ফটোগ্রাফির আদ্যোপান্ত : “এক্সপোজার”

এক্সপোজার ফটোগ্রাফির সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ একটি ফ্যাক্টর। সহজভাবে বললে ফটোগ্রাফির প্রথম ও মৌলিক বিষয় হলো এক্সপোজার। আপনি যখন ফটোগ্রাফি শুরু করবেন, তখন সর্বপ্রথম আপনাকে এক্সপোজার সম্পর্কে জানতে হবে। এই লেখায় এক্সপোজার কি, এর প্রয়োজনীয়তা কি এবং এক্সপোজার কি কি বিষয়ের উপর নির্ভর করে তা নিয়ে ধারণা দেয়ার চেষ্টা করবো। পরবর্তী লেখাগুলোতে এর বিশদ বর্ণনা দিবো ইন শা আল্লাহ।

এক্সপোজার বুঝতে হলে প্রথমে আপনাকে বুঝতে হবে ফটোগ্রাফি কি এবং ছবি কীভাবে তৈরি হয়।

উইকিপিডিয়ার তথ্যমতে,

“Photography is the art, application, and practice of creating durable images by recording light, either electronically by means of an image sensor, or chemically by means of a light-sensitive material such as photographic film.”

অর্থাৎ, ফটোগ্রাফি হল এমন এক শিল্প যা ফিল্ম কিংবা সেন্সরের মাধ্যমে আলো রেকর্ড করে ছবি তৈরি করে।

ক্যামেরায় ছবি তোলার সময় বস্তু থেকে আসা আলো লেন্সের ভিতর দিয়ে প্রবেশ করে সেন্সরের সংস্পর্শে আসলে সেন্সরে বস্তুটির ছবির একটি প্রতিলিপি তৈরি হয়।

ছবিতে কতটুকু আলো বা অন্ধকার আসবে তা যে বিষয়ের উপর নির্ভর করে তাকেই ফটোগ্রাফির ভাষায় এক্সপোজার বলা হয়ে থাকে। এক কথায়, এক্সপোজার হলো ক্যামেরার সেন্সরে সংগৃহীত আলোর পরিমাণ। ক্যামেরায় যে পরিমাণ আলো পৌঁছায় তা ছবির চূড়ান্ত রূপ নির্ধারণ করে। ক্যামেরা দিয়ে যখন কোন ছবি তোলা হয় তখন এটি সেই ছবির হাইলাইট ও শ্যাডো এরিয়ার সমস্ত বিবরণ সহ তোলে।

ছবিতে আলোর পরিমাণের উপর ভিত্তি করে ছবিকে তিনটি ভাগে ভাগ করা যায়। নিচের ছবিটি লক্ষ্য করুন-

যদি কোনো কারণে সেন্সরে আলোর পরিমাণ কম হয় তখন ছবির শ্যাডো এরিয়া আরো বেশি অন্ধকার হয়ে যায় এবং দেখতে প্রথম ছবিটার মত হয়; এই ছবিগুলোকে Under Exposed Image বলা হয়।

আবার যদি কোনো কারণে সেন্সরে আলোর পরিমাণ বেশি হয়, তখন ছবির হাইলাইটস এরিয়া আরো বেশি আলোকিত হয় এবং দেখতে তৃতীয় ছবিটার মত হয়; এই ছবিগুলোকে Over Exposed Image বলা হয়। সাধারণের ভাষায় বলা যায়, ছবিটা জ্বলে গেছে।

যে ছবিগুলোতে আলোর পরিমাণ ঠিক থাকে সেগুলোর হাইলাইটস এবং শ্যাডো এরিয়া ব্যালেন্সড থাকে এবং দেখতে দ্বিতীয় ছবিটার মত হয়। এই ছবিগুলোকে বলা হয় Properly Exposed Image

এক্সপোজারের প্রয়োজনীয়তা:

একটা ছবিতে Proper এক্সপোজার থাকা বাধ্যতামূলক। কোন ছবির কনসেপ্ট যতই সুন্দর হোক না কেন, ছবিটা যতই কম্পোজিশন রুলস মেনে চলুক না কেন, ছবিতে আলোর ঘাটতি থাকলে কিংবা আলো খুব বেশি হয়ে গেলে ছবিটা দেখতে মোটেও ভাল লাগে না। এমনকি সেই ছবিকে ভালো ছবিও বলা যায় না।

ছবি তোলার সময় যদি কোন ছবির এক্সপোজার পারফেক্ট না থাকে হয়ত টিউন প্রসেসিংয়ের সময় সফটওয়্যার দিয়ে সেটা ঠিকঠাক করে ফেলা যায়। কিন্তু এতে ছবিতে নয়েজ চলে আসে। এমন কি ছবির কালারও সুন্দরভাবে ফুটে উঠে না। মোটকথা, ছবির কোয়ালিটি নষ্ট হয়ে যায়।

তাই কেউ ফটোগ্রাফি শুরু করতে চাইলে সর্বপ্রথম তাকে এক্সপোজার কন্ট্রোলিংয়ে মাস্টার হতে হবে।

এক্সপোজার কন্ট্রোল:

এক্সপোজার তিনটি বেসিক জিনিসের মিথষ্ক্রিয়ার ফলাফল। এই তিনটি জিনিসের মাধ্যমেই এক্সপোজার কন্ট্রোল করতে হয়।

  • অ্যাপারচার : যা সেন্সরে আলো প্রবেশ করার পরিমাণ নির্ধারণ করে দেয়।
  • শাটার স্পিড : যা সেন্সরে আলো প্রবেশের জন্য শাটার খোলা রাখার সময়কাল নির্ধারণ করে দেয়।
  • ISO : যা সেন্সরে প্রবেশকৃত আলোর সংবেদনশীলতার মান নির্ধারণ করে দেয়।

এই তিনটি বেসিক জিনিস মিলে এক্সপোজার ভ্যালু (EV) নির্ধারণ করে যাকে ক্যামেরায় লাইট মিটারিং স্কেলের সাহায্যে প্রকাশ করা হয়। ছবি তোলার আগে ক্যামেরাকে সাবজেক্টের দিকে তাক করলে ক্যামেরার ডিসপ্লেতে এক্সপোজার ভ্যালু দেখা যায়। যদি এই ভ্যালু 0 হয়, তাহলে বুঝা যাবে এক্সপোজার ঠিক আছে। 0 এর চাইতে বেশি হলে Over exposed আর কম হলে Under exposed।

অ্যাপারচার, শাটার স্পিড কিংবা ISO এর ভ্যালু পরিবর্তনের সাথে সাথে EV-এর ভ্যালুও পরিবর্তিত হয়। পরিবর্তন করে করে সব সময় এই ভ্যালু শূন্য রাখলেই এক্সপোজার ঠিক রাখা সম্ভব।

উক্ত তিনটি বেসিক ফ্যাক্টরের সাথে এক্সপোজার কীভাবে সম্পর্কিত, কীভাবে এগুলো কন্ট্রোল করতে হয়, কন্ট্রোলের মাধ্যমে কীভাবে ছবিতে এর ফলাফল প্রতিফলিত হয় তা নিয়ে সামনের কোন লেখায় বিস্তারিত আলোচনা করবো ইন শা আল্লাহ।

আজ এ পর্যন্তই। সবাই ভালো থাকবেন।

Level 0

আমি সাইফুল্লাহ সাকিব। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 1 বছর 10 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 7 টি টিউন ও 0 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 0 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 5 টিউনারকে ফলো করি।

I am a Mechanical Engineer. Besides my profession, I like writings and do photography.


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস