কম্পিউটার অত্যধিক গরম হয়ে যাওয়ার কারন ও ফলাফল। উদ্বিগ্ন হওয়ার মতো সত্যিই কি কিছু আছে?

————————–— بِسْمِ اللَّهِ الرَّحْمَٰنِ الرَّحِيمِ ————————–—

সুপ্রিয় টেকটিউনস কমিউনিটি, সবাইকে আমার আন্তরিক সালাম এবং শুভেচ্ছা জানিয়ে শুরু করছি কম্পিউটার অত্যধিক গরম হয়ে যাওয়ার কারন, এর জন্য দায়ী যন্ত্রাংশ এবং কম্পিউটারের উপর অত্যধিক তাপের প্রভাব সম্পর্কিত আমার আজকের টিউন।

 ➡ কম্পিউটার গরম হয়ে যাওয়া বর্তমানে কম্পিউটার ব্যবহারকারীদের কাছে চরম উদ্বেগের কারন হয়ে দাড়িয়েছে। বিশেষ করে যারা ল্যাপটপ কম্পিউটার ব্যবহার করেন তাদের কাছে কম্পিউটার গরম হলে নিজের শরীরে জ্বর আসার মতো অনুভুতি সৃষ্টি হয়। কম্পিউটারকে আমরা অনেক বেশি ভালোবাসি বলেই হয়তো এরকম হয়। এখন প্রশ্ন হলো কম্পিউটার গরম হলে আমরা যতোটা উদ্বিগ্ন হই আসলেই কি কম্পিউটার গরম হওয়া ততোটা উদ্বেগের কারন? আজ আমরা জানবো কম্পিউটার কেন অত্যধিক গরম হয়, কম্পিউটারের কোন ধরনের প্রোগ্রাম এই তাপমাত্রা সৃষ্টির জন্য দায়ী, কোন যন্ত্রাংশগুলো তাপমাত্রা উৎপন্ন করে, কম্পিউটারের উচ্চ তাপমাত্রার ফলাফল এবং উচ্চ তাপমাত্রা সর্বোপরি কম্পিউটারের পারফরমেন্স এর উপর কতোটুকু প্রভাব ফেলে। সম্পূর্ণ টিউন শেষে আপনি কম্পিউটার কুলিং সিস্টেম এবং উচ্চ তাপমাত্রায় করণীয় বিষয়েও কিছুটা ধারনা পাবেন। তাছাড়া সম্পূর্ণ টিউনের উপর ছোট্ট একটি কুইজ তো থাকছেই।

কম্পিউটারের কোন যন্ত্রাংশগুলো অতিরিক্ত তাপ উৎপন্ন করে?

সাধারনত অনেকগুলো বৈদ্যুতিক সার্কিটের মধ্যে তড়িৎ চুম্বকীয় প্রবাহের কারনে এবং এর অভ্যন্তরিন রোধের কারনে তাপ নির্গত হয়। তারমানে কম্পিউটারের পাওয়ার সিস্টেম তার তাপমাত্রা সৃষ্টির জন্য দায়ী। কম্পিউটারের LED (আলোক নিঃসরণকারী ডায়োড) থেকে শুরু করে প্রায় প্রত্যেক যন্ত্রাংশ কমবেশি তাপ উৎপন্ন করে। কিন্তু সবগুলো যন্ত্রাংশের উৎপন্ন তাপ সামগ্রিম সিস্টেমের উপর একই রকম প্রভাব ফেলে না। আসলে যে যন্ত্র যতো জটিল কাজ করে সেই যন্ত্র ততো বেশি তাপ উৎপন্ন করে। এখন যদি প্রশ্ন করি, কম্পিউটারের কোন যন্ত্রাংশ সবচেয়ে বেশি তাপ উৎপন্ন করে? প্রশ্নের উত্তরে হাত তুলে অনুমতি না নিয়েই ঝটপট বলে দিতে পারবেন কম্পিউটারের কোর - সেন্ট্রাল প্রসেসিং ইউনিট (সিপিইউ) এবং গ্রাফিক্স প্রসেসিং ইউনিট (জিপিইউ) সবচেয়ে বেশি তাপ উৎপন্ন করে। কারন এই যন্ত্রাংশগুলোই মূলত কম্পিউটারে সব ধরনের জটিল কাজ নিয়ন্ত্রন করে থাকে।

কম্পিউটারের যাবতীয় এলগরিদম ঠিকভাবে চালনার জন্য সিপিইউ অনবরত কাজ করে থাকে। এরফলে সিপিইউ থেকে প্রচুর তাপ নির্গত হয়। ইমেজ প্রসেসিং, গেইম কিংবা ৩-ডাইমেনশনাল ভিউ এর জন্য গ্রাফিক্স প্রসেসিং ইউনিট যখন কাজ করে তখনো প্রচুর তাপ নির্গত হয়। যদিও কম্পিউটারের অধিকাংশ তাপ সিপিইউ এবং জিপিইউ থেকে উৎপন্ন হয় তথাপি কম্পিউটারের হার্ড ড্রাইভ, সিডি/ডিভিডি রোম থেকেও তাপ নির্গত হয় বিশেষ করে যখন কোন বড় ফাইল কপি করা হয়। তবে আপনার কক্ষ তাপমাত্রাকেও এক্ষেত্রে অবজ্ঞা করার কিছু নেই। কক্ষ তাপমাত্রা যদি ২৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস (৮০ ডিগ্রি ফারেনহাইট) এর চাইতে বেশি হয় তাহলে কম্পিউটার থেকে অস্বাভাবিক তাপ নির্গত হয়। কারন কক্ষ তাপমাত্রার সাথে সবকিছুর তাপমাত্রা সমান থাকে।

উচ্চ তাপমাত্রা কম্পিউটারের সামগ্রিক পারফরমেন্স এর উপর কী প্রভাব ফেলে?

কম্পিউটার যদি অত্যধিক গরম হয়ে যায় তখন কম্পিউটারের নিজস্ব কুলিং সিস্টেমের কারনে সিপিইউ, মেমোরি ব্যাংক এবং মাদারবোর্ড সংশ্লিষ্ট যন্ত্রাংশগুলো তাপমাত্রা কমানোর জন্য ধীর গতিতে কাজ করে। কম্পিউটারের ক্ষয়ক্ষতি কমানোর জন্য অনেক সময় সিস্টেম নিজে নিজেই বন্ধ হয়ে যায়। অনেক ক্ষেত্রে নতুন ফ্যান লাগানোর আগে পর্যন্ত কম্পিউটার চালানোর উপযুক্ত থাকে না। তাছাড়া অত্যাধিক তাপমাত্রা বৃদ্ধি পেলে সিপিইউ ওভার ক্লকিং হয়। যার মানে হলো সিপিইউ তার ম্যানুফ্যাকচারার কর্তৃক প্রদত্ত ক্ষমতার চাইতেও অধিক দ্রুতগতিতে কাজ করতে চায়। এক্ষেত্রে সিপিইউ স্থায়ীভাবে বিকল হয়ে যেতে পারে।

আমরা মনে করি কম্পিউটারের বয়স বেশি হলে ধীরগতির হয়ে যায়। আসল কথা হলো সময়ের সাথে কম্পিউটারের কাজের ক্যালকুলেশনে ছোটখাটো ত্রুটি দেখা দেওয়া শুরু করে। ফলে সিপিইউ যখন এগুলো সংশোধন করতে যায় তখন এর উপর অনেক বেশি চাপ সৃষ্টি হয় এবং কম্পিউটার গরম হয়ে যায়। আর সিপিইউ গরম হলে এর নিজস্ব কুলিং সিস্টেম যন্ত্রাংশগুলোকে ধীরগতির করে উচ্চ তাপ কমাতে চেষ্টা করে। তাছাড়া দীর্ঘদিন ব্যবহারে কম্পিউটারের ভেতরে যদি অনেক বেশি ময়লা জমা হয় তাহলেও ওভার হিটিং এর কারনে কম্পিউটার ধীরগতির হয়ে যায়।

উচ্চতাপ কীভাবে কম্পিউটারের হার্ড ড্রাইভের উপর প্রভাব ফেলে?

যেহেতু হার্ড ড্রাইভ কম্পিউটারের সিপিইউ কিংবা জিপিইউ এর মতো বিদ্যুৎ ব্যবহার করে না সেহেতু হার্ড ড্রাইভ খুব বেশি পরিমাণে তাপ উৎপন্ন করে না। কিন্তু সমস্যা হলো হার্ড ড্রাইভ তাপ উৎপন্ন না করলেও এটি তাপমাত্রার প্রতি অনেক বেশি সংবেদনশীল। সামান্য তাপমাত্রার পরিবর্তনও হার্ড ডিস্ক এর উপর খারাপ প্রভাব ফেলতে পারে। আপনি যদি হার্ডডিস্ককে কক্ষ তাপমাত্রার চাইতে মাত্র ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস বেশি তাপমাত্রায় ব্যবহার করেন তাহলে এটা তার জন্য নির্ধারিত জীবনকালের দুই বছর আগেই বিকল হয়ে যাবে। প্রশ্ন হতে পারে কেন এমনটা হয়? এই প্রশ্নের উত্তর জানার জন্য আপনাকে পদার্থবিদ্যার সামান্য সাহায্য নিতে হবে। তবে পদার্থবিদ্যার এই জ্ঞানটুকু আপনার প্রাইমারী স্কুলে পড়ার সময়েই হয়েছে আশা করছি।

আমরা জানি তাপে বস্তু প্রসারিত হয় এবং ঠান্ডায় বস্তু সংকোচিত হয়। সেই কারনেই বিদ্যুতিক তারগুলোকে ঢিলা এবং রেললাইনের মাঝে ফাঁক রাখা হয়। যাহোক, আমরা জানি হার্ডডিস্কের মধ্যে মেটাল ডিস্ক রয়েছে যেগুলোতে ডাটা সঞ্চিত থাকে। তাপমাত্রা বৃদ্ধি পেলে ডিস্ক প্যালেটগুলো সামান্য প্রসারিত হয় ফলে সেখান থেকে ডাটা রিড করতে ঝামেলা হয়। ৩ বছরের বেশি পুরাতন হার্ড ড্রাইভগুলোতে এই সমস্যাগুলো খুব বেশি পরিমাণে হয়। কারন তখন তাপমাত্রা অল্পতেই অনেক বেড়ে যায়। বেশি তাপে কম্পিউটার চালাতে হার্ডডিস্ক স্থায়ীভাবে বিকল হয়ে যেতে পারে। সুতরাং সময় থাকতেই সাবধান।

কম্পিউটার কীভাবে উচ্চ তাপমাত্রার সাথে সমন্বয় করে চলে?

কম্পিউটারের তাপমাত্রা সব সময় স্বাভাবিক রাখার জন্য এর নিজস্ব কুলিং সিস্টেম রয়েছে। যে সমস্ত যন্ত্রাংশ অনেক বেশি তাপ উৎপন্ন করে (যেমন সিপিইউ কিংবা জিপিইউ) এদের প্রত্যেকের সাথে কুলিং ফ্যান সংযুক্ত আছে। এই ফ্যানগুলো মূলত অনেকটা ভেন্টিলেশনের কাজ করে। কম্পিউটারের তাপ উৎপাদি যন্ত্রাংশগুলো থেকে উৎপন্ন তাপমাত্রা ফ্যানগুলো বায়রে রিলিজ করে দেয়। তাছাড়া কম্পিউটারের কেসগুলোও এমনভাবে ডিজাইন করা হয় যেন এগুলো খুব দ্রুত তাপ রিলিজ করতে পারে। যদি আপনার কম্পিউটার বায়রের কোন ধুলা ময়লা দ্বারা আক্রান্ত না হয় তাহলে কম্পিউটারের নিজস্ব কুলিং সিস্টেম কম্পিউটারের স্বাভাবিক তাপমাত্রায় বজায় রাখতে সক্ষম।

যে সব কম্পিউটারে অনেক জটিল কাজ করা হয় সেখানে ফ্যানের পরিমান একটু বেশিই থাকে। উদাহরণ হিসাবে বলা যায় গেইমিং কম্পিউটার। তাছাড়া কম্পিউটারের কুলিং ফ্যানগুলো কিন্তু সব সময় একই স্পিডে ঘোরে না। যখন কাজের চাপ বেশি হয় তখন ফ্যানের গতিও বেশি হয় সিস্টেমকে ঠান্ডা রাখার জন্য। তবে কম্পিউটারের ফাইল শেয়ারিং, ডাটা কপি করতে কম্পিউটারকে তুলনামূলক একটু বেশি কাজ করতে হয়। সুতরাং এই কাজগুলো পিসি ঠান্ডা রেখে করবেন আশা করি।

টিউনটি যদি মনযোগ সহকারে পড়ে থাকেন তাহলে নিচের প্রশ্নগুলোর উত্তর দিন

  • কতো তাপমাত্রার নিচে কম্পিউটার চালানো এর যন্ত্রাংশগুলোর জন্য নিরাপদ?
  • উচ্চ তাপমাত্রায় কম্পিউটার চালালে এর হার্ড ডিস্কের জীবন কালের কী ধরনের পরিবর্তন হয়।

প্রশ্নগুলোর উত্তর যদি আপনি টিউনটি থেকে পেয়ে থাকেন তাহলে ঝটপট লিখে ফেলুন টিউনের টিউমেন্ট সেকশনে। উত্তরদাতাদের মধ্যে একজনকে বিজয়ী ঘোষণা করে তার নাম প্রকাশ করা হবে আমার আগামী টিউনে। আমার গত টিউনটি ছিলো আধুনিক প্রযুক্তির অন্যতম চালিকাশক্তি ব্যাটারীর ইতিকথা, কার্যপ্রণালী এবং নষ্ট হয়ে যাওয়ার কারণ সমূহ! নিয়ে। এই টিউনের শেষে সংযুক্ত করা হয়েছিলো ৫টি প্রশ্ন। আর সেই প্রশ্নগুলোর সঠিক উত্তর দিয়ে বিজয়ী হয়েছেন টিউনার কাফি হাসান। কাফি ভাইকে অনেক অনেক অভিনন্দন। উত্তর দেওয়ার সময় মনে রাখবেন, বেশি লিখে ভুল করার চাইতে সঠিক বিষয় কম লেখাও অনেক গুরুত্বপূর্ণ।

শেষ কথা

টিউনটি যদি আপনাদের ভালো লেগে থাকে অথবা বুঝতে যদি কোন রকম সমস্যা হয় তাহলে আমাকে টিউমেন্টের মাধ্যমে জানাতে ভুলবেন না। কারন আপনাদের যেকোন মতামত আমাকে সংশোধিত হতে এবং আরো ভালো মানের টিউন করতে উৎসাহিত করবে। আর টিউনটিকে মৌলিক মনে হলে এবং নির্বাচিত টিউন হওয়ার উপযুক্ত মনে হলে নির্বাচিত টিউন মনোনয়ন দিতে ভুলে যাবে না যেন। সর্বশেষ যে কথাটি বলবো, আসুন আমরা কপি পেস্ট করা বর্জন করি এবং অপরকেও কপি পেস্ট টিউন করতে নিরুৎসাহিত করি। সবার সর্বাঙ্গিন মঙ্গল কামনা করে আজ এখানেই শেষ করছি। দেখা হবে আগামী টিউনে।

আপনাদের জন্য » সানিম মাহবীর ফাহাদ

➡ ইমেইলে আমার সকল টিউনের আপডেট পেতে সাবস্ক্রাইব করুনঃ টেকটিউনস » সানিম মাহবীর ফাহাদ 🙄

FB PageProfileTwitterLinkedInGPlusSubscriptionMail

Level 7

আমি সানিম মাহবীর ফাহাদ। সুপ্রিম টিউনার, টেকটিউনস বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 8 বছর 4 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 172 টি টিউন ও 3500 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 137 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 0 টিউনারকে ফলো করি।

অন্য আর দশটা মানুষের মতোই একদিন এই পৃথিবীতে আসছিলাম। তারপর থেকে নিজের মতো করেই নিজের পৃথিবীতে বেঁচে আছি। এরপর একদিন টুপ করে জীবন্ত পৃথিবী থেকে ঝরে পড়বো। জীবনতো এটাই, তাই না?


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস

সানিম মাহবীর ফাহাদ: ভাই অনেক কিছু জানতে পারলাম , আপনাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ।

    টিউনটি পড়ার পর কষ্ট করে টিউমেন্ট করার জন্য আপনাকেও ধন্যবাদ আল আমিন ভাই।

১।২৭ ডিগ্রি (৮০ ডিগ্রি ফারেনহাইট) তাপমাত্রার নিচে কম্পিউটার চালানো এর যন্ত্রাংশগুলোর জন্য নিরাপদ।
২।তাপমাত্রা বৃদ্ধি পেলে ডিস্ক
প্যালেটগুলো সামান্য প্রসারিত হয় ফলে সেখান থেকে ডাটা রিড করতে
ঝামেলা হয়।এছাড়াও হার্ডডিস্ক
স্থায়ীভাবে বিকল হয়ে যেতে পারে।
অসংখ্য ধন্যবাদ ভাই। অনেকদিন পর আবার আপনার টিউন পেলাম।।রেগুলার চাই

    সবগুলো সঠিক উত্তরের জন্য ধন্যবাদ কাফি ভাই। ঈদ উপলক্ষ্যে কিছুদিন ব্যস্ত থাকায় টিউন করার সময় পাইনি। এখন নিয়মিত টিউন পাবেন ইনশাল্লাহ।

উত্তরঃ
১। কক্ষ তাপমাত্রা বা ২৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস (৮০ ডিগ্রি ফারেনহাইট)
২। হার্ড ডিস্কের জীবন কাল হ্রাস পায়
অসংখ্য ধন্যবাদ সুন্দর টিউন এর জন্য

    উত্তর সঠিক হয়েছে। ধন্যবাদ লাতিফুর রহমান ভাই। টেকটিউনসের পাশেই থাকবেন আশা করি।

গরম হলে কি করা উচিত তা তো বললেন না।

    বায়ু চলাচলের পর্যাপ্ত সুযোগ থাকলে স্বাধারনত কম্পিউটার গরম হয় না। সুতরাং কম্পিউটারের ভেতরে পরিচ্ছন্ন রাখবেন।

ভাই,হার্ডডিস্ক তো একটা নির্দিষ্ট সময় পর বাদ হয়ে যাবে।তাহলে হার্ডডিস্ক এর মধ্যে যে ফাইল্গুলা আছে সেগুলা ও তো নষ্ট হয়ে যাবে।পুরো হার্ডডিস্ক এর ব্যাকআপ নেওয়ার কোনো ব্যাবস্থা নাই?থাকলে কি করে নিতে পারি একটু জানাবেন প্লিজ

ভাই অনেক অজানা বিষয় জানার জন্য ধন্যবাদ। একটু সাহায্য চাই তা হলো উইডোস ৭, অফিস 2016 এক্টিভেটর করতে পারছি না একটা একটি ভিটর পেয়েছি কিন্তু কোন কাজ হচ্ছে না। সাহায্য করলে কৃতজ্ঞ হবো। ধন্যবাদ

    মাইক্রোসফট অফিস একটিভেশনের জন্য অভিষেক হাজরা ভাইয়ের টিউন দেখুন। নাহলে আমার উইন্ডোজ ১০ এর ডাউনলোড সম্পর্কিত টিউনে যে একটিভেটর দিয়েছি সেটা ব্যবহার করুন। ধন্যবাদ।

অামার পিসিটা যে ভাল সেটা জানতাম…..কিন্তু এটা যে এত্তগুলা ভাল তা টিউনটা শেষ করে বুঝলাম!!

প্রথমদিকে পরিস্কারের ঝামেলা নিজ দায়িত্বেই বয়ে বেড়াতাম (ময়লা অার অভ্যন্তরীণ গ্রীণ হাউজ ইফেক্টের ভয়ে 😀 )…….ইগনোবেল যদি হাতে অাসতো তাহলেও অবাক হতাম না…..তবে শেষ বছর ২ অার এতে হাত দেবার ইচ্ছাটা বাস্তবায়িত করতে পারিনি……মাঝে মাঝে টেবিলের কাঠেও উত্তাপ টের পাই- ভয়ে থাকি ক্যাঁওম্যাঁও শুরু করে নাকি…… অতিমাত্রায় দয়াপরবশ না হলে যেখানে অন্য কেউ ব্রেকঅাপ করত, সেখানে অামার সাথে সংসারটা নির্ঝঞ্ঝাট টিকিয়ে রাখার জন্য এখন পিসিটার কৃতজ্ঞতার সাগরে হাবুডুবু খাচ্ছি…….কেনু এত ভালুবাসা? 😆

টিউনের জন্য ধইন্যার ক্লাষ্টার বোমা 🙂

    আমার ল্যাপটপটা একটু ঝামেলা শুরু করেছিলো। কিন্তু তারে ব্যবচ্ছেদ করে ঝামেলা মিটিয়ে ফেলেছি। আসলে মাঝে মাঝে একটা ঝাঁড়ু দিতে হয়। নাহলে ভালোবাসায় টানাপোড়েন চলে আসে।

    বরাবরের মতো সুন্দর টিউমেন্টের জন্য ধইন্যা 🙂

আমি একটা কম্পিউটার কিনতে পারি তাই কি ধরনের বাজেট ও মডেলের মদ্ধে ভালো হবে জানালে উপকৃত হতাম!!

    আপনার প্রয়োজন অনুযায়ী বাজেট এবং কনফিগারেশন পছন্দ করতে পারেন। কাজ জানলে কম্পিউটারের কনফিগারেশন মোটামুটি হলেও সেটা দিয়ে চালিয়ে নেওয়া যায়। কি ধরনের কাজ করবেন সেটা না জানলে পরামর্শ দেওয়া যাবে না।

১/২৭ ডিগ্রি সেঃ
২/ তাপমাত্রা বৃদ্ধি পেলে ডিস্ক প্যালেটগুলো সামান্য প্রসারিত হয় যার ফলে সেখান থেকে ডাটা রিড করতে ঝামেলা হয়।
ভাই আমি মাদারবোর্ড ঠাণ্ডা রাখার জন্য আলাদা ৬ভল্ট ডিসি ফ্যান লাগাই সি ।

    সঠিক উত্তরের জন্য ধন্যবাদ। বিজয়ী হলে আপনার নাম ঘোষনা করা হবে আমার পরবর্তি টিউনে।

ফাহাদ ভাই , বহুদিন পর আজ আপনার টিউন দেখলাম ,মনটা ভালো হয়ে গেল। আপনার টিউনে করা প্রশ্নের উত্তর গুলি হলো যথাক্রমে
১। ২৭ ডিগ্রি ( ৮০ ডিগ্রি ফারেনহাইট ) তাপমাত্রার নিচে কম্পিউটার চালানো কম্পিউটারের যন্ত্রাংশগুলোর জন্য নিরাপদ।
২। হার্ডডিস্ককে কক্ষ তাপমাত্রার চাইতে মাত্র ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস বেশি তাপমাত্রায় ব্যবহার করলে এটা তার জন্য নির্ধারিত জীবনকালের দুই বছর আগেই বিকল হয়ে যায় ; কারণ তাপমাত্রা বৃদ্ধি পেলে ডিস্ক প্যালেটগুলো সামান্য প্রসারিত হয় ফলে সেখান থেকে ডাটা রিড করতে ঝামেলা হয় এবং বারম্বার ইহার পুনরাবৃত্তি ফলে হার্ডডিস্ক স্থায়ীভাবে বিকল হয়ে যেতে পারে।

টিউন বিসায়ক কিছু মজার ইনফরমেশন আমরা যেমন আমাদের কম্পিউটার ঠান্ডা রাখার জন্য কুলিং ফান ইউস করি গুগল, ফেইসবুক ,আইবিএম , এই সব বহুজাতিক কোম্পানিগুলি যদি তাদের সার্ভারকে ঠান্ডা রাখার জন্য যদি এসি বা ওই প্রকার কিছু ব্যবহার করত তাহলে সেই যন্ত্রগুলি থেকে নির্গত কার্বন ডাই অক্সাইড প্রচুর পরিবেশ দুষিত করত; তাই ওই সব কোম্পানিগুলি তাদের সিস্টেমকে ঠান্ডা রাখার জন্য ঠান্ডা পরিবেশে স্থাপন করে তাদের সার্ভার যেমন – গুগল, দক্ষিন ফিনল্যাণ্ড এর হামিম এ তাদের ডাটা সেন্টার তৈরী করে এবং ফেইসবুক উত্তর সুইডেনের লুলেকা নামক স্থানে নিজেদের ডেটা সেন্টার স্থাপন করে যেখানের তাপমাত্রা গড়ে ২-৩ ডিগ্রি এর আসেপাশে থাকে।

শেষ করার আগে ফাহাদ ভাই খালি প্রথম একজন বিজয়ী এর নাম দিলে আমি কোনো দিন ফাস্ট হতে পারবনা কারণ আমার সময় অপ্রতুলতা , তাই যদি পারেন তো একটা লাস্ট সেগমেন্ট করবেন আমার জন্য। পারলে প্রথম ১০ জনের নাম দিয়েন। তাহলে আপনার প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার চেষ্টা আরো অনেকেই করবে।

ভালো থাকবেন। প্রত্যুত্তরের জন্য আগাম ধন্যবাদ রইলো।।

    সঠিক উত্তর এবং সম্পূর্ন নতুন বিষয়ে অসাধারন কিছু তথ্য শেয়ার করার জন্য অনেক ধন্যবাদ অভিষেক হাজরা ভাই। আপনার মরামর্শ মনে রাখবো। নেক্সট টিউনে যারা সঠিক উত্তর দিবে সবার নাম প্রকাশ করা হবে। সেই পর্যন্ত টেকটিউনসের সাথেই থাকুন।

ধন্যবাদ ভাইয়া অসাধারণ টিউনটি করার জন্য। অনেক কিছু জানতে পারলাম। এখন টেকটিউনস এ আপনাদের মতো অল্প কিছু টিউনার খাকায় টেকটিউনস বেচে আছে। আপনার আগামী টিউনের আশায় রইলাম!!

    টিউনটি পড়ে ততোধিক সুন্দর টিউমেন্টের জন্য অনেক ধন্যবাদ নিষ্পাপ রাজকুমার! টেকটিউনসের সাথে প্রযুক্তির সুরে মেতে থাকুন সব সময়।

Thanks for sharing!