বৃষ্টির দিনে মাথার উপর ছাতা ধরার কৌশল

Level 3
১ম বর্ষ, ঠাকুরগাঁও সরকারি কলেজ, ঠাকুরগাঁও

বৃষ্টি পড়ছে অবিরাম। আপনি ছাতা নিয়ে বাইরে বেড়িয়েছেন। আপনি বৃষ্টির মধ্যেই হেঁটে হেঁটে যাচ্ছেন আপনার গন্তব্যস্থলে। এখন আপনার কাছে আমি একটা প্রশ্ন করতে চাই। আপনি আপনার ছাতাটা মাথার সামনে নাকি পিছনে ধরেছেন? প্রশ্ন শুনেই অনেকে বলবেন, পাগল নাকি! আমার ছাতা আমি কোথায় ধরব, সেটা জেনে আপনি কী করবেন? আসলে আপনার ছাতা আপনি কোথায় ধরবেন, তা নিয়ে আমার কোনো মাথা ব্যাথা নেই।

তবে একটা কথা বলতে পারি। আপনি যদি ছাতাটা মাথার সামনে ধরেছেন, তবে আপনি বুদ্ধিমান। আর যদি ছাতাটা মাথার পিছনে ধরেছেন, তবে আপনি অনেক বোকা। এই কথা শোনা মাত্রই অনেকেই বলবে, ছাতা ধরার সাথে বুদ্ধিমান আর বোকার কী সম্পর্ক? সম্পর্ক আছে। আজকে আমি আপনাদের সামনে এই বিষয়টা নিয়েই আলোচনা করব। আমাদের ছাতা কোন দিকে ধরা উচিত? মাথার সামনে নাকি পিছনে ধরলে সুবিধা হবে, তা নিয়েই আজকের এই ছোট্ট আলোচনা। তো চলুন দেড়ি না করে শুরু করা যাক।

১. বৃষ্টি পড়ে কী করে?

বৃষ্টি পড়ে কি করে

প্রথমে আসি বৃষ্টি কী করে পড়ে তা নিয়ে। আপনারা সবাই জানেন যে, পৃথিবী তার অভিকর্ষ বল দ্বারা সবকিছুকে নিজের দিকে আকর্ষণ করে। সূর্যের তাপে পৃথিবীর জলরাশি যখন জলীয় বাষ্প আকারে উপরে মেঘ আকারে অবস্থান করে, তখন একসময় মেঘ ভারী হয়ে যায়। ফলে পৃথিবীর আকর্ষণ বলে সেই মেঘ থেকে টপ টপ করে বৃষ্টি ঝরে।

২. বাইরে দাঁড়িয়ে থাকলে ছাতা ধরার নিয়ম

বাইরে দাঁড়িয়ে থাকলে ছাতা ধরার নিয়ম

এই বৃষ্টি সরাসরি লম্বভাবে পৃথিবীতে পতিত হয়। ফলে আপনি যদি বাইরে দাঁড়িয়ে থাকেন, তবে আপনার উপর বৃষ্টি লম্বভাবে মাথাতে পড়বে। যার ফলে বৃষ্টির হাত থেকে রক্ষা পেতে আপনি ছাতা মাথার উপর ধরলেই কাজ হয়ে যাবে। অর্থাৎ, আপনি দাঁড়িয়ে থাকলে আপনাকে ঠিক মাথার উপর ছাতা ধরতে হবে।

৩. আপেক্ষিক বেগ

আপেক্ষিক বেগ

 

কিন্তু, প্রশ্ন হচ্ছে, আপনি যখন চলতে শুরু করবেন, তখন আপনি ছাতা কোন দিকে হেলে ধরবেন? এটা বুঝার জন্য আপনাকে আপেক্ষিক বেগ সম্পর্কে ধারণা থাকতে হবে।

ধরেন, আপনি একটা বাসে করে পূর্ব থেকে পশ্চিম দিকে যাচ্ছেন। আপনার বাসের বেগ মনে করেন ১০ মিটার পার সেকেন্ড। আপনার বাসের পাশে আরও একটি বাস ১০ মিটার পার সেকেন্ড বেগে আপনার বাসের দিক বরাবর চলছে। মানে ওই বাসও পূর্ব থেকে পশ্চিম দিকে একই বেগে চলছে। আপনার কী মনে হবে? মনে হবে যে, পাশের বাসটা মনে হয় স্থির। কেননা, আপনার বাসের সাথে একই বেগে একই দিকে চলছে সেই বাসটি। ফলে তাকে দেখে মনে হবে এটি স্থির। কিন্তু, আসলে এটি স্থির নয়। এর আপেক্ষিক বেগ আপনার বাসের সাপেক্ষে ০ মিটার পার সেকেন্ড।

আবার কোনো লোক যদি রাস্তার ধারে বসে থাকে, তবে আপনি দেখবেন লোকটা মনে হয় আপনার বাসের বেগেই পিছন দিকে সরে যাচ্ছে। মানে ১০ মিটার পার সেকেন্ড বেগে পশ্চিম থেকে পূর্ব দিকে যাচ্ছে। এটা হচ্ছে তার আপেক্ষিক বেগ।

তো আপনি যখন বৃষ্টির দিনে দাঁড়িয়ে আছেন খোলা মাঠে, তখন বৃষ্টির সাপেক্ষে আপনি লম্বভাবে নিচে অবস্থিত, তাই আপনি লম্বভাবে মাথার উপর ছাতা ধরেছেন।

৪.বাইরে চলার সময় ছাতা ধরার নিয়ম

বাইরে চলার সময় ছাতা ধরার নিয়ম

কিন্তু, আপনি যখন চলতে শুরু করলেন সামনের দিকে, ধরেন পূর্ব থেকে পশ্চিম দিকে, তখন কিন্তু বৃষ্টি আর আপনার লব্ধি বেগ বা আপেক্ষিক বেগ পশ্চিম থেকে পূর্ব দিকে তির্যকভাবে হয়ে যায়। কেননা, বৃষ্টি পড়ছিল উপর থেকে নিচের দিকে। আর আপনি চলছিলেন পূর্ব থেকে পশ্চিম দিকে। ফলে ভেক্টরে লব্ধি মান অনুযায়ী আপনি দেখবেন বৃষ্টি পশ্চিম থেকে পূর্ব দিকে তির্যকভাবে আপনার উপর পড়বে। ফলে সামনের দিক থেকে বৃষ্টি আপনার কাছে আসছে বলে মনে হবে।

অনেকেই এবার বলবে, আমি যদি বিপরীত দিকে, মানে পশ্চিম থেকে পূর্ব দিকে যাই, তবে কী হবে? ওই একই কাহিনী! বৃষ্টি আর আপনার লব্ধি বেগ সর্বদাই আপনার যাওয়ার বিপরীত দিক থেকে তির্যকভাবে পতিত হবে।

সুতরাং, যেদিকেই যান না কেন, আপনাকে অবশ্যই বৃষ্টি সামনের দিকে আঘাত হানবে। তাই বৃষ্টির হাত থেকে রক্ষা পেতে অবশ্যই আপনাকে ছাতা মাথার সামনে ধরতে হবে।

আরেকটা বিষয় খেয়াল করে দেখবেন। আপনি যত দ্রুত হাঁটবেন, বৃষ্টি আপনাকে তত বেশি বেগে সামনে আঘাত দিবে। বিশ্বাস না হলে ছাতা নিয়ে দৌড় দিন।

তো বন্ধুরা, আপনারা নিশ্চয়ই বুঝতে পারছেন, বৃষ্টির হাত থেকে রক্ষা পেতে আপনাদেরকে অবশ্যই ছাতা সামনের দিকে ধরতে হবে। তাহলে বুঝা গেলো, কে বুদ্ধিমান, আর কে বোকা!

তো আপনি জানিয়ে দিন, আপনি বোকা নাকি বুদ্ধিমান?

Level 3

আমি মো মিরাজ ইসলাম। ১ম বর্ষ, ঠাকুরগাঁও সরকারি কলেজ, ঠাকুরগাঁও। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 1 বছর 9 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 26 টি টিউন ও 25 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 5 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 7 টিউনারকে ফলো করি।

আমি মোঃ মিরাজ ইসলাম। আমি আর্টিকেল লিখতে ও পড়তে ভালোবাসি। এছাড়া ইউটিউবে ভিডিও কন্টেন্ট তৈরিও করি। আমি টেকটিউনসে টিউন লিখে আয় করার জন্য একাউন্ট ক্রিয়েট করেছি। ধন্যবাদ।


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস