কম্পিউটার ভুল করে কেন? কম্পিউটার ভাইরাস ছড়ায় কারা?

তথ্য প্রযুক্তি আর বিজ্ঞানের উৎকর্ষের এই  সময়ে আমাদের নিত্যনৈমিত্তিক একটি প্রয়োজনীয় বিষয় হয়ে দাড়িয়েছে কম্পিউটার। বর্তমান সময়ে কম্পিউটার আমাদের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। তাহলে আসুন আজকে কম্পিউটারের কিছু বিষয় নিয়ে কথা বলি৷

বিষয়টা ছিল, 'কম্পিউটার ভুল করে কেন?'

একবার কম্পিউটারকে এক ইংরেজি বাক্য বাংলায় অনুবাদ করতে দেওয়া হল;  বাক্যটি ছিল : আউট অব সাইট আউট অব মাইন্ড। কম্পিউটার এর অনুবাদ করল 'অন্ধ ও মনভোলা ' কেন সে অনুবাদ করল না চোখের আড়াল হলেই মনের আড়াল? দোষটা আসলে কম্পিউটারের না, দোষটা হচ্ছে যিনি কম্পিউটার অপারেট করছেন উনার। অনুবাদ করার সময় কম্পিউটার তার স্মৃতিভান্ডারে সঞ্চিত ডিকশনারি থেকে খুঁজে বিভিন্ন শব্দের অর্থ বের করে নেয়৷ আউট অব সাইট আউট অব মাইন্ড প্রভৃতি শব্দের অর্থ কম্পিউটার যা পেয়েছে সেগুলো যুক্তিসঙ্গতভাবে সাজিয়েই কম্পিউটার অনুবাদ করেছে। শব্দগত অর্থের দিক থেকে কম্পিউটার মোটেই ভুল করেনি৷ ভুল করেছেন তিনি, যিনি ওই অনুবাদের প্রোগ্রাম কম্পিউটারের জন্য তৈরি করেছেন। প্রোগ্রামে যদি এমন নির্দেশ থাকত যে শুধু শব্দগত অর্থ নয়, বাগধারার অর্থও খুঁজে দেখো, পাশাপাশি কম্পিইটারের ডিকশনারিতেও সেসব বাগধারার অনুবাদ রাখা হতো, তাহলে কম্পিউটার ভুল করত না৷ কম্পিউটারের নিজস্ব কোন ক্ষমতা নেই। তাকে যা করতে বলা হয় কম্পিউটার সেটাই করে৷ এবং নির্ভুল ও দক্ষতার সাথেই তা করে৷ সে জন্য কম্পিউটারকে বলা যায় 'সবচেয়ে অনুগত ভৃত্য। ' কম্পিউটারের ভুল শুদ্ধ নির্ভর করে চালকের উপর অর্থাৎ প্রোগ্রামারের উপর।

অন্য যে বিষয় আমি শিরোনামে উল্লেখ করছি সেটি হচ্ছে 'কম্পিউটার ভাইরাস৷' এখান তাহলে কম্পিউটার ভাইরাস নিয়ে কিছু কথা বলা যাক। আশির দশকে কম্পিউটার বিশেষজ্ঞরা এক ধরনের ভাইরাসের সন্ধান পান, যা কম্পিউটারকে বিকল করে দেয়৷ কম্পিউটার ভাইরাস আসলে এক ধরনের বিপজ্জনক প্রোগ্রাম। এই বিপজ্জনজ প্রোগ্রামগুলো যদি কোনভাবে একবার কম্পিউটারের ভেতর প্রবেশ করতে পারে, তাহলেই ঘটে সর্বনাশ৷ কম্পিউটার ভেতর শুরু হয়ে যায় তাদের ধ্বংসাত্বক কার্যকলাপ। বিশেষ করে কম্পিউটারে সংরক্ষিত তথ্য বা ডেটা এইসব ভাইরাসের লক্ষবস্তু হয়ে থাকে৷ এইসব ভাইরা সংরক্ষিত ডেটাগুলো মুছে ফেলে বা পরিবর্তন করে ফেলে৷ ভাইরাস ধীরে ধীরে কম্পিউটারের অপারেটিং সিস্টেমে ঢুকে পড়ে। আর সে দ্রুত নিজের প্রতিলিপি তৈরি করে কম্পিউটার অপারেটিং সিস্টেমের মধ্যে ছড়াতে থাকে এবং খুব দ্রুতই নেটওয়ার্কের অন্যান্য কম্পিউটারকেও আক্রান্ত করে ফেলে৷ ভাইরাসের এই প্রক্রিয়ায় কোন বিশাল কম্পিউটার নেটওয়ার্কও অকেজো হয়ে পড়তে পারে৷ বিভিন্ন কোম্পানির শক্ররা নানা কৌশলে কম্পিউটার ভাইরাস তথা ক্ষতিকর ভাইরাস প্রতিদন্ধীদের কম্পিউটারে ঢুকিয়ে দেয়। এটা অবশ্যই এক ধরনের কম্পিউটার জালিয়াতি৷ উন্নত দেশগুলোতে এই ধরনের জালিয়াতি শুরু হয়েছে৷ ইন্ডাস্ট্রিয়াল স্পাই এ দস্যুরা ইন্টারনেটের মাধ্যমে বিভিন্ন ব্যাবসায়ী প্রতিষ্ঠানের কম্পিউটার সিস্টেমে ঢুকে পড়ে এবং ডেটাবেইজের তথ্য পরিবর্তন করে বা চুরি করে, এবং এক একাউন্টের টাকা অন্য একাউন্টে চালান করে দেয়, আবার কখনো ভাইরাস ঢুকিয়ে দিয়ে ক্ষতিসাধন করে থাকে৷

অবশ্য এসব ভাইরাস জালিয়াতি প্রতিরোধের উপায়ও আছে। কম্পিউটার ভাইরাস শনাক্ত করা ও বিকল করার প্রোগ্রামও ইতিমধে তৈরি হয়েছে। যাকে আমরা বলি 'এন্টিভাইরাস প্রোগ্রাম'৷ কোম কোন কম্পিউটারের অপারেটিং সিস্টেমের মধ্যেই ভাইরাস প্রতিষেধক ব্যবস্থা থাকে। বিশেষ পাসওয়ার্ডের ব্যবস্থা করা হয়, যার ফলে দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মীরা ছাড়া আর কারো সে কম্পিউটারে প্রবেশ করা সম্ভব হয় না৷ এর ফলে ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার ভয়ও কমে যায়৷

 

Level 1

আমি নূরুদ্দীন শহীদ। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 2 মাস 1 সপ্তাহ যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 13 টি টিউন ও 29 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 3 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 1 টিউনারকে ফলো করি।


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস

নির্দেশনা [০১]

প্রিয় টিউনার,

আপনার টিউনটি ‘টেকটিউনস টিউন গাইডলাইন’ অনুযায়ী হয়নি।

কারণ:

আপনার টিউনটি, লিস্ট বেইসড টিউনে ফরমেটিং করা হয়নি। ‘টেকটিউনস টিউন গাইডলাইন’ অনুযায়ী এধরনের প্রকাশিত টিউন, লিস্ট বেইসড টিউন বা ‘Listicle’ (লিস্টিক্যাল) বা List Post (লিস্ট Post) ফরমেটিং করতে হয়।

লিস্ট বেইসড টিউনকে কন্টেন্ট রাইটিং এর ভাষায় ‘Listicle’ (লিস্টিক্যাল) বা List Post (লিস্ট Post) বলা হয়। লিস্ট বেইসড, ‘Listicle’ (লিস্টিক্যাল) বা List Post (লিস্ট Post) ফরমেটিং এর টিউন এর উদাহরণ হিসেবে টিউন ১টিউন ২ লক্ষ করুন।

লিস্ট বেইসড টিউনে লিস্টের

  1. প্রতিটি আইটেমের হেডিং H2 হতে হয়।
  2. প্রতিটি আইটেমের ক্রমিক নম্বর থাকতে হয় এবং প্রতিটি আইটেমের ক্রমিক নম্বর টেকটিউনস গাইডলাইন ফরমেট অনুযায়ী হতে হয়।
  3. প্রতিটি আইটেমের হেডিং এর অধীনে, আইটেমের সাথে প্রাসঙ্গিক, আইটেমকে রিপ্রেজেন্ট করে এমন ও ‘টেকটিউনস কপিরাইট ম্যাটেরিয়াল গাইডলাইন’ অনুসরণ করে ছবি/স্ক্রিনসট/ইমেইজ থাকতে হয়।
  4. প্রতিটি আইটেমকে রিপ্রেজেন্ট করা ছবি/স্ক্রিনসট/ইমেইজ গুলো H2 হেডিং এর ঠিক নিচে থাকতে হয়। অর্থাৎ H2 হেডিং এর ঠিক পরেই প্রতিটি আইটেমকে রিপ্রেজেন্ট করা ছবি/স্ক্রিনসট/ইমেইজ থাকতে হয়।
খেয়াল রাখুন

১. টিউনে H2, H3 বা H4 সহ যে কোন হেডিং কখনও বোল্ড করা যায় না ও লিংক করা যায় না।

২. লিস্ট বেইসড টিউনে প্রতি আইটেমের ক্রমিক নম্বর থাকতে হয়।

লিস্ট বেইসড টিউনে প্রতি আইটেমের ক্রমিক নম্বর বাংলা নিচের ফরমেটে থাকতে হয়।

১. আইটেম ১
২. আইটেম ২

এখানে প্রথমে বাংলা ক্রমিক নম্বর, তারপর একটি ডট, ডটের পর স্পেস তারপর আইটেমের নাম।

লিস্ট বেইসড টিউনে লিস্টের প্রতি আইটেমে হুবহু এই ফরমেটে ক্রমিক নম্বর থাকতে হয়।

উদারহরণ সরূপ টিউন ১,টিউন ২, টিউন ৩ লক্ষ করুন।

এখানে লিস্ট বেইড টিউনে লিস্টের

  1. প্রতিটি আইটেমের হেডিং H2 রয়েছে।
  2. প্রতিটি আইটেমের ক্রমিক নম্বরের ফরমেট টেকটিউনস গাইডলাইন অনুসরণ করে রয়েছে।
  3. প্রতিটি আইটেমের হেডিং এর অধীনে, আইটেমের সাথে প্রাসঙ্গিক, আইটেমকে রিপ্রেজেন্ট করে এমন ও ‘টেকটিউনস কপিরাইট ম্যাটেরিয়াল গাইডলাইন’ অনুসরণ করে ছবি/স্ক্রিনসট/ইমেইজ রয়েছে।
  4. প্রতিটি আইটেমকে রিপ্রেজেন্ট করা ছবি/স্ক্রিনসট/ইমেইজ গুলো H2 হেডিং এর ঠিক নিচে অর্থাৎ H2 হেডিং এর ঠিক পরেই প্রতিটি আইটেমকে রিপ্রেজেন্ট করা ছবি/স্ক্রিনসট/ইমেইজ রয়েছে।

করণীয়:

আপনার টিউনটি লিস্ট বেইসড টিউন ফরমেটিং এ ফরমেট করুন।

খেয়াল করুন: আপনার এই টিউন সংশোধনের জন্য আপনাকে সর্বোচ্চ ৫ বার নির্দেশনা দেওয়া হবে। এই ৫ বার নির্দেশনার মধ্যে আপনি যদি টিউন সঠিক ভাবে ও নির্ভুল ভাবে সংশোধনে ব্যর্থ হোন তবে এই টিউন টি ‘টেকটিউনস ট্রাসটেড টিউন’ এর জন্য প্রসেস হবে না এবং ‘টেকটিউনস ট্রাসটেড টিউন’ এর জন্য বাতিল হবে। নির্দেশনার ক্রমিক নম্বর নির্দেশনার শুরুতে নির্দেশনা [০১], নির্দেশনা [০২] এভাবে দেওয়া থাকে।

উপরের নির্দেশিত সংশোধন করে এই টিউমেন্টের রিপ্লাই দিন।

খেয়াল করুন, এই টিউমেন্টের রিপ্লাই বাটনে ক্লিক করে রিপ্লাই না করে টিউনে টিউমেন্ট করলে তার নোটিফিশেন ‘টেকটিউনস কন্টেন্ট অপস’ টিম পাবে না। তাই অবশ্যই এই টিউমেন্টের রিপ্লাই বাটনে ক্লিক করে রিপ্লাই করুন।

নির্দেশনা [০১] এর টুলসগুলো আমি খুঁজে পাচ্ছিনা। অন্য কোন উপায় কি রয়েছে? জানানোর জন্য অনুরোধ করছি।