সাবধান! সি-ক্লিনার ভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত। আপনার গোপন সব ফাইল হ্যাকার এর কাছে চলে যেতে পারে। জেনে নিন কি করবেন

কম্পিউটারকে সুরক্ষিত রাখার জন্য আমরা অনেকেই অ্যান্টিভাইরাস সফটওয়্যার ব্যবহার করি। আবার কম্পিউটারকে গতিশীল অর্থাৎ ফাস্ট রাখতে আমরা অনেকেই নানা ধরনের ক্লিনিং সফটওয়্যার ব্যবহার করি। এসব সফটওয়্যার দিয়ে আমরা আমাদের কম্পিউটারের জাঙ্ক ফাইল ডিলিট করতে পারি। যাদের হার্ড ডিস্ক খুব অল্প সাইজ এর তারা এই ধরনের সফটওয়্যার বেশি ব্যবহার করেন। আর এই সফটওয়্যারগুলোর মধ্যে সেরাদের সেরা ক্লিনিং সফটওয়্যার হল সি-ক্লিনার।

কিন্তু আপনাদের যদি বলি যে এই সি-ক্লিনার এর ভিতরেই ভাইরাস আছে? নিশ্চই  খুব আশ্চর্য হবেন। কারণ দীর্ঘদিন যাবত সি-ক্লিনার দিয়ে অনেকেই তাদের পিসি থেকে অপ্রয়োজনীয় ফাইল রিমোভ করে আসছেন। কিন্তু সিকিউরিটি বিশেষজ্ঞরা সি-ক্লিনার এর ৫.৩৩ ভার্সনে একটি ম্যালওয়ার খুঁজে পেয়েছেন। এই ম্যালওয়ার যারা তৈরি করেছে তারা চাইলেই আপনার পিসিকে দূর থেকে নিয়ন্ত্রন করতে পারবে। বুঝতেই পারছেন এটি অনেক বড় নিরাপত্তা ঝুঁকি।

সি-ক্লিনার হল অ্যাভাস্ট এর তৈরি একটি ফ্রি সফটওয়্যার। অ্যাভাস্ট অনেক বিশ্বাসযোগ্য একটি প্রতিষ্ঠান। কিন্তু হ্যাকাররা তাদের সার্ভার হ্যাক করে সি-ক্লিনার এর আপডেট ফাইল এর ভিতরে তাদের ম্যালওয়ার ঢুকিয়ে দিয়েছ। ফলে যারা সি-ক্লিনার আপডেট করেছে তাদের কম্পিউটার এই ম্যালওয়ার দ্বারা আক্রান্ত হয়েছে। তাই আপনি যদি দুই একদিন এর মধ্যে সি-ক্লিনার ডাউনলোড করে ইনস্টল করে থাকেন তাহলে দেরি না করে আনইন্সটল করে ফেলুন।

আর যদি সি-ক্লিনার আপডেট করে থাকেন তাহলেও দেরি না করে এখনই সফটওয়্যারটি কমপ্লিটলি আনইন্সটল করে ফেলুন। কারণ এটি না করলে আপনার কম্পিউটারের গুরুত্বপূর্ণ সব জিনিস চুরি হয়ে যেতে পারে। সারা বিসবে সি-ক্লিনার সফটওয়্যার ২ বিলিয়ন এর চেয়েও বেশি বার ডাউনলোড করা হয়েছে। এটি উইন্ডোজ এবং ম্যাক এর জন্য পাওয়া যায়।

সি-ক্লিনার এর ডেভেলপার পিরিফর্ম সেপ্টেম্বরের ১২ তারিখ এই ম্যালওয়ার সম্পর্কে সকলকে জানায়। কিন্তু এই সম্পর্কে জানে না। তাই সি-ক্লিনার এর ম্যালওয়ার এফেক্টেড ভার্সন ডাউনলোড করছে। তাই আপাদত সি-ক্লিনার ডাউনলোড করা থেকে বিরত থাকুন।

এই ম্যালওয়ারটি কিভাবে কাজ করে?

ম্যালওয়ার এফেক্টেড সি-ক্লিনার ডাউনলোড করে ইনস্টল করার পর এই ম্যালওয়ার কাজ শুরু করে দেয়। প্রথমেই এটি আপনার কম্পিউটারের নাম, কম্পিউটারে কি কি সফটওয়্যার ইনস্টল করা আছে সেগুলোর নাম, কম্পিউটারের ম্যাক অ্যাড্রেস এবং কম্পিউটারে কি কি প্রসেস রান করা আছে তা একটি নির্দিষ্ট ঠিকানায় পাঠিয়ে দেয়। তারপরে হ্যাকার আপনার এইসব ডিটেইলস দিয়ে কি করবে তা আর বলা লাগবে না আশা করি।

বিশেষজ্ঞদের মতে সি-ক্লিনার এর এই আফেক্টেড ভার্সন প্রায় ২.২৭ মিলিয়ন জন তাদের কম্পিউটারে ডাউনলোড করেছে। বুঝতেই পারছেন কি পরিমাণ মানুষ ভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত হয়েছে। তবে অ্যাভাস্ট বলছে তারা মাত্র ৭২ ঘণ্টার মধ্যেই এই সমস্যাটি সমাধান করে ফেলেছে। তবে এই ভাইরাস দ্বারা কেউ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এমন খবর পাওয়া যায়নি।

ভাইরাস দ্বারা প্রতিনিয়তই কম্পিউটারের ক্ষতি করা হচ্ছে। কিন্তু এরকম বিশ্বাসযোগ্য মাধ্যমে ভাইরাস খুব কমই ছড়ায়। তবে আশা করা যায় ভবিষ্যতে অ্যাভাস্ট কিছুর শিকার হবে না। আর আমি আগেই বলেছি আপাদত কিছুদিন সি-ক্লিনার আনইন্সটল করে রাখুন। কারণ এতে আরো ম্যালওয়ার থাকতে পারে।

যাই হোক, টিউনটি পড়ার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ। টিউনটি কেমন লাগলো তা অবশ্যই জানাবেন। সবাই ভাল থাকবেন, সুস্থ থাকবেন।

Level 0

আমি আশরাফুল ফিরোজ। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 6 বছর 8 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 77 টি টিউন ও 35 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 5 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 0 টিউনারকে ফলো করি।


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস