Incognito mode কী? Incognito mode কতটা Secure এবং এর সুবিধা ও অসুবিধা কী?

প্রকাশিত
জোসস করেছেন

ইন্টারনেট ব্রাউজিংয়ের একটি গুরুত্বপূর্ণ ফিচার হলো Incognito mode বা Private ব্রাউজিং ফিচার। অনেকে হয়তো, এটি নিয়মিত ব্যবহার করেন অথবা এটি কখনো ব্যবহার করেনি। Incognito mode খুবই সহজ একটি ফিচার। তারপরও অনেকের মধ্যে Incognito mode সম্পর্কে কিছু ভুল ধারণা আছে। অনেকে মনে করে Incognito mode ব্যবহার করলে ব্রাউজারে কোনো Data অর্থাৎ তথ্য সংরক্ষণ হয় না। আসলে এই বিষয়টি সম্পূর্ণ সত্য নয়।

Incognito mode এর সম্পূর্ণ সুবিধা আপনার ডিভাইসের। যে কম্পিউটার বা মোবাইলে আপনি ইন্টারনেট ব্যবহার করবেন এর বাইরে Incognito mode বা Private ব্রাউজিং কোনো কাজে দেয় না।

সহজ ভাষায় বললে, আমরা যখন ইন্টারনেট ব্যবহার করি তখন আমাদের তথ্যগুলো সাধারণত ৩টি জায়গায় সংরক্ষিত হয়। এখানে তথ্য বলতে বুঝানো হয়েছে : আপনি কোন ওয়েবসাইটগুলোতে ভিজিট করেন, কোন ধরনের বিষয়গুলো আপনি ইন্টারনেটে সার্চ করেন, আপনি কোন সাইটগুলোতে বেশি সময় দেন এবং আপনি কি ধরনের ফাইল ডাউনলোড করেন সেই সম্পর্কে বুঝানো হয়েছে। এইরকম আরো অনেকগুলো তথ্য সংরক্ষণ করে রাখা হয়। এছাড়াও আরো কয়েক ধরনের ফাইল সংরক্ষণ করে রাখা হয় যেগুলো মূলত কুকি ও ক্যাশ ফাইল হিসেবে সংরক্ষণ করে রাখা হয়।

আপনি যখন ব্রাউজারে Incognito mode চালু করবেন তখন আপনাকে Incognito mode সম্পর্কে একটি বার্তা দেখতে পাবেন। সেখানে দেখতে পাবেন ব্রাউজার কোন ধরনের তথ্য সংরক্ষণ করবে এবং কোন ধরনের তথ্য সংরক্ষণ করবে না।

Incognito mode আপনার কোন ধরনের তথ্যগুলো সংরক্ষণ করবে না

  1. ব্রাউজিং ইতিহাস
  2. ব্রাউজিং কুকি
  3. আপনার তথ্য দেওয়ার অনুমতি

Incognito mode এর সুবিধা

Incognito mode ব্যবহার করলে Log out করতে হবে না। অর্থাৎ আপনি যদি কোনো সাইটে লগইন করেন, সেই ব্রাউজার বন্ধ করার পর সেটি লগ আউট হয়ে যাবে। আপনার ভিজিট করা সাইটগুলো বা আপনার সার্চ করা তথ্য। Incognito mode এর সবচেয়ে বেশি সুবিধা যখন আপনি পাবলিক কম্পিউটার ব্যবহার করেন। কারণ, সেখানে আপনার ব্রাউজিং ইতিহাস অন্য কারো দেখার সম্ভবনা থাকে। কিন্তু আপনার নিজের কম্পিউটারে সেই সম্ভাবনা খুবই কম। একসাথে দুইটি অ্যাকাউন্টে লগইন করতে পারবেন। মনে করুন, আপনি চাচ্ছেন দুইটি ফেসবুক অ্যাকাউন্ট একসাথে লগইন করতে তাহলে আপনি Incognito mode ব্যবহার করতে পারবেন।

Incognito mode এর অসুবিধা

Incognito mode এর অসুবিধা হলো আপনার সকল তথ্য শুধু মাত্র আপনার ব্রাউজার থেকেই মুছে যাবে। যেমন মনে করুন, আপনি যদি আপনার মোবাইল থেকে সাম্প্রতিক কল ইতিহাস মুছে দেন, তাহলে শুধু তা আপনার মোবাইল থেকেই মুছে যাবে। যা আপনার মোবাইলে আর কেউ দেখতে পারবে না। কিন্তু, সেই কলগুলো আপনার মোবাইলে যারা দিয়েছেন বা আপনি যাদের মোবাইলে কল দিয়েছেন, তাদের মোবাইল থেকে মুছে যাবে না। আর, একইভাবে সেলফোন কোম্পানিগুলো দেখতে পারবেন, আপনি কাকে কল করেছেন এবং আপনাকে কারা কল করেছেন। যার কারণে বলা যায়, আপনি যদি নিজের কম্পিউটারে Incognito mode ব্যবহার করেন তাহলে আপনি খুব বেশি সুবিধা পাবেন না। কিন্তু, অন্যের কম্পিউটার বা মোবাইলে Incognito mode ব্যবহার করে উপকৃত হবেন।

Level 1

আমি শাহারিয়ার কবির জয়। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 3 বছর 8 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 7 টি টিউন ও 3 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 1 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 4 টিউনারকে ফলো করি।

আমি একজন প্রযুক্তি, স্বাস্থ্য বিষয়ক লেখক।


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস