__̴ı̴̴̡̡̡ ̡͌l̡̡̡ ̡͌l̡*̡̡ ̴̡ı̴̴̡ ̡̡͡|̲̲̲͡͡͡ ̲▫̲͡ ̲̲̲͡͡π̲̲͡͡ ̲̲͡▫̲̲͡͡ ̲|̡̡̡ ̡ ̴̡ı̴̡̡ ̡͌l̡̡̡̡.__যেভাবে আপনার মোবাইলের ক্যামেরা দিয়েই তুলবেন ভালো মানের ছবি__̴ı̴̴̡̡̡ ̡͌l̡̡̡ ̡͌l̡*̡̡ ̴̡ı̴̴̡ ̡̡͡|̲̲̲͡͡͡ ̲▫̲͡ ̲̲̲͡͡π̲̲͡͡ ̲̲͡▫̲̲͡͡ ̲|̡̡̡ ̡ ̴̡ı̴̡̡ ̡͌l̡̡̡̡.__By DJ ΛЯIF

যেভাবে আপনার মোবাইলের ক্যামেরা দিয়েই তুলবেন ভালো মানের ছবি

আসসালামুয়ালাইকুম, বর্তমান সময়ে প্রায় সকলের হাতে হাতেই আছে ক্যামেরা মোবাইল। হোক তা চাইনিজ বা হোক কোয়ালিটির, ক্যামেরা মোবাইল বলে কথা। অনেকেরই ধারণা যে মোবাইলের ক্যামেরা দিয়ে ভালো ছবি তোলা সম্ভব না, কিন্তু আসলে ধারণাটি ভুল। ছবি তুলতে হলে যে শুধু ৮-১০ মেগাপিক্সেল ক্যমেরা লাগবে এই ধারণাটিও ভুল। মোটামুটি ৩ মেগাপিক্সেল ক্যামেরাই যথেষ্ট আমাদের প্রাত্যহিক ব্যবহারের জন্য, কারণ আমরাতো আর সাংবাদিক না! তবে যারা সাংবাদিক তাদের কথা আলাদা।
তবে যদি ৩ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা না থাকে মোবাইলে তবে ২ পেগাপিক্সেল দিয়েও ছবি খুব একটা খারাপ উঠে না। আর বকবক না করে মুল কথায় আসি। ক্যামেরা যাই হোক, সাধারণ কিছু নিয়ম -কানুন মানলেই ভালো মানের ছবি তোলা সম্ভব।
যেভাবে আপনার মোবাইলের ক্যামেরা দিয়েই তুলবেন ভালো মানের ছবি
নিয়মকানুনের যা আমার জানা আছে তাই নিচে শেয়ার করলামঃ

১.লাইটঃ ছবির ক্ষেত্রে লাইট টাই বেশি দরকারি। ছবি তোলার সময় খেয়াল রাখতে হবে যাতে আলোর যথাযথ প্রভাব থাকে, মোবাইলে ভালো ফ্ল্যাশ থাকলে আর এ নিয়ে চিন্তা করতে হবে না। যদি ফ্ল্যাশ না থাকে তবে অবশ্যই আলোর দিকে বেশি খেয়াল করতে হবে। আলোটাই মুলত ছবির প্রাণ। তাই বলে অন্ধকারের ছবি তুলতে গিয়েও কিন্তু আলো ব্যবহার করবেন না!!

২.জুমের ব্যবহারঃ জুম যত কম ব্যবহার করা যায় ততই কম ব্যবহার করুন। জুম করলে ছবির কোয়ালিটি নষ্ট হতে পারে। বিশেষ করে যদি তা হয় ডিজিটাল জুম। যদি জুম করার প্রয়োজন হয় তবে কাছে গিয়ে ছবি তুলুন, আর যদি কাছে যাওয়া সম্ভবপর না হয় তবে জুম ছাড়া ছবি যেমন উঠে তাই ভাল। তবে যাদের অপটিকাল জুম আছে তাদের কথা আলাদা, অপটিকাল জুম যত এক্স পর্যন্ত আছে সর্বোচ্চ ততই ব্যবহার করুন, অবশ্যই খুব বেশি ব্যবহার না করাই ভাল। ডিজিটাল জুমে ছবি ফেটে যায় কিন্তু অপ্টিকাল জুমে ছবি ফাটে না। নিচের ছবিটি দেখুন-

৩.ক্যমেরা ভাল করে ধরাঃ ছবি তোলার সময় অবশ্যই ক্যামেরাটিকে বা ক্যামেরা মোবাইলটিকে ভালো করে ধরতে হবে যাতে ছবি ব্লারি বা ঘোলা না অঠে, আর এজন্য মোবাইলকে নাড়াচাড়া করানো যাবেনা। ভালো করে ধরে ছবি তুলতে হবে। আর নিজের নড়াচড়ার দিকেও খেয়াল রাখতে হবে।

৪.ক্যামেরার লেন্সঃ লেন্সের প্রতি যত্নবান হতে হবে। লেন্সে ঘোলা হয়ে গেলে ব্লারি বা ঘোলা ছবি ওঠা সাধারণ ব্যাপার। লেন্সকে সবসময় পাতলা শুকনো কাপড় বা পাতলা টিস্যু দিয়ে আস্তে করে মোছা উচিত, তাই বলে কেউ জোরে ঘসা দিবেন না, এতে লেন্স ভালো হঊয়া তো দূর নষ্টও হয়ে যেতে পারে। লেন্সে যাতে কখোনোই পানি না লাগে। ভালো লেন্স মোবাইলে ভালো ছবি তোলার ক্ষেত্রে পূর্বশর্ত। নিচে আমার ক্যামেরাটি দেখুন-

যেভাবে আপনার মোবাইলের ক্যামেরা দিয়েই তুলবেন ভালো মানের ছবি
৫.লক্ষ্যবস্তুর কাছে যানঃ জুম থাক বা না থাক ভালো ছবি তুলতে হলে যতটুকু পারা যায় লক্ষ্যবস্তুর নিকটে থাকুন, এতে ভালো কোয়ালিটির ছবি পাবেন। তাই বলে কেউ বিপদজনক কোন কিছুর ছবি তুলতে কাছে যাবে না!

৬.ছবিতে ইফেক্ট ব্যবহারঃ প্রায় সব মোবাইলেই বিল্ট-ইন ইফেক্ট রয়েছে, তবে গ্রাফিক্স ডিসাইন যদি মোটামুটি জানেন তবে মোবাইলেরর বিল্ট ইন ইফেক্ট না দেয়াই ভালো। নরমাল ভাবে ছবি তুলে পরে সেটা কম্পিউটারে ইডিট করে নিলেই হবে।

৭.অভিজ্ঞ হয়ে উঠুনঃ মোবাইল ক্যামেরা দিয়ে ছবি তুলতে যেহেতু খরচ হয় না{ মেমরি ছাড়া} তাই যত পারুন ছবি তুলুন, অবশ্যই সুন্দর মেয়ে দেখলে ছবি তোলার জন্য হাত চুল্কাবেন না, এতে সেদিনের জন্যে আপনার কপালে---------------------------------------------------------------------------------------------
বেশি বেশি ছবি তুলে নিজেকে অভিজ্ঞ বানিয়ে তুলুন। তবে যেভাবে মন চায় সেভাবে না, সকল নিয়ম মেনে ছবি তুলুন।

৮.রেজুলূশনঃ অনেক মোবাইলেই আপনাকে রেজুলূশন চয়েজ করার সুবিধা দিয়ে থাকে। এক্ষেত্রে আপনাকে মোবাইলে থাকা সরবোচ্চ রেজুলূশন ব্যবহার করাই ভালো। রেজুলূশন ভালো থাকলে ছবি ভালো হয় এবং হাই কোয়ালিটির হয়, বিশেষ করে যদি আপনি পরে ছবি প্রিন্ট করতে চান তাহলে ভালো রেজুলূশনের ছবি না হলে চলবে না। যদিও রেজুলূশনের ওপর ভিত্তি করে ছবির সাইজ বড় হয় তবুও রেজুলূশন বেশি দিয়ে ছবি তোলাই ভালো, সাইজের বা মেমরির চিন্তা করলে আর ভালো ছবি তোলা লাগবে না!!

৯.পিকচার ফ্রেম ব্যবহারঃ মোবাইলে পিকচার ফ্রেম একটি সাধারণ ফিচার, প্রায় সব মোবাইলেই এই ফিচার আছে। কিন্তু মোবাইলের পিকচার ফ্রেম আপনার ছবির কোয়ালিটি ১০০% থেকে কমিয়ে ২০% এ নিয়ে আসবে, মানে আপনার ছবি পুরা ফাউল উঠবে! সুতরাং পিকচার ফ্রেম ব্যবহার বাদ দিতে হবে।

১০.ছবি তোলার বিষয় নির্বাচনঃ বিষয় নিরবাচন ছবি তোলার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অংশ। আপনার ছবি তোলার বিষয় বস্তু ভালো হতে হবে। নিজেই নিজের ছবি তোলা ভালো বিশয় বস্তু না। চেষ্টা করবেন প্রকৃ্তির ছবি তুলতে বা বৈচিত্রময় কিছুর ছবি তুলতে, এতে ছবি তোলার প্রতি আপনার আগ্রহ বাড়বে এবং একই সাথে ছবি তুলে মজাও পাবেন আপনি। নিজের ছবি যদি তুলতে চান তবে নিজে না তুলে অন্য কাউকে দিয়ে তোলান, যদি সম্ভব না হয় তবে সতর্কতার সাথে নিজেই তুলুন। কোন বিষয়ের শুধু একটি ছবি না তুলে একাধিক ছবি তুলুন, এতে ভালো শট পাবার সম্ভাবনা থাকে।

আমার মনে হয় উপরের বিষয়ে সতরক থাকলে মোবাইলেও ভালো ছবি তোলা কোন ব্যপারই না।
সকলের প্রতি সুভকামনা রইল, আশা করি মোবাইল ক্যামেরা দিয়েও ভালো ছবি তুলতে পারবেন।

যেভাবে আপনার মোবাইলের ক্যামেরা দিয়েই তুলবেন ভালো মানের ছবি
আসসালামুয়ালাইকুম, বর্তমান সময়ে প্রায় সকলের হাতে হাতেই আছে ক্যামেরা মোবাইল। হোক তা
চাইনিজ বা হোক কোয়ালিটির, ক্যামেরা মোবাইল বলে কথা। অনেকেরই ধারণা যে মোবাইলের
ক্যামেরা দিয়ে ভালো ছবি তোলা সম্ভব না, কিন্তু আসলে ধারণাটি ভুল। ছবি তুলতে হলে যে শুধু
৮-১০ মেগাপিক্সেল ক্যমেরা লাগবে এই ধারণাটিও ভুল। মোটামুটি ৩ মেগাপিক্সেল ক্যামেরাই যথেষ্ট
আমাদের প্রাত্যহিক ব্যবহারের জন্য, কারণ আমরাতো আর সাংবাদিক না! তবে যারা সাংবাদিক
তাদের কথা আলাদা।

তবে যদি ৩ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা না থাকে মোবাইলে তবে ২ পেগাপিক্সেল দিয়েও ছবি খুব একটা
খারাপ উঠে না। আর বকবক না করে মুল কথায় আসি। ক্যামেরা যাই হোক, সাধারণ কিছু নিয়ম
-কানুন মানলেই ভালো মানের ছবি তোলা সম্ভব।
নিয়মকানুনের যা আমার জানা আছে তাই নিচে শেয়ার করলামঃ
১.লাইটঃ ছবির ক্ষেত্রে লাইট টাই বেশি দরকারি। ছবি তোলার সময় খেয়াল রাখতে হবে যাতে
আলোর যথাযথ প্রভাব থাকে, মোবাইলে ভালো ফ্ল্যাশ থাকলে আর এ নিয়ে চিন্তা করতে হবে না।
যদি ফ্ল্যাশ না থাকে তবে অবশ্যই আলোর দিকে বেশি খেয়াল করতে হবে। আলোটাই মুলত ছবির
প্রাণ। তাই বলে অন্ধকারের ছবি তুলতে গিয়েও কিন্তু আলো ব্যবহার করবেন না!!
২.জুমের ব্যবহারঃ জুম যত কম ব্যবহার করা যায় ততই কম ব্যবহার করুন। জুম করলে ছবির
কোয়ালিটি নষ্ট হতে পারে। বিশেষ করে যদি তা হয় ডিজিটাল জুম। যদি জুম করার প্রয়োজন হয়
তবে কাছে গিয়ে ছবি তুলুন, আর যদি কাছে যাওয়া সম্ভবপর না হয় তবে জুম ছাড়া ছবি যেমন
উঠে তাই ভাল। তবে যাদের অপটিকাল জুম আছে তাদের কথা আলাদা, অপটিকাল জুম যত এক্স
পর্যন্ত আছে সর্বোচ্চ ততই ব্যবহার করুন, অবশ্যই খুব বেশি ব্যবহার না করাই ভাল।
৩.ক্যমেরা ভাল করে ধরাঃ ছবি তোলার সময় অবশ্যই ক্যামেরাটিকে বা ক্যামেরা মোবাইলটিকে
ভালো করে ধরতে হবে যাতে ছবি ব্লারি বা ঘোলা না অঠে, আর এজন্য মোবাইলকে নাড়াচাড়া
করানো যাবেনা। ভালো করে ধরে ছবি তুলতে হবে। আর নিজের নড়াচড়ার দিকেও খেয়াল রাখতে
হবে।
৪.ক্যামেরার লেন্সঃ লেন্সের প্রতি যত্নবান হতে হবে। লেন্সে ঘোলা হয়ে গেলে ব্লারি বা ঘোলা ছবি
ওঠা সাধারণ ব্যাপার। লেন্সকে সবসময় পাতলা শুকনো কাপড় বা পাতলা টিস্যু দিয়ে আস্তে করে
মোছা উচিত, তাই বলে কেউ জোরে ঘসা দিবেন না, এতে লেন্স ভালো হঊয়া তো দূর নষ্টও হয়ে
যেতে পারে। লেন্সে যাতে কখোনোই পানি না লাগে। ভালো লেন্স মোবাইলে ভালো ছবি তোলার ক্ষেত্রে
পূর্বশর্ত।
৫.লক্ষ্যবস্তুর কাছে যানঃ জুম থাক বা না থাক ভালো ছবি তুলতে হলে যতটুকু পারা যায়
লক্ষ্যবস্তুর নিকটে থাকুন, এতে ভালো কোয়ালিটির ছবি পাবেন। তাই বলে কেউ বিপদজনক কোন
কিছুর ছবি তুলতে কাছে যাবে না!
৬.ছবিতে ইফেক্ট ব্যবহারঃ প্রায় সব মোবাইলেই বিল্ট-ইন ইফেক্ট রয়েছে, তবে গ্রাফিক্স ডিসাইন যদি
মোটামুটি জানেন তবে মোবাইলেরর বিল্ট ইন ইফেক্ট না দেয়াই ভালো। নরমাল ভাবে ছবি তুলে
পরে সেটা কম্পিউটারে ইডিট করে নিলেই হবে।
৭.অভিজ্ঞ হয়ে উঠুনঃ মোবাইল ক্যামেরা দিয়ে ছবি তুলতে যেহেতু খরচ হয় না{ মেমরি ছাড়া} তাই
যত পারুন ছবি তুলুন, অবশ্যই সুন্দর মেয়ে দেখলে ছবি তোলার জন্য হাত চুল্কাবেন না, এতে
সেদিনের জন্যে আপনার কপালে-------------------------------------------------

বেশি বেশি ছবি তুলে নিজেকে অভিজ্ঞ বানিয়ে তুলুন। তবে যেভাবে মন চায় সেভাবে না, সকল
নিয়ম মেনে ছবি তুলুন।
৮.রেজুলূশনঃ অনেক মোবাইলেই আপনাকে রেজুলূশন চয়েজ করার সুবিধা দিয়ে থাকে। এক্ষেত্রে
আপনাকে মোবাইলে থাকা সরবোচ্চ রেজুলূশন ব্যবহার করাই ভালো। রেজুলূশন ভালো থাকলে ছবি
ভালো হয় এবং হাই কোয়ালিটির হয়, বিশেষ করে যদি আপনি পরে ছবি প্রিন্ট করতে চান তাহলে
ভালো রেজুলূশনের ছবি না হলে চলবে না। যদিও রেজুলূশনের ওপর ভিত্তি করে ছবির সাইজ বড়
হয় তবুও রেজুলূশন বেশি দিয়ে ছবি তোলাই ভালো, সাইজের বা মেমরির চিন্তা করলে আর ভালো
ছবি তোলা লাগবে না!!
৯.পিকচার ফ্রেম ব্যবহারঃ মোবাইলে পিকচার ফ্রেম একটি সাধারণ ফিচার, প্রায় সব মোবাইলেই এই
ফিচার আছে। কিন্তু মোবাইলের পিকচার ফ্রেম আপনার ছবির কোয়ালিটি ১০০% থেকে কমিয়ে
২০% এ নিয়ে আসবে, মানে আপনার ছবি পুরা ফাউল উঠবে! সুতরাং পিকচার ফ্রেম ব্যবহার বাদ
দিতে হবে।
১০.ছবি তোলার বিষয় নির্বাচনঃ বিষয় নিরবাচন ছবি তোলার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অংশ। আপনার
ছবি তোলার বিষয় বস্তু ভালো হতে হবে। নিজেই নিজের ছবি তোলা ভালো বিশয় বস্তু না। চেষ্টা
করবেন প্রকৃ্তির ছবি তুলতে বা বৈচিত্রময় কিছুর ছবি তুলতে, এতে ছবি তোলার প্রতি আপনার
আগ্রহ বাড়বে এবং একই সাথে ছবি তুলে মজাও পাবেন আপনি। নিজের ছবি যদি তুলতে চান
তবে নিজে না তুলে অন্য কাউকে দিয়ে তোলান, যদি সম্ভব না হয় তবে সতর্কতার সাথে নিজেই
তুলুন। কোন বিষয়ের শুধু একটি ছবি না তুলে একাধিক ছবি তুলুন, এতে ভালো শট পাবার
সম্ভাবনা থাকে।
আমার মনে হয় উপরের বিষয়ে সতরক থাকলে মোবাইলেও ভালো ছবি তোলা কোন ব্যপারই না।

সকলের প্রতি সুভকামনা রইল, আশা করি মোবাইল ক্যামেরা দিয়েও ভালো ছবি তুলতে পারবেন।যেভাবে আপনার মোবাইলের ক্যামেরা দিয়েই তুলবেন ভালো মানের ছবি
আসসালামুয়ালাইকুম, বর্তমান সময়ে প্রায় সকলের হাতে হাতেই আছে ক্যামেরা মোবাইল। হোক তা চাইনিজ বা হোক কোয়ালিটির, ক্যামেরা মোবাইল বলে কথা। অনেকেরই ধারণা যে মোবাইলের ক্যামেরা দিয়ে ভালো ছবি তোলা সম্ভব না, কিন্তু আসলে ধারণাটি ভুল। ছবি তুলতে হলে যে শুধু ৮-১০ মেগাপিক্সেল ক্যমেরা লাগবে এই ধারণাটিও ভুল। মোটামুটি ৩ মেগাপিক্সেল ক্যামেরাই যথেষ্ট আমাদের প্রাত্যহিক ব্যবহারের জন্য, কারণ আমরাতো আর সাংবাদিক না! তবে যারা সাংবাদিক তাদের কথা আলাদা।

তবে যদি ৩ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা না থাকে মোবাইলে তবে ২ পেগাপিক্সেল দিয়েও ছবি খুব একটা খারাপ উঠে না। আর বকবক না করে মুল কথায় আসি। ক্যামেরা যাই হোক, সাধারণ কিছু নিয়ম -কানুন মানলেই ভালো মানের ছবি তোলা সম্ভব।
নিয়মকানুনের যা আমার জানা আছে তাই নিচে শেয়ার করলামঃ
১.লাইটঃ ছবির ক্ষেত্রে লাইট টাই বেশি দরকারি। ছবি তোলার সময় খেয়াল রাখতে হবে যাতে আলোর যথাযথ প্রভাব থাকে, মোবাইলে ভালো ফ্ল্যাশ থাকলে আর এ নিয়ে চিন্তা করতে হবে না। যদি ফ্ল্যাশ না থাকে তবে অবশ্যই আলোর দিকে বেশি খেয়াল করতে হবে। আলোটাই মুলত ছবির প্রাণ। তাই বলে অন্ধকারের ছবি তুলতে গিয়েও কিন্তু আলো ব্যবহার করবেন না!!
২.জুমের ব্যবহারঃ জুম যত কম ব্যবহার করা যায় ততই কম ব্যবহার করুন। জুম করলে ছবির কোয়ালিটি নষ্ট হতে পারে। বিশেষ করে যদি তা হয় ডিজিটাল জুম। যদি জুম করার প্রয়োজন হয় তবে কাছে গিয়ে ছবি তুলুন, আর যদি কাছে যাওয়া সম্ভবপর না হয় তবে জুম ছাড়া ছবি যেমন উঠে তাই ভাল। তবে যাদের অপটিকাল জুম আছে তাদের কথা আলাদা, অপটিকাল জুম যত এক্স পর্যন্ত আছে সর্বোচ্চ ততই ব্যবহার করুন, অবশ্যই খুব বেশি ব্যবহার না করাই ভাল।
৩.ক্যমেরা ভাল করে ধরাঃ ছবি তোলার সময় অবশ্যই ক্যামেরাটিকে বা ক্যামেরা মোবাইলটিকে ভালো করে ধরতে হবে যাতে ছবি ব্লারি বা ঘোলা না অঠে, আর এজন্য মোবাইলকে নাড়াচাড়া করানো যাবেনা। ভালো করে ধরে ছবি তুলতে হবে। আর নিজের নড়াচড়ার দিকেও খেয়াল রাখতে হবে।
৪.ক্যামেরার লেন্সঃ লেন্সের প্রতি যত্নবান হতে হবে। লেন্সে ঘোলা হয়ে গেলে ব্লারি বা ঘোলা ছবি ওঠা সাধারণ ব্যাপার। লেন্সকে সবসময় পাতলা শুকনো কাপড় বা পাতলা টিস্যু দিয়ে আস্তে করে মোছা উচিত, তাই বলে কেউ জোরে ঘসা দিবেন না, এতে লেন্স ভালো হঊয়া তো দূর নষ্টও হয়ে যেতে পারে। লেন্সে যাতে কখোনোই পানি না লাগে। ভালো লেন্স মোবাইলে ভালো ছবি তোলার ক্ষেত্রে পূর্বশর্ত।
৫.লক্ষ্যবস্তুর কাছে যানঃ জুম থাক বা না থাক ভালো ছবি তুলতে হলে যতটুকু পারা যায় লক্ষ্যবস্তুর নিকটে থাকুন, এতে ভালো কোয়ালিটির ছবি পাবেন। তাই বলে কেউ বিপদজনক কোন কিছুর ছবি তুলতে কাছে যাবে না!
৬.ছবিতে ইফেক্ট ব্যবহারঃ প্রায় সব মোবাইলেই বিল্ট-ইন ইফেক্ট রয়েছে, তবে গ্রাফিক্স ডিসাইন যদি মোটামুটি জানেন তবে মোবাইলেরর বিল্ট ইন ইফেক্ট না দেয়াই ভালো। নরমাল ভাবে ছবি তুলে পরে সেটা কম্পিউটারে ইডিট করে নিলেই হবে।
৭.অভিজ্ঞ হয়ে উঠুনঃ মোবাইল ক্যামেরা দিয়ে ছবি তুলতে যেহেতু খরচ হয় না{ মেমরি ছাড়া} তাই যত পারুন ছবি তুলুন, অবশ্যই সুন্দর মেয়ে দেখলে ছবি তোলার জন্য হাত চুল্কাবেন না, এতে সেদিনের জন্যে আপনার কপালে-------------------------------------------------

বেশি বেশি ছবি তুলে নিজেকে অভিজ্ঞ বানিয়ে তুলুন। তবে যেভাবে মন চায় সেভাবে না, সকল নিয়ম মেনে ছবি তুলুন।
৮.রেজুলূশনঃ অনেক মোবাইলেই আপনাকে রেজুলূশন চয়েজ করার সুবিধা দিয়ে থাকে। এক্ষেত্রে আপনাকে মোবাইলে থাকা সরবোচ্চ রেজুলূশন ব্যবহার করাই ভালো। রেজুলূশন ভালো থাকলে ছবি ভালো হয় এবং হাই কোয়ালিটির হয়, বিশেষ করে যদি আপনি পরে ছবি প্রিন্ট করতে চান তাহলে ভালো রেজুলূশনের ছবি না হলে চলবে না। যদিও রেজুলূশনের ওপর ভিত্তি করে ছবির সাইজ বড় হয় তবুও রেজুলূশন বেশি দিয়ে ছবি তোলাই ভালো, সাইজের বা মেমরির চিন্তা করলে আর ভালো ছবি তোলা লাগবে না!!
৯.পিকচার ফ্রেম ব্যবহারঃ মোবাইলে পিকচার ফ্রেম একটি সাধারণ ফিচার, প্রায় সব মোবাইলেই এই ফিচার আছে। কিন্তু মোবাইলের পিকচার ফ্রেম আপনার ছবির কোয়ালিটি ১০০% থেকে কমিয়ে ২০% এ নিয়ে আসবে, মানে আপনার ছবি পুরা ফাউল উঠবে! সুতরাং পিকচার ফ্রেম ব্যবহার বাদ দিতে হবে।
১০.ছবি তোলার বিষয় নির্বাচনঃ বিষয় নিরবাচন ছবি তোলার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অংশ। আপনার ছবি তোলার বিষয় বস্তু ভালো হতে হবে। নিজেই নিজের ছবি তোলা ভালো বিশয় বস্তু না। চেষ্টা করবেন প্রকৃ্তির ছবি তুলতে বা বৈচিত্রময় কিছুর ছবি তুলতে, এতে ছবি তোলার প্রতি আপনার আগ্রহ বাড়বে এবং একই সাথে ছবি তুলে মজাও পাবেন আপনি। নিজের ছবি যদি তুলতে চান তবে নিজে না তুলে অন্য কাউকে দিয়ে তোলান, যদি সম্ভব না হয় তবে সতর্কতার সাথে নিজেই তুলুন। কোন বিষয়ের শুধু একটি ছবি না তুলে একাধিক ছবি তুলুন, এতে ভালো শট পাবার সম্ভাবনা থাকে।
আমার মনে হয় উপরের বিষয়ে সতরক থাকলে মোবাইলেও ভালো ছবি তোলা কোন ব্যপারই না।

সকলের প্রতি সুভকামনা রইল, আশা করি মোবাইল ক্যামেরা দিয়েও ভালো ছবি তুলতে পারবেন।

Level 0

আমি ডিজে আরিফ। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 10 বছর 11 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 60 টি টিউন ও 1484 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 0 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 0 টিউনারকে ফলো করি।

আমি আরিফ, সাধারণ একজন আরিফ! চাই অসাধারণ কিছু করতে, সম্ভব কিনা জানিনা কিন্তু ইচ্ছাশক্তির বলে অনেক কিছুই করতে চাই। ব্লগিং - এর সাথে পরিচয় খুব বেশি দিনের না, তবুও বিষয়টাকে ব্যাপকভাবে উপভোগ করছি। ভালো মানের ব্লগার হওয়ার ইচ্ছা আছে। বর্তমানে আমি দশম শ্রেণীতে ঢাকার স্বনামধন্য বিদ্যালয়ে পড়ালেখা করছি।


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস

শেয়ার ক রার জন্য ধন্যবাদ।

খুব ভাল লিখেছেন।
অনেক ধন্যবাদ আপনাকে।

    শুনে ভালো লাগল, আপনাদের ভালো লাগলেই লেখা সার্থক।
    আপনাকেও অনেক অনেক ধন্যবাদ।

ধন্যবাদ ভালো কিছু লেখার জন্য

    আপনাকেও ধন্যবাদ অর্নব ভালো কিছু পড়ার জন্য!! 😀

Level 2

খুব সুন্দর এবং কাজের টিউন। এমন টিউন আরো চাই।

    সকলের কাছ থেকেই ভালো এনং সুন্দর টিউন আশা করছি।
    ধন্যবাদ আধুনিক হিমু!:D

ভাল জিনিস। আমি অবশ্য ছবি তেমন একটা তুলি না।

    ধন্যবাদ বাবর ভাই। তবে ছবি তোলা কিন্তু খুব একটা খারাপ অভ্যাস না!

ভাল টিপস।

আপনাকে Vitual dj দিয়ে কিভাবে গান Mix করে ওইটা নিয়ে ১টা পোষ্ট করার অনুরোধ করছি

    গান মিক্স করা মূলত আপনার কোয়ালিটির ওপর নির্ভর করে, আমার মনে হয় না শুধু মাত্র একটি সফট দিয়েই একটি সম্পুরণ গান মিক্স করা সম্ভব। আমি যেহেতু আমার কাছে স্ক্র্যাচ মেশিন ছাড়া আর কিছু নেই তাই মূলত আমি গানগুলো পিসিতেই মিক্স করি। সেক্ষেত্রে একাধিক সফটওয়্যার ইউজ করতে হয়. যেমন ধরুন সনি সাউন্ড ফোরজ, এফ এল স্টুডিও, মিক্সমিস্টার সহ আরো বেশ কিছু ইউজ করি। তবে যদি মনে করে থাকেন যে Vitual dj দিয়ে পূরো একটা গান মিক্স করা সম্ভব তাহলে আপনি ভুল ভাবছেন। Vitual dj মূলত একটি লাইভ ডিজে মিক্স সফটয়্যার। এটি সাধারণত লাইভ মিক্স করতে ব্যবহার করি। তবে এর আগে গানটিকে প্রয়োজন মত এডিট করে নিতে হয়।
    তো আপনার কথা মনে থাকবে, যদি পারি তাহলে ঈনশাল্লাহ একটা পোস্ট করব, যদিও তাহবে বেশ কষ্ট সাধ্য ব্যাপার, কারণ এগুলো হাতে কলমে না শিখে কোন ভিডিও দেখে বা লেখা পড়ে সেখা সম্ভবপর না।
    ধন্যবাদ।

কি সুন্দর টিউন! অপ্টিক্যাল জুমের ব্যাপারটা ক্লিয়ার করে নিলাম। অনেক ভাল হয়েছে।
আমি বলেইছি, Dj আরিফ অলওয়েজ রক্স !

    আরে দিহান ভাই যে! হ্যা অপটিকাল আর ডিজিটাল জুমের ব্যাপারটা জানা প্রয়োজন, যদিও আমি আগে ডিজিটাল জুমকেই ভালো মনে করতাম।
    আর তোমাকে অসংখ্য ধন্যবাদ। মিতালি করতে চাই, ফেসবুক ইউজ কর?

আমিও অপ্টিক্যাল জুমের ব্যাপারটা ক্লিয়ার করে নিলাম।

    ভালো। টিউনটি অনেকের কাজে আসছে দেখে ভালই লাগছে। 😀

খুবই ভাল লাগল টিউনটি পড়ে অনেক সুন্দর লিখেছেন,
তাছাড়া টিউনও সুন্দর হইছে।
অসংখ্য ধন্যবাদ সুন্দর একটি টিউন উপহার দেয়ার জন্য।

    আতাউর ভাই আমারও খুবই ভালো লাগল আপনার কমেন্ট পড়ে। দোয়া করবেন যেন আগামীতেও ভালো টিউন করতে পারি।

খুব সুন্দর হইছে।

thanks 4 sharing!

অনেক অজানা তথ্য আপনার মাধ্যমে জানলাম।ধন্যবাদ

ভাই টিউন টা ভাল লাগল। আপনাক ধন্যবাদ

ভাল বলেছেন, ভাল লিখেছেন। ভাল লাগল। অনেক অজানা তথ্য জানা হল।