ম্যাজিকে ম্যাজিকে বিজ্ঞান শিক্ষা (২য় পর্ব)

অনেকেই আছেন যারা শারীরিকভাবে খুব শক্তিশালী । কিন্তু আপনি যতই শক্তিশালী হোননা কেন কিছু কিছু ক্ষেত্রে আপনি খুব অসহায় । আজকে যে পরীক্ষাটির কথা আপনাদের জানাব তা থেকেই আমার কথার সত্যতা খুঁজে পাবেন । তাহলে চলূন দেখি -

দরকার :
১। নিজের দুই হাত ।
২। একজন সাহায্যকারী।
৩। একটি মুদ্রা ।

কার্যপ্রণালী :
১। প্রথমে আপনার হাতের তালুর উপর তালূ রেখে দুই হাত একসাথে লাগান এবং আঙ্গুলগুলো চিত্রের ন্যায় ভাঁজ করুন এবং অনামিকা আঙ্গুলদ্বয়কে একে অপরের মুখোমুখি স্পর্শ করে সোজা করে রাখুন ।প্রয়োজনে সাহয্যকারীর সাহায্য নিন। নিচের চিত্র দেখুন-

২। এবার একটি মুদ্রা সাহায্যকারীর মাধ্যমে আপনার দুই অনামিকা আঙ্গুলের মাঝে বসান । নিচের চিত্র দেখুন -

এখন আপনি আঙ্গুল দুটিকে স্লাইডিং না করে মুদ্রাটি ফেলে দিন । কি পারছেন কি ? না আপনি যতই শক্তশালী হোননা কেন আপনি তা করতে পারবেননা ।

কেন এমন হয় :
আমাদের মানবদেহ হল সুশৃঙ্খলভাবে সজ্জিত এবং জটিল এক যন্ত্রবিশেষ। কিন্তু এটি একক কোন যন্ত্র নয় । এটি বিভিন্ন অংশ নিয়ে গঠিত এবং অনেকগুলো পার্টস একসাথে কাজ করে । যখন দুই হাত আঙ্গুলের মাধ্যমে এরকম পজিশনে নিয়ে আসি তখন দেহের কিছু পার্টস কাজ করেনা । এই পরীক্ষায় যখন দুই হাতকে আঙ্গুলের মাধ্যমে আঁকড়ার মত করে একসাথে রাখা হয় তখন টেন্ডনগুলো (যা পেশীকে হাড়ের সাথে যুক্ত রাখে) খুব জোরে আঙ্গুলকে টেনে রাখে ফলে আঙ্গুল দুটাকে বাইরের দিকে মুভ করানো যায়না । আর এটা হচ্ছে মানবদেহের একটি সীমাবদ্ধতা ।

Level 0

আমি ছাত্র ও শিক্ষক। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 12 বছর যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 54 টি টিউন ও 1010 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 1 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 0 টিউনারকে ফলো করি।

তুমি যদি শিক্ষিত হও,অশিক্ষিতকে আলো দেবে। না পারলে তুমি অহংকার করবেনা,তুমি দূর্ব্যবহার করবেনা,বিনয়ের সঙ্গে কথা বলবে,তুমি শিক্ষিত বলেই এ তোমার অতিরিক্ত দায়।


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস

ভালোই লাগলো……………ম্যাজিকের সিরিজ গুলিকে এগিয়ে নিয়ে চলুন……………….শুভেচ্ছা রইলো

চমৎকার টিউনঅ ভালো লাগলো।
কেন এমন হয় : এর ব্যাখায় কমেন্ট করতে চাই স্যার।
অনামিকা ও অন্যন্য আঙ্গুলের জয়েন্টগুলো (মেটাকার্পো ফ্যারেনজিয়াল জয়েন্ট) হিন্জ টাইপ সাইনোভিয়াল জয়েন্ট। এদের মুভমেন্ট লিমিটেড (ফ্লেক্সন ও এক্সটেনশন)। তাই এদর ব্যাকওয়ার্ড ডিরেকশনে নিয়ে যাওয়া সম্ভব নয়। একইভাবে কুনুই কেও ব্যাকওয়ার্ড ডিরেকশনে নিয়ে যাওয়া সম্ভব নয়। এটির সাথে শরীরের কোনো পার্টস কাজ না করার কোনো সম্পর্ক নেই।

    অনেক ধন্যবাদ তথ্য গুলো শেয়ার করার জন্য ।
    দেহের কিছু পার্টস কাজ করেনা বলতে আমি অনামিকা আঙ্গুলদ্বয়কে বুঝাতে চেয়েছি ।
    আচ্ছা বলুন তো হাত কে পেটের পাশ দিয়ে নিয়ে পিঠের উপর দিয়ে কান ধরা কি সম্ভব ?
    এম.বি.বি.এস করতেছেন না শেষ করেছেন ?

    না স্যার, পাশ দিতে এখনো বহু বাকি.. পড়া শুরুই করেছি বছর দুয়েক আগে।
    আসলে সাধারণ মানুষের পক্ষে ওরকম কসরত করা সম্ভব নয়। তবে যারা জিমন্যাস্টিক প্রাকটিস করে, তারা ছোট বেলা থেকেই শারীরিক কসরতের মাধ্যমে জয়েন্টগুলোকে লুজ করে ফেলে। তাদের পক্ষে যেকোনো ধরণের অস্বাভাবিক কসরত দেখানো সম্ভব।

    আমি জিমন্যাষ্ট নই কিন্তু এভাবে কানে ধরতে পারি ।

    বাহ বেশ মজার তো! 🙂
    অনেকের জন্মগতভাবেই কিছু জয়েন্টের মুভমেন্ট বেশি থাকে। আমার এক সহপাঠি তার কিনি আঙ্গুল কব্জিতে ঠেকাতে পারে। এসব কোনো অস্বাভাবিক বিষয় নয়। 🙂

    স্যার তো বায়োলজি পড়ান। আপনি কি স্কুল লেভেলে পড়ান না কলেজ লেভেলে? আমার ছাত্র ছাত্র জীবনে একটিই ক্রেডিট রয়েছে, ক্লাস 9 থেকে ইন্টার পর্যন্ত কোনো পরীক্ষাতে বায়োলজিতে 80 এর নিচে পাইনি। একবার এক স্যার 40 এ 38 দিয়েছিল লেখিত পরীক্ষায় 🙂 95-96 ধরণের মার্কস পেয়েছিলাম 🙂
    [শো-অফ করে ফেল্লাম মনে হয়.. হা হা হা..]

    আমার মনে হয় আমি বায়োলজির ‘ব’ ও জানিনা ।
    আমি একটি সরকারি হাই স্কুলে রসায়ন পড়াই । ছাত্র জীবনে মিডিয়াম মানের ছাত্র ছিলাম । এখন সেটা কাভার করার চেষ্টা করি ।
    রসায়ন আমার প্রিয় সাবেজক্ট ।
    আমি এক ছেলেকে দেখেছিলাম তার প্রত্যেকটি আঙ্গুল কবজিতে স্পর্শ করাতে পারে ।

খাইছে! স্যার এটা তো পুরা গিরিঙ্গি লাগিয়ে দিয়েছিল! আমি হাত দুটো আলাদা করতে পারছিলাম না!। যদিও ২-৩ সেকেন্ড চেস্টার পর হাত দুটো আলাদা হয়। কিন্তু আমার কাছে মনে হচ্ছিল অন্তত কাল ধরে চেস্টায় আছি…………………….. আনার টিউনকে এ+ মারকিং করার দুঃসাহস দেখালাম। ঃড

    ধন্যবাদ ।
    তোমাকে আমার খুব ভাল লাগে ।
    তোমার স্কুলের সময়সূচীটা বিস্তারিত বল ।
    বর্তমানে আমি ঢাকাতে ট্রেনিং করছি । সেখান থেকে বিভিন্ন স্কুলে টিচিং প্রাকটিসে যেতে হবে ।
    দেখি চেষ্টা করে তোমার স্কুলে আসা যায় কিনা ।

    দিবা শাখাঃ
    দুপুর ১২:১৫ এসেম্বলি
    দুপুর ১২.৩০ ক্লাস শুরু
    দুপুর ২.৩০ টিফিন
    দুপুর ৩.০০ ক্লাস শুরু
    দুপুর ৫.২৫ ছুটি

    আসলে ভালোই হবে স্যার আপনার সাথে দেখা হবে।

    আমি দিবায় তাই শুধু এটাই দিলাম। আপনার টিউনো খুব ভালো হয় স্যার। সহজ কিন্তু সুন্দর বিজ্ঞান।

    কোন স্কুল?…

APNAR POST+THANK U ay dutio falty parci na….ata o ki magic.

    ধন্যবাদ । মেজিক বলতে আমার কাছে মনে হয় কতগুলো কৌশল ।
    আপনি যদি এটাকে মেজিক হিসেবে ধরেন তাহলে ম্যাজিক ।

চমৎকার যাদু, কিন্তু আগের পর্বের ডিম বাহির করার সিষ্টেম টা জানতে পারলাম না।

    ধন্যবাদ ।
    ডিম বের করার দুটি পদ্ধতি আগের পোষ্টেই আছে । তারপরও আপনার জন্য আর একটি পদ্ধতি জানিয়ে দেই –
    ডিমটিকে গড়িয়ে ডিমের চিকন প্রান্তু বোতলের মুখের কাছাকাছি আনুন । তারপর বোতলের মুখে মুখ লাগিয়ে ভিতরে ফুঁ দিয়ে বাতাস ঢুকান এবং মুখ সরিয়ে নেয়ার আগে
    ডিমটিকে গড়িয়ে বোতলের মুখে নিয়ে আসুন । এরপর বোতলটি কাত করে মুখটি নীচের দিকে রেখে ধরে রাখুন ।
    আস্তে আস্তে ডিমটি বের হয়ে আসবে ।

কি মুশকিলের কথা!! স্কুল জীবনে সায়েন্স ভাগ্যে জোটে নাই। এখন এই বুড়ো বয়সে (ছাত্র জীবনের) রাত তিনটার সময় আমি দুই হাত একত্র করে বসে আছি!!!

    সাইন্স পড়েননি তো কি হয়েছে !
    বিজ্ঞানের সহজ বিষয়গুলো জেনে রাখুন ।
    ভবিষ্যতে আপনার অনেক কাজে লাগবে ।
    ধন্যবাদ।

হাতে গিট্টু লেগে গেছে, এখন কি করব? 😉

দারুন ম্যাজিক…ধন্যবাদ স্যার.. 😀

যাক আমিও তাইলে একদিন ম্যজিশিয়ান হব। 😆

Magic-টি Apply করতে পারছি না, কারণ ছবি Load হচ্ছে না… যা হোক পরে দেখে নেব…

জটিলতো খুব মজা পাইলাম

Level 0

ম্যাজিক যত না ভাল লাগলো তার চেয়ে বেশী ভাল লাগলো কমেন্ডস আর উত্তর গুলো।

Level 0

হ্মম্মম্মম্মম্মম্মম্মম্মম্মম্মম্মামামামামামামামা চায়।পারলাম না…………।।আপ্নি বস।