ম্যাজিকে ম্যাজিকে বিজ্ঞান শিখি (৮ম পর্ব)

টেকটিউনসের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক, মেহেদী হাসান আরিফ (অনুমতি ছাড়া নাম ব্যবহার করলাম। আপত্তি থাকলে এডিট করে দেব) একদিন তার বোনের বাসায় বেড়াতে গেল । তার ছোট্ট একটা ভাগ্নি ছিল । বাসায় গিয়ে দেখে ভাগ্নি তার আম্মুর উপর রাগ করেছে । কারণ ছিল আম্মু তাকে রৌদ্রের মধ্যে খেলতে যেতে দেয়নি । তখন মেহেদী দেখল যে কারণ যৌক্তিক কিন্তু ভাগ্নির রাগ ভাঙ্গানো কিভাবে ? তখন সে ভাগ্নিকে বলল ম্যাজিক দেখবে ? ম্যাজিকের কথা শুনে ভাগ্নি নড়েচড়ে উঠল । ভাগ্নি বলল কি ম্যাজিক দেখাবে ? মামা বলল তুমি কি একট টুকরা বরফকে একটি সূতার সাহায্যে সূতা দিয়ে না বেঁধে এবং বরফকে না স্পর্শ করে উপরে তুলতে পারবে ? ভাগ্নি একথা শুনেতো অবাক! এটা কি করে সম্ভব! মামা বলল আমি পারি । ভাগ্নি বলল আচ্ছা দেখাওতো । তারপর মামা তার ভাগ্নিকে ম্যাজিকটি দেখাল এবং ভাগ্নির রাগ ভাঙ্গাল । টেকটিউনস বন্ধুরা চলুন দেখি মামা আরিফ কিভাবে ম্যাজিকটি দেখিয়েছিল -

প্রয়োজন

  • ট্যাপের পানি
  • সূতা
  • আইস কিউব বা বরফের টুকরা
  • লবণ
  • বোল

কি করতে হবে

  • প্রথমে সূতাটিকে ভাল করে ট্যাপের পানিতে পুরুটা ভাল করে ভিজিয়ে নিন ।
  • একটি আইস কিউব বা বরফের টুকরা একটি বলের মধ্যে নিন ।
  • এরপর সূতাটির একপ্রান্ত বরফটির উপর মাঝখান বরাবর রাখুন ।
  • এখন সূতার বরাবর বরফের উপর ধীরে ধীরে লবণ ছিটিয়ে দিন ।
  • এরপর ২/৩ মিনিট অপেক্ষা করুন ।
  • দেখা যাবে সূতাটি প্রথমে করাতের মত বরফের ভিতরে ঢুকে গেল এবং একটু পর আবার বরফ সূতা সহ জমাট বেঁধে গেল।
  • এবার সূতার অপর প্রান্ত ধরে উপরে তুলুন দেখবেন বরফের টুকরাটি ও সূতার সাথে ঝুলতে থাকবে ।

ছবিতে দেখুন

কেন এমন হয়

আমরা জানি শূন্য ডিগ্রী সেলসিয়াস বা বত্রিশ ডিগ্রী ফারেনহাইট তাপমাত্রায় সাধারণত পানি বরফে পরিনত হয় । এই শূন্য ডিগ্রী সেলসিয়াস বা বত্রিশ ডিগ্রী ফারেনহাইট তাপমাত্রাকে পানির ফ্রিজিং পয়েন্ট বা হিমাংক বলা হয় । পানির এই ফ্রিজিং পয়েন্টকে কমিয়ে শূন্য ডিগ্রী সেলসিয়াস তাপমাত্রার নীচে নিয়ে আসা যায় । একে বলা হয় হিমাংকের অবনমন । উপরের ম্যাজিকটিতে ঠিক এধরণের ঘটনা ঘটে । বরফের উপর সূতা রাখার পর এর চারপাশে বরফের উপর লবণ ছিটিয়ে দেয়ার ফলে পানির হিমাংক শূন্য ডিগ্রী সেলসিয়াস বা বত্রিশ ডিগ্রী ফারেনহাইট থেকে কিছুটা কমে আসে ফলে বরফ শূন্য ডিগ্রী সেলসিয়াস তাপমাত্রায় থাকলেও তা গলতে শুরু করে । ফলে সূতা করাতের মত করে বরফের ভিতর ঢুকতে থাকে । যখন লবণের ক্রিয়া শেষ হয়ে যায় তখন আবার হিমাংক শূন্য ডিগ্রী সেলসিয়াস তাপমাত্রায় চলে আসে এবং বরফ সূতার চারপাশে জমতে শুরু করে । ফলে যখন জমাট বরফ জমে যায় তখন সূতা উপরে তুললে বরফও সূতার সাথে উপরে উঠে আসে ।

Level 0

আমি ছাত্র ও শিক্ষক। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 12 বছর যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 54 টি টিউন ও 1010 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 1 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 0 টিউনারকে ফলো করি।

তুমি যদি শিক্ষিত হও,অশিক্ষিতকে আলো দেবে। না পারলে তুমি অহংকার করবেনা,তুমি দূর্ব্যবহার করবেনা,বিনয়ের সঙ্গে কথা বলবে,তুমি শিক্ষিত বলেই এ তোমার অতিরিক্ত দায়।


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস

ভালো লাগলো……………………

দারুন

ফাটাফাটি। অসাধারন।

আপনার এই সিরিজটা অসাধারন হচ্ছে। চালিয়ে যান।

আমরা কিন্তু আপনার নিয়মিত ছাত্র।চালিয়ে যান।

আপনি শিখাতে থাকেন আমরা শিখতে থাকি, ভালো লাগলো…

Level 0

তাপমাত্রা শূন্য ডিগ্রীর নিচে থাকলে(-১ বা -২ ডিগ্রী) থাকলে তো বরফ গলার কথা না। বরং, ০ এর উপরে(যেমন-১ বা ২ ডিগ্রী) হলে গলার কথা। এ পদ্ধতিটা জানতাম কলেজ পড়া পর্যন্ত। কিন্তু মেকানিজমটা ভুলে গেছি। ধন্যবাদ।

    মিঠু ভাই ধন্যবাদ আপনাকে ।
    একটু স্মরণ করুনতো পাহাড়ের উপর পর্বতের উপর রান্না করা কষ্টসাধ্য কেন ? ব্যাখ্যাটা মনে পড়ছে ?
    পানির হিমাংক শূন্য ডিগ্রী সেলসিয়াস । তাহলে বরফ গলার কথা এর বেশী অর্থাৎ ১/২/৩/….. ডিগ্রী সেলসিয়াস তাপমাত্রায় । যখন লবন যোগ করা হয় তখন পানির হিমাংক কমে যায় । ধরুন তখন পানর হিমাংক শূন্য ডিগ্রী সেলসিয়াস থেকে কমে – ৫ ডিগ্রী সেলসিয়াস হল । তাহলে এখন হিমাংকের বেশী তাপমাত্রা হবে -১/-২/-৩/-৪ ডিগ্রী সেলসিয়াস তাপমাত্রা । তখন কি বরফ গলবেনা ?
    কি বুঝা গেল ?

    Level 0

    ও হ্যা, মনে পড়ছে। আসলে -১ বা -২ হওয়া মানে তো হিমাংকের চেয়ে কম তাপমাত্রা হওয়া, বেশি না।

    -১ ও -২ হিমাংকের কম তাপমাত্রা হবে যখন হিমাংক হবে ০ ডিগ্রী সেলসিয়াস আর যদি হিমাংক –৪ ডিগ্রী সেলসিয়াস হয় তখন -১ ও -২ হবে হিমাংকের চেয়ে বেশী তাপমাত্রা ।

    Level 0

    হ্যা তা তো অবশ্যই, আমি হিমাংক বলতে এখানে ০ ডিগ্রী ই বুঝাচ্ছিলাম। 🙂

Level 0

আমি আমার ফটোশপ জোনের ছয় নম্বর পর্বটি চেইন টিউনের লিস্টে দেখতে পাচ্ছি না, আশা করি এডমিন এ ব্যাপারটি দেখবেন।
@ছাত্র ও শিক্ষকঃ আপনি আপনার আগের টিউনগুলো টিউনগুলো ড্যাশবোর্ড থেকে একটু চেক করে দেখুন। হয়তো সেখানে পাবেন।

    সেখানে দেখলাম আছে ।
    এখন কি করে ফিরিয়ে আনা যায় ।

    Level 0

    এটা তো বলতে পারছিনা, এডমিনের দৃষ্টি আকর্ষন করছি, আমাদের দুজনের এই সমস্যার দিকে একটু নজর দেবেন আশা করি।

কি ব্যাপার কমেন্ট করেছিলাম তো, গেল কই? হি হি। থাক ভালো কথা বারবার বলতে ভালো লাগে। অসাধারণ একটা সিরিজ হচ্ছে এইটা চালিয়ে যান। আমরা আছি আপনার পিছে। হা হা।

    কই আগে তো আপনার কোন মন্তব্য দেখিনাই ।
    ধন্যবাদ আবার কষ্ট করে মন্তব্য করার জন্য ।
    তা ভাই পিছনে কেন ? পাশাপাশি থাকলে ভালনা ?

    নাহ! আপনি শিক্ষক আর আমি ছাত্র আপনি যাবেন আগে আগে আমি যাব পিছে পিছে। 😀

ধন্যবাদ

আপনার উপস্থাপনা সত্যি চমতকার।
থিমটাও ভাল।
ইস আপনার মত টিচার যে কেন স্টুডেন্ট লাইফে পাই নাই। 🙁

ধন্যবাদ।

    আমার মনে হয় এই প্রথম আমার কোন টিউনে মন্তব্য করলেন ।
    অসংখ্য ধন্যবাদ উৎসাহব্যঞ্জক মন্তব্যের জন্য ।
    ভাল থাকেবন ।

স্যার আপনার টিউন আমার বরাবরই ভালো লাগে।আজকেরটাও এর ব্যাতিক্রম নয়।অনেক সুন্দর লাগলো টিউনটি।ধন্যবাদ

    অনেক ধন্যবাদ আপনাকে ।
    আপনি যে টিউন করেন তার কাছেতো এগুলো কিছুই না ।
    আপনার টিউনগুলো ও আমার খুব ভাল লাগে ।

আমার অবশ্য ভাগ্নে নাই তবে ভাগ্নিকে ম্যাজিকটা দেখানো যাবে। 😉 ধন্যবাদ।

    মেহেদী ভাই, আপনার ভাগ্নেকে ভাগ্নি বানাতে গিয়েতো আপনার পরিশ্রমটুকু নষ্ট করে ফেললাম ।
    ভাই একটু কষ্ট করে ঠিক করে দেন ।
    ধন্যবাদ ।

মজাতো!? চালিয়ে স্যার আছি সামনের টেবিলে!

সুন্দর উপস্থাপনা…

Level 0

প্রিয় তে রাখলাম।মজার জিনিশ।ধন্যবাদ।

এতো ম্যাজিক জানেন কিভাবে??

    তুমি যে এত সুন্দর সুন্দর টিউন কর এগুলো জান কিভাবে ?
    জানার প্রয়োজনীয়তা ও ইচ্ছা থাকলে এমনি এমনি জানা হয়ে যায় ।
    ধন্যবাদ ।

উপাদান সহজ এবং মজার, ম্যাজিকটা অন্যদের দেখানো যাবে।

Level 0

Nick channel এর tricky TV তেmagic টি দেখেছিলাম!

এই মূহুর্তে হাতের কাছে বরফ পেলাম না ।বরফ পেলে অবশ্যই কাজটা করে দেখব ।