মোবাইল দ্রুত নষ্ট হওয়ার ৫ টি কারণ, এগুলো থেকে বিরত থাকুন

বিসমিল্লাহির রহমানির রাহিম, সবাই কেমন আছেন? আশাকরি সবাই ভালো আছেন। বরাবরের মতো আজকে আরেকটি টিউন নিয়ে হাজির হয়েছি আপনাদের মাঝে।

আমাদের অনেকের জন্য একটি স্মার্টফোন কিনা অনেক কষ্টকর। তাই একটি স্মার্টফোন কেনার পর আমরা অনেকেই চিন্তা করে থাকি যে কীভাবে ব্যবহার করলে ফোনটি ভালো সার্ভিস দিবে। নরমাল ভাবে কোন একটি স্মার্টফোন আমরা ২-৩ বছর ব্যবহার করতে পারি, কিন্তু কিছু ভুলের কারণে আমরা স্মার্টফোন গুলো ১-২ বছরের বেশি ব্যবহার করতে পারি না। যে ভুলগুলোর কারণে আমাদের স্মার্টফোন দ্রুত নষ্ট হয়ে যায় আজকের এই টিউনে এই বিষয় গুলো নিয়ে আলোচনা করব। তাহলে চলুন কথা না বাড়িয়ে মূল টপিকে চলে যাই।

১. আপনার স্মার্টফোনের স্ক্রিনে পানি লাগাবেন না

আপনি যদি আপনার স্মার্টফোন দীর্ঘ সময় ভালো রাখতে চান তাহলে কখনই আপনি আপনার স্মার্টফোনের স্ক্রিনে পানি লাগাবেন না বা পানি দিয়ে আপনার স্মার্টফোনের স্ক্রিন পরিষ্কার করবেন না, কারণ স্মার্টফোনে সব থেকে Soft অংশ হলো স্ক্রিন। আপনি সবসময় চেষ্টা করবেন আপনার স্মার্টফোন শুষ্ক কোন কিছু দিয়ে পরিষ্কার করার জন্য, তাহলে আপনার স্মার্টফোন দীর্ঘ সময় ভালো সার্ভিস দিবে।

২. বাজে মেমোরি আপনার স্মার্টফোনে ব্যবহার করবেন না

আমরা অনেকেই একটা ভুল করে থাকি যেমন, রাস্তায় দাঁড়িয়ে অনেকেই ৫০, ১০০, ২০০ টাকায় অনেক বড় মেমোরি বিক্রি করে। এখানে 8 Gb, 16 Gb, 32 Gb মেমোরি বিক্রি করা হয়, আর সেটা কিন্তু ১০০, ২০০ টাকায় কিনতে পাওয়া যায়। আর আমরা অনেকেই প্রতারণার ফাঁদে পড়ে এই মেমোরি কিনে ফেলি, আর এটা কিন্তু নরমাল ভাবে আমাদের ফোনের জন্য ক্ষতিকর এবং এই যে মেমোরি এগুলোর স্পিড কিন্তু খুব কম থাকে, আপনি কিছু কপি করতে গেলেও খুব Slow কপি হবে। আরেকটা বিষয় হলো এই যে মেমোরি গুলো ব্যবহার করছেন এগুলো যেকোনো সময় নষ্ট হয়ে যেতে পারে, আপনি আপনার মেমোরিতে যে ডাটা গুলো রাখবেন এগুলো অনেক মূল্যবান। এখন দেখা গেলো আপনি আপনার মূল্যবান ডাটা গুলো ও হারাবেন এবং আপনার ফোন ও নষ্ট করবেন। আমি আপনাদের সাজেস্ট করব এসব কম দামি মেমোরি যেগুলো রাস্তার পাশে সস্তায় পাওয়া যায় এগুলো আপনার স্মার্টফোনে ব্যবহার করবেন না। মেমোরি ব্যবহার করতে হলে ভালো মানের মেমোরি একটু দাম দিয়ে হলেও কিনে ব্যবহার করুন এতে আপনার স্মার্টফোন ও নিরাপদ থাকবে এবং আপনার মূল্যবান ডাটা গুলো ও।

৩. আপনার ফোনে থার্ড পাটি অ্যাপ ইন্সটল করা থেকে বিরত থাকুন

আমরা আমাদের স্মার্টফোন দ্রুত চার্জ দেওয়ার জন্য ফাস্ট চার্জার, Ram বৃদ্ধি করার জন্য Ram Boster, আবার এমন ও দেখা যায় Battery সেভ করার জন্য Battery Saver এরকম বিভিন্ন ধরনের অ্যাপ আমাদের ফোনে ইন্সটল করে থাকি। মেইন কথা হলো, এরকম অ্যাপ গুলো আমাদের ফোনে তো কাজ করেই না বরং এগুলো বেশিরভাগ Malware হয়ে থাকে যে কারণে আমাদের ফোনের ডাটা চুরি করতে পারে, আমাদের স্মার্ট ফোন হ্যাং ও হতে পারে, এরকম নানা ধরনের সমস্যা তৈরি করতে পারে এই অ্যাপস গুলো। যদি আমাদের ফোনের হার্ডওয়্যার ফাস্ট চার্জিং সাপোর্ট না করে তাহলে অ্যাপ দিয়ে আমরা কখনোই আমাদের স্মার্টফোন ফাস্ট চার্জ দিতে পারব না, জাস্ট এটা হয়ত আপনার ফোনের ডিসপ্লেতে শো করবে। যদি আমাদের ফোনে ৪ জিবি র‍্যাম তাকে তাহলে এগুলো আমাদের ফোনে ৮ জিবি র‍্যাম করে দিতে পারবে না। এক কথায় কোন দিক দিক দিয়েই এই অ্যাপগুলো আপনাকে সাহায্য করতে পারবে না বরং আপনার ফোনের যে Storage আছে তা দখল করে বসে থাকবে এবং আপনার ফোনে হয়ত ভাইরাস ও ছড়াতে পারে, বা এরকম অসংখ্য সমস্যা তৈরি করতে পারে। যে কারণে আমি আপনার বলব এই অ্যাপ গুলো আপনার ফোনে থাকলে অবশ্যই এগুলো Uninstall করবেন এবং Install করা থেকে বিরত থাকবেন। আর এই ক্যাটাগরির অ্যাপ বাদ দিয়ে যদি আপনি আপনার স্মার্টফোন ব্যবহার করেন তাহলে দীর্ঘ দিন ব্যবহার করতে পারবেন।

৪. সরাসরি Gmail অথবা Facebook দিয়ে কোন ওয়েবসাইটে সাইন-ইন করবেন না

আমরা যখন বিভিন্ন ওয়েবসাইট থেকে নানারক ম সুযোগ সুবিধা নিতে চাই, তখন অনেক সময় রেজিস্ট্রেশন করতে হয়। এই রেজিস্ট্রেশন করতে গিয়ে তারা কিন্তু বেশ কয়েকটি অপশন দেয় যেমন, Gmail, Facebook, Email আমরা সেক্ষেত্রে সহজেই লগইন করার জন্য যে কাজ করে থাকি জিমেইল দিয়ে সাইন আপ করে থাকি অথবা ফেসবুক দিয়ে আর এটা কিন্তু আমাদের জন্য অনেক বড় একটি প্রবলেম। এখানে লগইন করার জন্য ফেসবুকের যে ইন্টার ফ্রেশ আসছে এটা হতে পারে ফিশিং বা হতে পারে হ্যাকারদের একটা ফাদ। আমরা এখানে যখন সাইন করি এটা আসলে ফেসবুকের না এটা তাদের দ্বারা সাইনআপ হয় এটা শুধু একটা ডেমু তারা আমাদের আইডি এবং পাসওয়ার্ড নিয়ে যেতে পারে এবং পরবর্তীতে তারা আমাদের সকল ইনফরমেশন নিয়ে যায়। এরকম অনেকেরই দেখবেন ফোন হ্যাক হয়ে গিয়েছে, অনেকের Gmai, আবার অনেকের ফেসবুক, আর এজন্য আমি আপনাদের সাজেস্ট করব আপনারা Gmail অথবা Facebook দিয়ে সাইন-ইন করবেন না যদি প্রয়োজন হয় তাহলে ই-মেইল দিয়ে সাইনইন করবেন। আপনারা সরাসরি জিমেইল দিয়ে সাইন না করলে আপনি দীর্ঘ সময় আপনার ফোন ব্যবহার করতে পারবেন, ফোন হ্যাক হওয়ার সম্ভাবনা কম থাকবে।

৫. কোন ব্রাউজারে কিছু করার সময় Save পাসওয়ার্ড দিবেন না

এখন আমি যে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করব এটা কিন্তু খুব গুরুত্বপূর্ণ। আমরা যখন কোন ব্রাউজারে কিছু লগইন করতে যাই তখন আমাদের একটি মেসেজের মাধ্যমে বলে যে এই পাসওয়ার্ডটি সেভ করে রাখতে চান কি না, এতে বেশিরভাগ মানুষ কিন্তু সেভ করে দেয়। ব্রাউজারে পাসওয়ার্ড সেভ করে দিলে ব্রাউজারের সেটিংসে কিন্তু পাসওয়ার্ড থেকে যায়। আপনার ফোন কেউ হাতে নিয়ে যদি ব্রাউজারের সেটিংসে যায় তাহলে সব পাসওয়ার্ড দেখে নিতে পারবে, আর এটা কিন্তু খুব Dangerous একটা বিষয় কেউ যদি পাসওয়ার্ড দেখে নেয়। আপনারা যখন কোন ব্রাউজারে কিছু লগইন করতে যাবেন তখন পাসওয়ার্ড সেভ করার অপশন আসলে Never দিয়ে দিবেন অথবা No দিয়ে দিবেন। এটা যদি আপনি Yes অথবা Save করে দেন তাহলে আপনার যে কোনো আইডি হ্যাক হওয়ার সম্ভাবনা খুব বেশি থেকে যায়। তাই এই ট্রিকস আপনার মাথায় রাখবেন।

আজকের এই টিউনে যে ৫ টি ট্রিক্স নিয়ে আলোচনা করেছি এগুলো যদি আপনারা ফলো করে আপনার স্মার্টফোন ব্যবহার করতে পারেন তাহলে আপনার ফোন অনেক দীর্ঘ সময় ব্যবহার করতে পারবেন। কোনো কিছুর ব্যবহার ভালো করে জানলে ও বুঝলে সেটাকে নিয়ন্ত্রণে রাখা যায় সহজেই। স্মার্টফোন ব্যবহার করার ক্ষেত্রে ও বুঝতে হবে কী করলে আপনার ফোন নিরাপদে থাকবে। আশাকরি আজকের এই টিউন আপনাদের উপকারে আসবে।

এতক্ষণ ধৈর্য সহকারে সাথে থাকার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ। দেখা হবে আবার নতুন কোন টিউনে, ততক্ষণ পর্যন্ত ভালো থাকুন সবাই, খোদা হাফেজ।

Level 5

আমি মাহবুব আলম তারেক। Sonic টিউনার, টেকটিউনস, সিলেট। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 3 বছর 6 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 69 টি টিউন ও 128 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 7 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 3 টিউনারকে ফলো করি।

I am a Graphics Designer, and have worked on a few other Web Sites.


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস