ডীপ ওয়েব ও ডার্ক ওয়েব এর অভ্যন্তরে – জানুন ইন্টারনেট এর কালো ও অজানা জগত সম্পর্কে

আসসালামু আলাইকুম ওয়া রহমাতুল্লাহি  ওয়া বারাকাতুহু।

আমরা গুগল এ যখন কোন কিছু লিখে অনুসন্ধান করি; তখন আমাদের সামনে কতরকম এর তথ্য এসে হাজির হয়; এর পরিমান হাজার হাজর, কখনও লাখ লাখ। আমরা অবাক হয়ে ইন্টারনেটে কত তথ্য! এত তথ্য আমাদের জন্য অনেক। কিন্তু আমরা অবাক হব এই জন্য যে; ইন্টারনেটে দৃশ্যমান এইসব কনটেন্ট এবং তথ্য এর অংশকে বলা হয় সারফেস ওয়েব। আর সারফেস ওয়েব হল ইন্টারনেটের মোট তথ্যের প্রায় ১০% মাত্র। বাকি ৯০% থেকে যায় গুগল এর অজানা, মানুষের অজানা।
সাধারনত ইন্টারনেট ৯০% এই লুকায়িত অংশ দুটি ভাগে বিভক্ত।

  • ১. ডীপ ওয়েব (Deep)
  • ২.ডার্ক ওয়েব (Dark)

ডীপ ওয়েব :

বলতে গেলে এটি অনেকাংশে সারফেস ওয়েব এর সাথে যুক্ত। ধরুন আপনি জেএসসি পরীক্ষার রেজাল্ট নেয়ার জন্য; বোর্ডের ওয়েবসাইটে গেলেন, এখানে বোর্ডের ওয়েবসাইটে সকল ছাত্র ছাত্রীর রেজাল্ট রয়েছে ঠিকই; তবে তা রয়েছে লুকায়িত অবস্হায়। কেবল একজন এর রোল বা রেজিস্ট্রেশন নম্বর দিলে; তার রেজাল্ট বের হয়ে আসছে। এখানে যে রেজাল্ট গুলো লুকায়িত অবস্হায় রয়েছে তা ডীপ ওয়েব এর উদাহরন।
তেমনিভাবে কোন ওয়েবসাইটের সাবস্ক্রিপশন রিপোর্ট, ইউজারদদের রিপোর্ট ইত্যাদি ডীপ ওয়েব এর উদাহরন।

ডার্ক ওয়েব :

সারফেস ওয়েব এবং ডীপ ওয়েব থেকে সম্পূর্ণ ভাবে বিচ্ছিন্ন একটি নেটওয়ার্ক; যা অনেক ভয়ংকর তার নাম হল ডার্ক ওয়েব। সহজ সরল কোন লগিন সাইন আপ সিস্টেমে; এর ভেতর ঢোকা যাবে না। এতে ঢোকার জন্য লাগে সম্পূর্ণ ভিন্ন একটি সফটওয়্যার; আর এখানে কেউ কারও তথ্য জানতে পারে না। কেউ কোন তথ্য চুরি করতেও পারে না। এটি সার্চ ইঞ্জিন থেকে সম্পূর্ণভাবে বিচ্ছিন্ন।

সার্চ ইঞ্জিনগুলো তাদের সার্চ তদারকি করে এক ধরনের ভার্চুয়াল রোবট তথা Crawler দিয়ে। এই Crawler গুলো ওয়েবসাইটের HTML tag দেখে ওয়েবসাইটগুলোকে লিপিবদ্ধ করে।তাছাড়া কিছু কিছু সাইট থেকে সার্চ ইঞ্জিনে লিপিবদ্ধ হওয়ার জন্য রিকোয়েস্ট যায়। এখন যে সমস্ত সাইট এডমিন চান না যে তাদের সাইটটি সার্চ ইঞ্জিন খুঁজে না পাক, তারা Robot Exclusion Protocol ব্যবহার করেন যা Crawler গুলোকে সাইটগুলো খুঁজে পাওয়া বা লিপিবদ্ধ করা থেকে বিরত রাখে। কিছু সাইট আছে ডাইনামিক অর্থাৎ নির্দিষ্ট কিছু শর্ত পূরণ সাপেক্ষে;এই ধরণের সাইটের অস্তিত্ব খুঁজে পাওয়া সম্ভব, আর Crawler এর পক্ষে এই সব করা সম্ভব হয় না।

এসব সাইটে ঢোকার জন্য রয়েছে একটি বিশেষ ব্রাউজার, যার নাম হল Tor। আপনার প্রচলিত ওয়েব ব্রাউজার দিয়ে এই সমস্ত সাইটে ঢুকতে পারবেন না। এরা ইন্টারনেটের সমস্ত প্রথার বাইরে অবস্থান করে, গ্রাহ্য করে না কোন নিয়ম-কানুন। আর এদের ঠিকানাও থাকে এতটাই উদ্ভট (যেমন pdhdydtsghshsjsjs.onion) যে সাধারণ মানুষের পক্ষে এগুলো মনে রাখা ভীষণ কঠিন। এই অংশটিই ইন্টারনেটের প্রকৃত অদৃশ্য অংশ।

বিশেষ কিছু জ্ঞান(যেমন প্রোগ্রামিং, নেটওয়ার্কিং, প্রক্সি) না থাকলে আপনি এই নেটওর্য়াকে প্রবেশ করতে পারবেন না। এই অংশের আরেকটি বিশেষত্ব হল এরা ওর্য়াল্ড ওয়াইড ওয়েবের সাইটগুলোর মত টপ লেভেল ডোমেইন (যেমন .com) ব্যবহার না করে “Pseudo Top Level Domain” ব্যবহার করে যা কিনা মূল ওর্য়াল্ড ওয়াইড ওয়েবে না থেকে দ্বিতীয় আরেকটি নেটওর্য়াকের অধীনে থাকে। এ ধরণের ডোমেইনের ভেতর আছে Bitnet, Onion, Freenet ইত্যাদি।
ডার্ক ওয়েবে কম দামে মাদক থেকে শুরু করে, অস্ত্র, বোমা সব কিছুর অর্ডার দেয়া যাবে। এখন আবার এসব সাইটে বোমা গোলা বারুদ তৈরির প্রশিক্ষনও দেয়া হয়। ডার্ক ওয়েবে খুবই সহজে পৃথিবীর বিভিন্ন স্হানে;মানুষকে খুনের অর্ডারও দেয়া হয়। আর ডার্ক ওয়েবে যে টাকা চলে তার নাম হল বিটকয়েন।

এরকম একটি জনপ্রিয় ডার্ক ওয়েব এর নাম হল অনিয়ন নেটওয়ার্ক। এটি মূলত নৌবাহিনীর জন্য তৈরি করা হলেও; আজ এটি সারফেস ওয়েবে আলোচিত অন্যতম জনপ্রিয় একটি ডীপ ওয়েব।

আশা করি সবার টিউনটি ভালো লেগেছে। ইনশাআল্লাহ্‌ ভবিষ্যতে আরও ভালো টিউন উপহার দিতে পারব।সবার দোয়া কাম্য রইল।

Level 12

আমি Durbar। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 7 বছর 4 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 326 টি টিউন ও 88 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 22 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 1 টিউনারকে ফলো করি।

ভালোবাসি প্রযুক্তি নিয়ে লিখতে, ভালবাসি প্রযুক্তি নিয়ে ভাবতে।


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস