নিষিদ্ধ এক রহস্যের দেশ তিব্বত – Tibet

টিউন বিভাগ অন্যান্য
প্রকাশিত
জোসস করেছেন

কোনটি নিষিদ্ধ দেশ—প্রশ্ন করলে এক বাক্যে সবাই বলবে ‘তিব্বত’। কিন্তু এ নিষেধের পেছনের রহস্য অনেকেরই অজানা। কেন তিব্বতকে নিষিদ্ধ দেশ বলা হয়? কী এমন গাঢ় রহস্যের কুয়াশায় আবৃত তিব্বতের অবয়ব?

তিব্বত রয়েছে হিমালয়ের উত্তরে। ১৯১২ খ্রিস্টাব্দে ত্রয়োদশ দালাইলামা কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত গণচীনের একটি স্বশাসিত অঞ্চল তিব্বত। যদিও চীন ও তিব্বতের কিছু মানুষ প্রায়শই তিব্বতকে নিজেদের অংশ বলেই দাবি করেন। এটাও সত্যি সেখানকার অনেক তিব্বতীয় আবার এই অঞ্চলকে চীনের অংশ মানতে রাজি নয়। ১৯৫৯ সালে গণচীনের বিরুদ্ধে তিব্বতিরা স্বাধিকার আন্দোলন করেছিল। অবশ্য সেটি ব্যর্থ হয়েছিল। এ তো গেল ইতিহাস। মানুষ কেন সেখানে যেতে পারছে না? আসলে তিব্বত খুবই দুর্গম। প্রকৃতি চোখ ধাঁধিয়ে দিলে সেখানে পৌঁছানো খুব কঠিন। কিছুক্ষেত্রে জীবন ধারণ করা রীতিমতো ভয়ঙ্কর। প্রাণ শঙ্কার কথা যদি ওঠে তবে হ্যাঁ সূচক মাথা নাড়তে হয়। একটু ভেবে দেখুন লাসার চারদিক। রাজধানী লাসা থেকে মাত্র ১০০ কিলোমিটার দূরে রয়েছে মরুভূমি। তিব্বতের বেশির ভাগ ভূ-ভাগ সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ১৬ হাজার ফুটেরও ওপরে অবস্থিত হওয়ায়, সেখানে বসবাস করা পৃথিবীর অন্যান্য স্থানের চেয়ে বেশি কষ্টকর।

সম্পূর্ণ পোষ্টটি ভিডিও আকারে দেখতে চাইলে এখানে ক্লিক করুন

তিব্বতের স্থলভাগ বছরের প্রায় আট মাস তুষারে ঢেকে থাকে। সেই প্রাচীনকাল থেকেই তিব্বতকে ঘিরে প্রচলিত রয়েছে অনেক রহস্য। তিব্বতের রাজধানী লাসা বিশ্বব্যাপী ‘নিষিদ্ধ নগরী’ হিসেবে পরিচিত ছিল অনেক আগে থেকেই। তিব্বত বা লাসায় বাইরের বিশ্ব থেকে কারও প্রবেশ করার আইন না-থাকায় এই অঞ্চলটি দীর্ঘদিন ধরে সবার কাছে একটি রহস্যময় জগৎ হিসেবে পরিচিত ছিল। কী আছে লাসায়—তা দেখার জন্য উদ্‌গ্রীব হয়ে থাকত সমগ্র বিশ্ব। লাসার জনগোষ্ঠী, শহর, বন্দর, অট্টালিকা সবকিছুই ছিল সবার কাছে একটি রহস্যঘেরা বিষয়। লাসা নগরীতে ছিল বিখ্যাত ‘পোতালা’ নামক একটি প্রাসাদ। এই প্রাসাদ প্রথমবারের মতো বহির্বিশ্বের মানুষেরা দেখতে পায় ১৯০৪ সালে। আমেরিকার বিখ্যাত ন্যাশনাল জিওগ্রাফি পত্রিকায় এই বিখ্যাত অট্টালিকার ছবি ছাপা হয় সে সময়।

সম্রাট সগেন পো তিব্বতের রাজধানী লাসা নগরীর প্রতিষ্ঠাতা। ৬৪১ খ্রিস্টাব্দে সম্রাট একটি বিরাট জলাশয় ভরাট করে প্রাসাদ এবং মন্দির প্রতিষ্ঠা করেন। তিব্বতের বিভিন্ন মন্দিরের ভিতরে সোনার তৈরি বড় বড় প্রদীপ মাখন দিয়ে জ্বালানো থাকে। ৪ হাজার ভরি ওজনের একটি প্রদীপও সেখানে রয়েছে। তিব্বতের চতুর্দিকে বিচ্ছিন্নভাবে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে আছে অসংখ্য পাহাড় ও গুহা। সেই পাহাড়ি গুহাগুলোতে বাস করে বৌদ্ধ পুরোহিত— লামারা। তিব্বতিরা অত্যন্ত ধর্মভীরু হওয়ায় ধর্ম একটি গুরুত্বপূর্ণ স্থান দখল করে আছে। তাদের প্রধান ধর্মগুরুর নাম দালাই লামা। বৌদ্ধ সন্ন্যাসীরা তিব্বতে লামা নামে পরিচিত। ‘লামা’ শব্দের অর্থ ‘সর্বপ্রধান’, আর ‘দালাই’ শব্দের অর্থ ‘জ্ঞানসমুদ্র’। অর্থাৎ ‘দালাই লামা’ শব্দের অর্থ হচ্ছে ‘জ্ঞানসমুদ্রের সর্বপ্রধান’।

ধর্মগুরু বা দালাই লামা বাস করেন সোনার চূড়া দেওয়া পোতালা প্রাসাদে। ১৩৯১ সালে প্রথম দালাই লামার আবির্ভাব ঘটে। দালাই লামাকে তিব্বতিরা বুদ্ধের অবতার বলে মনে করে। তিব্বতিদের বিশ্বাস, যখনই কেউ দালাই লামার পদে অভিষিক্ত হন, তখনই ভগবান বুদ্ধের আত্মা তাঁর মধ্যে আবির্ভূত হয়। দালাই লামা নির্বাচনের পদ্ধতিটাও বেশ রহস্যময় এবং রোমাঞ্চকর। তিব্বতিদের দালাই লামা বা নেতা নির্বাচনের পদ্ধতিটা বিচিত্র। কোনো লামার মৃত্যু হলে লাসার পূর্বে এক সরোবরের তীরে লামারা ধ্যান করতে বসেন। ধ্যানযোগে লামারা দেখতে পান সেই সরোবরে স্বচ্ছ পানির ওপর ভেসে উঠছে একটি গুহার প্রতিবিম্ব, যার পাশে রয়েছে একটি ছোট বাড়ি। প্রধান লামা তাঁর সেই অলৌকিক অভিজ্ঞতার মাধ্যমে এঁকে দেবেন নতুন দালাই লামার ছবি। তারপর কয়েকজন লামা ছোট ছোট দলে বিভক্ত হয়ে তিব্বতের বিভিন্ন স্থানে যান শিশু অবতারের খোঁজে। তাঁরা তিব্বতের ঘরে ঘরে গিয়ে সেই ছবির হুবহু শিশুটি খুঁজে বের করার চেষ্টা করেন। আর এভাবেই খুঁজে বের করা হয় নতুন দালাই লামাকে।

তিব্বতি ভাষার নিজস্ব লিপি এবং লিখন পদ্ধতি রয়েছে। সর্বত্র সে লিপির ব্যবহার নেই, তবে মূল ভিত্তি এ ভাষা থেকে এসেছে। তিব্বতিদের সবচেয়ে ব্যতিক্রমী আচার হলো মৃতদেহের সৎকার। প্রাচীন কালে এই ব্যতিক্রমী আচারের কথা মিথ আকারে ছড়িয়ে পড়ে গোটা বিশ্বে। বলা হয়, কোনো তিব্বতি যদি মারা যায়, তবে ওই মৃতদেহ কাউকে ছুঁতে দেওয়া হয় না। ঘরের এক কোণে মৃতদেহটি বসিয়ে চাদর অথবা পরিষ্কার কাপড় দিয়ে ঢেকে রাখা হয়। কয়েকদিনব্যাপী বিভিন্ন আচার পালনের পর মন্ত্র পড়তে পড়তে মৃতদেহকে টুকরো টুকরো করে কেটে ফেলা হয়। তারপর পশুপাখি দিয়ে খাওয়ানো হয়। তিব্বতিদের খাবার-দাবারের মধ্যেও রয়েছে রহস্য। মজার ব্যাপার হলো, তিব্বতিরা উকুন খায়। একাধিক পর্যটকের বিবরণ থেকে এর প্রমাণ পাওয়া গেছে যে, বছর পঞ্চাশেক আগে এক পর্যটক সেই নিষিদ্ধ দেশে গিয়ে এ দৃশ্য দেখে লিখেছিলেন, ‘তিব্বতিরা সহজে গোসল করতে চায় না। ’

তিব্বত স্বশাসিত অঞ্চলের মোট জনসংখ্যার ২৪ শতাংশ এই যাযাবর রাখাল সম্প্রদায়। এরা কখনো চাষাবাদের কাজ করে না। মোট ভূমির ৬৯ শতাংশ এলাকা চারণ বা তৃণভূমি। চীনা ঐতিহ্যের সঙ্গে মিল রেখে তিব্বতিরাও ভীষণ চা-প্রিয়। তাদের বিশেষ চায়ে মেশানো হয় মাখন ও লবণ। তবে তিব্বতিদের প্রধান খাবার হলো ‘চমবা’। গম ও যবকে ভেজে পিষে ‘চমবা’ তৈরি করা হয়। আধুনিক বিশ্ব দিন দিন আরও আধুনিক হলেও আজও তিব্বত বিশ্বে রহস্যময় এক জায়গা হিসেবেই খ্যাত।

Level 2

আমি nahidchayan। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 8 বছর 8 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 10 টি টিউন ও 35 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 0 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 0 টিউনারকে ফলো করি।


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস