গুগলের মতে ফেক নিউজ বন্ধ করার জন্য পাঁচটি দিকনির্দেশনা

হ্যালো টেকটিউনস জনগণ, কেমন আছেন আপনারা সবাই? আশাকরি সবাই ভাল আছেন। এখন থেকে নিয়মিত আবার নতুন টিউন নিয়ে আমরা হাজির হলাম আপনাদের কাছে। আর টেকটিউনসের নিত্যনতুন টপিক আর সার্ভিস নিয়ে ভালো না থেকে আর উপায় আছে? আর এই নিত্যনতুন টপিক আর সার্ভিসের ধারা বজায় রাখার নিমিত্তে, আজকে আমি আপনাদের সাথে একদম নতুন একটি টপিক নিয়ে হাজির হলাম। আর আপনারা এই টিউনের মাধ্যমে জানতে পারবেন অনেক নতুন নতুন সব তথ্য।

ফেন নিউজ এবং ভুল তথ্য পুরো ওয়েব দুনিয়াতে মিনিটেই ছড়িয়ে পড়ছে। আর এটা গুগলের সবচেয়ে ভাল জানেন, কেননা তারা সবচেয়ে বড় নিউজ প্ল্যাটফর্ম পরিচালনা করছেন। কিন্তু গুগলের পক্ষে ইন্টারনেট থেকে ফেক নিউজ সম্পূর্ণভাবে বন্ধ করা কঠিন, এক্ষেত্রে পাঠকদের সক্রিয় ভূমিকা পালন করতে হবে।

ঠিক একই ভাবে, এখানে সাম্প্রতিক সময়ে গুগল ব্লগ Post এ কিছু গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্ট উল্লেখ করা হয়েছে যা ফলো করলে ইন্টারনেটে বিভিন্ন কন্টেন্ট ব্রাউজ করার সময় আপনি সহজেই ফেক নিউজ সম্পর্কে বিবেচনা করতে পারবেন। তবে মনে রাখবেন এই পয়েন্ট গুলোই যে সব সময় কার্যকর হবে তা কিন্তু নয় তবে এগুলো জানলে আপনি সহজেই ফেক নিউজগুলো দ্রুত চিহ্নিত করতে পারবেন এবং এই ফেক নিউজ আরও বেশি লোকের কাছে পৌঁছানো রোধে সহায়তা করবে।

ইন্টারনেটে ফেক নিউজ বন্ধ এবং প্রতিরোধ করার জন্য সহজ ৫টি উপায়

১. বিশ্বস্ত কোন সংবাদ মাধ্যমে তথ্যটি আছে কিনা

আপনি ওয়েব সাইট ভিজিট করার সময় অথবা কোন গ্রুপ চ্যাটে এমন কোন তথ্য দেখতে পান, তাহলে প্রথমে আপনাকে যা করতে হবে তা হলঃ আপনি যে তথ্যটি পেয়েছেন সেটি কোন বিশ্বস্ত সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে কিনা তা দেখুন অথবা অন্য কোন ওয়েব সাইট এই বিষয় নিয়ে কোন আর্টিকেল প্রকাশিত হয়েছে কিনা তা অনুসন্ধান করুন। আমরা জানি এটি কমনসেন্স কিন্তু আমাদের মধ্যে অনেকে অলসাতা বসত এটি করেন না ফলে ফেক নিউজগুলো অনেক মানুষের কাছে শেয়ার হতে থাকে।

উদাহরণস্বরূপ, আপনি করোনা ভাইরাস মহামারী সম্পর্কিত কিছু আপডেট নিউজ বিভিন্ন মাধ্যম থেকে পড়তে পারেন। এখানে একটা ব্যাপার রয়েছে, এখন মানুষ কোন ব্যাপার নিয়ে চিন্তিত সেই বিষয় নিয়ে লেখালিখি করলে নিয়ে মানুষের কাছে গ্রহণযোগ্যতা পাবে এটাই স্বাভাবিক। তবে একজন সচেতন পাঠক হিসাবে, আপনি কি শেয়ার করেন এবং কোন সোর্স থেকে তা শেয়ার করছেন সেই ব্যাপারে আরও সিলেক্টিভ হওয়া প্রয়োজন। তাই আপনাদেরকে বলবো যেকোন নিউজের একাধিক সোর্স উল্লেখ করার চেষ্টা করবেন।

২. দেখুন কোথা থেকে এই নিউজটি আসছে

আপনার যখন সন্দেহ হয় তখন আপনাকে অবশ্যই কোন সোর্স থেকে নিউজটি এসেছে তা চেক করে দেখা উচিত। হতে পারে, আপনি এমন একটি ওয়েব সাইট অথবা কোন পেজ থেকে নিউজটি দেখছেন যা ফেক নিউজ ছড়িয়ে দেওয়ার জন্য বিখ্যাত।

গুগলে, যেকোন নিউজ সার্স করলে একটি সেকশন শো করে যার নাম About this result যেখানে সেই নিউজের পাবলিশার সম্পর্কে আপনাকে ধারণা দেবে ফলে আপনি সেই তথ্য বিশ্বাস করবেন কিনা এবং আপনার বন্ধুদের সাথে এটি শেয়ার করবেন কিনা তা সহজেই বুঝতে পারবেন। তবে এই ফিচারটি বর্তমানে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ব্যবহার করতে পারবেন, আপনার স্টোরি কার্ডের উপরে থ্রি-ডট বাটনে ট্যাপ করলেই এই অপশনটি দেখতে পাবেন।

৩. সরকারী ফ্যাক্ট-চেকারদের তথ্য দেখুন

আপনার ফেক নিউজ চেকিং সহজ করার জন্য, আপনি কোন নির্দিষ্ট সত্য বা খবরের সত্যতা নিশ্চিত করার জন্য সরকারের ফ্যাক্ট চেকারদের ওয়েব সাইট ব্রাউজ করতে পারেন। তাছাড়া WhatsApp এর মতো প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে শেয়ার করা তথ্যগুলো এর ক্ষেত্রে খুবই সহায়ক ভূমিকা পালন করে।

আর গুগলের নিজেরই একটি Fact Check Explorer ওয়েব সাইট রয়েছে যার মাধ্যমে আপনি ফেক নিউজ যাচাই বাছাই করতে পারবেন। আপনি ওয়েব সাইটটিতে ভিজিট করার পরে, সার্চ বারে সুনির্দিষ্ট সংবাদ এর অথেনটিকেশন নিয়ে অনুসন্ধান করতে বা সাম্প্রতিক ফ্যাক্টগুলোকে চেক করে আপনার কোন কোন বিষয়গুলো বিবেচনা করতে হবে সে সম্পর্কে ধারণা পাবেন।

৪. যেকোন ইমেজের কনটেক্স চেক করুন

ফেক নিউজ ছড়িয়ে পড়ার সবচেয়ে সহজ উপায় হচ্ছে ফেক নিউজ ইমেইজ। আর Instagram এবং Whatsapp এর মতো প্ল্যাটফর্মগুলো ব্যবহার করে এই সমস্ত ফেক নিউজ সহজেই ছড়িয়ে পরে। তাই আমরা যেকোন ধরেণের নিউজের ইমেজ পাওয়া মাত্রই তা শেয়ার করবো না প্রথমে বিভিন্ন মাধ্যম থেকে নিশ্চিত হয়ে, যাচাই বাছাই করে তা শেয়ার করবো যদি সেই নিউজ সত্য হয় অন্যথায় সচেতনামূলক টিউন করে মানুষকে সচেতন করার চেষ্টা করবো।

উদাহরণস্বরূপ, একটি ফেক ইমেজে দাঙ্গার ঘটনা ঘটেছে  বা ইমেজটি অন্য কোন ইভেন্ট থেকে এসেছে। ফলে, আপনি ঐ ইমেজের কনটেক্সট পেতে এবং এই ধরনের ইমেজ আগেও শেয়ার করা হয়েছে কিনা তা Google image Search ইঞ্জিন ব্যবহার করে সহজেই খুঁজে পেতে পারেন।

৫. ম্যাপ এবং আর্থ সফটওয়্যারে ক্রস-চেক করুন

বিভিন্ন কন্টেন্টের সত্যতা যাচাই করার আরেকটি মাধ্যম হচ্ছে গুগল ম্যাপ এবং গুগল আর্থে ঐ তথ্যের বিপরীতে সার্চ করা। উদাহরণস্বরূপ, যদি কোন ইমেজে দাবি করে যে কোন নির্দিষ্ট বিল্ডিং কোথায় রয়েছে, তবে আপনি যেই স্থানটির সত্যতা দেখার জন্য জায়গাটির রাস্তার দৃশ্য গুগল ম্যাপ বা গুগল আর্থে চেক করে দেখতে পারবেন নিমিশেই।

সুতরাং, ওয়েবে ফেক নিউন যাতে না ছড়াতে পারে তার জন্য আমরা উপরের পদক্ষেপগুলো অনুসরণ করতে পারি। প্রযুক্তি জায়ান্টরা কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার টেকনোলজি ব্যবহার করে ফেক নিউজের রিচ কমিয়ে দিতে পারে, আর তাই ফেক নিউজ যাতে ছড়িয়ে যেতে না পারে সেজন্য আমাদেরও সতর্ক থাকতে হবে। তাছাড়াও অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া জায়ান্ট যেমনঃ Twitter নতুন Birdwatch নামের একটি ফ্যাক্ট চেকিং ফিচার নিয়ে কাজ করছে যার মাধ্যমে সহজেই ফেক নিউজ ডিটেক্ট করা যাবে এবং বন্ধ করতে পারবে।

ফেক নিউজ বন্ধ করার গুরুত্ব কি?

ফেক নিউজ বন্ধ করার গুরুত্ব সম্পর্কে জানার আগে আপনাকে এও জানতে হবে ফেক নিউজ ছড়িয়ে পড়া রোধ করা কেন জরুরি। আপনি জেনে থাকবেন বাংলাদেশে ছেলে ধরা নিয়ে ফেক নিউজ সব জায়গায় ছড়িয়ে পড়ায় সাধারণ মানুষ নিরীহ হত্যা করেছে, তাই এমন অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা থেকে বাঁচতেই আমাদের ফেক নিউজ বন্ধ করতে হবে। এছাড়াও আমাদের প্রতিবেশী দেশ ভারতে এমন অনেক ঘটনা ঘটেছে যেখানে ফেক নিউজ দ্বারা প্রভাবিত হওয়ার কারণে অনেক সাধারণ মানুষ প্রাণ হারিয়েছে।

টিউন জোসস করুন, আমার টিউন শেয়ার করুন, টেকটিউনসে আমাকে ফলো করুন, আপনাদের মতামত জানান

আমি এরকম নিত্যনতুন কাজের সফটওয়্যার নিয়ে টেকটিউনসে হাজির হবো নিয়মিত। তবে সে জন্য আপনার যা করতে হবে তা হলো আমার টেকটিউনস প্রোফাইলে আমাকে ফলো করার জন্য 'Follow' বাটনে ক্লিক করুন। আর তা না হলে আমার নতুন নতুন টিউন গুলো আপনার টিউন স্ক্রিনে পৌঁছাবে না।

আমার টিউন গুলো জোসস করুন, তাহলে আমি  টিউন করার আরও অনুপ্রেরণা পাবো এবং ফলে ভবিষ্যতে আরও মান সম্মত টিউন উপহার দিতে পারবো।

আমার টিউন গুলো শেয়ার বাটনে ক্লিক করে সকল সৌশল মিডিয়াতে শেয়ার করুন। নিজে প্রযুক্তি শিখুন ও অন্য প্রযুক্তি সম্বন্ধে জানান টেকটিউনসের মাধ্যমে।

Level 8

আমি রায়হান ফেরদৌস। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 8 বছর 4 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 165 টি টিউন ও 130 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 63 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 1 টিউনারকে ফলো করি।


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস