ল্যাপটপ নাকি ডেস্কটপ? আপনার জন্য কোনোটি উপযুক্ত? জেনে নিন এখনই!

Level 6
শিক্ষার্থী, ন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি, গাজীপুর

বর্তমানে স্টুডেন্ট থেকে শুরু করে কর্মজীবী ও ফ্রিল্যান্সার সকলের কাছেই কম্পিউটার একটি গুরুত্বপূর্ণ ডিভাইস। অনেকেই আবার পরিকল্পনা করছেন নিজের জন্য একটি জুতসই কম্পিউটার ক্রয় করার। কিন্তু চারদিকে এতো এতো ল্যাপটপ ও ডেস্কটপ এর ভিড়ে সিদ্ধান্ত নেওয়াটাই মুশকিল হয়ে পড়ছে৷ কখনও মনে হয় ল্যাপটপ কিনলেই বোধহয় ভালো হবে আবার কখনও মনে হয় ডেস্কটপ-ই বেস্ট। এই নিয়ে দোটানার মধ্যে আছেন অনেকেই।

আর নয় চিন্তা, চলুন এবার নিজেই সিদ্ধান্ত নিয়ে নিয় আপনার জন্য কোনটি সব থেকে ভালো হবে। ল্যাপটপ নাকি ডেস্কটপ? আসলে ল্যাপটপ ও ডেস্কটপ এর নিজস্ব কিছু আলাদা বৈশিষ্ট্য রয়েছে। তাই ব্যক্তির কাজের ধরন ও প্রয়োজনের ওপর নির্ভর করে একটি ল্যাপটপ বা ডেস্কটপ এর গুরুত্ব। আপনি ল্যাপটপ কিনবেন নাকি ডেস্কটপ তা নির্ভর করবে আপনার কাজের ধরন ও বাজেট এর ওপর।

চলুন কয়েকটি বিষয় সম্পর্কে জোনে নেয়া যাক যার ওপরে ভিত্তি করে আপনি সিদ্ধান্ত নিতে পারবেন যে আপনার আসলে কোন ডিভাইসটি কেনা উচিত। থাকছে ল্যাপটপ ও ডেস্কটপ সম্পর্কে প্রয়োজনীয় সকল তথ্য।

১. আপনার কম্পিউটার কেনার উদ্যেশ্য

কম্পিউটার কেনার উদ্দেশ্য

আপনি কোন কাজের জন্য কম্পিউটার কিনছেন তা সবার আগে বিবেচনা করতে হবে। আপনি যদি ভিডিও এডিটিং, ফটো এডিটিং বা ওয়েব ডেভেলপমেন্ট এর মতো ভারী কাজ করার উদ্দেশ্যে কম্পিউটার ক্রয় করেন সেক্ষেত্রে ডেস্কটপ ভালো সার্ভিস প্রদান করবে। কেননা ল্যাপটপের তুলনায় ডেস্কটপ বেশি লোড নিতে পারে। ডেস্কটপে আপনি তুলনামূলক বড় ফাইল সংরক্ষণ ও ওপেন করতে পারবেন। কিন্তু ল্যাপটপে ভারী ফাইলে কাজ করতে বেশ সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়।

কিন্তু আপনি যদি পড়াশোনা বা ব্যক্তিগত প্রয়োজনে কম্পিউটার ক্রয় করতে চান তাহলে আপনার জন্য ল্যাপটপ বেস্ট হবে। কেননা পড়াশোনার জন্য আপনাকে প্রায়ই কলেজ বা ভার্সিটিতে কম্পিউটার নিয়ে যেতে হবে। বা পড়াশোনার তাগিদে এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় যাওয়া আসা করতে হবে। এক্ষেত্রে আপনি খুব সহজেই ল্যাপটপ নিজের সাথে বহন করতে পারবেন। কিন্তু ডেস্কটপ ব্যবহার করলে তাতে শুধুমাত্র ঘরে বসেই কাজ করতে পারবেন।

সুতরাং ভারী কাজ বা প্রফেশনাল ভাবে কোনো কাজের জন্য কম্পিউটার কিনলে সেক্ষেত্রে ডেস্কটপ সব থেকে ভালো। অন্যদিকে বিনোদন, পড়াশোনা বা ব্যক্তিগত প্রয়োজনে কম্পিউটার ক্রয় করলে ল্যাপটপ উপযুক্ত হবে। তবে এখন বিভিন্ন ভালো ব্রান্ডের হাই বাজেটের ল্যাপটপ ব্যবহার করে সব ধরনের ভারী কাজগুলো করা যায়৷ সুতরাং ব্যক্তিগত ইচ্ছা, পছন্দ ও প্রয়োজনের ওপর ভিত্তি করে আপনি ল্যাপটপ বা ডেস্কটপ যে কোনো একটি বাছাই করে নিতে পারেন।

২. আপনার লাইফস্টাইল

লাইফস্টাইল অনুযায়ী কম্পিউটার ক্রয়

আগে চিন্তা করুন আপনার লাইফস্টাইল কি স্থির নাকি প্রচুর গতিশীল। অর্থাৎ আপনি যদি প্রতিনিয়ত এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় ট্রাভেল করেন তাহলে ডেস্কটপ আপনার জন্য না। কেননা ডেস্কটপ আপনার বাড়িতে, কিংবা অফিসে অথবা যে কোনো জায়গায় পারমানেন্ট ভাবে সেট করে রাখতে হবে। কিন্তু যারা পড়াশোনা, ব্যবসা কিংবা চাকরির ক্ষেত্রে এদিক সেদিক দৌড়াদৌড়ি করেন তারা নির্দিষ্ট জায়গায় থেকে কাজ করতে পারবে না৷ এই ধরনের গতিশীল লাইফস্টাইল হলে আপনার জন্য ল্যাপটপ উপযুক্ত।

অন্যদিকে আপনার যদি বাড়িতে বা অফিসে বসে একটানা নিয়মিত কাজ করার প্রয়োজন থাকে তবে অবশ্যই ডেস্কটপ কিনবেন। যারা ফ্রিল্যান্সিং এর জন্য কম্পিউটার ক্রয় করতে চান তাদের জন্যও ডেস্কটপ উপযুক্ত। কেননা ফ্রিল্যান্সার রা সারাদিন রাত নিজের ঘরে বসেই কাজ করে থাকে৷ আর ফ্রিল্যান্সিং এর প্রায় বেশিরভাগ কাজেই মোটামুটি বড় বড় ফাইল ওপেন করে কাজ করতে হয়। তাই নিজের প্রয়োজন ও দৈনন্দিন জীবনের অবস্থানের কথা বিবেচনা করে আপনাকে যে কোনো একটা বেছে নিতে হবে।

৩. আপনার বাজেট

বাজেট

ল্যাপটপ এর থেকে তুলনামূলক কম বাজেটে আপনি ডেস্কটপ কিনতে পারবেন৷ অর্থাৎ ডেস্কটপ এর বাজার মূল্য ল্যাপটপ এর তুলনায় কিছুটা কম। তাই আপনার বাজেট সীমিত থাকলে ল্যাপটপ এর দিকে না আগানোই ভালো। আপনি যে দামে মোটামুটি মানের একটি ল্যাপটপ কিনবে ঠিক একই দামে ল্যাপটপ এর থেকে অনেক বেশি কনফিগারেশন এর ডেস্কটপ কিনতে পারবেন৷ সুতরাং কম বাজেটে ভালো কিছু চাইলে সেক্ষেত্রে ডেস্কটপ সঠিক চয়েজ।

তবে আপনার বাজেট বেশি থাকলে এবং ল্যাপটপ-ই প্রয়োজন হলে সেক্ষেত্রে আলাদা বিষয়। ভালো বাজেটে ল্যাপটপ না কিনলে আপনি এর সাহায্যে কোনো কাজ-ই শান্তিতে করতে পারবেন না। এখন বাজারে সেকেন্ড হ্যান্ড ল্যাপটপ খুবই কম মূল্যে বিক্রি করা হয়৷ আর এই প্রলোভনে পড়ে আমরা একটু কম বাজেটে ল্যাপটপ কেনার সিদ্ধান্ত নেই। কিন্তু এই ডিভাইস দিয়ে আপনি সাধারণ মানের কোনো কাজ-ই স্মুথ ভাবে করতে পারবেন না৷

সুতরাং বাজেট কম হলে আপনি ডেস্কটপ কিনুন। এতে অন্তত আপনার টাকা গুলো বিফলে যাবে না। কিন্তু আপনার প্রয়োজনের তাগিদে যদি একান্তই ল্যাপটপ কিনতে হয় তবে আপনাকে মোটামুটি একটা স্মার্ট বাজেট রাখতে হবে। কিন্তু মনে রাখবেন ল্যাপটপ কেনার জন্য আপনি যত বেশি বাজেট-ই রাখুন না কেন, ঠিক ঐ বাজেটে আপনি তুলনামূলক বেশি কনফিগারেশন এর ডেস্কটপ পাবেন।

৪. আপগ্রেড করার ক্ষমতা

আপগ্রেড করার ক্ষমতা

আপনি চাইলেই ডেস্কটপ কম্পিউটার এর যে কোনো পার্টস পরিবর্তন করতে পারবেন। তাছাড়া ইন্টারনাল স্পেস বাড়াতে পারবেন৷ অনেক সময় ভিডিও এডিটিং কিংবা ফটো এডিটিং এর জন্য কিছুটা বড় মনিটর প্রয়োজন হয়। আপনি চাইলে আলাদাভাবে আপনার ডেস্কটপ এর মনিটর পরিবর্তন করে নিতে পারবেন৷ তাছাড়া Ram, মাদারবোর্ড, সিপিইউ সহ যে কোনো পার্টস আলাদা আলাদা ভাবে প্রয়োজন অনুযায়ী পরিবর্তন করতে পারবেন৷

অন্যদিকে ল্যাপটপের সকল পার্টস মোবাইল এর মতো একসাথে জুড়ে দেয়া। তাই আপনি চাইলেই খুব সহজে যে কোনো পার্টস পরিবর্তন করতে পারবেন না। করলেও আপনাকে সার্ভিসিং সেন্টারে নিয়ে যেতে হবে। তাছাড়া স্টোরেজ বৃদ্ধির জন্য ল্যাপটপে শুধু আপনি Ram আপগ্রেড করতে পারবেন। এক কথায় ধীরে ধীরে ল্যাপটপের কার্যক্ষমতা স্লো হয়ে গেলেও এর সমাধান করার অপশন খুবই সীমিত।

সুতরাং যদি এমন হয় যে ল্যাপটপ ছাড়াও চলবে, তাহলে ডেস্কটপ কেনাই ভালো হবে। এতে আপনি একটা লং লাস্টিং সার্ভিস এর নিশ্চয়তা পাচ্ছেন তা-ও আবার তুলনামূলক কম দামে।

৫. আপনার টেকনিক্যাল দক্ষতা

টেকনিক্যাল দক্ষতা

ডেস্কটপ ব্যবহারকারীদের মোটামুটি ভালোই টেকনিক্যাল নলেজ থাকতে হয়। কেননা ডেস্কটপ এট সবগুলো পার্টস আলাদা আলাদা থাকে। তাই নতুন ডেস্কটপ সেটআপ কিংবা কোনো পার্টস পরিবর্তন করার কাজগুলো নিজেকেই করতে হয়। মোটামুটি টেকনিক্যাল দক্ষতা না থাকলে এই টুকিটাকি কাজগুলো আপনাকে টাকা দিয়ে করাতে হবে।

অন্যদিকে ল্যাপটপ এর কোনো সেটআপ ঝামেলা নেই। যে কেউ চাইলে একটি নতুন ল্যাপটপ আনবক্স করে পাওয়ার অন করে ব্যবহার করতে পারবে। তাছাড়া ল্যাপটপ এর কিবোর্ড ও মাউস অ্যাডজাস্ট থাকে বিধায় এর মাধ্যমে কাজ করা সহজ৷ এখন তো আবার টাচস্ক্রীন মনিটর সংযুক্ত ল্যাপটপ বাজারে এসেছে। যার মাধ্যমে যে কোনো কাজ খুব দ্রুত ও সহজ উপায়ে করা যায়।

সুতরাং আপনি যদি কোনো প্রকার ঝামেলা ছাড়াই কম্পিউটার এর সকল সুযোগ সুবিধা পেতে চান তাহলে ল্যাপটপ বেস্ট অপশন। অন্যদিকে আপনার যদি মোটামুটি টেকনিক্যাল দক্ষতা থাকে ও কম্পিউটার এর যাবতীয় বিষয় সম্পর্কে ভালো ধারণা থাকে তবে ডেস্কটপ নিতে পারেন।

শেষকথা

আসলে ল্যাপটপ ভালো না ডেস্কটপ ভালো তা Specific ভাবে বলা মুশকিল। প্রয়োজনের তাগিদে একেক জনের কাছে একেক ডিভাইস গুরুত্বপূর্ণ। এখন আপনার কাজের ধরন, আপনার বাজেট, আপনার প্রয়োজন অনুযায়ী কোনটা ভালো হবে তা নিশ্চয়ই এতক্ষণে বুঝতে পেরেছেন৷ আপনার প্রয়োজন অনুযায়ী যে কোনো একটি ডিভাইস সংগ্রহ করুন যে কোনো ব্রান্ড শো-রুম থেকে৷ তবে ডেস্কটপ হোক কিংবা ল্যাপটপ, একদম লো বাজেটে ক্রয় করলে কোনোটিই খুব ভালো সার্ভিস দিতে পারবে না।

মোটামুটি একটা স্মার্ট বাজেটে কম্পিউটার ক্রয় করুন, যাতে লং টাইম একই ডিভাইস ব্যবহার করে কাজ করতে পারেন। আশাকরি আজকের টিউনটি আপনার জন্য গুরুত্বপূর্ণ ছিল। টিউনটি ভালো লাগলে একটি জোসস করে দিবেন প্লিজ। কোনো কিছু জানার থাকলে অবশ্যই টিউনমেন্ট করবেন৷ ধন্যবাদ।

Level 6

আমি শারমিন আক্তার। শিক্ষার্থী, ন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি, গাজীপুর। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 8 মাস 3 সপ্তাহ যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 98 টি টিউন ও 29 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 6 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 1 টিউনারকে ফলো করি।


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস