির ডিভাইস হাতে পেতে চায় এবং নতুন প্রোডাক্ট বাজারে আসার সাথে সাথে সেটির প্রতি একটি হাইপ তৈরি হয়। আপনার যদি কোন একটি সাধারণ কাজের জন্য ল্যাপটপ বা কম্পিউটারের প্রয়োজন হয়, তাহলে এ ধরনের ডিসকাউন্ট অফার গুলোতে সেটি কিনে নিতে পারেন।

আর আপনি যদি Latest Laptop গুলো চান, তাহলে সেটি রিলিজ হওয়ার পর কয়েক মাস অপেক্ষা করুন। কেননা, যখন একটি নতুন মডেলের ল্যাপটপ বাজারে আসে, তখন সেটির প্রতি একটি বিশাল হাইপ তৈরি হয় এবং সেটির দাম কিছুটা বেড়ে যায়। আর যখন সেটির প্রতি হাইপ কমে যাবে এবং দাম কিছুটা কম হবে, তখন আপনি সেটি কেনার কথা চিন্তা করতে পারেন।

৫. Flash Sales এবং Price Tracking

Flash Sales এবং Price Tracking

আপনার জন্য Flash Sales একটি ভালো ডিল হতে পারে। বছরের যেকোনো সময়ে সাধারণত Flash Sales হয়ে থাকে। আমরা বিশেষ করে ই-কমার্স ওয়েবসাইটগুলোতে প্রতিদিন বিভিন্ন পণ্যের উপর ফ্ল্যাশ সেল দেখতে পারি। Amazon এবং Daraz এর মত ওয়েবসাইটে বিভিন্ন বিক্রেতারা তাদের পণ্যের ডিসকাউন্ট দিয়ে থাকে এবং এসব প্রোডাক্ট এর ভেতরে আপনার পছন্দের প্রযুক্তি পণ্যটি ও অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে। অনেক সময় ম্যানুফ্যাকচারেরা তাদের নির্দিষ্ট কোন একটি মডেলের পণ্য ই-কমার্স ওয়েবসাইটে ফ্ল্যাশ সেল এর মাধ্যমে বিক্রি করে।

আপনি যদি কম দামে একটি ল্যাপটপ কেনার জন্য আগ্রহী হয়ে থাকেন, তাহলে সেই কোম্পানির প্রোডাক্ট এর ফ্ল্যাশ সেল গুলোর প্রতি নজর রাখুন। এক্ষেত্রে তাদের সোশ্যাল মিডিয়া সাইটগুলো ফলো করে রাখতে পারেন। আর, কোন একটি কোম্পানির প্রত্যেক বছর নির্দিষ্ট কোন সময়কে উপলক্ষে করে তাদের পণ্যের উপর ডিসকাউন্ট দিতে পারে। আর তাই, আপনি Price Tracker টুলের সাহায্য নিতে পারেন। এসব টুলগুলোর মাধ্যমে আপনি সেই পণ্যের Price History সেভ করতে পারবেন এবং আপনার সেট করা নির্দিষ্ট অ্যামাউন্টে পণ্যটি আসলে নোটিফিকেশন পাবেন। কোন প্রোডাক্টের মূল্য ট্র্যাকিং শেখার জন্য আপনি এই টিউনটি দেখতে পারেন।

নতুনের পরিবর্তে একটি ব্যবহৃত কম্পিউটার বা ল্যাপটপ কিনতে পারেন

কম দামে পুরাতন ল্যাপটপ ও কম্পিউটার

আপনি যদি সকল ডিসকাউন্ট পেয়েও কম দামে একটি ভাল মানের ল্যাপটপ বা কম্পিউটার খুঁজে না পান, তাহলে আপনি একটি Used Laptop বাছাই করে নিতে পারেন। আশা করছি উপরের টিপস গুলো অনুসরণ করে আপনি কম্পিউটার বা ল্যাপটপ সহ সঠিক সময়ে কেনার জন্য প্রস্তুত থাকতে পারবেন। আপনি যদি সত্যিই একটি ল্যাপটপ কেনার জন্য আগ্রহী হয়ে থাকেন, তাহলে আপনাকে অবশ্যই সর্বদা ডিলগুলোর প্রতি নজর রাখতে হবে। কেননা, আপনি কখনোই জানেন না যে, একজন রিটেলার কখন তার পণ্যে ডিসকাউন্ট দিবে।

তবে, আপনাকে খুব বেশি অপেক্ষা করা উচিত নয়। আপনি যদি অনেকদিন ধরে এরকম অপেক্ষায় থাকেন, তাহলে আপনি হতাশ হতে পারেন এবং আসল অফারটি হারিয়ে ফেলতে পারেন। তার চাইতে ভালো হয়, যদি নির্দিষ্ট সময়ের ভেতরে অফারটি না পান, তাহলে কারো কাছ থেকে ব্যবহৃত ল্যাপটপ কম দামে ক্রয় করা। এমন অনেকেই রয়েছে যে, যারা কিছুদিন ল্যাপটপ ব্যবহার করার পর কোন কারণ ছাড়াই বিক্রি করে দেয়। আপনি সে সমস্ত ব্যবহারকারীদের কাছ থেকে সেই কম্পিউটারটি নিতে পারেন অথবা Used Laptop মার্কেট থেকে সরাসরি ল্যাপটপ কিনতে পারেন।

বর্তমানে অনেক শহরে পুরাতন ল্যাপটপ বিক্রির শোরুম রয়েছে, যারা অনেক দামি ল্যাপটপ অনেক কম দামে বিক্রি করে। তারা মূলত বিভিন্ন দেশ থেকে এসব ল্যাপটপগুলো আমদানি করে থাকে। আপনি এসব শোরুমের বাইরে আশেপাশের বন্ধু-বান্ধব থেকেও পুরাতন ল্যাপটপ বা কম্পিউটার সংগ্রহ করে আপনার অর্থ সাশ্রয় করতে পারেন।

শেষ কথা

আমরা সকলেই চাই কম দামে একটি বেস্ট ল্যাপটপ Buy করার। তবে, কম্পিউটার বা ল্যাপটপ ম্যানুফ্যাকচারারেরা সব সময় কম দামে প্রোডাক্ট অফার করে না। এক্ষেত্রে তারা বছরের নির্দিষ্ট কিছু সময়ে অথবা কোন বিশেষ দিনকে লক্ষ্য করে প্রোডাক্টে ডিসকাউন্ট দেয়। আর আমাদের কম দামে ল্যাপটপ কেনার জন্য অবশ্যই এইসব দিনগুলোর প্রতি নজর রাখতে হবে, যাতে করে আমরা কম দামে Laptop ক্রয় করতে পারি। তাই, সাশ্রয় মূল্যে ল্যাপটপ ক্রয় করার জন্য আপনি উপরের ট্রিক্সস গুলো অনুসরণ করতে পারেন।

আজ তবে এ পর্যন্তই শেষ করছি। ধন্যবাদ, আসসালামু আলাইকুম।

Level 12

আমি মো আতিকুর ইসলাম। কন্টেন্ট রাইটার, টেল টেক আইটি, গাইবান্ধা। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 2 বছর 2 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 265 টি টিউন ও 87 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 49 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 3 টিউনারকে ফলো করি।

“আল্লাহর ভয়ে তুমি যা কিছু ছেড়ে দিবে, আল্লাহ্ তোমাকে তার চেয়ে উত্তম কিছু অবশ্যই দান করবেন।” —হযরত মোহাম্মদ (সঃ)


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস