উইঘুর মুসলিমদের চিহ্নিত করতে ফেস রিকগনিশন সফটওয়্যার তৈরি করছে Huawei এবং Megvii

Level 28
সুপ্রিম টিউনার, টেকটিউনস, ঢাকা

IPVM সম্প্রতি একটি অভ্যন্তরীণ ডকুমেন্ট থেকে Washington Post কে জানিয়েছে, চাইনিজ টেক জায়ান্ট Huawei এবং আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স সংস্থা Megvii ফেস রিকুগনাইজ সফটওয়্যার তৈরি করেছে এবং পরীক্ষা করেছে যা যখনই উইঘুর মুসলমানকে ডিটেক্ট করবে তখনই এলার্ম দেবে।

ডকুমেন্টস ২০১৮ সালের জানুয়ারি মাসের কথা উল্লেখ আছে যখন Huawei তাদের নেটওয়ার্কে পরীক্ষা মূলক ভাবে Megvii এর Face+ ফেসিয়াল রিকুইজিশন প্রয়োগ করেছিল মানুষের বয়স, লিঙ্গ অনুযায়ী পাসিং গ্রেড দিতে। পরীক্ষার রিপোর্টে "উইঘুর অ্যালার্ম" এর জন্য পাসিং গ্রেডও তুলে ধরা হয়েছিল। "উইঘুর অ্যালার্ম" একটি সতর্কতা যা চীনের নিপীড়িত সংখ্যালঘু জনগোষ্ঠীর সদস্যদের সনাক্ত করার জন্য বিশেষভাবে তৈরি করা হয়েছে।

জানা গেছে, চীন সরকার উইঘুর মুসলিমদের উপর অত্যাচার করার জন্য ফেসিয়াল রিকুইজিশন সহ বিভিন্ন নজরদারি প্রযুক্তি ব্যবহার করেছে। উইঘুর মুসলিমদের বিরুদ্ধে সরকারের এই ধরনের পদক্ষেপে মার্কিন আইন প্রণেতারা মন্তব্য করেন, "আজ বিশ্বের সংখ্যালঘু জনগোষ্ঠীর বৃহত্তম গণ-বন্দী" তাদের হিসাবে অনুযায়ী চীন সরকার এখন পর্যন্ত এক মিলিয়ন লোককে আটক করেছে।

চীনের এই ধরনের পদক্ষেপে সাহায্য করছে দেশটির টেক জায়েন্ট কোম্পানি গুলো। কোম্পানি গুলো Facial Recognition, Surveillance Camera এবং Voice Recognition এর মাধ্যমে মুসলিমদের ডিটেক্ট করতে সরকারকে সাহায্য করছে বলেও জানা যায়। ২০১৯ সালের অক্টোবরে, মার্কিন বাণিজ্য বিভাগ সংখ্যালঘু জনগোষ্ঠীর বিরুদ্ধে মানবাধিকার লঙ্ঘনের জন্য আটটি চীনা সংস্থাকে কালো তালিকাভুক্ত করেছিল।

আপনি Huawei কে বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম ফোন নির্মাতা হিসাবে চিনে থাকলেও, সংস্থাটি চীনের বৃহত্তম প্রযুক্তি সংস্থা এবং দেশ, আন্তর্জাতিক উভয় ক্ষেত্রেই নজরদারি ক্যামেরা সরবরাহ করে। অন্যদিকে আটটি কালো তালিকাভুক্ত চীনা কোম্পানির মধ্যে Megvii ও রয়েছে এটি বিশ্বের অন্যতম বৃহত্তর ফেসিয়াল স্বীকৃতি সরবরাহকারী। ট্রেনে চলা এবং অফিসে প্রবেশ করার মতো প্রতিদিনের ক্রিয়াকলাপে লোকদের সনাক্ত করার সাথে সম্পর্কিত এই প্রযুক্তিটি চীন জুড়ে ব্যবহৃত হয়।

হুয়াওয়ে এবং মেগভিয়ের পরীক্ষাগুলির বিবরণ ডকুমেন্টটি গোপনীয় হিসাবে চিহ্নিত করা হয়েছিল, তবে IPVM এটি হুয়াওয়ের ইউরোপীয় ওয়েবসাইটে প্রকাশ্যে রয়েছে বলে জানিয়েছে। পোস্টটি Discovery তে রিপোর্টের পরে মুছে ফেলা হয়েছিল।

Huawei এক বিবৃতিতে বলেছে "এই প্রতিবেদনটি কেবল একটি পরীক্ষা এবং এটি বাস্তব-বিশ্বের প্রয়োগ করা হয় নি। হুয়াওয়ে কেবল এই ধরনের পরীক্ষার জন্য সাধারণ উদ্দেশ্যে পণ্য সরবরাহ করে আমরা কাস্টম
অ্যালগরিদম বা অ্যাপ্লিকেশন সরবরাহ করি না। তবে চীনা প্রযুক্তির জায়ান্ট ব্যাখ্যা করেনি যে কেন একটি নিপীড়িত সংখ্যালঘু গোষ্ঠীকে টার্গেট করার জন্য ডিজাইন করা একটি প্রযুক্তি পরীক্ষা করা প্রয়োজন। Megvii এ ব্যাপারে এখনো কোন কথা বলতে চায় নি।

IPVM-এর ২০১৯ সালের নভেম্বরের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, হুয়াওয়ে এবং মেগভিই কেবল একমাত্র চীনা প্রযুক্তি সংস্থা নয় যে উইঘুর মুসলিমদের সনাক্ত এবং ট্র্যাক করার জন্য ফেসিয়াল রিকুইজিশন ব্যবহার করছে, বিশ্বের বৃহত্তম নজরদারি ক্যামেরা সরবরাহকারী Hikvision ও জনসংখ্যা চিহ্নিত করতে তার সক্ষমতা বাজারজাত করেছে।

আরও জানা গেছে, চীন সরকার উইঘুর মুসলিমদের টার্গেট করার জন্য ম্যালওয়ার এবং ফোন হ্যাকিং ব্যবহার করেছে। মার্চ মাসে, ১৭ মার্কিন সিনেটরদের একটি গ্রুপ চীনকে "রাষ্ট্রীয় শক্তির উপকরণ" হিসাবে ফেসিয়াল রিকুইজিশন প্রযুক্তি ব্যবহারের জন্য ডেকে আনে।

ফেসিয়াল রিকুইজিশন প্রযুক্তিটি ব্যাপক পরিমাণে লোককে ট্র্যাক করতে এবং সনাক্ত করার দক্ষতার কারণে গোপনীয়তা সম্পর্কিত উদ্বেগ তৈরি করছে। জাতিসংঘের মানবাধিকার প্রধানের এই অনুশীলনের বিরুদ্ধে স্থগিতাদেশের আহ্বান সত্ত্বেও কিছু দিন আগে মার্কিন পুলিশ এটিকে বিক্ষোভকারীদের চিহ্নিত করতে ব্যবহার করছিল।

-
টেকটিউনস টেকবুম - ৩০ ডিসেম্বর ২০২০

Level 28

আমি সোহানুর রহমান। সুপ্রিম টিউনার, টেকটিউনস, ঢাকা। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 7 বছর 8 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 497 টি টিউন ও 188 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 59 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 0 টিউনারকে ফলো করি।

কখনো কখনো প্রজাপতির ডানা ঝাপটানোর মত ঘটনা পুরো পৃথিবী বদলে দিতে পারে।


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস