গেমস জোন [পর্ব-২১৭] :: Spec Ops: The Line (২০১২)

টিউন বিভাগ গেমস
প্রকাশিত

গেমস জোন

গেমিং দুনিয়াতে যে কত লাখ লাখ কোটি কোটি গেমস রয়েছে আর আমরা কতটি খেলছি? আর আমরা তো পাইরেসি করে খেলি! অরিজিনাল কে খেলে বিডিতে? খুবই কম বড় লোকের কিছু পোলাপানরা খেলে হয় তো! ফেসবুকের গ্রুপগুলোতে পার্ট নিতেই এর বেঁচে আছে মনে হয়। যাই হোক, স্পেক অপস সিরিজের ১১তম সংস্করণ দ্যা লাইন নিয়ে লিখতে বসলাম আজ!

“There is a thin red line between hope and darkness” – অফিসিয়াল ট্যাগ লাইন।

১১তম সংস্করণ! একটাও খেলনি আগে! স্পেক অপস: দ্যা লাইন একটি থার্ড পারসন শুটার ভিডিও গেম নির্মাণ করেছে এবং একই সাথে প্রকাশ করেছে ২কে গেমস। গেমটি স্পেক অপস গেমস সিরিজের ১১তম সংস্করণ এবং ২০০২ সালের এয়ারবোন কমান্ডোর পর সিরিজের এই প্রথম মুক্তি পাওয়া গেম।

গেমটিতে তোমাকে ক্যাপ্টেইন মার্টিন ওয়ালকার এর ভূমিকায় খেলতে হবে। যাকে দুবাইতে একটি শ্বাসরুদ্ধকর মিশনে পাঠানো হয়। তার সাথে দেওয়া হয় একটি নতুন ডেল্ট ফোর্সকে। দুবাইতে গিয়ে মৃত আমেরিকান সৈন্য খুঁজে পায় তারা। এরপরই তাদের মিশন পরিবর্তন হয় এবং তা হয় বেঁচে থাকা সৈন্যদের খুঁজে বের করা ।

নির্মাতাঃ

Yager Development (Single Player)

Darkside Game Studios (Multiplayer)

প্রকাশকঃ

২কে গেমস

সিরিজঃ

স্পেক অপস

ইঞ্জিণঃ

আনরিয়েল ইঞ্জিণ ৩

মুক্তি পেয়েছেঃ

জুন, ২০১২

ধরণঃ

থার্ড পারসন শুটার

মিলিটারী

 

খেলার ধরণঃ

সিঙ্গেল এবং মাল্টিপ্লেয়ার

সিস্টেম রিকোয়ারমেন্টসঃ

কমপক্ষেঃ

ডুয়াল কোর প্রসেসর

জির্ফোস ৮৬০০ জিএস কিংবা রাডিয়ন এইচডি ২৬০০ এক্সটি গ্রাফিক্স কার্ড

২ গিগাবাইট র‌্যাম,

উইন্ডোজ এক্সপি (সার্ভিস প্যাক ৩) ৩২ বিট অপারেটিং সিস্টেম,

ডাইরেক্ট এক্স ৯.০সি

অফিসিয়ালঃ

কোর ২ ডুয়ো প্রসেসর,

জির্ফোস জিটি ৩৩০ অথবা রাডিয়ন এইচডি ৬৭২০জি২ গ্রাফিক্স কার্ড ,

২ গিগাবাইট র‌্যাম,

উইন্ডোজ এক্সপি (সার্ভিস প্যাক ৩) ৬৪ বিট অপারেটিং সিস্টেম,

ডাইরেক্ট এক্স ৯.০সি

ভালোভাবে খেলতে হলেঃ

কোর আই ৫ প্রসেসর,

জির্ফোস ৯৮০০ জিটিএক্স কিংবা রাডিয়ন এইচডি ৪৮৫০ গ্রাফিক্স কার্ড ,

৪ গিগাবাইট র‌্যাম,

উইন্ডোজ সেভেন ৬৪ বিট অপারেটিং সিস্টেম,

ডাইরেক্ট এক্স ১০

গেমটি একটি থার্ড পারসন শুটার গেম যেখানে কভার সিস্টেম এবং স্কোর্য়াড বেইসড ট্যাকটিস অনুসরণ করা হয়।  নতুন নতুন অস্ত্র এবং সরঞ্জাম গেমটি খেলতে খেলতে আনলক হবে। তবে কিছু কিছু অস্ত্র শত্রুরাও মরার সময় ড্রপ করে দিবে। এদের মধ্যে রয়েছে রাইফেল, হ্যান্ডগান, মেশিনগান, গ্রেণেড লাঞ্চার এবং হ্যান্ড গ্রেণেড ইত্যাদি।

সিঙ্গেল প্লেয়ার ক্যাম্পেইনে স্কোর্য়াডের উপর তোমার নিয়ন্ত্রণ থাকবে নির্দিষ্ট কোনো টার্গেটকে মারতে এবং আহত স্কোর্য়াড মেমবারকে মেডিক্যাল সাহায্য নির্দেশের উপর।

গেমটি অনেক অদ্ভুত ফিচার যোগ করে দেওয়া হয়েছে। যেমন উচ্চতা ভীতি, ভূতের ভয়, হ্যালুসিনেশন ইত্যাদি! তবে প্লেয়ার চরিত্রটির ভবিষ্যৎ তোমার পছন্দের উপর নির্ভর করবে।

গেমটির সিঙ্গেল প্লেয়ার ক্যাম্পেইন মোডে রয়েছে ১৮টি লেভেল। এছাড়াও প্রায় প্রত্যেকটি লেভেলে গুরুর্ত্বপূর্ণ তথ্য মানে Intel সংগ্রহ করা যাবে। এগুলোর মধ্যেই দুবাইতে আসলে কি ঘটছে তা বিস্তারিত দেওয়া রয়েছে।

কাহিনীচক্রঃ

গেমটির ঘটনার ছয় মাস আগে দুবাইতে একগাদা Dust Storms (রাজনৈতিক অস্থিরতা) সিরিজ বয়ে গেছে। আফগানিস্তান হতে দেশে ফিরে আসার সময় আমেরিকান সৈন্যরা এই ঝড়ে আটকা পড়ে যায়। কিন্তু তারা যখন হেডকোয়াটারে সাহায্যের জন্য বার্তা পাঠায় তখন বুঝা যায় যে পরিস্থিতি স্বাভাবিক নয়।

তবে হেডকোয়াটার থেকে প্রথমেই সাহায্য না পাঠিয়ে সৈন্যদের উক্ত এলাকা ছেড়ে আসতে বলা হয়। এরপর থেকেই তাদের সাথে হেডকোডয়াটারের কোনো যোগাযোগ নেই। এরই মধ্যে দুবাইতে সত্যিকারের বিশাল এবং ভয়ানক বালু ঝড় বয়ে যায়। এতে শহরের স্যাটালাইট সিস্টেম, বিদ্যুৎ এবং নেট সংযোগ, বিমান যোগাযোগ সহ প্রায় সকল আধুনিক ব্যবস্থা স্থবির হয়ে পড়ে। কিন্তু একমাত্র রেডিও সংযোগ একটিভ থাকে। ৩৩তম মার্টালিয়াল ল ঝড়টির গতিবেগ ৮০ মাইল প্রতি ঘন্টায় – রের্কড করে! আমেরিকান সৈন্যদের দল ৩৩তম মার্টালিয়াল ল এর কাছ থেকে সর্বশেষ বার্তা অনুযায়ী তারা একটি ক্যারাভ্যানে হাজার হাজার সিভিলিয়ানদের নিয়ে শহর থেকে বেরিড়ে যাচ্ছিলো। কিন্তু ক্যারাভ্যানটির কোনো খোঁজ পাওয়া না গেলে United Arab emirates দুবাই শহরটিকে মৃত (no man’s land) বলে ঘোষণা করে।

গেমটি শুরু দুই সপ্তাহ আগে একটি রহস্যজনক রেডিও বার্তা হেডকোডয়াটারে আসে : “This is Colonel John Konrad, United States Army. Attempted evacuation of Dubai ended in complete failure. Death toll: too many”

বার্তাটির উপর ভিক্তি করে আমেরিকা সিদ্ধান্ত নেয় যে, তিন সদস্যের Delta Force টিম তারা দুবাইতে পাঠাবে ঘটনার পর্যবেক্ষণ করার জন্য। টিমে ক্যাম্পটেইন ওয়াল্কার, লেফটেনেন্ট এডামস এবং সার্জেন্ট লুগো রয়েছে তাদের উপর নির্দেশ আসে কর্ণেল এর রেডিও বার্তার অবস্থা জানা এবং যেকোনো সুরভাইবরকে বাচাঁনো।

দুবাই।

ডেল্টা টিম সদস্য ওয়াল্কার, এডামস এবং লুগো পায়ে হেঁটে দুবাইয়ের ধ্বংসপ্রাপ্ত মৃত শহরে এসে পৌঁছায়।

সেখানে এসে তারা একদল স্বসস্ত্র গ্রুপের খোঁজ পায়। তারা ওয়াল্কারদের জানায় যে , কিছু আমেরিকান সৈন্যদের তারা বন্দি করে “দ্যা নেষ্ট” হোটেলে রেখেছে। সেখান থেকে তারা বেরিয়ে পড়ে সৈন্যদের বাঁচাতে। দলে আসে একজন স্থানীয় ডিজে, তার কাছে থাকা রেডিওতে ঘন ঘন রেডিও বার্তা আসতে থাকে এবং এই বার্তার উপর ভিক্তি করে তারা এগিয়ে যেতে থাকে।

বাকি কাহিনী জানতে হলে এখনি বসে পড়ো গেমটি খেলার জন্য।

গেমটিতে Ending রয়েছে চারটি। মানে চারটি ভিন্ন ভিন্ন ভাবে গেমটির কাহিনী শেষ হবে।

টাইটেল মেনু
মেইন মেনু
এই শহরেই ঘটে গেছে . .. .
ঝড়ের তান্ডব!
ডর লাগে!
মার মার মার
কই গেলা!
মামা গত গভীর!
কভারের টাইম দিও
কিছু খাইতে আসি নাই!
একবার বাইর হয় তারপর দেখ কি করি!
মিশনগুলো রিপিট করা যাবে
মামা?!
পারফেক্ট!
উরে উরে উরে!
ইরে মা!
দুবাইতে হাই ফাই গাড়ি!

অস্ত্রসমূহঃ

গেমটির অধিকাংশ Abilities অস্ত্রসমূহের উপর নির্ভর করে। কারণ এটি স্কোর্য়াড বেইসড গেম তাই।

Assault Rifles

•         AK-47

•         AKS-74U

•         M4A1

•         TAR-21

•         FAMAS

•         OTS-14

•         SCAR-H

•         417

Submachine Guns

•         UMP 45

•         Micro 9mm

•         P90

•         Vector SMG

•         MP7

Shotguns

•         M1014

•         AA-12

•         W1300

•         Mossberg 590

Light Machine Guns

•         M249 SAW

Handguns

•         M9

•         Desert Eagle

•         .44 Magnum

•         G18

•         P220

•         FNP-45

Sniper Rifles

•         Scout Tactical

•         MSG 90

•         M110

•         M-99

Launchers

•         RPG-7

•         FN MK 13

•         MGL-140

•         M120 Mortar

Heavy Machine Guns

•         Browning M2A2

•         GE M134 Minigun

•         M2E2HMG

Explosives

•         C4

•         Flash Bang

•         Frag Grenade

•         Proximity Mine

Cut weapons

•         Flamethrower

•         AUG

নির্মাণঃ

১৯৯০ সাল থেকে ২০০০ সাল পর্যন্ত স্পেক অপস সিরিজে বেশ কিছু গেম মুক্তি পেলেও তেমন বাজার মাতাতে না পারায় নির্মাতা প্রতিষ্ঠান টেক-টু গেমস সিরিজে তেমন কোনো মনোযোগ দেয় নি। অতপর ২০০৩ সালে শুরু হওয়া একটি অজানা গেমের নির্মাণ কাজ হঠাৎ ২০০৫ সালে বিনা নোটিশে বন্ধ হয়ে যায়।

কিন্তু গেমটির নির্মাণ কাজ গোপনেই চলছিল। ২০০৫ থেকে ২০০৯ সাল পর্যন্ত গোপনে গেমটির নির্মাণ কাজ অনেকাংশে শেষ করে রকস্টার গেমস এর সহযোগী প্রতিষ্ঠান টেক-টু গেমস ডিসেম্বর, ২০০৯ সালে গেমটির এনাউন্সমেন্ট করে। কিছু মিনিটের গেম-প্লে টেইলারও মুক্তি দেওয়া হয় সে মাসে। তখন গেমটির সম্ভাব্য মুক্তির ডেট ২০১১ সালে নির্ধারণ করা হয়। এর কিছু দিনের মধ্যেই গেমটির অফিসিয়াল সাইট চালু করা হয়।

ডাউনলোডঃ

 http://kickass.to/spec-ops-the-line-pc-nosteam-algerion-t6646135.html

জ্ঞাতব্য:

> গেমস জোন শুধুমাত্র বিনোদনের জন্য তৈরি করা হয়েছে। এর উপাদান সমূহের দ্বারা কেউ মনে কষ্ট কিংবা আঘাত পেলে তা ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখার আহ্বান জানাচ্ছি।

> গেমস জোনে ব্যবহৃত বাংলা কভার, ওয়ালপেপারসমূহ সর্ম্পূণ ভাবে লেখকের নিজস্ব সৃস্টি। এর সাথে আসল গেমটির কোনো সর্ম্পক নেই

> গেমস জোন এর সাথে উক্ত গেমসগুলোর কোনো সরাসরি সম্পৃত্ত নেই এবং থাকবে না।

> গেমস জোন এর গেমসগুলোর রিলিজ তারিখ, নির্মাতা, প্রকাশক, মুক্তির তারিখ, সিস্টেম রিকোয়ারমেন্টস এবং চিটকোড  তথ্য গুলো বিভিন্ন ওয়েবসাইট হতে সংগৃহকৃত। লেখক এখানে শুধুমাত্র বাংলায় লিখেছেন।

> ডাউনলোড লিংক এবং এর ফাইলসমূহ সর্ম্পূণ ভাবে অন্য সাইট হতে কপিকৃত। লেখকের সাথে ডাউনলোড লিংক এর কোনো সম্পৃত্ততা নেই।

> সর্বপরি গেমস জোন লেখক গেমওয়ালার ব্যক্তিগত কর্ম মাত্র। এর সাথে এই ব্লগের কোনো সর্ম্পক নেই এবং গেমস জোনের সকল তথ্য (ডাউনলোড লিংক ব্যাতিত) এর জন্য শুধুমাত্র লেখক গেমওয়ালা দায়ী থাকবে।

> গেমস জোন একটি সর্ম্পূণ ফ্রি গেমস রিভিউ এবং প্রিভিউ টিউন। তাই এর যেকোনো উপদান স্বাধীনভাবে “ব্যক্তিগত” উদ্দেশ্যে যে কেউ ব্যবহার করতে পারবে। তবে গেমস জোন কে “করপোরেট” ভাবে কখনোই ব্যবহার করা যাবে না।

> বর্তমানে গেমস জোন  লেখক এর দ্বারা নিচের ব্লগ সমূহে টিউন করা হচ্ছে:

http://www.tunerpage.com

http://www.techtunes.co

http://www.pchelplinebd.com

> গেমস জোন সংক্রান্ত যেকোনো সমস্যা, পরামর্শ, অভিযোগ এবং অন্যান্য যে কোনো বিষয়ের জন্য গেমস জোন এর ফেসুবক পেইজ http://www.facebook.com/games.zone.bd তে যোগাযোগ করুন অথবা সরাসরি লেখক গেমওয়ালার সাথে যোগাযোগ করতে পারেন http://www.facebook.com/talented.fahad

Level 10

আমি ফাহাদ হোসেন। Supreme Top Tuner, Techtunes, Dhaka। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 9 বছর 5 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 661 টি টিউন ও 428 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 121 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 0 টিউনারকে ফলো করি।

যার কেউ নাই তার কম্পিউটার আছে!


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস