রিয়েলমি সি ১১ ফুল রিভিউ বাংলা

একের পর এক চমক নিয়ে আসছে জনপ্রিয় মোবাইল কোম্পানি রিয়েলমি। সকল প্রযুক্তিপ্রেমীদের চাহিদা মাথায় রেখে নতুন নতুন ফিচার সমৃদ্ধ স্মার্টফোন বাজারে আনছে জনপ্রিয় এ কোম্পানিটি। কিছুদিন পূর্বে রিয়েলমি বাংলাদেশের বাজারে রিলিজ করে এন্ট্রি লেভেলের স্মার্টফোন রিয়েলমি সি ইলেভেন।

হ্যা বন্ধুরা আজকের ভিডিওতে আমরা কথা বলব রিয়েলমি সি ইলেভেন এর সুবিধা অসুবিধা সহ উল্লেখযোগ্য সব ফিচার নিয়ে।

শুরু করছি ফোনটির ডিজাইন দিয়ে। ফোনটি দুটি আলাদা আলাদা কালারে পাওয়া যাচ্ছে। মিট গ্রীন ও পেপার গ্রে। আমার কাছে মিট গ্রীন কালারটাই বেশি ভালো লেগেছে। তবে গ্রে কালারটাও মোটামুটি খারাপ না। যারা কালো পছন্দ করেন গ্রে কালারটা নিতে পারেন।

ফোনটির পিছনের অংশ প্লাস্টিক তবে হাতে নিলে একদম স্মুথ লাগে। নিচে হেডফোন জ্যাক সহ মাইক্রো usb পোর্ট। আর usb পোর্টের ডান পাশে স্পিকার।

এক কথায় বলতে মোটামুটি পছন্দ হওয়ার মত ডিজাইন। আমার কাছে মোটামুটি ভালো লেগেছে। তবে এই ফোনটির সবচেয়ে দুঃখ জনক বিষয় হলো ফোনটিতে কোন ফিঙ্গার প্রিন্ট স্কানার নাই। যেটা ফোনটির অন্যতম একটা খারাপ দিক বলে আমার মনে হচ্ছে।

এবার কথা বলব ফোনটির ব্যাটারি সম্পর্কে। ফোনটির সবচেয়ে বড় আকর্ষণ হল এর ব্যাটারি। একটু কম বাজেটে ফোন কেনার কথা ভাবলে ভালো ব্যাটারির কথা চিন্তা করা যায়। কিন্তু রিয়েলমি তাদের এই ফোনটিতে দিচ্ছে ৫০০০ mAh এর লিথিয়াম পলিমার নন রিমুভাল ব্যাটারি। সাধারনত মুভি বা ভিডিও দেখলে মোটামুটি দেড় থেকে দুই দিন ব্যাক আপ পাবেন।

তো চলুন পারফরম্যান্স সম্পর্কে জেনেনি, ফোনটিতে ব্যবহার করা হয়েছে মিডিয়াটেকের পাওয়ারফুল গেমিং প্রসেসর হেলিও G35. এবং ২ জিবি র‍্যাম ও ৩২ জিবি ইন্টারনাল স্পেস। তবে দাম হিসাব করলে ঠিক আছে। ফোনটি ব্যবহার করে আপনি পাবজি লাইট, ফ্রী ফায়ার সহ অন্যান্য গেম গুলো ভালো ভাবেই খেলতে পারবেন। এই ফোনে আরো ব্যবহার করা হয়েছে অ্যান্ড্রয়েড ১০.

স্মার্টফোনের অন্যতম একটি গুরুত্বপূর্ণ দিক হচ্ছে এর ডিসপ্লে। তো চলুন ডিসপ্লে সম্পর্কে কিছুটা জেনেনি রিয়েলমি সি ১১-এ ডিসপ্লে হিসেবে পাচ্ছেন এইচডি প্লাস অর্থাৎ 720 x 1560 পিক্সেল এর IPS LCD 6.5 ইঞ্চি ডিসপ্লে। যা এই বাজেটে একদম পার্ফেক্ট। আর ডিসপ্লে বড় হওয়ায় ভিডিও দেখেও মোটামুটি মজা পাবেন।

চলুন এবার ক্যামেরা নিয়ে কথা বলি, ফোনটির পিছনে আছে একটি led ফ্লাশ লাইট সহ দুটি ক্যামেরা। যার মধ্যে থাকছে ১৩ mp প্রাইমারী ক্যামেরা ও ২ mp ডেথ সেন্সর ক্যামেরা। যদি ফটো কোয়ালিটির কথা বলি তাহলে অবশ্যই এই বাজেটে ঠিক আছে। ফোনটির সামনে থাকছে ৫ mp র ফন্ট ক্যামেরা। তবে এই ফোনটির অন্যতম একটি বিশেষত্ব এর পিছনের ও সামনের উভয় ক্যামেরা দ্বারাই ১০৮০ p ভিডিও ধারন করা যায়।

সর্বশেষ আমার ব্যক্তিগত মতামত হলো আন্ডার 10k বাজেটে ফোনটি মোটামুটি ভালো মানের ফোন। আর এই বাজেটে আমরা যেসব ফিচার এসপেক্ট করি তা সবই রয়েছে এই ফোনটিতে। তবে র‍্যাম যদি ২ জিবি না হয়ে ৩ জিবি হত আর যদি ফিঙ্গার প্রিন্ট থাকত তাহলে পুরাই বাজি মাত।

 

ফোনটি সম্পর্কে আরো বিস্তারিত জানতে ভিডিওটি দেখুন।

ভিডিও লিং- এখানে ক্লিক করুন

Level 0

আমি মোহাম্মাদ কাওসার। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 10 মাস 2 সপ্তাহ যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 8 টি টিউন ও 0 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 2 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 1 টিউনারকে ফলো করি।


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস