Walton Primo NX6 Review : নতুন প্রজন্মের সেরা বাজেট স্মার্টফোন!

নেক্সট জেনারেশন ডোমিনেশন তথা নতুন প্রজন্মের আধিপত্য শীর্ষক ট্যাগলাইন দিয়ে বাজারে ওয়ালটন নিয়ে এসেছে তাদের নতুন স্মার্টফোন। অনেক সময় পরে ওয়ালটন তাদের এনএক্স সিরিজের অধীনে নতুন কোন স্মার্টফোন বাজারে নিয়ে আসলো। এনএক্স সিরিজের স্মার্টফোনে ওয়ালটন বরাবরই নানা রকম নতুনত্ব রাখে, নতুন এই এনএক্স৬ স্মার্টফোনেও তার বিকল্প ঘটেনি। নতুন প্রিমো এনএক্স৬ স্মার্টফোনে ওয়ালটন ডিজাইন, হার্ডওয়্যার থেকে শুরু করে আরো অনেক বিষয় ফিচার করেছে; যা দাম হিসেবে এই স্মার্টফোনকে বাজারে অনেক প্রতিযোগী একটি অবস্থানে রাখবে।

নতুন এই প্রিমো এনএক্স৬ স্মার্টফোনে একনজরে যা যা থাকছেঃ

  • অ্যান্ড্রয়েড ১১ অপারেটিং সিস্টেম
  • ২ গিগাহার্জ অক্টাকোর প্রসেসর, হেলিও জি৮৫ চিপসেট
  • ৪ জিবি র‍্যাম, ৬৪ জিবি রম
  • ৪৮ + ২ + ৫ মেগাপিক্সেল ট্রিপল ক্যামেরা সেটাপ
  • ৮ মেগাপিক্সেল সেলফি ক্যামেরা
  • ৬.৭৮ ইঞ্চি এফএইচডি প্লাস পাঞ্চহোল ডিসপ্লে
  • মাল্টি ফাংশনাল ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর
  • ৬০০০ এমএএইচ লিথিয়াম পলিমার ব্যাটারি
  • ১৫৯৯৯ টাকা

প্রিমো এনএক্স৬ ডিভাইসটির বক্সে যা যা থাকছেঃ প্রিমো এনএক্স৬ ডিভাইসটি, একটি ব্যাককভার, একটি চার্জিং এডাপ্টার, একটি ইউএসবি ডাটা ট্রান্সফার ও চার্জিং কেবল, একটি মিডিয়াম কোয়ালিটি হেডফোন, একটি সিম ইজেক্টর পিন এবং ওয়ারেন্টি কার্ড।

ডিজাইন এবং ডিসপ্লে

বাজেট হিসেবে প্রিমো এনএক্স৬ এর সাথে এই দামে অন্যকোন স্মার্টফোনে ডিজাইনের তুলনা করা ভার! প্রিমো এনএক্স৬ স্মার্টফোনটি দারুন নীল এবং ধুসর কালারের দুট ভেরিয়েন্টে বাজারে পাওয়া যাচ্ছে। ডিভাইসটির নীল কালার ভেরিয়েন্টকে ওয়ালটন বলছে রিপল ব্লু এবং কালো বা ধুসর কালার ভেরিয়েন্টকে ওয়ালটন বলছে ফ্লুইড অ্যাস হিসেবে। দুটি কালারই কোনোটি কোনোটির চাইতে কম নয়। আপনার পছন্দের সাথে সেই কালারটি যায়, আপনি সেটিই কিনে নিতে পারেন।

প্রিমো এনএক্স৬ স্মার্টফোনে রিয়ারের প্যানেলের ক্যামেরা সেকশনকে দেখলে মনে হবে, এটি আইফোন ১৩ এর ক্যামেরা সেকশনের আদলে ডিজাইন করেছে ওয়ালটন। আর ট্রিপল ক্যামেরার এই দারুন সেটাপ, প্রিমো এনএক্স৬ এর ডিজাইনে যুক্ত করেছে এক দারুন মাত্রা। প্রিমো এনএক্স৬ ডিভাইসের ফ্রন্ট প্যানেলে আরো একটি বিশেষত্ব হচ্ছে, চিরাচরিত নচ পরিহার করে পাঞ্চ হোল ক্যামেরার ব্যবহার। বাজেট ফোন হলেও ওয়ালটন এই ডিভাইসটিতে যুগান্তকারী ডিসপ্লে কাটআউট পাঞ্চ হোল ক্যামেরা সেটাপ করেছে।

প্রিমো এনএক্স৬ ডিভাইসটিতে ব্যবহার করা হয়েছে ইনসেল প্রযুক্তির আইপিএস ডিসপ্লে প্যানেল। প্রিমো এনএক্স৬ এর এই ডিসপ্লেটির সাইজ ৬.৭৮ ইঞ্চি, এবং রেজুলেসন ২৪৬০*১০৮০ পিক্সেল। ডিভাইসটির ডিসপ্লে রেসিও ২০ঃ৫ঃ৯। দারুন ডিসপ্লে কোয়ালিটির তাচ রিস্পন্সিভনেসের দিক দিয়েও প্রিমো এনএক্স৬ ডিভাইসটি অনেক এগিয়ে! কেননা এই ডিভাইসটিতে ১০টি ফিঙ্গার পর্যন্ত মাল্টি টাচ সাপোর্ট করবে।

সফটওয়্যারঃ প্রিমো এনএক্স৬ ডিভাইসে ব্যবহার করা হয়েছে অ্যান্ড্রয়েড ১১ অপারেটিং সিস্টেম। ফোনটিতে অ্যান্ড্রয়েড ১১ এর সকল সুবিধাই উপভোগ করতে পারবেন ব্যবহারকারিরা।

হার্ডওয়্যার এবং মেমরি

প্রিমো এনএক্স৬ ডিভাইসটিতে ব্যবহার করা হয়েছে মিডিয়াটেকের হেলিও জি৮৫ চিপসেট। হেলিও জি৮৫ মিডিয়াটেকের একটি মিড রেঞ্জ স্মার্টফোনের জন্য গেমিং চিপসেট। শাওমি তাদের রেডমি নোট ৯ এবং রেডমি নোট ১০ লাইট ডিভাইসেও এই একই চিপসেটের ব্যবহার করেছে। হেলিও জি৮৫ চিপসেটের আরেকটি অন্যতম দিক হচ্ছে, এটি অনেক বেশি জিপিইউ ক্লক স্পিড প্রোভাইড করে। হেলিও জি৮৫ হচ্ছে একটি অক্টাকোর সিপিইউ, যেখানে ২টি করটেক্স-এ৭৫ পারফরমেন্স কোর এবং ৬টি করটেক্স-এ৫৫ পাওয়ার কোর একসাথে কাজ করে। এই চিপসেটটির বাজ স্পিড ২ গিগাহার্জ।

প্রিমো এনএক্স৬ এর হেলিও জি৮৫ চিপসেটের সাথে ইন্টিগ্রেটেড হিসেবে থাকছে Mali-G52-MC2 জিপিউ। আর এই জিপিইউটির ক্লক স্পিড ১ গিগাহার্জ।

শক্তিশালী এই চিপসেটটির সাথে ফোনটিতে থাকছে ৪ জিবি ডিডিআর৪এক্স র‍্যাম। পাশাপাশি স্টোরেজ নিয়েও ব্যবহারকারিদের কোন চিন্তা করবার কারন নেই ডিভাইসটি নিয়ে, কেননা প্রিমো এনএক্স৬ ডিভাইসে ব্যবহার করা হয়েছে ৬৪ জিবি ইন্টারনাল স্টোরেজ। এই স্টোরেজ দিয়েও যদি না হয়, তখন ২৫৬ জিবি পর্যন্ত এক্সট্রা মেমরি কার্ড লাগানোর সুবিধা তো থাকছেই।

ফোনটির এনটুটু বেঞ্চমার্ক অ্যাপে স্কোর এসেছে ২১০৩৬৬। গিকবেঞ্চ অ্যাপে সিঙ্গেল কোরে এসেছে ৩৩৮ এবং মাল্টি কোরে এসেছে ১২৮৯। 

ক্যামেরা

প্রিমো এনএক্স৬ ডিভাইসটিতে ব্যবহার করা হয়েছে শক্তিশালী তিনটি ক্যামেরা সেন্সর নিয়ে একটি ট্রিপল ক্যামেরা সেটাপ। আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স ক্ষমতাসম্পন্ন এই ক্যামেরা সেটআপে দেখা যাবে একটি প্রাইমারি ৪৮ মেগাপিক্সেল সেন্সর, ৫ মেগাপিক্সেল ওয়াইড এঙ্গেল সেন্সর এবং ২ মেগাপিক্সেল ডেপথ সেন্সর।

ফোনটির প্রাইমারি সেন্সরের এপার্চার সাইজ এফ/১.৮ এবং সেন্সর সাইজ ১/২”। প্রিমো এনএক্স৬ স্মার্টফোনের বড় সেন্সর থাকার ফলে এই ফোনটি দিয়ে খুবই ভালোমানের ছবি পাওয়া সম্ভব।

রাতের বেলায় ফটোগ্রাফির ক্ষেত্রে বড় সেন্সর যেমন গুরুত্বপূর্ণ ক্যামেরার অ্যাপারচার ঠিক ততটাই গুরুত্বপূর্ণ। এফ/ এরপর যে সংখ্যা থাকে তার মান যত কম হবে ততো বেশি পরিমাণে আলো লেন্স এর ভিতর দিয়ে ক্যামেরার সেন্সর ঢুকতে পারবে। এতে রাতের বেলায় অর্থাৎ লো লাইটিং কন্ডিশনে সেন্সর বেশি পরিমাণে আলো ক্যাপচার করতে পারবে। আপনি উপরের ছবির সাথে মিলিয়ে নিলেই বুঝতে পারবেন প্রিমো এনএক্স৬ এর প্রাইমারি সেন্সরের এপার্চার দিয়ে ছবি তুলবার ক্ষেত্রে কত ভালো পারফর্মেন্স পাওয়া সম্ভব!

প্রিমো এনএক্স৬ স্মার্টফোনে দেয়া রয়েছে একটি ৫ মেগাপিক্সেল ওয়াইড এঙ্গেল সেন্সর। এই ওয়াইড এঙ্গেল সেন্সরটি দিয়ে প্রিমো এনএক্স৬ স্মার্টফোনে যেমন দারুন প্যানারমিক ফটোগ্রাফি করা যাবে, তেমনি ভাবে করা যাবে ৩৬০ ডিগ্রি ফটোগ্রাফি! ন্যাচারাল ফটোগ্রাফারদের জন্য প্রিমো এনএক্স৬ স্মার্টফোনের এই ওয়াইড এঙ্গেল সেন্সরটি দারুনভাবে কাজে দিবে।

প্রিমো এনএক্স৬ স্মার্টফোনের রিয়ার ক্যামেরা মডিউলের শেষ যে সেন্সরটি নিয়ে আলোচনা করব, সেটি হচ্ছে এর ২ মেগাপিক্সেল ডেপথ সেন্সর। অবজেক্টকে ফোকাসে রেখে ব্যাকগ্রাউন্ডকে ব্লার করে ছবি তোলা আমরা সবাই পছন্দ করি, যাকে আমরা ডিএসএলআর ইফেক্ট বলতে বেশি পছন্দ করে থাকি। প্রিমো এনএক্স৬ এর এই ডেপথ সেন্সর পোর্টরেইট কিংবা অবজেক্ট যেকোনো ফটোগ্রাফি করতে দারুন সুবিধা দিবে। আপনার চাহিদা মত ফতগ্রাফির জন্য সঠিক মোড সিলেক্ট করলে, এই ক্যামেরাটি দিয়ে পাবেন পারফেক্ট ব্লার ইফেক্ট!

সিকিউরিটিঃ প্রিমো এনএক্স৬ ডিভাইসে প্রাইমারি সিকিউরিটি ফিচার হিসেবে দেয়া রয়েছে একটি শক্তিশালী ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর। ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সিং এর পাশাপাশি প্রিমো এনএক্স৬ এর আরেকটি সিকিউরিটি ফিচার হচ্ছে ফেস আনলক সুবিধা। এই দুটি সিকিউরিটি ফিচারের মাধ্যমে, প্রিমো এনএক্স৬ ডিভাইসের মাধ্যমে ব্যবহারকারিদের নিরাপত্তা একদম শতভাগ নিশ্চিত।

স্পেশাল ফিচারস

স্মার্টফোন যেটাই হোক! বাজেট হোক কিংবা ফ্ল্যাগশিপ হোক, যে বিষয়টি আমরা সবাই মাথায় রাখি, সেটা হচ্ছে সেই স্মার্টফোনের ব্যাটারি লাইফ কেমন। ব্যাটারি লাইফ কম হলে স্মার্টফোনে যত ভালো ফিচার থাকুক সেটা কিন্তু আমরা ঠিকভাবে উপভোগই করতে পারব না; আর সেকারনে ব্যাটারি লাইফ ভালো হওয়া একটি স্মার্টফোনের জন্য অনেক বেশি জরুরি। নতুন এই প্রিমো এনএক্স৬ স্মার্টফোন কিনলে ব্যাটারি নিয়ে আপনাকে কোন চিন্তা করতে হবেনা। কেননা স্মার্টফোনটির ভেতরে আপনি পেয়ে যাবেন ৬০০০ এমএএইচ ব্যাটারি। অনায়াসে ফুল চার্জে হেভি গেমিং করলেও একদিনের বেশি চার্জিং ব্যাকআপ পেয়ে যাবেন এই ফোনে।

তাছাড়াও প্রিমো এনএক্স৬ ডিভাইসটিতে পেয়ে যাবেন স্মার্ট জেসচার সহ আরো নানারকম স্পেশাল ফিচারস সুবিধা। এই সকল স্মার্ট জেসচার সুবিধার মাধ্যমে ফোনটি স্লিপ মোডে থাকা অবস্থাতেও, আপনি নানানরকম সিম্বল ডিসপ্লেতে আঁকিয়ে বিভিন্ন ফাংশনাবিলিটি ও অ্যাপ সরাসরি চালু করতে পারবেন।

১৫৯৯৯ টাকার এই বাজেটে ওয়ালটন প্রিমো এনএক্স৬ স্মার্টফোনে যা যা ফিচার প্রোভাইড করেছে, তা এই স্মার্টফোনকে বাজারে এক অন্য মাত্রায় নিয়ে গিয়েছে। আপনি যদি ১৫ হাজারের বাজেটে একটি বেস্ট গেমিং স্মার্টফোন কিনতে চান, যাতে আপনি গেমিং ছাড়াও অন্য সব কাজ খুব ভালোভাবে চালিয়ে নিতে পারবেন! তাহলে আপনি নিঃসন্দেহে প্রিমো এনএক্স৬ স্মার্টফোনটি কিনতে পারেন।

ওয়ালটনের অন্যসব স্মার্টফোনের মতন প্রিমো এনএক্স৬ ডিভাইসেও পেয়ে যাবেন রেগুলার ১ বছরের সার্ভিস ওয়ারেন্টি, পাশাপাশি এডাপ্টার এবং ব্যাটারিতে ৬ মাসের ওয়ারেন্টি। তো দারুন এই স্মার্টফোনটি কিনতে এখনই চলে যেতে পারেন আপনার নিকটস্থ ওয়ালটন প্লাজা, ওয়ালটন স্মার্টজোন কিংবা যেকোনো রিটেইলার শপে!

Level 12

আমি Touhidur Rahman Mahin। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 8 বছর 10 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 326 টি টিউন ও 88 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 24 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 1 টিউনারকে ফলো করি।

ভালোবাসি প্রযুক্তি নিয়ে লিখতে, ভালবাসি প্রযুক্তি নিয়ে ভাবতে।


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস