চিনামাটির চায়ের কাপে সুবিধা কেন?

টিউন বিভাগ অন্যান্য
প্রকাশিত
জোসস করেছেন

আমাদের প্রাত্যহিক জীবনে চা যেন একটি অবিচ্ছেদ্য অংশ। চা পছন্দ করে না বা চা পান করে না এরকম ব্যক্তি খুব বেশি খুঁজে পাওয়া যাবে৷ অবশ্য বিভিন্ন রোগের কারণে বিশেষভাবে ডায়াবেটিসের আক্রান্তদের ডক্তারগণ চা পান করতে নিষেধ করেন। যাইহোক সেটা অন্য এক আলোচনা৷ আমরা এখন আলোকপাত করব চায়ের পানপাত্র নিয়ে অর্থাৎ আমরা যেসব পাত্রে চা পান করে থাকি সেসব পাত্র সম্পর্কে। এসবের মধ্যে চিনামাটির চায়ের কাপই বেশি প্রচলিত, চিনামাটির তৈরি চায়ের কাপে চা খাওয়ার চা পান করাতে অনেক সুবিধাও রয়েছে। প্রথমত, গরম চা হলেও চিনামাটির তৈরি কাপটা সহজে গরম হয় না; ফলে নিরাপদে কাপে ঠোঁট লাগানো যায়৷ চিনামাটির কাপের আসল সুবিধাটা হচ্ছে, চিনামাটি বা কোয়ার্টজ (শক্ত খনিজ পদার্থ, দানাদার সিলিকা) তাপে বেশি প্রসারিত হয় না এবং কাঁচের তুলনায় এর তাপ পরিবহন ক্ষমতা বেশি। এর ফলে এসব পদার্থে তৈরি কাপ চায়ের তাপে ফেটে যায় না৷ কিন্তু কাঁচের গ্লাসে চা ঢাললে সেটা ফেটে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে, এজন্য কাঁচের গ্লাসে চা ঢালতে আমরা সতর্কতা অবলম্বন করে থাকি৷ কারণ, কাঁচ ভালো তাপ পরিবাহী নয় এবং তাপে এটি বেশি প্রসারিত হয়৷ চা ঢালামাত্রই কাঁচে গ্লাসের ভেতরের তল দ্রুত তপ্ত ও প্রসারিত হয়, কিন্তু বাইরের তল প্রায় ঠাণ্ডাই থেকে যায় এবং ভেতরের প্রসারণের তুলনায় বাইরের তল সেভাবে প্রসারিত হয় না৷ ফলে গ্লাসের ভেতরে তলের প্রসারণ বাইরের তলে অপ্রসারিত তলের উপর চাপ সৃষ্টি করে যার কারণে কাঁচের গ্লাস ফেটে যায়।

তবে মজার ব্যাপার হলো, খুব পাতলা কাঁচের গ্লাস অন্যসব ব্যাপারে ঠুনকো হলেও চা পান করার ক্ষেত্রে খুবই মজবুত। পাতলা কাঁচের গ্লাসে গরম চা ঢাললেও গ্লাস ফেটে যায় না। কারণ, চায়ের উত্তাপে পাতলা কাঁচের ভেতর আর বাইরের তল প্রায় একই সঙ্গে উত্তপ্ত হয় ও একই তালে প্রসারিত হয়৷ এই সম্প্রসারণ গ্লাসের গায়ে চাপ সৃষ্টি করে না। ফলে চায়ের কাপ ফেটেও যায় না৷ তবে একটা বিষয় লক্ষ রাখতে হবে যে, পাতলা কাঁচের গ্লাসের তলাও যেন পাতলা কাঁচের হয়, কারণ গরম চায়ের তাপ গ্লাসের তলাতেই বেশি পড়ে৷ সে জন্যই বিজ্ঞান ল্যাবরেটরিতে টেস্টটিউব ও অন্যান্য পাতলা জিনিসপত্র পাতলা কাঁচের হয়। এদের তলাও হয় রকই রকম পাতলা কাঁচের। এসব পাত্রে তরল পদার্থ রেখে বার্নারে জ্বাল দিলেও তা ফেটে যায় না৷

 

পুরু কাঁচের তৈরি চায়ের কাপেও চা ঢাললে ফেটে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকেনা, তবে সেটা হতে হবে বিশেষ ধরনের কাঁচ, যার অসম প্রসারণ ঘটে না৷ তা ছাড়া সাধারণ কাঁচের গ্লাসে যদি কখনো চা খেতে হয়, বিশেষ কৌশলে তাও করা যেতে পারে। চা ঢালার আগে গ্লাসে একটা তামা বা রুপার চামচ রেখে দিতে হবে। কারণ, তামা বা রুপার তাপ পরিবহনক্ষমতা অনেক বেশি। তাই গ্লাসে চা ঢালার সঙ্গে সঙ্গে এই চামচ দ্রুত তাপ শোষণ করে নিজে গরম হয়ে গ্লাসের কাঁচকে হঠাৎ অতিরিক্ত উত্তাপের হাত থেকে বাঁচিয়ে দেয়৷ এতে গ্লাস ধীরে ধীরে গরম হয়, ফলে ফেটে যাওয়ার সুযোগ থাকে না।

Level 1

আমি নূরুদ্দীন শহীদ। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 1 মাস 2 সপ্তাহ যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 12 টি টিউন ও 12 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 3 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 1 টিউনারকে ফলো করি।


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস

নির্দেশনা [০১]

প্রিয় টিউনার,

আপনার টিউনটি ‘টেকটিউনস টিউন গাইডলাইন’ অনুযায়ী হয়নি।

কারণ:

আপনার টিউনটি, লিস্ট বেইসড টিউনে ফরমেটিং করা হয়নি। ‘টেকটিউনস টিউন গাইডলাইন’ অনুযায়ী এধরনের প্রকাশিত টিউন, লিস্ট বেইসড টিউন বা ‘Listicle’ (লিস্টিক্যাল) বা List Post (লিস্ট Post) ফরমেটিং করতে হয়।

লিস্ট বেইসড টিউনকে কন্টেন্ট রাইটিং এর ভাষায় ‘Listicle’ (লিস্টিক্যাল) বা List Post (লিস্ট Post) বলা হয়। লিস্ট বেইসড, ‘Listicle’ (লিস্টিক্যাল) বা List Post (লিস্ট Post) ফরমেটিং এর টিউন এর উদাহরণ হিসেবে টিউন ১টিউন ২ লক্ষ করুন।

লিস্ট বেইসড টিউনে লিস্টের

  1. প্রতিটি আইটেমের হেডিং H2 হতে হয়।
  2. প্রতিটি আইটেমের ক্রমিক নম্বর থাকতে হয় এবং প্রতিটি আইটেমের ক্রমিক নম্বর টেকটিউনস গাইডলাইন ফরমেট অনুযায়ী হতে হয়।
  3. প্রতিটি আইটেমের হেডিং এর অধীনে, আইটেমের সাথে প্রাসঙ্গিক, আইটেমকে রিপ্রেজেন্ট করে এমন ও ‘টেকটিউনস কপিরাইট ম্যাটেরিয়াল গাইডলাইন’ অনুসরণ করে ছবি/স্ক্রিনসট/ইমেইজ থাকতে হয়।
  4. প্রতিটি আইটেমকে রিপ্রেজেন্ট করা ছবি/স্ক্রিনসট/ইমেইজ গুলো H2 হেডিং এর ঠিক নিচে থাকতে হয়। অর্থাৎ H2 হেডিং এর ঠিক পরেই প্রতিটি আইটেমকে রিপ্রেজেন্ট করা ছবি/স্ক্রিনসট/ইমেইজ থাকতে হয়।
খেয়াল রাখুন

১. টিউনে H2, H3 বা H4 সহ যে কোন হেডিং কখনও বোল্ড করা যায় না ও লিংক করা যায় না।

২. লিস্ট বেইসড টিউনে প্রতি আইটেমের ক্রমিক নম্বর থাকতে হয়।

লিস্ট বেইসড টিউনে প্রতি আইটেমের ক্রমিক নম্বর বাংলা নিচের ফরমেটে থাকতে হয়।

১. আইটেম ১
২. আইটেম ২

এখানে প্রথমে বাংলা ক্রমিক নম্বর, তারপর একটি ডট, ডটের পর স্পেস তারপর আইটেমের নাম।

লিস্ট বেইসড টিউনে লিস্টের প্রতি আইটেমে হুবহু এই ফরমেটে ক্রমিক নম্বর থাকতে হয়।

উদারহরণ সরূপ টিউন ১,টিউন ২, টিউন ৩ লক্ষ করুন।

এখানে লিস্ট বেইড টিউনে লিস্টের

  1. প্রতিটি আইটেমের হেডিং H2 রয়েছে।
  2. প্রতিটি আইটেমের ক্রমিক নম্বরের ফরমেট টেকটিউনস গাইডলাইন অনুসরণ করে রয়েছে।
  3. প্রতিটি আইটেমের হেডিং এর অধীনে, আইটেমের সাথে প্রাসঙ্গিক, আইটেমকে রিপ্রেজেন্ট করে এমন ও ‘টেকটিউনস কপিরাইট ম্যাটেরিয়াল গাইডলাইন’ অনুসরণ করে ছবি/স্ক্রিনসট/ইমেইজ রয়েছে।
  4. প্রতিটি আইটেমকে রিপ্রেজেন্ট করা ছবি/স্ক্রিনসট/ইমেইজ গুলো H2 হেডিং এর ঠিক নিচে অর্থাৎ H2 হেডিং এর ঠিক পরেই প্রতিটি আইটেমকে রিপ্রেজেন্ট করা ছবি/স্ক্রিনসট/ইমেইজ রয়েছে।

করণীয়:

আপনার টিউনটি লিস্ট বেইসড টিউন ফরমেটিং এ ফরমেট করুন।

খেয়াল করুন: আপনার এই টিউন সংশোধনের জন্য আপনাকে সর্বোচ্চ ৫ বার নির্দেশনা দেওয়া হবে। এই ৫ বার নির্দেশনার মধ্যে আপনি যদি টিউন সঠিক ভাবে ও নির্ভুল ভাবে সংশোধনে ব্যর্থ হোন তবে এই টিউন টি ‘টেকটিউনস ট্রাসটেড টিউন’ এর জন্য প্রসেস হবে না এবং ‘টেকটিউনস ট্রাসটেড টিউন’ এর জন্য বাতিল হবে। নির্দেশনার ক্রমিক নম্বর নির্দেশনার শুরুতে নির্দেশনা [০১], নির্দেশনা [০২] এভাবে দেওয়া থাকে।

উপরের নির্দেশিত সংশোধন করে এই টিউমেন্টের রিপ্লাই দিন।

খেয়াল করুন, এই টিউমেন্টের রিপ্লাই বাটনে ক্লিক করে রিপ্লাই না করে টিউনে টিউমেন্ট করলে তার নোটিফিশেন ‘টেকটিউনস কন্টেন্ট অপস’ টিম পাবে না। তাই অবশ্যই এই টিউমেন্টের রিপ্লাই বাটনে ক্লিক করে রিপ্লাই করুন।

নির্দেশনা [০২]

প্রিয় টিউনার,

আপনার টিউনটি ‘টেকটিউনস টিউন গাইডলাইন’ অনুযায়ী হয়নি।

কারণ:

টিউনে সঠিক রেজুলেশন ও সঠিক ডাইমেনশন এর ইমেইজ যোগ করা হয়নি।

টেকটিউনস টিউন গাইডলাইন অনুযায়ী টিউনে লো-রেজুলেশন ও লো ডাইমেনশন এর ইমেইজ যোগ করা যায় না।

টিউন গাইডলাইন অনুযায়ী লিস্ট বেইসড টিউনে লিস্টের প্রতিটি আইটেমের হেডিং এর অধীনে, আইটেমের সাথে প্রাসঙ্গিক, আইটেমকে রিপ্রেজেন্ট করে এমন ও ‘টেকটিউনস কপিরাইট ম্যাটেরিয়াল গাইডলাইন’ অনুসরণ করে ছবি/ইমেইজ থাকতে হয়।

লিস্ট বেইসড টিউনে লিস্টের প্রতিটি আইটেমের হেডিং এর অধীনে যোগ করা ইমেইজের ডাইমেনশন 1920X1080 px হতে হয়। লিস্ট বেইসড টিউনে লিস্টের প্রতিটি আইটেমের হেডিং এর অধীনে যোগ করা ইমেইজের ডাইমেনশন 1920×1080 এর বেশি বা ইমেইজের ডাইমেনশন 1920×1080 px এর বেশি কম হওয়া যায় না। ইমেইজের ডাইমেনশন Exact 1920×1080 px হতে হয়।

অর্থাৎ টিউনে যোগ করা ‘ইমেইজের Aspect Ratio’ Exact 16:9 ও ‘ইমেইজের ডাইমেনশন’ Exact 1920X1080 px হতে হয়।

করণীয়:

‘টেকটিউনস কপিরাইট ম্যাটেরিয়াল গাইডলাইন’ এ উল্লেখ করা Copyright Free এবং Royalty-Free Stock Photo সোর্স থেকে আপনার টিউনের সাথে প্রাসঙ্গিক ছবি/ইমেইজ খুঁজে বের করুন ও টিউনে Exact 1920×1080 px ডাইমেনশনে ছবি/ইমেইজ যোগ করুন।

যদি, টিউনের সাথে প্রাসঙ্গিক, আপনার খুঁজে পাওয়া ছবি/ইমেইজটি Exact 1920×1080 px ডাইমেনশনে না থাকে তবে ‘ইমেইজের Aspect Ratio’ Exact 16:9 ও ‘ইমেইজের ডাইমেনশন’ Exact 1920X1080 px রেখে রিসাইজ করে টিউনে যুক্ত করুন।

উদারহরণ সরূপ টিউন ১,টিউন ২ লক্ষ করুন:

টিউনে

  1. ‘টেকটিউনস কপিরাইট ম্যাটেরিয়াল গাইডলাইন’ এ উল্লেখ করা Copyright Free এবং Royalty-Free Stock Photo সোর্স থেকে টিউনের সাথে প্রাসঙ্গিক ছবি/ইমেইজ খুঁজে বের করে Exact 1920×1080 px ডাইমেনশনে ছবি/ইমেইজ টিউনে যুক্ত করা হয়েছে।
  2. Copyright Free এবং Royalty-Free Stock Photo সোর্সে খুঁজে পাওয়া ইমেইজটি Exact 1920×1080 px ডাইমেনশনে না থাকায় ‘ইমেইজের Aspect Ratio’ Exact 16:9 ও ‘ইমেইজের ডাইমেনশন’ Exact 1920X1080 px রেখে রিসাইজ করে টিউনে যুক্ত করা হয়েছে।

আপনার যদি ফটোশপ, ইমেইজ রিসাইজ, ইমেইজের Aspect Ratio, ইমেইজের ডাইমেনশন সর্বপরি গ্রাফিক্স এডিটিং সম্পর্কে বেসিক আইডিয়া না থাকে তবে ‘ইমেইজের Aspect Ratio’ Exact 16:9 ও ‘ইমেইজের ডাইমেনশন’ Exact 1920X1080 px রেখে ইমেইজ রিসাইজ করতে টিউনে সঠিক রেজুলেশন ও সঠিক ডাইমেনশন এর ইমেইজ রিসাইজ গাইডলাইন ও গাইডলাইনে উল্লেখিত টুল ব্যবহার করুন। টিউনে সঠিক রেজুলেশন ও সঠিক ডাইমেনশন এর ইমেইজ রিসাইজ গাইডলাইন ও গাইডলাইনে উল্লেখিত টুলের মাধ্যমে গ্রাফিক্স এডিটিং এর বেসিক না জানা থাকলেও খুবই সহজে ও দ্রুত ‘ইমেইজের Aspect Ratio’ Exact 16:9 ও ‘ইমেইজের ডাইমেনশন’ Exact 1920X1080 px রেখে ইমেইজ রিসাইজ করতে পারবেন।

খেয়াল করুন: আপনার যদি ফটোশপ, ইমেইজ রিসাইজ, ইমেইজের Aspect Ratio, ইমেইজের ডাইমেনশন সর্বপরি গ্রাফিক্স এডিটিং সম্পর্কে বেসিক আইডিয়া না থাকে তবে ‘ইমেইজের Aspect Ratio’ Exact 16:9 ও ‘ইমেইজের ডাইমেনশন’ Exact 1920X1080 px রেখে ইমেইজ রিসাইজ করতে অবশ্যই এবং অবশ্যই টিউনে সঠিক রেজুলেশন ও সঠিক ডাইমেনশন এর ইমেইজ রিসাইজ গাইডলাইন ও গাইডলাইনে উল্লেখিত টুল ব্যবহার করুন। আপনার যদি গ্রাফিক্স এডিটিং সম্পর্কে বেসিক আইডিয়া না থাকে তবে অন্য যে কোন অনলাইন বা অ্যাপ রিসাইজ টুল ব্যবহার করে ইমেইজ রিসাইজ করবেন না কেননা টিউনে সঠিক রেজুলেশন ও সঠিক ডাইমেনশন এর ইমেইজ রিসাইজ গাইডলাইন ও গাইডলাইনে উল্লেখিত টুলটি ইমেইজ রিসাইজ করতে ইমেইজের কোয়ালিটি যথা সম্ভব ঠিক রাখে এবং ইমেইজ রিসাইজ করতে ইমেইজকে Squeeze করে না।

আপনার যদি গ্রাফিক্স এডিটিং সম্পর্কে বেসিক আইডিয়া না থাকে তবে অন্য ইমেইজ রিসাইজ টুল দিয়ে ইমেইজ রিসাইজ করতে আপনার ‘ইমেইজের Aspect Ratio’ Exact 16:9 ও ‘ইমেইজের ডাইমেনশন’ Exact 1920X1080 px নাও হতে পারে এবং ইমেইজ রিসাইজ করতে ইমেইজ Squeeze হয়ে যেতে পারে। টেকটিউনস টিউন গাইডলাইন অনুযায়ী Squeezed ইমেইজ টিউনে যোগ করা যায় না।

নির্দেশনা মোতাবেক টিউনের সকল ইমেইজ ঠিক করুন।

খেয়াল করুন: আপনার এই টিউন সংশোধনের জন্য আপনাকে সর্বোচ্চ ৫ বার নির্দেশনা দেওয়া হবে। এই ৫ বার নির্দেশনার মধ্যে আপনি যদি টিউন সঠিক ভাবে ও নির্ভুল ভাবে সংশোধনে ব্যর্থ হোন তবে এই টিউন টি ‘টেকটিউনস ট্রাসটেড টিউন’ এর জন্য প্রসেস হবে না এবং ‘টেকটিউনস ট্রাসটেড টিউন’ এর জন্য বাতিল হবে। নির্দেশনার ক্রমিক নম্বর নির্দেশনার শুরুতে নির্দেশনা [০১], নির্দেশনা [০২] এভাবে দেওয়া থাকে।

উপরের নির্দেশিত সংশোধন করে এই টিউমেন্টের রিপ্লাই দিন।

খেয়াল করুন, এই টিউমেন্টের রিপ্লাই বাটনে ক্লিক করে রিপ্লাই না করে টিউনে টিউমেন্ট করলে তার নোটিফিশেন ‘টেকটিউনস কন্টেন্ট অপস’ টিম পাবে না। তাই অবশ্যই এই টিউমেন্টের রিপ্লাই বাটনে ক্লিক করে রিপ্লাই করুন।