এল.জি এর তৈরি নতুন ভি৩০ ফোনটি কি স্যামসাঙ এস ৮ বা আইফোন এক্স থেকেও শক্তিশালী? স্যামসাঙ এর জন্য দুঃসংবাদ

স্যামসাঙ বা অ্যাপেল এর মত বড় বড় স্মার্টফোন ব্রান্ডগুলো ইতিমধ্যেই তাদের এই বছরের সেরা ফ্লাগশিপগুলো বাজারে ছেড়েছে। আবার কিছু ফ্লাগশিপ ফোন কিছুদিন এর মধ্যেই বাজারে পাওয়া যাবে। এবং বলাই যায় যে স্যামসাঙ এর গ্যালাক্সি  এস ৮, এস ৮ প্লাস এবং নোট ৮ বানিয়ে স্যামসাঙ আসলেই সফল। আর কিছুদিন এর মধ্যেই অ্যাপেল বাজারে আনবে তাদের বানানো সবচেয়ে সেরা ফোন আইফোন ১০। স্যামসাঙ বা অ্যাপেল এর বাইরের কিছু স্মার্টফোন কোম্পানি ভাল এবং অনেক পাওয়ারফুল আর ফিচার সমৃদ্ধ ফোন বাজারে আনছে। এর মধ্যে এল.জি(LG) অন্যতম। কার আমরা এল.জি এর কাছ থেকে অনেক হাই-এন্ড স্মার্টফোন পেয়েছি।

এল.জি বাজারে আনছে তাদের নতুন ফ্লাগশিপ LG V30, গত বছর এল.জি এই সিরিজের আগের ফোন LG V20 তৈরি করেছিল। এবং সেই ফোনটি যথেষ্ট ভাল ছিল। তাই এবারও আশা করা এল.জি তাদের ইউজার দের জন্য ভাল কিছু বানাবে। এল.জি তাদের এই নতুন ফোনে সেরা সব হার্ডওয়্যার জুড়ে দিয়েছে। ফলে এই ফোনটি নতুন স্যামসাঙ বা আইফোন এর ফ্লাগশিপগুলোর সাথে সহজেই পাল্লা দিতে পারবে। এবার চলুন জেনে নেয়া যাক কি আছে এল.জি ভি৩০ এ?

ডিজাইন

এল.জির নতুন এই ফোনটি দেখতে কিছুটা স্যামসাঙ গ্যালাক্সি এস৮ এর মত। কারণ নতুন এই ফোনটিকে বেজেল-লেসই বলা চলে। এর বেজেল অনেক ছোট। তবে এই ফোনটির ডিসপ্লে এর সাইজ ৬ইঞ্চি। তাই এটি আকারে বেশ বড় হবার কথা। তবে এই স্মার্টফোনটি হাতে ধরে রাখতে তেমন সমস্যা হবে না। কারণ এটি যেমন পাতলা তেমনি অনেক বেশি হালকা। ভি৩০ এর ডিসপ্লে এর অ্যাসপেক্ট রেশিও ১৮:৯। এছাড়াও এবছরের ফ্লাগশিপগুলোর মত ভি৩০ এর ফ্রন্ট পুরোটাই ডিসপ্লে। এল.জি যদিও তাদের আগের ফোনগুলোতে যেসব ডিসপ্লে ব্যবহার করেছে সেগুলো তেমন একটা ভাল ছিল না।

তবে এবার ভি৩০ এ ব্যবহার করা হয়েছে ওলেড টেকনোলজি। এটি স্যামসাঙ এর সুপার অ্যামোলেড ডিসপ্লের কাছাকাছি। তাই প্রায় একি পারফরমেন্স পাওয়া যাবে। যদিও ডিসপ্লে তৈরিতে স্যামসাঙ  বাজারে সবার সেরা। তবে এল.জি তাদের এই নতুন ফোন অনেক উন্নতমানের ডিসপ্লে ব্যবহার করেছে। এবং এই ডিসপ্লেটি যথেষ্ট ব্রাইট, তাই দিনের আলোতে ডিসপ্লে দেখতে কোন সমস্যা হবে না।

এছাড়াও এই ফোনের পুরো অংশই গ্লাস দিয়ে ঢাকা। তাই হাতে ধরতে এই ফোন পুরো সলিড মনে হয়। এই ফোনটির ওজন মাত্র ১৫৮ গ্রাম। যদি এই ফোনের ডিসপ্লে ৬ ইঞ্চি। কিন্তু ভ৩০ হাতে ধরতে সাধারণ ৫.৫ ইঞ্চি ফোন এর মতই লাগে।

এল.জি ভি৩০ এর হার্ডওয়্যার

এল.জি তাদের নতুন এই ফোনে বাজারের সেরা সব হার্ডওয়্যার ব্যবহার করেছে। কারণ এই ফোন আছে স্নাপড্রাগন ৮৩৫ প্রসেসর, সাথে ৪ জিবি র‍্যাম এবং একটি ৩৩০০ মিলিঅ্যাম্প/ঘণ্টা ব্যাটারি। এছাড়াও এতে মাইক্রোএসডি কার্ড ব্যবহার করে স্টোরেজ বাড়িয়ে নেয়া যাবে। এখনকার অনেক ফোনেই ৬জিবি র‍্যাম ব্যবহার করা হয়। কিন্তু আসলে আন্ড্রয়েডের কোন অ্যাপ ৬জিবি র‍্যাম ব্যবহার করার মত পাওয়ার হাংরি না। তাই এতে তেমন একটা সমস্যা হবে না। এবং এল.জি ভি৩০ এ যেকোনো অ্যাপ বা গেমস শুধু ভালভাবে চলবেই না, এক কথায় দৌড়বে।

ভি৩০ এর আরেকটি ফিচার হল এটি ওয়াটার-রেসিসট্যান্ট ফোন। যেটি IP68 রেটেড। তাই বৃষ্টিতে ব্যবহার করলে এর কিছুই হবে না। এমনকি পানি ভরতি বালটিতে পরে গেলে ফোন এর কিছুই হবে না। অনেক স্মার্টফোন নির্মাতা কোম্পানি তাদের ফ্লাগশিপ ফোনগুলো থেকে হেডফোন জ্যাক বাদ দিয়ে দিচ্ছে। এটা আসলেই একটি খারাপ দিক। কারণ বেশিরভাগ সাধারণ ইউজার হেডফোনই ব্যবহার করেন। আর ওয়ারলেস হেডফোনগুলোতে খুব বেশি ব্যাটারি ব্যাকআপ পাওয়া যায় না। ব্যাটারি ব্যাকআপ পাওয়া গেলেও সেটি পুরো দিনের জন্য যথেষ্ট নয়।

নতুন এই ফোনটি ওয়ারলেস  চার্জিং  সাপোর্ট করে। তাই আপনি ওয়ারলেস চার্জিং  এর সুবিধা নিতে পারবেন। এছাড়াও এই ফোনের সাউন্ড সিস্টেম অনেক ভাল। তাই হেডফোন কানে দিয়ে আপনি হারিয়ে যেতে পারবেন মিউজিক এর রাজ্যে।

ক্যামেরা

এল.জি এর ফোনগুলোতে সাধারণত অনেক ভাল ক্যামেরা ব্যবহার করা হয়। ভি৩০ তে ব্যবহার করা হয়েছে ১৬ মেগাপিক্সেল এর ক্যামেরা। আপনি ফোন নিয়ে দৌড়ানোর সময়ও এই ক্যামেরা দিয়ে স্টিল ছবি তুলতে পারবেন। যেহেতু এটি একটি ডুয়াল সেন্সর বিশিষ্ট ক্যামেরা তাই এতে যে সেকেন্ড ক্যামেরাটি ব্যবহার করা হয়েছে সেটি একটি ১৩ মেগাপিক্সেল এর ক্যামেরা। হাই রেসুলুশন এবং উন্নত পিক্সেল এর কারণে ভি৩০ অনেক বেশি শার্প ছবি তুলতে পারবে। এছাড়াও রাতে অন্ধকারেও খুব সুন্দর ছবি তুলতে পারবে এই স্মার্টফোনের ক্যামেরা। তাই বলাই যায় বাজারের সেরা ফোনগুলোর ক্যামেরাকে এল.জি ভি৩০ এর ক্যামেরা সহজেই হারিয়ে দিতে পারবে।

সাধারণ ইউজারদের বেশিরভাগই অটো মুড দিয়ে ছবি তুলে। তবে আপনি যদি ম্যানুয়াল ছবি তুলতে চান তবে এল.জি ভি৩০ আপনাকে অনেক বাড়তি সুবিধা দিতে পারে। এছাড়াও এই ফোনের ফ্রন্ট ক্যামেরা হিসেবে এল.জি একটি ৫ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা ব্যবহার করেছে। পিছনের ক্যামেরার তুলনায় ফ্রন্ট ক্যামেরা ততোটা ভাল না হলেও সেলফি ক্যামেরা হিসেবে ভাল কাজ করে। তবে ইমেজ কোয়ালিটি লো-লাইটে তেমন ভাল না।

এল.জি স্মার্টফোন গুলোতে বরাবরই ভিডিও ফিচার খুব বেশি থাকে। এবং ভি৩০ ফোনটিও তার ব্যতিক্রম নয়। কারণ এই ফোন দিয়ে আপনি সহজেই সিনেম্যাটিক ভিডিও করতে পারবেন। অটো মুড এ ভিডিও যথেষ্ট ভাল। তবে ম্যানুয়াল মুড এ ভিডিও করলে আপনি পরে এডিট করে ভিডিও কোয়ালিটি আরো বাড়িয়ে নিতে পারবেন।

সফটওয়্যার

এল.জি তাদের নতুন এই ফোনটি সফটওয়্যার এর ক্ষেত্রে অনেক অপটিমাইজেশন করেছে। তাদের টাচ রেসপন্স আগের থেকে অনেক ফাস্ট। এছাড়াও নতুন এই স্মার্টফোনটিতে আছে ফেস আনলক সিস্টেম। এটি ক্যামেরা এবং নতুন এলগোরিদম ব্যবহার করে আপনার ফোন আনলক করতে পারবে। তবে এটি আইফোন এক্স এর ফেস আইডি এর মত সিকিউর না। তবে এটি ভাল একটি ফিচার। এছাড়াও এর ফিঙ্গার-প্রিন্ট সেন্সরটি পিছনে। এবং খুব সহজেই নাগাল পাওয়া যায়। এই সেন্সর স্যামসাঙ বা অ্যাপেল এর ফিঙ্গার-প্রিন্ট সেন্সর এর মতই ফাস্ট।

তাই আপনি খুব দ্রুত ফোন আনলক করতে পারবেন। এছাড়াও এই ফোনটি আন্ড্রয়েড এর লেটেস্ট ৭.১.২ অপারেটিং সিস্টেম দিয়ে বাজারে ছাড়া হবে। তবে এল.জি এর নিজের বানানো উ.আই থাকার কারণে আপনি অন্য রকম এক অনুভূতি পাবেন।

ব্যাটারি লাইফ

আমরা এই বছর অনেক নতুন নতুন ফোন দেখেছি যেগুলোতে ছিল বিশাল বিশাল ডিসপ্লে সাথে অনেক বড় ব্যাটারি। যেমন স্যামসাঙ গ্যালাক্সি নোট ৮। যেহেতু ভি৩০ ফোনের ডিসপ্লেটি ৬ইঞ্চি তাই এতে ব্যবহার করা হয়েছে ৩৩০০ এম.এ.এইচ এর ব্যাটারি। এই ব্যাটারি দিয়ে আপনি ফোনটিকে খুব ভালভাবেই সারাদিন চালাতে পারবেন। তবে ৪কে ভিডিও রেকর্ডিং এর সময় ফোন অনেক বেশি ব্যাটারি ব্যবহার করে। ফলে এতে ব্যাটারি এর চার্জ খুব বেশি থাকবে না যদি আপনি ৪কে রেকর্ডিং  অনেক বেশি করেন।

তবে এই ফোনটি কুইক চার্জার ৩ সাপোর্ট করে তাই এটি খুব তারাতারি চার্জ হয়। এছাড়াও ইউএসবি পাওয়ার ডেলিভারি সিস্টেমটি অনেক উন্নত হওয়ায় ১ ঘণ্টার ভিতরে ফোন প্রায় ফুল চার্জ হয়ে যায়। তাই চার্জ নিতে তেমন চিন্তা  করার আসলে দরকার নেই। তবে যদি ফোন দিয়ে গেম খেলতে চান সারাদিন বা ভিডিও করতে চান তবে সাথে পাওয়ার ব্যাংক নিয়ে ঘোরাই ভাল।

শেষ কথা

উপরের কথাগুলো থেকে আমরা সহজেই বলতে পারি যে এল.জি এর তৈরি ভি৩০ একটি ফ্লাগশিপ। এবং বাজারের যেকোনো ফ্লাগশিপ এর সাথে তুলোনা করলে দাম হিসেবে এটি অনেক ভাল পারফর্ম করে। এছাড়াও এই ফোনের বিল্ড কোয়ালিটি এবং ডিজাইন অসাধারণ। তাই যারা একটু অন্য রকম ফোন পছন্দ করেন তারা এই ফোনটি কিনতে পারেন। তাছাড়া এই ফোনটি নরমাল ইউজার দের জন্য একবারে পারফেক্ট একটি ফোন। কারণ সাধারণ ইউজার এবং টেকি রা যে ধরনের ফিচার চায় তার সবই এই ফোনে আছে।

আশা করি আপনার টিউনটি ভাল লেগেছে। এবং সময় নিয়ে টিউনটি পড়ার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ। এরকম আরো অসংখ্য ভাল ভাল টিউন পেতে আমার প্রোফাইল থেকে ঘুরে আসুন। আশা করি আপনাদের ভাল লাগবে।

Level 1

আমি আশরাফুল ফিরোজ। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 8 বছর 1 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 77 টি টিউন ও 35 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 6 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 0 টিউনারকে ফলো করি।


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস