পাওয়ার ব্যাংক ছাড়ায় জীবনটা কি আসলেই অচল?

Level 1
পেইজ মোডারেটর ও কন্টেন্ট রাইটার, টটেজা, চট্টগ্রাম

সাম্প্রতিককালে বাংলাদেশে কারেন্টের সমস্যা খুবই বেড়ে যাচ্ছেই। অনেকটা বলাই চলে, কারেন্ট ত ঠিক যায় না হঠাৎ  আসে। তাতে পাওয়ার ব্যাংকের চাহিদাও বেড়েই চলেছে। কিন্তু আসলেই পাওয়ার ব্যাংক টা কি?
পাওয়ার ব্যাংককে যদি সহজ ভাষায় বলি, তবে এটি হচ্ছে এমন একটি ডিভাইস যেটাতে অনেক পাওয়ার জমা থাকে। আর সেসব পাওয়ার গুলো অন্য ডিভাইসকে পাওয়ার পৌছাই দিয়ে থাকে। অন্য ডিভাইস বলতে মোবাইল, স্মার্টওয়াচ, ম্যাকবুক সহ বিভিন্ন গ্যাজেটই পাওয়ার ব্যাংক থেকে চার্জ নিতে পারে।
বর্তমানে পাওয়ার ব্যাংকের ব্যবহার প্রচুর পরিমানে বেড়ে যাচ্ছে। আসলেই উপায়ও নেই। পাওয়ার ব্যাংক ছাড়া জীবনকে চালিয়ে নিতে প্রচুর বেগও পেতে হচ্ছে। আমরা প্রযুক্তি নির্ভর হওয়াতে চার্জ ইন ক্যাপাসিটি অনুযায়ী আমাদের জীবনযাত্রা চলছে। তাই আমরা অনেকাংশেই পাওয়ার ব্যাংকের উপর নির্ভর হয়ে থাকি। আমাদের ব্যবহৃত সব গ্যাজেটস নিদিষ্ট পরিমান ব্যাটারী ব্যাকআপ থাকে। অর্থাৎ, নিদিষ্ট সময়ে পরে এর ব্যাটারী ব্যাকআপ শেষ হয়ে যাওয়ার কারনে হঠাৎ মোবাইল বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়ে থাকে। কিন্তু যদি হাতের কাছে পাওয়ার ব্যাংক থাকে তবে খুব সহজে চলতে ফিরতে চার্জ দিয়ে ফেলা যায়।
বাজারে বেশ কিছু পাওয়ার ব্যাংক পাওয়া যাচ্ছে। তার মধ্যে যেকোনো ৩ টি নিয়ে আজ একটু ধারনা দিব।
১.Baseus Star Lord  এই পাওয়ার ব্যাংক এর ধারন ক্ষমতা ২০০০০ মিলি অ্যাম্পিয়ার। এর বক্সে থাকে-
ক্যাবল: যেটা দিয়ে সহজেই চার্জ করানো যাবে। এটিতে USB Type c ক্যাবল আছে।
ধরন: এটি দেখতে একদম কালো রঙের হয়ে থাকে। এটি প্লাস্টিকের হয়ে থাকে। কিন্তু অনেকটা মেটালিক ধরনেরও হয়ে থাকে।
ডিসপ্লে: এটির ডিসপ্লেতে উপরে আউটপুট কত দিচ্ছে। এছাড়াও ব্যাটারি লেভেল কত টুকু সেটাও দেখা যাবে। অর্থাৎ কত ওয়ার্ডের আউটপুট দিচ্ছে সেটা দেখে ভালো ধারনা পেয়ে যাবেন।
এবার একটু আসল কথা বলি, আমরা সবাই কম বেশী ২০০০০ মিলি অ্যাম্পিয়ারধারনা ক্ষমতা দেখে নিয়ে থাকি। কিন্তু কখনো কোনো পাওয়ার ব্যাংকই পুরো ধারন ক্ষমতা অনুযায়ী চার্জ দিয়ে থাকেনা। তাই এটি প্রায় ১২০০০ মিলি অ্যাম্পিয়ার পর্যন্ত চার্জ দিয়ে থাকে।
পোর্টস আর বাটন: এটির মধ্যে ২ টি USB পোর্টস, ১ টি মাইক্রো USB পোর্টস, C পোর্ট ও ১ টি বাটন থাকে।
যেহেতু ১২০০০ মিলি অ্যাম্পিয়ার ধারন ক্ষমতা। এটি দিয়ে ঘড়ি ও অন্য গ্যাজেটস চার্জ দেওয়া যাবে। এটি দিয়ে ম্যাকবুকও চার্জিং করূ যাচ্ছিল কিন্তু ভীষণ সময় লাগতেসিল। মোট কথা, ৫০০০ মিলি অ্যাম্পিয়ার এর মোবাইল ২ বার চার্জ দেওয়া যাবে।
দাম : ২৩৯০ টাকা
২.Baseus Adaman : এটি দেখতে মেটালিক হয়ে থাকে। আর ওজনও আগেরটার চেয়ে বেশি।
পোর্টস আর বাটন: এটাতে ২ টা USB পোর্ট, ১ টা মাইক্রো USB পোর্ট, ১ টা C পোর্ট।
ধারন ক্ষমতা : এই পাওয়ার ব্যাংকের ধারন ক্ষমতা ২০০০০ এমএইচ। এটি চার্জ নেওয়ার সময় অল্প গরম হয়ে থাকে।
ডিসপ্লে: এটি ডিসপ্লেও ছোট। তবে কত ওয়ার্ড দিয়ে চার্জ ইন হচ্ছে সেটা ভালোই দেখা যায়।
ক্যাবল: এই পাওয়ার ব্যাংকের সাথে ক্যাবল দেই না। তবে বাসায় থাকা চার্জারের ক্যাবল দিয়ে পাওয়ার ব্যাংক ব্যবহার করা যাবে।
দাম: ২৪৯০ টাকা।
এবার আলোচনা করবো একদম শেষ পাওয়ার ব্যাংকটা যা সত্যিই ভালো ও মানে সেরা বলা যেতে পারে। এটা কিন্তু Baseus ব্রান্ড না। এটা Joyroom ব্রান্ড এর অন্যতম পাওয়ার ব্যাংক। যা বাজারে ভালোই বিক্রি হচ্ছে।
৩. Joyroom JR -QP 192 : বাজারে অন্যতম সেরা পাওয়ার ব্যাংক। এটিও ২০০০০মিলি অ্যাম্পিয়ার ধারন ক্ষমতা। এটি চার্জ করার সময় কিছু টা গরম হয়। তবে এতটুকু গরম হওয়া খুব বেশী রিস্কের হয়ে থাকেনা।
ওয়ার্ড: এটির ২২.৫ ওয়ার্ডের হয়ে থাকে।
ডিসপ্লে: এটির ডিসপ্লে অনেক বড়। এর ঘনত্বও বড়। এটি পুরোই প্লাস্টিকের হয়ে থাকে। এর মধ্যে স্ক্র্যাচ কম পড়ে।
পোর্টস ও বাটন: এটিতে ২টি USB পোর্ট, ১টি মাইক্রো USB পোর্ট। এছাড়াও আরেকটি USB টাইপ C পোর্ট থাকে। এটির আউটপুট ৩টা থেকে পাওয়া যাবে। সেই ৩ টি হলো- ২ টি USB পোর্ট ও ১টি USB টাইপ C পোর্ট। এটি পাশে ১ টা বাটন থাকে।
তবে এটিও ২০০০০ মিলি অ্যাম্পিয়ার ধারন ক্ষমতা থাকলেও এটি পাওয়ার দিয়ে থাকে প্রায় ১২০০০ মিলি অ্যাম্পিয়ার। অর্থাৎ অন্য আরও ৩ টি পাওয়ার ব্যাংকের মত এই পাওয়ার ব্যাংকও সমান চার্জ দিতে পারবে।
দাম ২২৯০ টাকা
সত্যি বলতে, যতই বেশী ধারন ক্ষমতা থাকুক না কেন সবগুলো নিদিষ্ট পরিমানই পাওয়ার দিতে পারবে।
এবার নিজের ধারনা থেকে কিছু তথ্য দিই: আমরা যেহেতু প্রত্যেকদিনই গ্যাজেট ব্যবহার করে জীবনকে সহজ করে নিচ্ছি। তাই এসবের সীমাবদ্ধতাও আমাদের মেনে নেওয়া উচিত। তাই নিজের প্রয়োজনে পাওয়ার ব্যাংক ব্যবহার করতে হলে অবশ্যই নিজের পছন্দসই পাওয়ার ব্যাংকের ধারন ক্ষমতার পাশাপাশি মূল্য জেনেই কেনা উচিত। কারন এই ৩ টি পাওয়ার ব্যাংক হচ্ছে ২০০০০ মিলি অ্যাম্পিয়ার। আর প্রত্যেকটি সম পরিমান ধারন ক্ষমতা দিয়ে থাকে। এদের মধ্যে ডিসপ্লে আর ওজন ছাড়া খুব একটা তারতম্য নেই। তাই আপনি যদি ডিসপ্লে আর ওজন কম চান তবে Baseus Adaman অথবা Baseus Star Lord নিতে পারেন। আর ডিসপ্লে খুব বড় যদি নিতে চান তবে  Joyroom JR -QP 192 পাওয়ার ব্যাংকটি নিতে পারেন। এছাড়াও ৩ টি পাওয়ার ব্যাংক বাজারের সেরা পারফরম্যান্স দিচ্ছে। তাই নিজের পছন্দসই যেকোনো পাওয়ার ব্যাংক কিনে নিতে পারবেন।

Level 1

আমি আত্তিয়া ফারাহ। পেইজ মোডারেটর ও কন্টেন্ট রাইটার, টটেজা, চট্টগ্রাম। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 2 মাস 1 সপ্তাহ যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 10 টি টিউন ও 2 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 2 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 2 টিউনারকে ফলো করি।


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস