ফ্রিতে ধুমিয়ে আন-লিমিটেড ডাউনলোডের জন্য সেরা ৭ টি টরেন্ট সার্চ ইঞ্জিন

Level 31
সুপ্রিম টিউনার, টেকটিউনস, ঢাকা

আসসালামু আলাইকুম কেমন আছেন টেকটিউনস কমিউনিটি, আশা করছি ভাল আছেন সুস্থ আছেন৷ বরাবরের মতই আপনাদের সামনে হাজির হলাম নতুন টিউন নিয়ে। আজকে আলোচনা করব সেরা কিছু টরেন্ট সাইট নিয়ে। তো চলুন কথা না বাড়িয়ে শুরু করা যাক।

টরেন্ট ওয়েবসাইট ও আন্ডারগ্রাউন্ড সার্চ ইঞ্জিন সম্পর্কে আমরা সবাই জানি। মেইনস্ট্রিম সার্চ ইঞ্জিন গুলা যা দিতে পারে না তা পাবার সহজ উপায় হচ্ছে টরেন্ট সাইট ও আন্ডারগ্রাউন্ড সার্চ ইঞ্জিন।

আজকে আমি টরেন্ট সাইট সম্পর্কে আলোচনা করব, আগে বলে নিতে চাই, ফ্রিতে অথবা বিনামূল্যে টরেন্ট সাইট গুলো থেকে প্রয়োজনীয় ফাইল ডাউনলোড করা হলেও সেখানে থাকে ব্যাপক প্রাইভেসি রিস্ক। একই সাথে আপনার ডিভাইস বিভিন্ন ম্যালওয়্যার বা ভাইরাস দ্বারাও আক্রান্ত হতে পারে, তাই নিজ দায়িত্বে ব্যবহার করবেন।

কিভাবে আন্ডারগ্রাউন্ড সার্চ ইঞ্জিন বা টরেন্ট সাইট খুঁজে বের করবেন?

ইন্টারনেটের অধিকাংশ ইউজাররা এর একটি অংশই কেবল দেখে এর যে বিশাল আরেকটা অংশ রয়েছে সে সম্পর্কে খুব কম মানুষের ধারণা রয়েছে। চলুন ইন্টারনেটের কয়েকটা লেয়ার দেখে নেয়া যাক,

১. সারফেস ওয়েবঃ

ইন্টারনেটের এই অংশটি এভারেজ ইউজাররা দেখে। এই অংশটি বিভিন্ন স্ট্যান্ডার্ড সার্চ ইঞ্জিনে ইনডেক্স থাকে যেমন, Google, Bing ইত্যাদি। এই সব সার্চ ইঞ্জিনে প্রদর্শিত সকল রেজাল্টই সারফেস ওয়েবের অধীনে পড়ে।

২. ডিপ ওয়েব

সহজ ভাবে বলতে গেলে পাসওয়ার্ড প্রটেক্ট বিভিন্ন ওয়েবপেইজকে ডিপ ওয়েব বলে। সাধারণ সার্চ ইঞ্জিন গুলোতে সেই পেজ গুলা ইনডেক্স হয় না কারণ পাসওয়ার্ড এর মাধ্যমেই কেবল সেই পেজ গুলোতে প্রবেশ করা যায়। তাছাড়া বিভিন্ন প্রাইভেট কোম্পানি বা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানেরও এমন ওয়েবপেজ থাকতে পারে যা কেবল নির্দিষ্ট মানুষের জন্যই এক্সেস-যোগ্য।

৩. ডার্ক ওয়েব

ইন্টারনেটের হিডেন পার্টকেই মূলত ডার্ক ওয়েব বলে। ডার্ক ওয়েব হিডেন একটি নেটওয়ার্ক যা বিভিন্ন আন্ডারগ্রাউন্ড সার্চ ইঞ্জিন টরেন্ট সাইটের মাধ্যমে এক্সেস করা যায়। ইউজাররা স্বাভাবিক ভাবে স্ট্যান্ডার্ড কোন ব্রাউজার দিয়ে টরেন্ট সাইটে প্রবেশ করতে পারে না। ডার্ক ওয়েব নেটওয়ার্ক Tor বা Onion Routing নামে পরিচিত। সাধারণ ওয়েবসাইটের এক্সটেনশন বেশিরভাগ ক্ষেত্রে যেখানে. Com টরেন্ট ওয়েবসাইটের এক্সটেনশন সেখানে. Onion।

সাধারণ ইউজারদের কাছে Tor ব্রাউজার সেটআপ করা বেশ কষ্টসাধ্য ব্যাপার হতে পারে আর তাই টরেন্ট এবং আন্ডারগ্রাউন্ড সার্চ ইঞ্জিন এর উদ্ভব। সাধারণ ইউজাররাও টরেন্ট সার্চ ইঞ্জিন ব্যবহার করে টরেন্ট ক্লায়ন্টের মাধ্যমে ডার্ক-ওয়েব থেকে ফাইল ডাউনলোড করতে পারে।

আন্ডারগ্রাউন্ড টরেন্ট সাইট বা সার্চ ইঞ্জিন কি বৈধ?

টরেন্টের ফাইল গুলো কোন নির্দিষ্ট সার্ভারে স্টোর করা থাকে না, যখন ডাউনলোড হয় তখন সেটা অন্য আরেকজন ইউজারের পিসি থেকে আপনার পিসিতে আসবে। যারা ইতিমধ্যে ফাইলটি ডাউনলোড দিয়েছে তাদের পিসি থেকে আপনার পিসিতে ট্রান্সমিট হবে, এখানে নির্দিষ্ট একজন ইউজারকে বলা হয় Peer আবার এই ট্রান্সমিশন প্রসেসকে বলা হয় Seeding। আর এভাবেই একজন ইউজার থেকে আরেকজন ইউজার প্রিমিয়াম সফটওয়্যার, সিনেমা, স্বল্প মূল্যে অথবা ফ্রিতে ডাউনলোড করতে পারে।

এখানে বলে রাখা ভাল টরেন্ট ওয়েবসাইট গুলো কখনোই কোন সরকারের নিয়ন্ত্রণাধীন নয়, এই পর্যন্ত অনেক জনপ্রিয় টরেন্ট সাইট নিষিদ্ধ ঘোষিত হয়েছে এবং স্থায়ী ভাবে বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। টরেন্ট ওয়েবসাইট গুলো বন্ধ হবার অন্যতম কারণ এই গুলো কপিরাইট লঙ্ঘন করে যা নির্দিষ্ট ব্যক্তি বা এন্টারপ্রাইজ এর জন্য হুমকি সরূপ। একই সাথে ইউজারদের প্রাইভেসি রিস্ক তো আছেই।

দারুণ সাতটি টরেন্ট ও আন্ডারগ্রাউন্ড সাইট

নিচে কিছু টরেন্ট ওয়েবসাইটের লিংক দিলাম তবে মনে রাখবেন টরেন্ট গুলো Seed হবার সময় কখন কখনো বাধা পেতে পারে কারণ অনেক ISP টরেন্টিং ব্লক করে রাখে। সেক্ষেত্রে VPN ব্যবহার করা বুদ্ধিমানের কাজ হবে।

১. Limetorrents

Limetorrents টরেন্ট সাইটটি তৈরি হয় ২০০৯ সালে যার এর মুহূর্তে ২৪ মিলিয়নেরও বেশি ইউজার রয়েছে। বিশ্বের জনপ্রিয় আন্ডারগ্রাউন্ড সার্চ ইঞ্জিন গুলোর মধ্যে এটি অন্যতম, ধারণা করা যায় এর লাইব্রেরিতে ১০ মিলিয়নেরও বেশি টরেন্ট রয়েছে।

Limetorrents সাইটে আপনি মুভি, গেম, অ্যাপ, টিভি শো সহ আরও অনেক কিছু পাবেন। এখানে রিসেন্ট আপডেট এর লিস্ট সহ ফ্রিকোয়েন্সি ডাউনলোড টরেন্ট এর লিস্টও পাবেন। এখানে এমন কিছু ই-বুক বা ইউজার ম্যানুয়াল আছে যা অন্য সাইটে পাবেন না।

Limetorrents

অফিসিয়াল ওয়েবসাইট @ Limetorrents

২. The Pirate Bay

The Pirate Bay (TPB) সাইটটি ২০১৩ সাল থেকে চালু হয়। এটাকে প্রিমিয়াম স্টাফ এর আল্টিমেট প্ল্যাটফর্ম বলা হয়। ফ্রিতে প্রিমিয়াম সব ফাইল ডাউনলোডে এই সাইট সব সময় এগিয়ে।

TPB এর রয়েছে বিভিন্ন ক্যাটাগরির টরেন্ট ফাইলের বিশাল ডাটাবেইজ যেমন, Games, Movies, TV shows, Music, Software, ইত্যাদি। P2P ফাইল শেয়ারিং এর কিং বলা হয় একে। তাছাড়া এর ইউজার ইন্টারফেসটি একদম সিম্পল যারা টরেন্টিং এ নতুন তাদেরও বুঝতে কোন অসুবিধা হবে না।

ফাইল ডাউনলোড সহজ করতে এখানে পাবেন মাল্টিপল মিরর লিংক এবং ম্যাগনেট লিংক। তবে বলে নেয়া ভাল সকল দেশে TPB এভেইলেবল নয় তবে VPN থাকায় এটা বড় কোন সমস্যা না।

The Pirate Bay

অফিসিয়াল ওয়েবসাইট @ The Pirate Bay

৩. Torlock

হাই কোয়ালিটি এনিমেশন, মুভি, টিভি সিরিজ, ই-বুকের জন্য বিখ্যাত একটি টরেন্ট ওয়েবসাইট হল Torlock। এই সাইটে ৪.৮ মিলিয়নেরও বেশি ফাইল বর্তমানে এভেইলেবল রয়েছে।

ইউজাররা আলাদা ভাবে টপ ১০০ টি জনপ্রিয় টরেন্ট পেয়ে যাবে এতে সেরা টরেন্ট গুলো বেছে নিতে সুবিধা হবে। Torlock এর রয়েছে বিশাল মিউজিক লাইব্রেরি। এর ইউজার ইন্টারফেসও বেশ চমৎকার।

Torlock

অফিসিয়াল ওয়েবসাইট @ Torlock

৪. TorrentDownloads.me

ফ্রি মুভি, গেম, মিউজিক, সফটওয়্যার, টিভি শো সহ আরও অনেক টরেন্টের বিশাল কালেকশন পাবেন Torrentdownloads সাইটে। এটি জনপ্রিয় একটিভ টরেন্ট ওয়েবসাইট গুলোর মধ্যে একটি। এই সাইটটি যুক্তরাজ্য ছাড়া প্রায় সকল দেশেই এভেইলেবল।

TorrentDownloads.me

অফিসিয়াল ওয়েবসাইট @ TorrentDownloads.me

৫. YTS

YTS সাইটি সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয় হাই কোয়ালিটি মুভি ডাউনলোড করার জন্য। বিভিন্ন জনরার নতুন এবং পুরাতন হাই কোয়ালিটি মুভি পাবেন এতে। এর রয়েছে ৭৫ মিলিয়নেরও বেশি ইউজার রয়েছে ৩০, ০০০ এর বেশি সিনেমা।

YTS এর আছে দারুণ একটি ইন্টারফেস প্রতিটি সিনেমার Synopsis, Specs, এবং IMDb র‍্যাটিং পেয়ে যাবেন। সম্প্রতি এই ওয়েবসাইটটি অবশ্য কপিরাইট আইনে মামলা খেয়েছে।

যদিও আগের তুলনায় এখন এড অনেক কমেছে তবে এখনো বিভিন্ন পপএড আপনার প্রাইভেসিকে ঝুঁকিতে ফেলতে পারে। আপনার ডেটা অবৈধ ভাবে অন্য কোথায় শেয়ার হতে পারে সেক্ষেত্রে ভাল হয় VPN ইউজ করলে।

YTS

অফিসিয়াল ওয়েবসাইট @ YTS

৬. Zoogle

ভিডিও গেম এবং সিনেমার জন্য স্বনামধন্য একটি টরেন্ট সাইট হচ্ছে Zoogle। এর রয়েছে সেরা সিনেমা এবং ভিডিও গেমের বিশাল লাইব্রেরি। স্বাভাবিক ভাবে এই সাইট থেকে আপনি ১ থেকে ২ এম্বি mb/s পার সেকেন্ডে ফাইল ডাউনলোড করতে পারবেন। এর মাসিক ইউজারের সংখ্যা ৫ মিলিয়নের বেশি।

এই Zoogle সাইটের ইউজার ইন্টারফেস বেশ ইউজার ফ্রেন্ডলি ক্যাটাগরি অনুযায়ী সাবস্ক্রাইবাররা সহজেই নতুন গেম গুলো খুঁজে পাবে। তবে এই টরেন্ট সাইটের একটি অসুবিধা হচ্ছে অতিরিক্ত পপ-এড যাতে আপনি কিছুটা বিরক্ত হতে পারে।

Zoogle

অফিসিয়াল ওয়েবসাইট @ Zoogle

৭. AIO Search

AIO Search একটি মেটা সার্চ ইঞ্জিন এর রয়েছে ক্লিন একটি ইউজার ইন্টারফেস যা ব্যবহার করা একদম সহজ।

এই সাইটটি মূলত অন্য মেটা সার্চ ইঞ্জিন গুলো থেকে টরেন্ট ফাইল ইনডেক্স করে। আপনি এই সাইট থেকে ম্যাগনেট লিংক অথবা টরেন্ট ফাইলের মাধ্যমেও নির্দিষ্ট ফাইল সার্চ করতে পারবেন।

AIO Search একটি পূর্ণ মেটা সার্চ ইঞ্জিন যার মাধ্যমে আপনি P2P নেটওয়ার্কে নির্দিষ্ট কন্টেন্ট সার্চ করতে পারবেন। রয়েছে কোয়ালিটি এবং সাইজ অনুযায়ী ফিল্টার করার ব্যবস্থা।

AIO Search

অফিসিয়াল ওয়েবসাইট @ AIO Search

কিভাবে সেরা টরেন্ট সাইট বাছাই করবেন

টরেন্ট ফাইল ডাউনলোডের ক্ষেত্রে আপনাকে এমন একটি ওয়েবসাইট বাছাই করতে হবে যা সহজে ব্যবহার করা যায়, দেখতে পরিষ্কার এবং ফাইল ডাউনলোড স্পীড ভাল। VPN ব্যবহার করে নিরাপদে ব্রাউজ করা গেলেও, টরেন্টিং এর ক্ষেত্রে কিছু সেরা টিপস ফলো করতে পারেন,

সাইটের বয়স এবং সুনাম বিবেচনা করুন

যে ওয়েবসাইট গুলো দীর্ঘদিন ধরে রয়েছে ধারণা করা যায় সেগুলো ম্যালওয়্যার থেকে অনেকাংশেই নিরাপদ। তাছাড়া ব্যবহার করার আগে নির্দিষ্ট সাইট সম্পর্কে গুগল করেও দেখতে পারেন। কিছু জনপ্রিয় সাইট এখন পুরোপুরি বন্ধ তারপরেও একই নাম দিয়ে ভাইরাস ছাড়ানো ওয়েবসাইটও থাকতে পারে তাই অবশ্যই নিশ্চিত হয়ে নিন।

টরেন্ট ফাইলের হেলথ বিবেচনা করুন

যে সমস্ত টরেন্টের Seeders সংখ্যা Leechers থেকে বেশি ধারণা করা যায় এই সমস্ত টরেন্ট হেলদি এবং দ্রুত ডাউনলোড হবে। তাছাড়া যে টরেন্ট গুলো বেশিরভাগ সময় ডাউনলোড হয়েছে সেগুলোও ভাল টরেন্ট।

টরেন্ট ডাউনলোডের একটা অসুবিধা হল কখনো কখনো ডাউনলোডে অনেক সময় নেয়, এজন্য Seeders এবং Leechers চেক করা জরুরি। যে টরেন্ট গুলোতে বেশি Seeders এবং Leechers থাকে সেগুলো দ্রুত ডাউনলোড হয়।

সাইটের কন্টেন্ট বিবেচনা করুন

আপনার চাহিদা অনুযায়ী কন্টেন্ট বিবেচনা করে টরেন্ট সাইট বাছাই করুন যেমন, যে সমস্ত ওয়েবসাইটে মুভি, অ্যাপ, গেম সব আছে সে সাইট বাদে আপনি বিশেষ ভাবে গেম ডাউনলোড এর জন্য এর জন্য ভাল সাইট গুলো ব্যবহার করতে পারেন। এতে বলা যায় আপনি নির্দিষ্ট কন্টেন্ট এর বিশাল কালেকশন পাবেন।

এড চেক করুন

আন্ডারগ্রাউন্ড সার্চ ইঞ্জিন গুলো মূলত বিজ্ঞাপণের মাধ্যমে আয় করে থাকে, সুতরাং এড থাকবে এটা স্বাভাবিক। তবে যেসমস্ত সাইট খুব বেশি পপ বা ম্যালিসিয়াস এড শো করে না সে সমস্ত ওয়েবসাইট ব্যবহার করুন।

কিভাবে টরেন্ট ফাইল ডাউনলোড করবেন

এতক্ষণ আলোচনা করলাম সেরা কিছু টরেন্ট সাইট নিয়ে এবং পরবর্তীতে দেখলাম কিভাবে আপনার চাহিদা মত টরেন্ট সাইট নির্বাচন করবেন, এবার কিভাবে টরেন্ট ফাইল ডাউনলোড করবেন সেটা নিয়ে কথা হবে।

টরেন্ট ফাইল আসলে সরাসরি ডাউনলোড করা যায় না বা ফাইল গুলো নির্দিষ্ট কোন সার্ভারেও স্টোর করা থাকে না, ফাইল ডাউনলোড করার জন্য আপনাকে টরেন্ট ক্লায়েন্ট ব্যবহার করতে হবে। ইন্টারনেটে অনেক টরেন্ট ক্লায়েন্ট থাকলেও বেশিরভাগ ইউজাররা µTorrent ক্লায়েন্টই ব্যবহার করে।

শেষ কথাঃ

টরেন্ট ফাইল ডাউনলোড কেবল অবৈধই নয় এটার জন্য কখনো কখনো আপনার জেল জরিমানাও হতে পারে তাই সব সময় সাবধান। সব সময় টরেন্ট থেকে দূরে থাকাই ভাল। যদি ডাউনলোড করতেই হয় তাহলে নিজের নিরাপত্তার স্বার্থে VPN ব্যবহার করুন।

আশা করছি টরেন্ট ওয়েবসাইট নিয়ে এই টিউনটি আপনার ভাল লেগেছে। মতামত জানাতে বা কোন প্রশ্ন থাকলে টিউমেন্ট করুন। পরবর্তী টিউন পর্যন্ত ভাল থাকুন আল্লাহ, হাফেজ!

Level 31

আমি সোহানুর রহমান। সুপ্রিম টিউনার, টেকটিউনস, ঢাকা। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 8 বছর 8 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 522 টি টিউন ও 195 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 76 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 0 টিউনারকে ফলো করি।

কখনো কখনো প্রজাপতির ডানা ঝাপটানোর মত ঘটনা পুরো পৃথিবী বদলে দিতে পারে।


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস