প্যাসিভ ইনকাম কি? ৫ টি প্যাসিভ ইনকাম আইডিয়া

আসসালামুয়ালাইকুম সবাইকে। আশাকরি সবাই ভালো আছেন। সকলের সুস্থতা কামনা করে শুরু করছি আজকের টিউন।

আমাদের মধ্যে অনেকেই ভাবি আমাদের চাকরি বা ব্যবসার পাশাপাশি কোনো বাড়তি আয়ের সুযোগ যদি থাকতো তাহলে কতই না ভালো হতো। আর এমনটা সম্ভব হয় প্যাসিভ ইনকাম করলে। বর্তমানে প্যাসিভ ইনকাম করার প্রতি অনেকেরই আগ্রহ দেখা যাচ্ছে। কারণ এ ধরনের ইনকাম আপনাকে চাকরির পাশাপাশি বাড়তি ইনকাম করার সুবিধা দেয়‌। তাই প্যাসিভ ইনকাম সম্পর্কে জানাটা কিন্তু গুরুত্বপূর্ণ।

তাই আজকের এই টিউনে আমরা জানবো প্যাসিভ ইনকাম কি? এবং কোন কোন উপায়ে সঠিকভাবে প্যাসিভ ইনকাম করা যায়।

প্যাসিভ ইনকাম কি?

মূলত ইনকাম হলো দুই ধরনের অ্যাকটিভ ইনকাম এবং প্যাসিভ ইনকাম। অ্যাকটিভ ইনকাম হলো আমরা সাধারণ যে কাজগুলো করে জীবিকা নির্বাহ করি এবং যা থেকে কাজ করলেই কেবল আয় করা যায়।

অপরদিকে প্যাসিভ ইনকাম হলো এমন একধরনের ইনকাম ব্যবস্থা যেখানে একবার কাজ করলে সেখান থেকে পরবর্তীতেও আয় করার সুযোগ থাকে। একারণে প্যাসিভ ইনকাম এখন সকলের নিকট জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে।

প্যাসিভ ইনকাম কেন করবো?

প্যাসিভ ইনকামে্য মাধ্যমে আমরা আমাদের মূল ইনকাম হতে কিছুটা বেশি ইনকাম করতে পারি, যা নিঃসন্দেহে একটি ভালো জিনিস। অতিরিক্ত আয়ের মাধ্যম বলেই প্যাসিভ ইনকাম ভবিষ্যতের জন্য সুফল বয়ে আনতে সক্ষম। এবার চলুন জেনে নেয়া যাক কি কি উপায়ে আমরা প্যাসিভ ইনকাম করতে পারি–

১.ব্লগিং

প্যাসিভ ইনকামের সবচেয়ে সহজ ও জনপ্রিয় মাধ্যম হলো ব্লগিং। আপনি যদি টুকটাক লেখালেখি করতে পারেন তবেই এটির মাধ্যমে আপনি প্রতিমাসে ভালো পরিমাণে আয় করতে পারবেন। একটি ব্লগ সাইট তৈরি করে নির্দিষ্ট টপিক বা নিশ সিলেক্ট করে সেটাতে নিয়মিত আর্টিকেল প্রকাশ করে গুগল এডসেন্সে অ্যাপ্লাই করতে পারেন। এছাড়াও আপনার ব্লগে অ্যাফিলিয়েট লিংক যুক্ত করে সেখান থেকেও আয় করতে পারবেন। এতে প্রতিদিন ব্লগে সময় না দিলেও আয় ঠিকই হবে।

২.ছবি বা ভিডিও বিক্রি

আপনি যদি একজন ফটোগ্রাফার হন বা ছবি তুলতে ভালোবাসেন তবে আপনার তোলা ছবিই হতে পারে আপনার প্যাসিভ ইনকামের মাধ্যম। অনলাইনে ছবি বা ভিডিও বিক্রির অনেক প্লাটফর্ম রয়েছে। সেখানে আপনি আপনার তোলা ছবিগুলো বিক্রয় করে আয় করতে পারবেন।

ছবি বা ভিডিও বিক্রয় করার কয়েকটি জনপ্রিয় ওয়েবসাইটের নাম উল্লেখ করা হলো-

Shutterstock
Alarmy
iStock
Adobe
Getty images
Etsy

এসব ওয়েবসাইটে আপনার তোলা ছবি বা স্টক ভিডিও আপলোড করে ভালো পরিমানে আয় করতে পারবেন।

৩.কোর্স তৈরি

আপনি যদি কোনো বিষয়ে দক্ষ হন তবে সেটাই হতে পারে আপনার প্যাসিভ ইনকামের মাধ্যম। আপনি সে বিষয়ের ওপর একটি কোর্স তৈরি করে সেটার মাধ্যমে আয় করতে পারবেন। এই কোর্স হতে পারে কোনো অ্যাকাডেমিক কোর্স, ফ্রিল্যান্সিং কোর্স বা অন্য কোনো বিষয়ের কোর্স।
কোর্স হতে পারে ভিডিও কোর্স বা ইবুক কোর্স। ইবুক ফরম্যাটের কোর্স অ্যামাজন কিন্ডলের মতো প্ল্যাটফর্মে দিয়ে লাইফটাইম ইনকাম করার সুযোগ রয়েছে।

৪.ইনভেস্টিং

প্যাসিভ ইনকামের আরেকটি লাভজনক উপায় হলো ইনভেস্টিং। সঠিকভাবে বিবেচনা করে ভালো ও লাভজনক মাধ্যমে ইনভেস্ট করতে পারলে তা হতে ভালো পরিমাণে ইনকাম করতে পারবেন। শেয়ার বাজারে অথবা কোনো আত্মীয়, বন্ধুবান্ধবদের ব্যবসায়ে ইনভেস্ট করতে পারেন। তবে যেখানেই ইনভেস্ট করুন সেই প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে ভালো মতো যাচাই করে নিবেন।

৫.ইউটিউব

ইউটিউব এমন একটি প্ল্যাটফর্ম যার মাধ্যমে অনেকেই তাদের প্যাসিভ ইনকাম করে চলেছেন। ভিডিও আপলোড করে আয় করার সবচেয়ে ভালো প্ল্যাটফর্ম হলো ইউটিউব। ইউটিউবে ভিডিও আপলোড করে রেখে দিলে সেখান থেকে রেভিনিউ নিজেই আসতে থাকে। তবে সেক্ষেত্রে ইউটিউবের ওয়াচ টাইম ও সাবস্ক্রাইবারের সংখ্যা পূরণ করে চ্যানেলটি মনিটাইজ করতে হবে। ইউটিউব চ্যানেল মনিটাইজেশন সঠিকভাবে করলে ভিডিও আপলোড করে রাখলে তা থেকে ভালো পরিমাণে রেভিনিউ পাওয়া যাবে।

আশাকরি সবাই এই প্যাসিভ ইনকামের আইডিয়া সম্পর্কে বুঝতে পেরেছেন। আসলে কোনো ইনকামই সহজ নয়। ভালোমতো কাজ করলে ভালো পরিমানে প্যাসিভ ইনকাম করা সম্ভব।

আশাকরি সকলের টিউনটি ভালো লেগেছে। টেকটিউনসে এটি আমার প্রথম টিউন তাই কোনো ভুল ত্রুটি করলে ক্ষমার দৃষ্টিতে দেখবেন।
সকলকে টিউনটি পড়ার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ।

Level 1

আমি রওনক জাহান। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 2 বছর 6 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 1 টি টিউন ও 1 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 0 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 1 টিউনারকে ফলো করি।


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস