কুর’আনে প্রযুক্তি [পর্ব- ২৬] :: আমাদের চারপাশে সবকিছুই কি জোড়ায় জোড়ায় সৃষ্টি করা হয়েছে?

আসসালামুআলাইকুম ও শুভেচ্ছা সবাইকে 🙂 ।সবাই ভাল আছেন আল্লাহর রহমতে আশা করি।

কুর’আনে প্রযুক্তি [পর্ব- ২৬] :: আমাদের চারপাশে সবকিছুই কি জোড়ায় জোড়ায় সৃষ্টি করা হয়েছে?

বোধকরি একটু আশ্চর্য হচ্ছেন সব কিছু জোড়ায় জোড়ায় কি করে হতে পারে! প্রকৃতপক্ষে ব্যাপারটি সত্য। আল- কুরআনে যখন এ সত্যটি মানববিশ্বের নিকট প্রকাশ করেছিল তখন এর নিগুঢ় তথ্যটি মানুষ অনুধাবন করতে সমর্থ হয়নি। কিন্তু বর্তমান যুগ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির পদাচারনায় মুখরিত। ১৪৩০ বছর হতে এখনো পর্যন্ত আরবী সাহিত্যিকগন নিদ্ধিধায় স্বীকার করে আসছেন কুরআনের মতো অতি উচ্চমানের কবিতা ও সাহিত্য রচনা মানুষের দ্বারা সম্ভব নয় , সে সাথে তাল মিলিয়ে আমরা যদি তথ্য প্রযুক্তির দুনিয়ায় তাকাই মুসলিম হিসেবে গর্ব করে বলি বিজ্ঞান ১০ বা ৫০ বা ২০০ বছর আগে যা আবিষ্কার করেছে কুরআনে তার অনেক কিছুই ১৪৩০ বছর আগে মানুষের জন্য নিদর্শন স্বরুপ তুলে ধরেছে। আল্লাহপাক মানুষকে বিভিন্ন Signs বা কুরআনিক তথ্যের মাধ্যমে মানুষকে এক সৃষ্টিকর্তার ইবাদতের দিকনির্দেশনা বুঝিয়ে দিয়েছেন। এ সমস্ত মহাবিশ্ব হটাৎ করে সৃষ্টি হয়নি নিঃসন্দেহে এ বিশাল সিষ্টেমের পেছনে কাজ করছে Master of Creation যাকে আমরা আল্লাহ্ বলি। আল্লাহপাক বলেন-

041.053 سَنُرِيهِمْ آيَاتِنَا فِي الآفَاقِ وَفِي أَنْفُسِهِمْ حَتَّى يَتَبَيَّنَ لَهُمْ أَنَّهُ الْحَقُّ أَوَلَمْ يَكْفِ بِرَبِّكَ أَنَّهُ عَلَى كُلِّ شَيْءٍ شَهِيدٌ

”এখন আমি তাদেরকে আমার নিদর্শনাবলী প্রদর্শন করাব পৃথিবীর দিগন্তে এবং তাদের নিজেদের মধ্যে; ফলে তাদের কাছে ফুটে উঠবে যে, এ কোরআন সত্য। আপনার পালনকর্তা সর্ববিষয়ে সাক্ষ্যদাতা, এটা কি যথেষ্ট নয়? ” (৪১ :৫৩) (অনুবাদ:- মাওলানামুহিউদ্দীন, উম্মুলকোরা, সৌদিআরব)

041.053 Soon will We show them our Signs in the (furthest) regions (of the earth), and in their own souls, until it becomes manifest to them that this is the Truth. Is it not enough that thy Lord doth witness all things? (Translated by- Asad)

Al-Qur'an, 041.053 (Fussilat [Explained in Detail])
১৯৩৩ সালের নোবেলজয়ী পদার্থ-বিজ্ঞানীর আবিষ্কার—

সুবিখ্যাত পদার্থ বিজ্ঞান জগতের ব্রিটিশ physicist পল ড্রেক যিনি মানবজাতির মধ্যে সর্বপ্রথম আবিষ্কার করেন প্রতিটি পদার্থ জোড়ায় জোড়ায় সৃষ্টি। এ অতুলনীয় আবিষ্কারের পেছনে ছিল দীর্ঘ সময়ের গভীর তাত্বিক ও ব্যবহারিক গবেষনা, বিজ্ঞান দুনিয়ায় এ বিশাল অবদানের জন্য তাকে ১৯৩৩ সালে নোবেল পুরষ্কারে নির্বাচিত করা হয় । বিজ্ঞানের ভাষায় তারঁ আবিষ্কারের নামকরন করা হয়েছে-"parity" হিসেবে যা প্রায় প্রতিটি ক্ষেত্রে matter ও anti-matter –এর অস্তিত্বের জানান দেয়। Anti-matter প্রায় সময় matter এর বিপরীত কেরেক্টার হিসেবে কাজ করে থাকে। এর কয়েকটা বৈজ্ঞানিক উদাহরন হল- contrary to matter, anti-matter electrons are positive and protons negative ।

আরেকটু বিশ্লেষন-

প্রতিটি বস্তুর পরমাণুর বৈশিষ্ট্যের ঠিক উল্টো বৈশিষ্ট্য বহন করে তারই প্রতিবস্তু। অর্থাৎ উল্টো প্রতিটি প্রতিবস্তুর রয়েছে ধনাত্মক বিদ্যুৎবাহী ইলেকট্রন আর ঋণাত্মক বিদ্যুৎবাহী প্রোটন। এ বৈজ্ঞানিক সূত্রে বিষয়টি নিম্নরূপে বর্ণিত রয়েছেঃ

‘‘প্রতিটি কণারই (Particle) বিপরীত বিদ্যুৎবাহী প্রতিকণা (Anti-particle) বিদ্যমান রয়েছে-----আর অনিশ্চিত সম্পর্ক এটাই আমাদের বলে যে, জোড়ায় জোড়ায় বা যুগলের সৃষ্টি বা ধ্বংস শূণ্যে সকল সময় সকল স্থানে ঘটে থাকে।’’ Henning Genz, "Nothingness: The Science of Empty Space," 205,

বলার অপেক্ষা রাখে না, পৃথিবী বিভিন্ন খনিজ পদার্থ উৎপাদন করে। বিজ্ঞানের সাম্প্রতিক গবেষণা প্রমাণ করেছে, প্রত্যেক খনিজ পদার্থই হয়ত ধনাত্মক কিংবা ঋনাত্মক আধার (charge) বিশিষ্ট অতি পারমাণবিক কণিকা দ্বারা গঠিত। খনিজ পদার্থের পাশাপাশি এমনকি পানিও যা পৃথিবী উৎপাদন করে, তাও বিপরীতধর্মী যৌগমূল দ্বারা গঠিত। পানি গঠিত হয় দুটি বিপরীতধর্মী উপাদনা দ্বারা। একটি ধনাত্মক উপাদানবিশিষ্ট হাইড্রোজেন অনু এবং অপরটি ঋনাত্মক উপাদানবিশিষ্ট অক্সিজেন অনু দুঠো মিলে সৃষ্টি হয় পানি যাকে বলা হয় H2O। অধিকন্তু পৃথিবী থেকে উৎপন্ন জোড়া জোড়া বস্ত্তসমূহ আরও অন্তর্ভুক্ত করতে পারে সেসব সমজাতীয় জোড়া, যা তাদের দৈহিক ও রাসায়নিক ধর্মের ক্ষেত্রে ভিন্ন ভিন্ন। যেমন- ধাতু ও অধাতু। অনুরূপ বিপরীতধর্মী উপাদানবিশিষ্ট জোড়া যেমন, ধনাত্মক ও ঋনাত্মক উপাদানবিশিষ্ট আয়ন থেকে ধনাত্মক ও ঋনাত্মক বৈদ্যুতিক উপাদানসমূহ চৌম্বকীয় বিপরীতধর্মী জোড়া, যেমন- চুম্বকের উত্তরপ্রান্ত ও দক্ষিণপ্রান্ত, আকর্ষণ ও বিকর্ষণ শক্তি, তেমনিভাবে কেন্দ্রনির্গত শক্তির মাধ্যমে মধ্যাকর্ষণ ভারসাম্য ইত্যাদি। "Wanna C A Miracle: Quran: The Living Miracle," The Revival 5, Issue 2, http://www.therevival.co.uk/Revival_issue/vol5_iss2_quran_miracle.htm

মানবিক জোড়ার ক্ষেত্রে অন্তর্ভুক্ত হতে পারে- পুরুষ ও মহিলার লিঙ্গভেদ, পরিপূর্ণ ব্যক্তিত্ব প্রকাশক গুণ, যেমন- নিষ্ঠুরতা ও পরদুঃখ কাতরতা, সাহস ও ভয়, উদারতা ও কৃপণতা ইত্যাদি।উদ্ভিদের ক্ষেত্রে আমরা জোড়ার অস্তিত্ব দেখতে পাই ফলের ক্ষেত্রেও জোড়া রয়েছে পুরুষ ও নারী ফল।(ইনশাআল্লাহ এ বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হবে পরবর্তী পর্বে।) ইলেকট্রিসিটির মধ্যেও রয়েছে Negative & positive flow.অতঃপর যে কেউ সহজে উপসংহারে আসতে পারে যে, জোড়ার রহস্য পুরুষ ও মহিলা কিংবা বিপরীত বৈদ্যুতিক উপাদান ও বিপরীতধর্মী গুণ মানব জাতিসহ সব ধরনের প্রাকৃতিক বিষয় ও শক্তিসমূহের মধ্যে বিদ্যমান। এ কথা উপরোক্ত কুরআনি আয়াতে পরিষ্কারভাবে বর্ণিত হয়েছে।

আসুন এবার কুরআনের বক্তব্য শুনি-

036.036 سُبْحَانَ الَّذِي خَلَقَ الْأَزْوَاجَ كُلَّهَا مِمَّا تُنبِتُ الْأَرْضُ وَمِنْ أَنفُسِهِمْ وَمِمَّا لَا يَعْلَمُونَ

036.036 Glory to Allah, Who created in pairs all things that the earth produces, as well as their own (human) kind and (other) things of which they have no knowledge.

Al-Qur'an, 036.036 (Ya-Seen [Ya-Seen]) (Translated by- Asad)

পবিত্র মহান তিনি, যিনি জোড়া জোড়া করে সৃষ্টি করেছেন উদ্ভিদ, মানুষ এবং তারা যাদেরকে জানে না তাদের প্রত্যেককে।(কোরআন, ৩৬ : ৩৬)(অনুবাদ:- মাওলানামুহিউদ্দীন, উম্মুলকোরা, সৌদিআরব)

013.003 وَهُوَ الَّذِي مَدَّ الأرْضَ وَجَعَلَ فِيهَا رَوَاسِيَ وَأَنْهَارًا وَمِنْ كُلِّ الثَّمَرَاتِ جَعَلَ فِيهَا زَوْجَيْنِ اثْنَيْنِ يُغْشِي اللَّيْلَ النَّهَارَ إِنَّ فِي ذَلِكَ لآيَاتٍ لِقَوْمٍ يَتَفَكَّرُونَ

013.003 And it is He who spread out the earth, and set thereon mountains standing firm and (flowing) rivers: and fruit of every kind He made in pairs, two and two: He draweth the night as a veil over the Day. Behold, verily in these things there are signs for those who consider! (Translated by- Asad)

Al-Qur'an, 013.003 (Ar-Rad [The Thunder])


031.010 خَلَقَ السَّمَاوَاتِ بِغَيْرِ عَمَدٍ تَرَوْنَهَا وَأَلْقَى فِي الأرْضِ رَوَاسِيَ أَنْ تَمِيدَ بِكُمْ وَبَثَّ فِيهَا مِنْ كُلِّ دَابَّةٍ وَأَنْزَلْنَا مِنَ السَّمَاءِ مَاءً فَأَنْبَتْنَا فِيهَا مِنْ كُلِّ زَوْجٍ كَرِيمٍ

031.010 He created the heavens without any pillars that ye can see; He set on the earth mountains standing firm, lest it should shake with you; and He scattered through it beasts of all kinds. We send down rain from the sky, and produce on the earth every kind of noble creature, in pairs. (Translated by- Asad)

Al-Qur'an, 031.010 (Luqman [Luqman])

020.053 الَّذِي جَعَلَ لَكُمُ الأرْضَ مَهْدًا وَسَلَكَ لَكُمْ فِيهَا سُبُلا وَأَنْزَلَ مِنَ السَّمَاءِ مَاءً فَأَخْرَجْنَا بِهِ أَزْوَاجًا مِنْ نَبَاتٍ شَتَّى

020.053 "He Who has, made for you the earth like a carpet spread out; has enabled you to go about therein by roads (and channels); and has sent down water from the sky." With it have We produced diverse pairs of plants each separate from the others. (Translated by- Asad)

Al-Qur'an, 020.053 (Ta-Ha [Mystic letters Ta-Ha])

এখন আমরা নিজেদেরকে একবার প্রশ্ন করি, মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর মত একজন মানুষ যিনি না লিখতে পারতেন, না পড়তে। এমনকি যিনি নিজের নামটি পর্যন্ত স্বাক্ষর করতে পারতেন না, তিনি কি কুরআন মাজিদের গ্রন্থকার হতে পারেন? না তা এমন একটি গ্রন্থ যা সর্বজ্ঞ ও জ্ঞানময় আল্লাহ তাআলার পক্ষ থেকে তাঁর ওপর অবতীর্ণ হয়েছে?

একটি উদ্যেগ আহবান:

এটা অত্যন্ত দুঃখের বিষয় যে বাংলাদেশের ৯০% মুসলিম হয়েও এখনো বাংলা সহিহ হাদিসের Free digital Database বানানো হয়নি। প্রায় ২৮ কোটি বাংঙ্গালীগন অকাযর্করের ও অবহেলার ভূমিকা নিয়েছি, এ মহান দায়িত্ব থেকে আমরা মুসলিমগন একরকম নেহাতই পালিয়ে বেড়াচ্ছি। অনেকেই আছেন অন বা “অফ লাইনে কাজ করার সময় UNICODE টেক্সট হাদিস হাতের কাছে তৈরি না থাকায় সবাইকে কষ্ট করে টাইপ করতে হয় অথবা অনেকে ঝামেলা এড়িয়ে যান। কিন্তু এই দিন শেষ ।

আসুননা আমরা সমম্বিতভাবে উদ্বেগ নিয়ে বাংলা সহিহ হাদিসের Unicode Software সৃষ্টি করি। আপনারা শুনে  ‍খুশি হবেন আমাদের সহিহ বুখারী ও রিয়াদুস স্বালেহিনের কাজ প্রায় শেষ ।মুসলিম শরীফের কাজ চলছে। সফটওয়্যারটি chm ফরমেটে তৈরি হবে, ইনষ্টলের কোন ঝামেলা নেই। 1 click – এ ‍উইন্ডো ওপেন হবে এবং সহজেই ডাটা কপি,পেষ্ট করা যাবে, এছাড়াও রয়েছে পাওয়ারফূল সার্চ ও কিওয়ার্ড অপশন। যেহেতু হাজার হাজার হাদিস এর জন্য অবশ্যই টিম ওর্কের প্রয়োজন যার নামকরন করা হয়েছে সংক্ষেপে DBHT-(ডিজিটাল বাংলা হাদিস টিম)। দেশের বিভিন্ন প্রান্তের সম্মানিত ভায়েরা বিনা পারিশ্রমিকে অক্লান্ত পরিশ্রম করে অতি দ্রুততার সাথে এগিয়ে যাচ্ছেন যার বেশিরভাই ছাত্র। উদ্দেশ্য একটাই-২৮ কোটি বাংলাভাষীর জন্য সম্পূর্ন বিনামূল্যে বাংলা হাদিসের অনবদ্য একটি ইউনিকোড সফটওয়্যার। এ মহৎ কাজে পিছিয়ে কেন ...আসুন আমাদের সাথে। সম্মানিত ভাই/ বোন যারা সদস্য হতে চান এ টিমের কর্মপদ্বতি হবে নিম্নরুপ-

1)যারা অংশ নেবেন Contribution- এ তাদের নাম ও প্রোফাইল লিংক থাকবে।

2) প্রত্যেককে সদস্য হতে হলে কমপক্ষে 100 হাদিসের ডাটা এন্ট্রি করে নিম্নলিখিত এড্রেসে পাঠিয়ে দিতে হবে।

3)আপনাকে পিডিএফ ফরম্যাটে হাদিস দেয়া হবে আপনি MS Word-এ (বিজয়, UNICODE, অভ্র যেটাতে খুশি ) টাইপ করে মেইলে এটাচ করে পাঠিয়ে দেবেন, আপনার প্রোফাইল লিংক যদি দেন ভাল হয়।

4) আপনার হাদিস পাবার পর সেটা আপডেট করে ফেসবুকে লিংক দেয়া হবে যেখান থেকে আপনি ডাউনলোড করে কাজের অগ্রগতি দেখতে পাবেন।

বিঃদ্রঃ:- এটি কোন কর্মাশিয়াল উদ্যেগ নয়। শধুমাত্র ভলান্টিয়ার সার্ভিসের মাধ্যমে DBHT-এর হাদিসের Digital interface তৈরি করার একটা যৌথ প্রচেষ্টা। বাংলাতে শুধু এন্ট্রি করবেন আরবী ও ইংলিশ আমরা ম্যানেজ করবো ইনশাআল্লাহ। যে কোন  Unicode ফন্টে ডাটা রেডি করতে পারবেন।আপনার প্রোফাইল লিংক ও Mob-নং ও বাংলাদেশের কোত্থেকে কাজ করছেন উল্লেখ করবেন। ১০ দিনের মধ্যে করতে পারলে ভালো হয়। আপনি ডাটা পাঠানোর পর আমরা সেটা অতি দ্রুত আপডেট করে ফেসবুকে লিংক দেবো ইনশাআল্লাহ ধন্যবাদ। যোগাযোগ করুন।

শাহরিয়ার আজম

মেইল এড্রেস-  [email protected]

Mob-01714351057

DBHT-(ডিজিটাল বাংলা হাদিস টিম)

http://www.facebook.com/pages/DBHT/603417713008497

**অালহামদুলিল্লাহ আমরা তিনটি ভাষায় হাদিস সফটওয়্যার প্রকাশ করছি (আরবী, বাংলা ও ইংলিশ) যা এখনো পৃথিবীতে সৃষ্টি হয়নি। বিভিন্ন কলেজ ও ইউনিভার্সিটির জন্য অত্যান্ত কার্যকরী একটা সফটওয়্যার হবে। একসময় পৃথীবিতে আমরা থাকবোনা কিন্ত এ সফটওয়্যার ব্যবহার করে কোটি কোটি মানুষ সহজে ইসলাম সম্পর্কে তথ্য জানতে পারবে গবেষনার কাজে ব্যবহার করতে পারবে। কতো অযথা বাজে কাজ করে বা কম্পিউটার গেম খেলে আমরা সময় নষ্ট করি, না হয় এখানে কয়েক ঘন্টা সময় নষ্ট করলেন, আমরা চাই আপনারও এতে অবদান থাকুক অন্তত ১০০ হাদিস টাইপ করে এ ঐতিহাসিক কর্মে অংশীদার হয়ে যান।

Level 0

আমি Sharear Azam। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 8 বছর 4 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 42 টি টিউন ও 365 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 1 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 0 টিউনারকে ফলো করি।


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস

Level 0

ভাইয়া আপনাকে প্রশ্ন টা করার জন্যই লগ-ইন করলাম,
******>>>””প্রতিটি কণারই (Particle) বিপরীত বিদ্যুৎবাহী প্রতিকণা (Anti-particle) বিদ্যমান রয়েছে”” এই উক্তি টি দ্বারা কিন্তু একটি নির্দিষ্ট বস্তুর মধ্যে বিদ্দ্যমান দুটি ভিন্ন ভিন্ন বৈশিষ্ট্যের কথা বলা হয়েছে, দুটি ভিন্ন ভিন্ন বস্তুর মধ্যে নয়।

******>>> আর পদার্থ বিজ্ঞান প্রতিটা বস্তুর ই যে তাদের বিপরীত ধর্মের বস্তু বিদ্যমান রয়েছে সেটাকেই স্বীকার করে।

******>>> পবিত্র কোরআন শরিফ এ শুধুমাত্র বলা হয়ছে প্রতিটা প্রাণী সম্পর্কে, কোন প্রাণহীন বস্তু সম্পর্কে নয়। (আপনি যদি মনে করে থাকেন যে ভাষাগত কারনে, আরবি থেকে English অথবা বাংলায় সঠিক অনুবাদ সম্ভভ হয়নি তবে তাঁর একটা বিশ্বাস যোগ্য Reference দিলে অনেক খুশি হব)

******>>> আর প্রাণী জগতে যে দুটি বিপরীত লিঙ্গের মাধ্যমেই নতুন প্রানের সূচনা হয় এটা কিন্তু বিজ্ঞানের এই সূত্র টি বের করার অনেক আগেই মানুষের জানা ছিল।

N.B. আমার মতে, ধর্ম হল বিশ্বাস। আর বিজ্ঞান হল প্রমান, যে বিষয়টির কোন প্রমান নেয় বিজ্ঞান তাকে স্বীকৃতি দেয় না (বিজ্ঞান এখানে নিশ্চুপ)। আপনি যদি পবিত্র কোরআন এর সাথে বিজ্ঞান কে তুলনা করে সঠিকভাবে প্রমান করতে চান তবে সেটা আমার মতে মতে অনেক বোকামি বলে মনে হয়, যদি এভাবে ধর্ম কে প্রমান করা যেত তবে ধর্ম কে বিশ্বাস বলা হত না। ধর্ম কে বিজ্ঞান বলা হত।

Bro আমার আরও অনেক প্রশ্ন আছে যা আমার মনের মধ্যেই আছে, আর এগুলো এখানে করলে অনেক সমস্যা হবে, আমি আপনার সাথে এই ব্যাপার গুলো নিয়ে Personally Discuss করতে চাই, যদি আপনার সময় হয় তবে আমাকে একটা mail দিয়েন, E-mail: [email protected]

    @hmmm: apni onek gyani manush.tarporeo apnake akta bapar boli…quran ba dhormo shompurno bisshahser bapar apni bolsen…ta akhon jodi dhormo apnake bole je akjon manush nijei tar pita abar shei tar putro ebong shei holo pobitro atta..er moddhe ki logic paoa jai???illogical howar karone ajke christian ra bapok hare dhormo theke dure shore jasse….abar jodi bola hoi je dosh hat oala akta murti toiri kore tar shamne nach gaan ebong folmul rekhe shei murti take porom sroddhai venge fele take shorboshoktiman mone korai holo dhormo apni agree korben???illogical howar karone onek hindu converted hosse….qurane jeshob confused howar moto ayat ase othoba science related subject ase shegulo kono chinta na kore ondho vabe bisshash korle oishob dhormer shathe amader parthokko thaklo koi….islam amon dhormo ja shudhu achar onushthan ba dhormio bishoy na borong life related shobkisu discuss kore…..tai obosshoi atake logical and scientifical hote hobe….

    Level 0

    @mizan89: দাড়ুন………. মনের কথাটাই বলেছেন।

    @hmmm: আমার মনে হয় আল-কুরআন ও বর্তমান কথিত বিজ্ঞান কে গুলিয়ে ফেলা ঠিক না।
    বিজ্ঞান প্রতিনিয়ত পরিবর্তনশীল কিন্তু আল-কুরআন অপরিবর্তনশীল।
    এখানকার বিজ্ঞান অনেক পিছিয়ে আছে।
    ইসলাম অন্ধবিশ্বাসের ধর্ম নয় । তবে আমরা অনেক কিছু না দেখেই বিশ্বাস করি, যেমন আমাদের মা অন্যান্যরা বলেছে ঔনি তোমার বাবা তাই তাকে বাবা বলি সত্যটা কি? কখনো যাচাই করার প্রয়োজন মনেও হয় না।অথচ………………………………………….।

আয়াতটা বকেটু ভালো করে পড়েন….পবিত্র মহান তিনি, যিনি জোড়া জোড়া করে সৃষ্টি করেছেন উদ্ভিদ, মানুষ এবং তারা যাদেরকে জানে না তাদের প্রত্যেককে।(কোরআন, ৩৬ : ৩৬)(অনুবাদ:- মাওলানামুহিউদ্দীন, উম্মুলকোরা, সৌদিআরব)

    Level 0

    @Sharear Azam: ভাইয়া আমি আয়াতটা অনেক বার ই পরেছি, কিন্তু আমার প্রশ্নের কোন উত্তর ই খুজে পেলাম না, “তারা যাদেরকে জানে না তাদের প্রত্যেককে” এখানে তো প্রাণীদের অপরিচিত সঙ্গী কে বোঝানো হয়েছে। যাই হোক আপনি অনেক ব্যস্ত, তারপর ও আমার প্রশ্নের উত্তর দেয়ার জন্য অনেক ধন্যবাদ। আর আপনি যদি কোন ছুটির দিন এ ও সময় পান তবে আমাকে কিছুক্ষণ সময় দিলে অনেক খুশি হতাম, আমার মাইলঃ [email protected]

      @hmmm: ভাইয়া আমাকে একটু বুঝিয়ে বলবেন কিকরে প্রাণীদের অপরিচিত সঙ্গী কে বোঝানো হয়েছে? 🙂 আরবী শব্দটা কি ব্যবহৃত হয়েছে। আমি শিখতে চাই…

        Level 0

        @Sharear Azam: Bro u r right, thanks for the point, “তারা যাদেরকে জানে না তাদের প্রত্যেককে” এটার অনুবাদ এরকম হয়ে “এবং আর যা তারা জানে না ” এটা হওয়ার কথা ছিল, তাহলে জীব ও জড় উভয় কেই বোঝায়, যেটা আমি অন্যান্য English অনুবাদ এ দেখলাম (আর কোরআন এ এটাই বলা হয়েছে)। এই বাংলা অনুবাদটাই Confusion তৈরি করছে।
        আমি আপনার থেকে ঠিক এই ধরনের Reply আশা করছিলাম।
        আমি যদি এই ব্যাপারটাই অন্যদের বলি, তবে আশা করি তাদের Ques এর Ans দিতে পারবো।
        Again Thanks

          @hmmm: আপনার নলেজ অন্যদের থেকেও শার্প সেটাকে পরকালের কাজে লাগাচ্ছেন তো? 🙂 সময় কতটুকু আমাদের জন্য এ দুনিয়াতে আমি বা আপনি কেউ জানিনা। We have to get prepare for after life are’nt we?

    @Sharear Azam: vai ami bangla likhte pari na ar net related temon kisui janina tai lojjai apner shob lekha pora holeo comment korina karon amon opodartho ami je apner mohot uddoge shongi hote parlam na….sorry

      @sheikh nahid: অভ্র ব্যবহার করেন…akon jevabe likcen sevabe ovrote likle otomatic bangla hoye jabe.

তাছাড়া আমি বিজ্ঞানকে দিয়ে ধর্মকে প্রমান করতে চাইছি না …বিজ্ঞান ১০ বা ৫০ বা ২০০ বছর আগে যা আবিষ্কার করেছে কুরআনে তার অনেক কিছুই ১৪৩০ বছর আগে মানুষের জন্য নিদর্শন স্বরুপ তুলে ধরেছে। আমাদের মুসলিমের কাছে কুরআন আসল বিজ্ঞান। আর উপরের আয়াত খেয়াল করবেন-….তারা যাদেরকে জানে না তাদের প্রত্যেককে..(কোরআন, ৩৬ : ৩৬)

আসলে আমি এত ব্যস্ত ভাই ডিটেলস আলোচনার সময় কই পাই তবে আমি আপনার চিন্তাধারাকে অবশ্যই সাধুবাদ জানাই আমরা মুসলিমগন সক্ষ পর‌্যায়ে না যাওয়ার কারনে আজ পিছিয়ে পড়ছি কিন্তু এসময় আমরাই ছিলাম বিজ্ঞানের শীর্ষে ইনশাআল্লাহ আবারো এ সময় আসবে। আর পোষ্টের উত্তর দিচ্ছি মানুষ মনে করবে না জেনে পোষ্ট করছি তাই দেয়া তা না হলে আপনাকে মেল আইডি দিয়ে আলোচনা করতে আমি রিয়েলি পছন্দ করতাম। আমি খুবই ব্যস্ত. আপনাকে অনেক ধন্যবাদ বোঝার জন্য আসলে আল্লাহপাক সবাইকে একই ক্যালিবার দেননা। তাই না করাই উচিৎ অনেক কিছু আলোচনার দাবি রাখে যা সাধারনকে বোঝানো দায়

Level 0

ভাই আপনাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ।আপনি এইরকম আরও অনেক ইসলাম নিয়ে আমাদের জানিয়ে জান।আল্লাহ্‌
আপনার হায়াত বারিয়ে দিক আমিন। আল্লাহ্‌ আপনাকে আরও বিস্তারিত লেখার তৌফিক দান করুক আমিন।

ধন্যবাদ।

Level 0

@hmmm উপলব্ধি করুন ঃ আপনি কি ইলেকট্রন, প্রোটন, নিউটন দেখেছেন?? আপনি কি পরমাণু দেখেছেন? পৃথিবী যে গোল তা নিজ চোখে দেখেছেন? পৃথিবী যে সূর্যের চারদিকে ঘুরে তা কখনো দেখেছেন? কিন্তু আপনি কি এগুলু বিশ্বাস করেন না?? যদি হ্যাঁ বলেন, তবে আপনি ও বিজ্ঞানের অনেক কিছু না দেখে বিশ্বাস করেন। এগুলু যে সত্য তার কি প্রমান আছে আপনার কাছে? আপনি নিজে কি এগুলু পরীক্ষা নিরীক্ষা করে দেখেছেন? যিনি শক্তিশালী ইলেকট্রনিক মাইক্রোস্কোপ দ্বারা পরীক্ষা নিরীক্ষা করেছেন তিনি ই শুধু ইলেকট্রন, প্রোটন, নিউটন দেখেছেন। আপনি কিন্তু তার কথাকে বিশ্বাস করেছেন।যিনি মহাকাশজানে চড়ে মহাশুন্যে গিয়েছেন তিনিই শুধু দেখেছেন যে পৃথিবীর আকৃতি কেমন, এবং পৃথিবী কিভাবে ঘুরছে। আপনি কিন্তু তার কথাকে বিশ্বাস করেছেন, মহাকাশে গিয়ে যাচাই করেন নি । তেমনি আল্লাহকে প্রথমে বিশ্বাস করতে হয়, কিন্তু আল্লাহ মহা সত্য, আল্লাহ বাস্তব,আল্লাহর বাণী বাস্তব সত্য। যে ভাবে ইলেকট্রন, প্রোটন, নিউটন না দেখে, না পরীক্ষা করে স্বল্প জ্ঞান নিয়ে আমরা বিশ্বাস করি, সেরূপ ভাবে আমাদের মত স্বল্প জ্ঞানীদের কাছে আল্লাহ বিশ্বাসের বস্ত, কিন্তু যিনি {যেমনঃ হযরত শাহ-জালাল (রহঃ),হযরত শাহ-পরান (রহঃ) } ইলেকট্রন, প্রোটন, নিউটন এর মত শক্তিশালী ইলেকট্রনিক মাইক্রোস্কোপ(পরিপূর্ণ জ্ঞান ও সাধনা) দ্বারা পরীক্ষা নিরীক্ষা করেছেন তার কাছে আল্লাহ বাস্তব সত্য, মহা সত্য।

অতএব, আল্লাহ ও আল্লাহর মনোনীত শ্রেষ্ঠ ধর্ম ইসলাম শুধু বিশ্বাস এর বস্তু নয়, বরং মহা সত্য।

Level 0

ধন্যবাদ .আল্লাহ আপনাকে সব সময় সুখে শান্তিতে রাখুন ।

ধন্যবাদ ভাই