কোরা Quora কি?

কোরা (Quora) একটি কয়েশ্চেন - আন্সার বা প্রশ্ন উত্তরের ওপর ভিত্তি করে তৈরি করা এক ওয়েবসাইট। Quora নামটি নেয়া হয় Question or Answer দুটি শব্দের মিলনের মাধ্যমে। ২০০৯ সালের জুন মাসে এর স্থাপনা করা হলেও প্রায় এক বছর পর, ২০১০ সালের জুন মাসের ২১ তারিখ এটি জনগণের মাঝে উন্মুক্ত করা হয়। এটার ইন্টারফেসটি খুবই সরল ও ব্যবহার করাও বেশ সহজ। উইজাররা এখানে নিজেদের দরকারি সব প্রশ্ন করতে পারে এবং অন্যান্য উইজাররা তার উত্তর দিতে পারে। প্রতি মাসে ৩০০ মিলিওন বা প্রায় ৩০ কোটি উইজার কোরা ব্যবহার করে থাকে।

কিভাবে শুরু হয়?

ফেসবুকের দুই কর্মী চার্লি চিভার ও অ্যাডাম ডি'অ্যাঞ্জেলো দুজনে মিলে ২০০৯ সালে কোরার আবিষ্কার করে। কোরা (Quora) জনগণের মাঝে ছড়িয়ে পড়ার পর পরই তার ব্যবহারযোগ্যতা ও সহজ ইন্টারফেসের কারণে খুব দ্রুত খ্যাতি অর্জন করতে সক্ষম হয়। শুরুর দিকে এর মূল্য ৮৬ মিলিওন ডলার নির্ধারণ করা হলেও সময় ও খ্যাতির সাথে সাথে এর মূল্যও বৃদ্ধি পেতে থাকে যা বর্তমান সময়ে প্রায় ২ বিলিয়ন ডলারের কাছাকাছি। কোরার একটি উল্লেখযোগ্য বিষয় হচ্ছে এখানে বিভিন্ন ইন্ডাস্ট্রির ও টপিকের নামকরা সব এক্সপার্ট তাদের নিজ নিজ প্রশ্নের উত্তর দিতে পারে যার কারণে উত্তর ভুল বা মিথ্যে হওয়ার সম্ভবনা কমে যায় এবং উত্তরের মানও বৃদ্ধি পায়।

২০১০ এর ডিসেম্বরে এদের ব্যবহারকারীর সংখ্যা এত পরিমাণে বাড়তে থাকে যে, কোরার ওয়েবসাইট মাঝে মধ্যেই ক্র্যাশ বা অচল হয়ে যেতে থাকে এবং নতুন নতুন এই ব্যবহারকারীদের সামাল দিতে কোরা টিমকে বেশ ধকল পোহাতে হয়। এক সময়ে দেখায় যায়, প্রথম পর্যায়ের থেকে ৫ থেকে ১০ গুন বেশি উইজার তাদের ওয়েবসাইটে আগমন করছে ও ট্রাফিকের আয়তন শুধু বারতেই থাকে। ২০১৬ সাল পর্যন্ত কোরা তাদের ওয়েবসাইট এবং উইজারদের ফিডে কোন রকমের অ্যাড দেয়নি কারণ তাদের বিশ্বাস অ্যাডের কারণে উইজারদের ওয়েবসাইটটি ব্যবহার করতে সমস্যা হবে, তারা আরও বিরক্তি বোধ করবে এবং সাধারণ নেতিবাচক একটি অভিজ্ঞতার সম্মুখীন হবে। কিন্তু  তারা সময়ের সাথে এ ধারণা থেকে বেড়িয়ে আসে এবং ২০১৬ সালের পর তারা অ্যাড চালু করে।

২০১১ সালে কোরা তাদের পরিচালনা ও ইন্টারফেইস পুনরস্থাপন করে যাতে ইউজারদের ব্যবহার করতে সহজ হয়। অনেক চিন্তা ভাবনার পর চার্লি চিভার চাইছিলেন কোরার ইন্টারফেইসটাকে অনেকটা উইকিপিডিয়ার (Wikipedia) মত করতে।

২০১২ সালে চার্লি চিভার কোরার এক উচ্চপদ থেকে পদত্যাগ করলেও, তার সাথে থাকা বন্ধু অ্যাডাম তখনও খুব প্রভাবশালী একটি পদ ধরে রাখে।

 

একাউন্ট ও প্রোফাইল তৈরি

কোরাতে প্রোফাইল তৈরি করা খুবই সহজ আর বাকি সব সোশ্যাল মাধ্যমগুলোর মত। নিজের জিমেইল বা ফেসবুকের সাহায্যে একটি একাউন্ট খুলে ফেলা যায়, এরপরে সেই জিমেইল, ফেসবুক বা ইমেইল এবং একটি পাসওয়ার্ডের মাধ্যমে লগ ইন করা যায়। এরপর ওপরের বাম পাশে হোম, ফলোয়িং, স্পেইস, নোটিফিকেশন অপশনগুলি দেখা যাবে। আর হোমপেইজের (Homepage) শুরুতেই আপনার প্রশ্ন করার জন্য একটি কয়েশ্চেন বার (Question Bar) থাকবে যেখানে আপনি আপনার মনমত প্রশ্ন করতে পারবেন। এর সাথে এখানে টিউন করার অপশনও আছে। আপনি চাইলে আপনার প্রশ্নগুলি বিভিন্ন অভিজ্ঞ ব্যক্তিদের বা এক্সপার্টদের জিজ্ঞেস করতে পারবেন।

প্রোফাইল

আপনার প্রোফাইলে আপনার সম্পর্কে সব তথ্য থাকে। আপনার মেসেজ, আপনি যেই প্রশ্নগুলি জিজ্ঞেস করেছেন বা যেগুলির উত্তর দিয়েছেন, প্রশ্ন উত্তর সম্পর্কিত স্ট্যাটিস্টিক্স, আপনার বর্ণনা বা ডেসক্রিপশন, আপনার স্পেইস বা যে স্পেইসগুলোতে আপনি অ্যাক্টিভ আছেন, এসব সহ আরও অনেক ধরনের অপশন।

আপনি চাইলে আপনার পছন্দের কোন টিউন বা প্রশ্ন বুকমার্কে সেইভ করে রাখতে পারবেন যাতে পরবর্তীতে দরকার হলে সেটা ব্যবহার করা যায়।

ড্র্যাফটে (Draft) আপনার বাকি বা অলিখিত প্রশ্নগুলো জমা হয়ে থাকে যাতে সেগুলো পড়ে আপনি উত্তর দিতে পারেন।

স্পেইস (Space)

কোরার স্পেইস কে অনেকটা ফেইসবুকের গ্রুপের মত চিন্তা কোরা যায়। একটি স্পেইসে সমমনস্ক উইজার রা যোগ হয় যাতে তারা নিজেদের চিন্তাধারা, মন্তব্য, টিউন, প্রশ্ন বা উত্তর দিতে পারে। আপনি চাইলে নিজের স্পেইস খুলতে পারবেন বা অন্যের স্পেইসেও যোগ দিতে পারবেন। তার জন্যে আপনার প্রোফাইলের ডান পাশে থাকা স্পেইস অপশনটিকে থেকে নতুন একটি স্পেইস খুলতে পারেন।

 

কোরা প্লাস (Quora Plus)

কোরা প্লাস (Quora Plus) হচ্ছে কোরার প্রিমিয়াম ভার্সন যেখানে বেইসিক ভার্সন থেকে আরও অনেকগুলি চমৎকার সার্ভিস উপভোগ করতে পারবেন। কোরা প্লাসের দুটি সাবস্রিবশন অপশন রয়েছে। মাসিক সাবস্রিবশনটি ৭ ডলার এবং বাৎসরিক সাবস্রিবশনটি ৪ ডলার। কোরা প্লাসের কয়েকটি সার্ভিস আছে যেমন অ্যাড-ফ্রি অভিজ্ঞতা, অনেক দারুণ দারুণ সব উত্তর আনলক করতে পারা, প্রিমিয়াম কনটেন্টগুলি ব্যবহার করা, কনটেন্ট ক্রিয়েটরদের সাপোর্ট করা এবং সাথে থাকছে ৩০ দিন পর্যন্ত ফ্রি ব্যবহার কোরার সুবিধা।

কোরা ইংরেজি ও বাংলা সহ আরও অনেক ভাষা সাপোর্ট করে যাতে বিভিন্ন ভাষার ব্যবহারকারীদের জন্য সহজ হয়।

কোরাতে আপনি চাইলে অ্যাড অপশন থেকে আপনার ব্যাবসা বৃদ্ধির জন্য বিজ্ঞাপণ দিতে পারবেন।

কোরা দিয়ে কি ইনকাম কোরা যায়?

হ্যাঁ, আর সব প্ল্যাটফর্মের মত কোরা থেকেও ইনকাম করা যায়, তবে তার জন্য কোরার পার্টনারশিপ প্রোগ্রামে যোগদান করতে হবে। তার জন্যে লেখকের খুব স্ট্রং একটি ফলোয়ার বেইজ থাকতে হবে এবং তার কন্টেন্টে  ফলয়ারদের নিয়মিত এঙ্গেজমেন্ট থাকতে হবে এবং লেখকের কোরার নিয়মকানুন ও পলিসি সম্পর্কে খুব ভালো ধারণা থাকতে হবে। তবে বাংলাদেশে এখনও কোরার পার্টনারশিপ প্রোগ্রাম চালু হয়নি। আশা করা যায় খুব শীঘ্রই চালু হবে।

Level 0

আমি সাদাফ সাদ। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 8 মাস 4 সপ্তাহ যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 5 টি টিউন ও 2 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 0 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 1 টিউনারকে ফলো করি।


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস