আপনি কি ল্যাপটপ ইউজ করেন? ল্যাপটপ খুব গরম হয়ে যায়? তাহলে এই টিউনটি আপনার জন্যই

আমি গত ৯ মাস আগে আমার ল্যাপটপ লেনোভো z580 কিনেছিলাম । প্রথম প্রথম ল্যাপটপটা বেশ ভালই চলত কিন্তু ইদানিং ল্যাপটপটাতে বেশিক্ষণ ধরে কাজ করলে বা গেম খেললে ল্যাপটপটা খুব গরম হয়ে যাচ্ছে । তাই নেট ঘাঁটতে লাগলাম কিভাবে ল্যাপটপটা ঠাণ্ডা করব পেয়েও গেলাম । কিভাবে আপনার ল্যাপটপটা ঠাণ্ডা করবেন সেই নিয়েই আমার আজকের এই টিউন , তো চলুন আর বেশি বাজে কথা না বলে কাজের কথায় আসি ।

১) ল্যাপটপ রাখার জন্য একটা মসৃণ , শক্ত ও সমতল জায়গা খুঁজুন :

আমরা অনেক সময় বিছানায় ল্যাপটপটা নিয়ে কাজ করি । কখনই বিছানাতে রেখে ল্যাপটপ এ কাজ করবেন না । ল্যাপটপটা একটা মসৃণ , সমতল আর শক্ত জায়গাতে রাখুন যাতে হাওয়া চলাচল রুদ্ধ না হয় । কোলে রেখেও কাজ করাটা ঠিক না , মাটিতেও রাখবেন না ল্যাপটপটা কে কারন মাটি থেকে খুব সহজেই ধুলোবালি প্রবেশ করবে । সবথেকে ভালো একটা পরিস্কার টেবিল এ ল্যাপটপটা রেখে কাজ করুন । পারলে ঠাণ্ডা ঘরে ল্যাপটপটা রেখে কাজ করুন আর ল্যাপটপটাতে কখনই সরাসরি সূর্যালোক পরতে দিবেন না ।

২) ল্যাপটপকে ধুলোবালি মুক্ত রাখুন :

ল্যাপটপ গরম হওয়ার একটা অন্যতম কারন হল ল্যাপটপে ময়লা জমা । ময়লা পরিস্কার করার জন্য আপনি computer vacuum ইউজ করতে পারেন । আর একটা উপায় হল ল্যাপটপটা খুলুন আর সরাসরি ফ্যানের তলায় রাখুন তবে খেয়াল রাখবেন যাতে ল্যাপটপটার কোন অংশে ক্ষতি না হয় । তবে এসব করার আগে যেটা অবশ্যই মনে রাখবেন সেটা হল ল্যাপটপটা যেন বন্ধ করা থাকে । আর যদি আপনি ল্যাপটপটার ময়লা পরিস্কার করতে না পারেন তাহলে service center এ নিয়ে গিয়ে দেখতে পারেন । কোন কোন ল্যাপটপ এ Dedusting বলে একটা অপশন থাকে যাতে আপনার ল্যাপটপটার ফ্যান এর স্পীড বেড়ে গিয়ে ময়লা পরিস্কার হয় । চেক করুন আপনার ল্যাপটপটাতে এ ধরনের কোন অপশন আছে কিনা ।

৩) একটা স্ট্যান্ড কিনুন :

ল্যাপটপ এর জন্য বিভিন্ন স্ট্যান্ড কিনতে পাওয়া যায় সম্ভব হলে এরকম একটা স্ট্যান্ড কিনুন ।

৪) ল্যাপটপ এর সেটিংস্‌ চেক করুন :

চেষ্টা করবেন একটু দামি ল্যাপটপ কিনতে বিশেষত যারা Game খেলেন আর Movie দেখেন । যদি আপনার ল্যাপটপ এর সফটওয়্যার গুলো ভালো কাজ করে তাহলে ওগুলো কে বিনা কারনে আপডেট করবেন না । যখন আপনি ল্যাপটপটা ব্যাটারিতে চালাবেন তখন চেষ্টা করবেন স্ক্রীন এর brightness কমিয়ে রাখার , যেসব application আপনি তখন ব্যবহার করবেন না সেগুলো বন্ধ করে রাখবেন । এতে করে আপনার ল্যাপটপটার সিপিউ এর উপর চাপ কমবে । সর্বোপরি, দেখবেন যেন ল্যাপটপটার power-management settings গুলো সব ঠিক আছে ।

৫) ল্যাপটপটাকে রেস্ট দিন :

একটানা গেম খেলবেন না বা বেশি ভারি কাজ করবেন না । পারলে আপনার ল্যাপটপটাকে রেস্ট দিন । ল্যাপটপটাকে একটানা কয়েকদিন চালানও ঠিক না । ল্যাপটপটাকে ঠাণ্ডা করার জন্য কুলারও ব্যবহার করতে পারেন ।

এছারা আপনি ইউটিউব থেকে এই ভিডিওটাও দেখতে পারেন এটা খুব কাজে দেবে ।   টিউনটা ভালো লাগলো না খারাপ লাগলো সেটা অবশ্যই জানাবেন । ভালো থাকবেন । ধন্যবাদ । আবার দেখা হবে । ফেসবুক এ আমি ।

Level 0

আমি Raja Banerjee। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 9 বছর 3 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 41 টি টিউন ও 264 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 2 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 0 টিউনারকে ফলো করি।


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস

Level 0

bhi apnar lekha gulo pora jaina……..

    @himel951: কেন ? আমি তো লেখা গূলো পরিষ্কার পড়তে পারছি ।

      @মানুষ: আরে! এই টিউনই তো খুজছিলাম!!!

      আর ভাইয়া হ্যাঁ, কথা ঠিক, তোমার লেখা পড়তে কষ্ট হয় (ঠিক লেখা পরে কষ্ট লাগে তা না, লেখা বুঝতে সমস্যা হয়)।

ফন্ট হিসেবে Siyam Rupali ব্যবহার করতে পার।

প্রিয় টিউনার,

আপনার টিউন গুলো খুবই ভাল হচ্ছে।

➡ তবে আপনার টিউন আর সুন্দর করে ফরমেট করুন।

বিভিন্ন পয়েন্ট গুলো বুলেট আকারে দিন।
টিউনের প্রধান টপিত গুলো H2 করে দিন।
সাব হেডিং গুলো H3 করুন।
টিউনের কোন অংশে কখনও H1 হেডিং ব্যবহার করবেন না।
নিজের সাইট বা কোন লিংক টিউডারের কাছে আকৃষ্ট করার জন্য কখনও কোন লিংকে হেডিং (h1,h2,h3) বা বড় টেক্সট করে দিবেন না। আপনার সাইটের লিংক দেবার জন্য টিউনের নিচে ব্লককোট করে “সৌজন্যে:” লিখে সাইটের লিংক দিন। এই টিউনটি https://www.techtunes.co/internet/tune-id/188009 লক্ষ করুন টিউডার ও টিউজিটরদের কোন প্রকার অযাচিত আকৃষ্ট না করে টিউনের শেষে; নিচে কীভাবে ব্লককোট করে “সৌজনে:” লিখে লিংক দেয়া হয়েছে। এতে আপনার টিউনের টিউডার ও টিউজিটরা আপনার প্রতি পূর্ণ আস্থা ও বিশ্বাস স্থাপন করবে।
টিউনে কখনও বিভিন্ন টেক্সট ভিন্ন ভিন্ন কালার ব্যবহার করবেন না এতে টিউডার টিউনে পড়তে বিরক্তি বোধ করবে।

কীভাবে সুন্দর করে টিউন ফরমেট করবেন তা জানতে টেকটিউনসের টিউন করা শিখে নিন ভিডিও টিউট গুলো https://www.youtube.com/iTechtunes দেখুন।

➡ নিচে কিছু দারুন ও সুন্দর ভাবে ফরমেট করা টিউনের উদহরণ দেয়া হল। লক্ষ করুন

টিউন গুলোতে কিভাবে প্রাসঙ্গিক ছবি => https://www.techtunes.co/freelancing/tune-id/141620
প্রয়োজনীয় স্ক্রিনসটের ব্যবহার => https://www.techtunes.co/tips-and-tricks/tune-id/102544
ঠিক ভাবে হেডিং ও সাব হেডিং এর ব্যবহার => https://www.techtunes.co/reports/tune-id/111219
বিভিন্ন পয়েন্ট গুলোকে বুলেট পয়েন্ট করে দেখানো => https://www.techtunes.co/reports/tune-id/111219
টিউনের মাঝে নির্দিষ্ট প্যারা তৈরি করা => https://www.techtunes.co/tips-and-tricks/tune-id/129685
টিউনে স্ক্রিনসট সহ টিউটোরিয়ালের বিভিন্ন ধাপ দেখানো => https://www.techtunes.co/featured/tune-id/95448
টিউনে কোড থাকলে তা কোড হাইলাইটারের মাধ্যমে উপস্থাপন => https://www.techtunes.co/web-design/tune-id/77692/

ইত্যাদি করে সুন্দর ভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে।

এই টিউনের ফরমেট গুলোকে আদর্শ হিসেবে নিয়ে সবসময় আপনার টিউন গুলোকে সুন্দর ফরমেটে উপস্থাপন করুন। এতে আপনার টিউনের পাঠযোগ্যতা টিউডার ও টিউজিটরের কাছে বহুগুণে বৃদ্ধি পাবে।

➡ আপনার টিউনে যদি প্রোগ্রামিং সংক্রান্ত টিউন হয় ও টিউনে কোডের ব্যবহার থাকে তাহলে বিভিন্ন প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজের কোড যেমন HTML, CSS, JS, PHP ইত্যাদি কোড সুন্দর ও সঠিক ভাবে দেখাতে টেকটিউনসের রয়েছে নিজেস্ব “কোড হাইলাইটার”। টেকটিউনসের “কোড হাইলাইটার” কিভাবে ব্যবহার করতে হয় তা জানতে এই টিউনটি https://www.techtunes.co/web-design/tune-id/77692/ দেখুন।

➡ টিউন করার আগে কিছু সময় নিয়ে পরিকল্পনা করুন।

➡ টিউডার ও টিউজিটররা বিস্তারিত, যত্ন নিয়ে, প্রয়োজনীয় ছবি যোগ করা ও সাবলীল ভাষার টিউনারদের খুবই পছন্দ করে। তাই সময় নিয়ে সুন্দর ভাবে, পরিপাটি করে ভাষা গুছিয়ে, আপনার মেধার পূর্ণ প্রয়োগ করে বিস্তারিত টিউন করুন।

অসম্পূর্ণ, অগোছালো, সুনির্দিষ্ট নয়, নাম মাত্র টিউন বা কোন রকম টিউন – এ ধরনের টিউন না করে সময় নিয়ে, সুন্দর ভাষার সুষ্ঠু প্রয়োগ করে, মেধার পূর্ণ ব্যবহার করে বিস্তারিত ভাবে টিউন করুন।

➡ কিছুদিন পর পর বা বেশ সময় ব্যবধানে টিউন না করে নিয়মিত টিউন করে কমিউনিটিতে আপনার বিশ্বস্থতা ধরে রাখুন। নিয়মিত টিউনারদের টিউডাররা খুব পছন্দ করে ও আস্থা রাখে। টিউন করার জন্য সপ্তাহের দুটি দিন বেছে নিন। এতে আপনার নিয়মিত টিউন করার ধারাবাহিকতা থাকবে।

টেকটিউনস বিজ্ঞান প্রযুক্তি চর্চার এক উন্মুক্ত সৌশাল নেটওয়ার্ক। টেকটিউনসে আপনার বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির চিন্তা চেতনা মনন, অভিজ্ঞতার প্রকাশ ঘটান। আপনার বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির জানা বিষয় গুলো প্রযুক্তির এই সুবিশাল নেটওয়ার্কে অন্যদের মাঝে ছড়িয়ে দিন। নিজেকে একজন মানসম্মত, দ্ক্ষ, কমিউনিটির অন্যদের সাথে বন্ধু ভাবাপন্ন টিউনার হিসেবে গড়ে তুলুন। হয়ে উঠুন একজন আদর্শ টেকটিউনার।

ধন্যবাদ @মানুষ । সুন্দর টিউন । কিন্তু এসব নিয়ে এর আগেও টিউন করা হয়েছে এবং এসব সবাই জানে । নতুন কিছু টিউন করার চেষ্টা করুন

nice post