মধ্যরাতের সূর্যের দেশ নরওয়ে

বিশ্বব্যাপী নরওয়ের পরিচিতি মধ্যরাতের সূর্যের দেশ হিসেবে।  অর্থাৎ মধ্যরাতেও এই দেশটিতে সূর্যের দেখা মেলে।

অনেকের মনে প্রশ্ন উঠতে পারে যে আকাশে সূর্য রয়েছে তাহলে দিন না হয়ে রাত কেন? অথবা রাতের বেলা আকাশে সূর্যই বা দেখা যাবে কি করে? আসলে, মধ্যরাতের সূর্য হচ্ছে এমন একটা ঘটনা যখন টানা ২৪ ঘন্টাই সূর্য দিগন্ত রেখার উপরে থাকে এবং ঐ সকল অঞ্চল সমূহ ২৪ ঘন্টা ই সূর্যের আলো পেয়ে থাকে। আবার একই ভাবে সূর্য যখন দিগন্ত রেখার নিচে অবস্থান করে তখন ঐ অঞ্চল সমূহে ২৪ ঘন্টাই রাতের অন্ধকার থাকে। চলুন তাহলে বিস্তারিত জেনে নেয়া যাক এই বিষয়ে-

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন

পৃথিবীর উত্তর গোলার্ধে অবস্থিত নরওয়ের প্রাকৃতিক ঘটনা গুলোর মধ্যে সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে বছরের একটি নির্দিষ্ট সময় ২৪ ঘন্টা ব্যাপী সূর্যের আলো বিদ্যমান থাকা। প্রতি বছর গ্রীষ্মকালে নরওয়ের কিছু অঞ্চলে ২ থেকে ৪ মাস পর্যন্ত একটানা সূর্যের আলো বিদ্যমান থাকে এবং রাতের অন্ধকারের পরিবর্তে আকাশে গোধূলির আলো ফুটে থাকে। নরওয়ে ছাড়াও উত্তর গোলার্ধে অবস্থিত কয়েকটি দেশ যেমনঃ সুইডেন, ফিনল্যান্ড এবং আইসল্যান্ডেও একই ঘটনা দেখতে পাওয়া যায়।

ভৌগোলিকভাবে উত্তর গোলার্ধে যখন গ্রীষ্মকাল তখন সুমেরু বৃত্ত থেকে যত উত্তরে বা উপরের দিকে যাওয়া যায় ততই সূর্যের আলো বেশি সময় ধরে পাওয়া যায়। উত্তর গোলার্ধের সর্বোচ্চ স্থান বা সর্ব উত্তরে মার্চ থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ৬ মাস সূর্য আলো দেয় এবং তারপর ৬ মাস অন্ধুকারাচ্ছন্ন থাকে। অর্থাৎ এই ৬ মাস উত্তর গোলার্ধে শীতকাল থাকে।

প্রতি বছর হাজার হাজার পর্যটক এই পরাবাস্তব দৃশ্য অবলোকন করতে নরওয়েতে আসে।

প্রাকৃতিক এই ঘটনাটিকে হোয়াইট নাইট বা শ্বেতরাত্রি বলেও উল্লেখ করা হয়। কারণ এই সময় স্বাভাবিক নিয়মে সূর্য উঠলেও তা অস্ত না গিয়ে দিগন্ত রেখার উপরে অবস্থান করে এবং রাতের বেলাও আকাশকে মৃদু আলোয় উদ্ভাসিত রাখে।

নরওয়েতে গ্রীষ্মকালে ৬ মাস যেমন সূর্যের আলো থাকে তেমনি শীতকালে এই অঞ্চলটি অন্ধকারাচ্ছন্ন থাকে। আর এই সময়েই দেখা মেলে অরোরা বোরিয়ালিস বা সুমেরুপ্রভা

নরওয়েতে রয়েছে হাজার হাজার নয়নাভিরাম হ্রদ। মনোমুগ্ধকর সৌন্দর্য্যের পাশাপাশি এ সকল হ্রদে পাওয়া যায় ইউরোপের সবচেয়ে সুস্বাদু স্যামন মাছ নরওয়ে এই  সুস্বাদু স্যামন বিশ্বের প্রায় ১০০ টি দেশে রপ্তানি করে থাকে।

নরওয়ের সৌন্দর্য্যের লৌহ যুগের ধ্বংসাবশেষ ছাড়াও ভাইকিং ইতিহাসের জন্য বিখ্যাত। এখানে একটি ভাইকিং মিউজিয়াম রয়েছে যা ভাইকিং ইতিহাসের বিভিন্ন সাক্ষ্য বহন করে আছে। বর্তমান বিশ্বে নরওয়ের পরিচয় শান্তির দেশ হিসেবে। নরওয়ে অনেকবার বিশ্বের সবচেয়ে শান্তিপূর্ণ দেশের তালিকায় ছিলো

তাই কেউ যদি মধ্যরাতের সূর্যের স্বাক্ষী হতে চান বা উপভোগ করতে চান মেরুপ্রভার বর্ণীল আলোর খেলা, তাহলে ঘুরে আসতে পারেন অনন্য সুন্দর নরওয়ে থেকে।

Level 0

আমি মার্স টেক। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 3 বছর 3 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 35 টি টিউন ও 0 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 5 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 4 টিউনারকে ফলো করি।


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস