হ্যাকিং কি? কিভাবে হ্যাকিং করে? হ্যাকিং সম্পর্কে সম্পুর্ন ধারনা

Level 2
ছাত্র, বাংলাদেশ ওপেন ইউনিভার্সিটি, ঢাকা

হ্যাকিং এর সংজ্ঞা

হ্যাকিং হলো কম্পিউটার সিস্টেম, নেটওয়ার্ক, বা ডিজিটাল ডিভাইসের সাথে যুক্ত কোনো সুরক্ষা প্রক্রিয়াকে বুদ্ধিমত্তা এবং প্রযুক্তিগত দক্ষতা ব্যবহার করে অতিক্রম করা। এই প্রক্রিয়াটি মূলত অনুমতি ছাড়াই তথ্য প্রাপ্তি, সিস্টেমে প্রবেশ, বা সিস্টেমের পারফরম্যান্স পরিবর্তনের উদ্দেশ্যে করা হয়। হ্যাকিং একই সাথে অবৈধ এবং বৈধ দুই রূপে প্রকাশ পায়; যেখানে অবৈধ হ্যাকিং বেআইনি এবং ক্ষতিকারক, সেখানে বৈধ হ্যাকিং (এথিক্যাল হ্যাকিং) সাইবার সুরক্ষা বৃদ্ধির লক্ষ্যে করা হয়।

হ্যাকিং এর ইতিহাস

হ্যাকিং এর ইতিহাস ষাটের দশকে প্রতিষ্ঠা লাভ করে, যখন কিছু উৎসাহী ব্যক্তি টেলিফোন সিস্টেম নিয়ে পরীক্ষা করত। এই 'ফোন ফ্রিকিং' নামে পরিচিত প্রক্রিয়াটি ছিল হ্যাকিং এর প্রথম ধাপ। সত্তর এবং আশির দশকে, হ্যাকাররা প্রধানত কম্পিউটার নেটওয়ার্ক এবং সফটওয়্যার সিস্টেমে নিজেদের দক্ষতা প্রদর্শন করত। নব্বই এর দশকে, ইন্টারনেটের বিস্তারের সাথে সাথে, হ্যাকিং আরো জটিল এবং ব্যাপক হয়ে ওঠে। এই সময়ে, হ্যাকিং ক্রমশ সাইবার অপরাধ এবং নিরাপত্তা লঙ্ঘনের সাথে যুক্ত হয়ে পড়ে। বর্তমানে, হ্যাকিং এর ইতিহাস নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞ এবং সাইবার অপরাধীদের মধ্যে এক অবিরাম লড়াই হিসেবে দেখা যায়।

হ্যাকিং এর প্রকারভেদ

হ্যাকিং প্রযুক্তির জগতে একটি জটিল এবং বহুমুখী বিষয়। এর বিভিন্ন প্রকার নিম্নরূপ:

  • নেটওয়ার্ক হ্যাকিং: এটি নেটওয়ার্কের নিরাপত্তা সিস্টেমের দুর্বলতা অনুসন্ধান ও অনুপ্রবেশের প্রক্রিয়া। হ্যাকাররা নেটওয়ার্ক ট্রাফিকের মাধ্যমে গোপন তথ্য হাতিয়ে নেয়।
  • ওয়েবসাইট হ্যাকিং: এটি ওয়েবসাইটের কোড বা ডাটাবেসে বেআইনিভাবে প্রবেশ করে তথ্য চুরি বা ওয়েবসাইট পরিচালনায় হস্তক্ষেপের প্রক্রিয়া।
  • ইমেইল হ্যাকিং: এই পদ্ধতিতে হ্যাকাররা ব্যক্তিগত ইমেইল অ্যাকাউন্টে বেআইনিভাবে প্রবেশ করে মেইল পড়ে বা মেইল পাঠায়।
  • পাসওয়ার্ড হ্যাকিং: এই প্রক্রিয়ায় হ্যাকাররা পাসওয়ার্ড চুরি করে অথবা বাইপাস করে অ্যাকাউন্ট এবং সিস্টেমে প্রবেশ করে।
  • কম্পিউটার হ্যাকিং: ব্যক্তিগত কম্পিউটারে বেআইনিভাবে প্রবেশ করে তথ্য চুরি করা বা ক্ষতি সাধন।
  • ব্ল্যাক হ্যাট হ্যাকিং: এই ধরনের হ্যাকিং অবৈধ ও অনৈতিক। হ্যাকাররা ব্যক্তিগত লাভ, তথ্য চুরি, সিস্টেম বা নেটওয়ার্ক ভাঙচুর এবং ম্যালওয়্যার ছড়ানোর মতো ক্ষতিকর উদ্দেশ্যে হ্যাকিং করে।
  • হোয়াইট হ্যাট হ্যাকিং: এই প্রকারের হ্যাকিং নৈতিক এবং আইনসম্মত। হোয়াইট হ্যাট হ্যাকাররা নিরাপত্তা পরীক্ষা, দুর্বলতা শনাক্তকরণ এবং সিস্টেমের সুরক্ষা বৃদ্ধির লক্ষ্যে হ্যাকিং করে থাকে।

এই প্রকারগুলি ছাড়াও, হ্যাকিং এর আরও বিভিন্ন রূপ রয়েছে, যেমন গ্রে হ্যাট হ্যাকিং, যা নৈতিক এবং অনৈতিক উদ্দেশ্যের মধ্যবর্তী অবস্থানে থাকে। গ্রে হ্যাট হ্যাকাররা সাধারণত নিরাপত্তা দুর্বলতা আবিষ্কার করে এবং তা প্রকাশ করে থাকে, কিন্তু অনেক সময় তারা অনুমতি ছাড়াই এই কাজ করে থাকে। এছাড়াও, স্ক্রিপ্ট কিডি, সোশ্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং, এবং ফিশিং হ্যাকিং এর অন্যান্য প্রকার, যা বিশেষ করে ব্যবহারকারীদের অজ্ঞতা বা অসতর্কতার সুযোগ নিয়ে তাদের তথ্য চুরি করে। সব মিলিয়ে, হ্যাকিং এর বিভিন্ন প্রকার এবং ধরনের বোঝা গুরুত্বপূর্ণ, যাতে নিরাপত্তা ব্যবস্থাপনা এবং প্রতিরক্ষা কৌশল সঠিকভাবে পরিচালনা করা যায়। সচেতনতা এবং উন্নত প্রযুক্তির ব্যবহারের মাধ্যমে হ্যাকিং এর ঝুঁকি কমানো সম্ভব।

হ্যাকিং এর পদ্ধতি

হ্যাকিং বলতে বোঝায় সাধারণত অনুমতি ব্যতিরেকে কম্পিউটার সিস্টেম, নেটওয়ার্ক বা ডিজিটাল ডিভাইসে অনুপ্রবেশ করে তার নিয়ন্ত্রণ নেওয়া বা তথ্য হাতিয়ে নেওয়া। এই প্রক্রিয়ায় নানা ধরনের কৌশল প্রয়োগ করা হয়।

  • ফিশিং: এই পদ্ধতিতে হ্যাকাররা জাল ই-মেইল, ওয়েবসাইট বা মেসেজ পাঠিয়ে ব্যবহারকারীদের প্রতারিত করে তাদের ব্যক্তিগত এবং আর্থিক তথ্য প্রাপ্ত করে।
  • ম্যালওয়্যার: ক্ষতিকারক সফটওয়্যার যা কম্পিউটারে অনুপ্রবেশ করে তথ্য চুরি, সিস্টেম ক্ষতিগ্রস্ত করা বা রিমোট অ্যাক্সেস নেওয়ার মাধ্যমে ক্ষতি সাধন করে।
  • সোশ্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং: মানুষের বিশ্বাস বা ভুল বুঝাবুঝির উপর নির্ভর করে তথ্য প্রাপ্তির এক পদ্ধতি। হ্যাকাররা মানুষের স্বাভাবিক আচরণের সুযোগ নিয়ে তাদের প্রতারিত করে।
  • অ্যাডভান্সড পার্সিসটেন্ট থ্রেট (APT): দীর্ঘমেয়াদী ও লক্ষ্যবস্তুভিত্তিক আক্রমণ যা সিস্টেমে গোপনে অনুপ্রবেশ করে এবং দীর্ঘ সময় ধরে তথ্য চুরি করে।
  • ডিডস আক্রমণ: ডিস্ট্রিবিউটেড ডিনায়াল-অফ-সার্ভিস আক্রমণ যেখানে বহু সিস্টেম থেকে একটি টার্গেট সার্ভার বা নেটওয়ার্কের উপর একযোগে অতিরিক্ত ট্রাফিক পাঠানো হয় যাতে তার সার্ভিস ব্যাহত হয়।

এথিক্যাল হ্যাকিং

Ethical hacking

এথিক্যাল হ্যাকিং হলো এমন একটি প্রক্রিয়া যেখানে নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞরা বৈধভাবে কম্পিউটার সিস্টেম, নেটওয়ার্ক বা অ্যাপ্লিকেশনগুলির দুর্বলতা এবং ঝুঁকিগুলি চিহ্নিত করার জন্য হ্যাকিং কৌশল প্রয়োগ করে। এই প্রক্রিয়ার মাধ্যমে, তারা সিস্টেমের নিরাপত্তা উন্নত করে এবং সম্ভাব্য হামলাগুলি থেকে রক্ষা করে। এথিক্যাল হ্যাকাররা তাদের দক্ষতা ব্যবহার করে সিস্টেমের নিরাপত্তা পরীক্ষা করেন এবং নিরাপত্তা ফাঁক বা দুর্বলতাগুলি সনাক্ত করেন। এর ফলে, তারা সিস্টেম বা নেটওয়ার্কের নিরাপত্তা বাড়াতে সাহায্য করে।

বিখ্যাত হ্যাক এবং হ্যাকারসমূহ

Hackers

কেভিন মিটনিক: কেভিন মিটনিক হলেন একজন বিখ্যাত হ্যাকার যিনি তার কিশোর বয়স থেকেই হ্যাকিং শুরু করেন। তিনি বিভিন্ন কোম্পানির নেটওয়ার্কে অনুপ্রবেশ করে তথ্য চুরি করার জন্য বিখ্যাত হয়ে ওঠেন। তার হ্যাকিং দক্ষতার জন্য তাকে প্রায় পাঁচ বছর কারাগারে কাটাতে হয়।

অ্যাড্রিয়ান লামো: অ্যাড্রিয়ান লামো একজন আমেরিকান হ্যাকার যিনি তার 'হোমলেস হ্যাকার' উপাধির জন্য পরিচিত। তিনি নিউ ইয়র্ক টাইমস, মাইক্রোসফট, এবং ইয়াহু! এর মতো বড় বড় প্রতিষ্ঠানের নেটওয়ার্কে অনুপ্রবেশ করেন। লামো পরবর্তীতে চেলসি ম্যানিংকে প্রকাশ্যে আনার জন্য বিখ্যাত হন, যিনি উইকিলিকসে গোপনীয় মার্কিন সরকারি নথি ফাঁস করেন।

গ্যারি ম্যাককিনন: গ্যারি ম্যাককিনন একজন ব্রিটিশ হ্যাকার যিনি নাসা এবং মার্কিন সেনাবাহিনীর কম্পিউটার সিস্টেমে সফলভাবে অনুপ্রবেশ করেন। তার এই কাজের ফলে মার্কিন সরকারের জন্য বড় ধরনের নিরাপত্তা ঝুঁকি সৃষ্টি হয় এবং তাকে একজন সাইবার-টেররিস্ট হিসেবে বিবেচনা করা হয়। ম্যাককিনন দাবি করেন যে তিনি এলিয়েন প্রযুক্তি সম্পর্কে তথ্য খুঁজছিলেন।

স্নোডেন ফাঁস: এডওয়ার্ড স্নোডেন, একজন আমেরিকান হুইসলব্লোয়ার এবং প্রাক্তন সিআইএ কর্মী, যিনি 2013 সালে এনএসএ এবং ফাইভ আইজ এর বিভিন্ন গোপন নজরদারি প্রোগ্রাম প্রকাশ্যে আনেন। তার ফাঁস করা তথ্য বিশ্বজুড়ে সরকারের নজরদারি কর্মসূচি এবং নাগরিক অধিকারের লঙ্ঘনের বিষয়ে গভীর উদ্বেগ সৃষ্টি করে। স্নোডেনের এই ফাঁস আধুনিক যুগে সরকারি নজরদারি এবং গোপনীয়তার অধিকারের মধ্যে সামঞ্জস্য নিয়ে বিশ্বব্যাপী আলোচনা উত্থাপন করে।

স্টাক্সনেট: স্টাক্সনেট একটি অত্যন্ত জটিল কম্পিউটার ওয়ার্ম যা 2010 সালে আবিষ্কার করা হয়। এই ম্যালওয়্যারটি বিশেষভাবে ইরানের নাটান্জ পারমাণবিক সুবিধার সেন্ট্রিফিউজগুলি লক্ষ্য করে তৈরি করা হয়েছিল এবং বিশ্বাস করা হয় যে এর পেছনে ছিল আমেরিকা ও ইসরাইলের গোপন সহযোগিতা। স্টাক্সনেট সাইবার যুদ্ধের নতুন যুগের সূচনা করে এবং এর প্রভাব সাইবার নিরাপত্তা ও সাইবার যুদ্ধের কৌশল নিয়ে গভীর প্রশ্ন তুলেছে।

হ্যাকিং এবং সাইবার নিরাপত্তা ব্যবস্থাপনা

Cyber Security

সাইবার নিরাপত্তা মানে হল তথ্য প্রযুক্তি সিস্টেমের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা, যা হ্যাকিং এবং অন্যান্য সাইবার হামলা থেকে রক্ষা করে। হ্যাকিং হল কম্পিউটার নেটওয়ার্ক বা সিস্টেমে অনধিকৃত প্রবেশ বা নিয়ন্ত্রণ লাভের প্রচেষ্টা। এই ধরনের হামলা প্রতিরোধের জন্য বিভিন্ন সাইবার নিরাপত্তা পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়।

প্রথম ধাপ হল সক্রিয় মনিটরিং এবং নিরাপত্তা সতর্কতা সিস্টেমের ব্যবহার, যা হ্যাকিং প্রচেষ্টাগুলিকে শনাক্ত করে এবং সময় মতো প্রতিকারের ব্যবস্থা করে। এই ধরনের সিস্টেম নিরাপত্তা লঙ্ঘনের লক্ষণগুলি শনাক্ত করে এবং সাথে সাথে সতর্ক করে দেয়।

দ্বিতীয়ত, ফায়ারওয়াল এবং এন্টিভাইরাস প্রোগ্রামের মতো নিরাপত্তা সফটওয়্যার হ্যাকারদের অনধিকৃত অ্যাক্সেস বা ম্যালওয়্যার ছড়ানো থেকে সিস্টেমকে রক্ষা করে। এই সফটওয়্যারগুলি নিয়মিত আপডেট করা এবং নতুন হুমকিগুলির বিরুদ্ধে সিস্টেমকে আধুনিক করা জরুরি।

তৃতীয়ত, শিক্ষা এবং সচেতনতা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কর্মী এবং ব্যবহারকারীদের সাইবার নিরাপত্তা বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেওয়া এবং ফিশিং, স্প্যাম, এবং অন্যান্য সাইবার হুমকি সম্পর্কে সতর্ক করা প্রয়োজন। সচেতন ব্যবহারকারীরা নিরাপত্তা হুমকি সনাক্ত করতে এবং প্রতিরোধ করতে সক্ষম হবে।

সর্বশেষে, নিরাপদ পাসওয়ার্ড নীতি এবং বহু-ফ্যাক্টর প্রমাণীকরণ (MFA) জরুরি। জটিল পাসওয়ার্ড এবং MFA ব্যবহার করে হ্যাকাররা সহজে অ্যাকাউন্ট ভেদ করতে পারবে না। এছাড়াও, নিয়মিত পাসওয়ার্ড পরিবর্তন করা এবং পাসওয়ার্ড শেয়ার না করা প্রয়োজন।

সাইবার নিরাপত্তা একটি অবিরাম প্রক্রিয়া। নিরাপত্তা সফটওয়্যার, শিক্ষা, সতর্কতা এবং নীতি সম্পর্কিত আপডেট সময় অনুযায়ী পরিবর্তন এবং উন্নতি করা দরকার। এতে সাইবার হুমকি এবং হ্যাকিং প্রচেস্টার বিরুদ্ধে সফল প্রতিরোধ গড়ে তোলা যাবে।

হ্যাকিং এর ভবিষ্যত

হ্যাকিং এর ভবিষ্যত প্রযুক্তির উন্নতির সাথে সাথে বিবর্তিত হচ্ছে। ভবিষ্যতে, হ্যাকিং আরও জটিল এবং প্রযুক্তিগত হবে। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা (AI), মেশিন লার্নিং, এবং কোয়ান্টাম কম্পিউটিং এর উন্নয়নের ফলে হ্যাকাররা আরও উন্নত হামলা পদ্ধতি ব্যবহার করতে পারবে।

কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার ব্যবহারে হ্যাকাররা নিরাপত্তা সিস্টেমের দুর্বলতাগুলি আরও দ্রুত এবং কার্যকরীভাবে শনাক্ত করতে পারবে। এছাড়াও, কোয়ান্টাম কম্পিউটিং এর উন্নতি বর্তমানের এনক্রিপশন প্রক্রিয়াকে ভেঙে ফেলার ক্ষমতা রাখে, যা সাইবার নিরাপত্তার জন্য এক নতুন চ্যালেঞ্জ হতে পারে।

অন্যদিকে, ভবিষ্যতের হ্যাকিং প্রতিরোধে আরও উন্নত প্রযুক্তির প্রয়োজন হবে। নিরাপত্তা প্রযুক্তি যেমন কোয়ান্টাম এনক্রিপশন, অগ্রগামী AI ভিত্তিক সিকিউরিটি সিস্টেম, এবং উন্নত নেটওয়ার্ক সুরক্ষা প্রণালী গুরুত্বপূর্ণ হবে। এগুলি হ্যাকারদের প্রচেষ্টাকে প্রতিরোধ করার পাশাপাশি ডেটা সুরক্ষার স্তর বৃদ্ধি করবে।

সব মিলিয়ে, হ্যাকিং এর ভবিষ্যত একটি চ্যালেঞ্জিং ক্ষেত্র হিসেবে উঠে আসবে যেখানে নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞ এবংহ্যাকাররা নিয়মিত নতুন প্রযুক্তিগত উদ্ভাবন ও প্রতিক্রিয়ায় লিপ্ত থাকবে। তথ্যের যুগে, ডিজিটাল নিরাপত্তা একটি অবিরাম যুদ্ধের মাঠ হয়ে উঠবে যেখানে প্রতিনিয়ত নতুন হুমকি এবং সমাধানের মধ্যে ব্যালেন্স খুঁজে বের করা হবে।

অতএব, ভবিষ্যতের হ্যাকিং এবং সাইবার নিরাপত্তা প্রযুক্তির পরিবর্তনের সাথে সাথে বিবর্তিত হবে, যা প্রত্যেক ব্যক্তি, সংস্থা, এবং সরকারের জন্য অবিরাম সতর্কতা এবং উন্নতির দাবি করবে।

রিসোর্স এন্ড লার্নিং(Resource and learning)

হ্যাকিং শিক্ষার জন্য বিভিন্ন ধরনের রিসোর্স ও পাঠ্যক্রম আছে। এই রিসোর্সগুলো হ্যাকিং এর বিভিন্ন দিক এবং প্রযুক্তি সম্পর্কে জ্ঞান অর্জনে সাহায্য করে।

প্রথমত, অনলাইন কোর্স এবং টিউটোরিয়াল হল হ্যাকিং শিখার জন্য একটি দারুণ উপায়। উদাহরণস্বরূপ, প্ল্যাটফর্ম যেমন Udemy, Coursera, এবং Cybrary হ্যাকিং এবং সাইবার নিরাপত্তা সম্পর্কিত বিভিন্ন কোর্স অফার করে। এগুলিতে নেটওয়ার্ক নিরাপত্তা, এথিক্যাল হ্যাকিং, পেনিট্রেশন টেস্টিং এবং মালওয়্যার বিশ্লেষণের মতো বিষয়গুলি শেখা যায়।

দ্বিতীয়ত, বই এবং ই-বুকস হ্যাকিং শেখার জন্য আরেকটি দারুণ উৎস। বইগুলি প্রায়ই গভীর বিশ্লেষণ, কেস স্টাডি, এবং ধাপে ধাপে গাইড প্রদান করে যা হ্যাকিং এর বিভিন্ন কৌশল এবং পদ্ধতি শেখায়।

তৃতীয়ত, অনলাইন ফোরাম এবং কমিউনিটি যেমন GitHub, Stack Overflow, এবং Reddit হ্যাকিং এবং সাইবার নিরাপত্তা সম্পর্কিত আলোচনা, টিপস, এবং ট্রিকস শেয়ার করে। এই প্ল্যাটফর্মগুলিতে অভিজ্ঞ হ্যাকাররা ও নিরাপত্তা গবেষকরা তাদের জ্ঞান এবং অভিজ্ঞতা শেয়ার করে।

চতুর্থত, হ্যাকিং সম্পর্কিত ওয়েবসাইট এবং ব্লগ হ্যাকিং এর উন্নত ধারণা ও নতুন টেকনিক শেখায়। এই সাইটগুলিতে নিয়মিত আর্টিকেল, ব্লগ টিউন, এবং নিউজ আপডেট প্রকাশিত হয় যা সাইবার নিরাপত্তা জগতের সাথে সংযুক্ত থাকার জন্য সাহায্য করে।

পঞ্চমত, হ্যাকিং কনফারেন্স এবং ওয়ার্কশপ যেমন DEF CON, Black Hat এবং RSA Conference হ্যাকার এবং নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞদের জন্য জ্ঞান বিনিময় এবং নেটওয়ার্কিং এর অনন্য সুযোগ প্রদান করে। এই ইভেন্টগুলিতে, অংশগ্রহণকারীরা নতুন নিরাপত্তা প্রযুক্তি, টেকনিক, এবং ট্রেন্ডগুলি সম্পর্কে জানতে এবং অভিজ্ঞতা শেয়ার করতে পারেন।

সবশেষে, প্র্যাকটিক্যাল ল্যাব এবং হ্যাকিং চ্যালেঞ্জ হ্যাকিং এর বাস্তবিক প্র্যাকটিস এবং দক্ষতা বৃদ্ধির জন্য অপরিহার্য। ওয়েবসাইট যেমন Hack The Box, OverTheWire, এবং CTF (Capture The Flag) চ্যালেঞ্জ হ্যাকারদের বাস্তবিক পরিস্থিতিতে তাদের দক্ষতা পরীক্ষা করার সুযোগ দেয়।

এইসব রিসোর্সের মাধ্যমে হ্যাকিং শিখতে এবং নিজের দক্ষতা উন্নত করতে পারে, যা সাইবার নিরাপত্তার ক্ষেত্রে অবদান রাখতে সাহায্য করবে।

Level 2

আমি মো সাগর হোসেন। ছাত্র, বাংলাদেশ ওপেন ইউনিভার্সিটি, ঢাকা। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 4 মাস 3 সপ্তাহ যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 12 টি টিউন ও 7 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 0 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 2 টিউনারকে ফলো করি।

ফুলটাইম কন্টেন্ট রাইটার


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস