৪ টি সহজ উপায়ে ফ্রিল্যান্সিং শুরু করুন

টিউন বিভাগ ফ্রিল্যান্সিং
প্রকাশিত
জোসস করেছেন

আসসালামু আলাইকুম, সবাই কেমন আছেন? আমি আশাবাদী সবাই ভালো আছেন আলহামদুলিল্লাহ। বর্তমান এই সময়ে অনেকেই বেকার, অনেকেই ভাবছেন ফ্রিলান্সিং যাত্রা শুরু করবেন, যারা এরকম রয়েছেন আশাকরি আজকের এই টিউন আপনাদের উপকারে আসবে।

কোন স্কিল ছাড়াই যদি আপনি আপওয়ার্ক অথবা ফাইবার মার্কেটপ্লেসে ফ্রিল্যান্সিং শুরু করতে চান তাহলে আজকের এই টিউন আপনার জন্য। আজকের এই টিউনে আমি যে স্কিল গুলো নিয়ে আলোচনা করব স্কিল এগুলোতে কোন কোর্স করতে হবে না বা তেমন বেশি একটা সময় দিতে হবে না। আপনি যদি এক মাসের মতো সময় দিয়ে ভালো করে রিসার্চ করে একটু ঘাঁটাঘাঁটি করেন তাহলেই এসব নিয়ে আপনি কাজ শুরু করে দিতে পারবেন। আজকের এই টিউনে আমি এমন পাঁচটি স্কিল নিয়ে আলোচনা করব যে স্কিল গুলো দিয়ে আপনি খুব সহজেই ফ্রিল্যান্সিং শুরু করতে পারেন।

১. প্রথম স্কিল: Print Design

আপনি যদি ফাইভারে প্রবেশ করেন তাহলে দেখতে পারবেন এই Print Design কিন্তু গ্রাফিক্স ডিজাইনের মধ্যেই পড়ে। কিন্তু আপনি যদি গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখতে যান তাহলে অনেক সময়ের প্রয়োজন এবং ভালো কোন প্রতিষ্ঠান থেকে আপনাকে কোর্স ও করতে হবে। কিন্তু গ্রাফিক্সের মধ্যে ও কিছু সহজ স্কিল আছে যেখানে আপনাকে তেমন বেশি একটা পরিশ্রম করতে হবে না এবং মোটামুটি সহজের মধ্যেই পড়ে। এসব নিয়ে কাজ করতে আপনার তেমন কোন স্কিলের প্রয়োজন নেই এবং Photoshop এ ও কোন কাজ করতে হবে না। Pfint Design এর পাঁচটি সাব ক্যাটাগরি রয়েছে যেগুলো হলো:
Flyer Design
Brochure Design
Poster Design
Catalog Design
Menu Design

এই পাঁচটি ডিজাইন আপনি ক্যানভা দিয়েও করতে পারবেন। আপনি যদি ইউটিউবে গিয়ে সার্চ করেন এসব ডিজাইন নিয়ে তাহলে ক্যানভা দিয়ে কীভাবে এসব ডিজাইন করবেন তা খুব সহজেই পেয়ে যাবেন। এই সেক্টরে অনেক কম সার্ভিস থেকে থাকে। যেখানে কম সার্ভিস থাকবে এবং কম কম্পিটিশন থাকবে সেখানে আপনার কাজ পাওয়ার চান্স ও বেশি থাকে। আপনাকে সার্চ করতে হবে যে কোন ক্যাটাগরিতে গিগ কম আছে, যেখানে আপনি দেখবেন গিগ কম রয়েছে সেখানে আপনি আপনার গিগ সাবমিট করলে গিগ Approve হওয়া এবং কাজ পাওয়া সহজ হবে।

২. দ্বিতীয় স্কিল: Packaging & Label Design

Packaging & Label Design এ ও কিন্তু গিগ এর সংখ্যা অনেকটাই কম এবং এটার চাহিদা কিন্তু অনেক বেশি। যত ই-কমার্স বিজনেস আছে সেখানে কিন্তু হাজার হাজার লক্ষ লক্ষ প্রোডাক্ট আছে। Packaging & Label Design কিন্তু এখানে অসংখ্য, এখানে কিন্তু সার্ভিস অনেক বেশি এবং সার্ভিসের তুলনায় গিগ এর সংখ্যা অনেক কম। এই সেক্টরে কাজ কিন্তু অনেক বেশি, আপনি যদি ভালো কাজ করেন এবং ভালো গিগ সাবমিট করেন তাহলে এখান থেকে অনেক কাজ পাবেন। এটা করার জন্য ডিজাইন সম্পর্কে একটু ভালো ধারণা থাকতে হবে, কিন্তু আপনি কোন কোর্স না করেও ইউটিউবে ঘাটাঘাটি করে শিখতে পারবেন।

৩. তৃতীয় স্কিল: Resume Writing

এই সেক্টরে যদি আপনি কাজ করেন তাহলে আপনি সহজেই কাজ পেয়ে যাবেন, এই সেক্টরে তুলনা মূলক অন্যান্য সেক্টরের থেকে সার্ভিস কম এবং কম্পিটিশন ও কম এগুলো করার জন্য আপনি সহজেই AI এর হেল্প নিতে পারবেন এবং Chat GPT এর হেল্প নিতে পারবেন। এখানে বর্তমানে ২১ হাজারের মতো সার্ভিস রয়েছে। এখানে সার্ভিস কম থাকলেও কাজের কোন অভাব নাই কাজ কিন্তু অনেকেই করছে টপ রেটেড যারা আছে তারাও কিন্তু এই সেক্টরে কাজ করছে।

৪. চতুর্থ স্কিল: Translation & Transcription

Translation & Transcription দুটিই হলো ভিন্ন ভিন্ন সেক্টর। Translate হলো, আপনাকে কেউ PDF কপি দিতে পারে, PNG দিতে পারে অথবা কোন ছবি দিতে পারে এগুলো আপনি কোন এক নির্দিষ্ট ভাষায় Translate করে দিতে হবে, এটা যদি আপনি ভালো করে সার্ভিস দিতে পারেন তাহলে Long Time এর জন্য বায়ারের কাছে হায়ার হওয়ার চান্স থেকেই যায়। এটা অন্যান্য স্কিল এগুলোর মধ্যে অন্যতম একটি স্কিল। এই তো গেলো Translation। এবার Transcription নিয়েই আলোচনা করি, Transcription হলো বায়ার আপনাকে অডিও অথবা ভিডিও দিতে পারে এখান থেকে শুনে শুনে আপনি লিখে দিবেন। Transcription এর একটি সুবিধা হলো, আপনি অনেক সফটওয়্যার পেয়ে যাবেন যেগুলোতে আপনি কোন অডিও বা ভিডিও Import করলে সেগুলো Text হয়ে আপনার কাছে চলে আসবে। আপনি যদি কোন সফটওয়্যার এর মাধ্যমে Transcription করে থাকেন তাহলে সেগুলো সাথে সাথে বায়ারের কাছে না দিয়ে আপনি একটু ভালো করে চেক করে নিবেন, চেক করে তারপর আপনি বায়ারের কাছে সাবমিট করবেন।

আজকের এই টিউনে আমি যে স্কিল গুলো নিয়ে আলোচনা করেছি এগুলো কিন্তু Upwork এ ও রয়েছে, কিন্তু আপওয়ার্কে আপনাকে বিট করতে হবে। আপনাদের সুবিধা হয় যদি ফাইভার থেকে কাজ করতে পারেন।

ফ্রিল্যান্সিং করে কিন্তু আপনার ক্যারিয়ার গড়তে পারেন। আপনি চাকরির পেছনে না ছুটে ফ্রিল্যান্সিং আপনার পেশা হিসেবে বেছে নিতে পারেন। ফ্রিল্যান্সিং করতে হলে আপনাকে আগে কোন স্কিলের উপর যথেষ্ট দক্ষতা অর্জন করতে হবে। আপনি চাইলেই যেকোনো সময় ফাইভার ও আপওয়ার্কের মতো মার্কেটপ্লেসে অ্যাকাউন্ট খুলে নিতে পারেন। কিন্তু সেটা হবে আপনার জন্য মারাত্মক ভুল। আজকের এই টিউনে আমি যে স্কিল গুলো নিয়ে আলোচনা করেছি এগুলোতে দক্ষ হতে তেমন একটা সময় লাগবে বলে আমার মনে হয় না। ইউটিউবে ভিডিও দেখে দেখে স্কিল গুলো শিখে খুব ভালো মানের ইনকাম করতে পারবেন। এই স্কিল গুলো হতে পারে আপনার ফ্রিল্যান্সিং শুরুর হাতিয়ার।

আশাকরি আজকের এই টিউন সবার ভালো লেগেছে, আজকের মতো এখানেই বিদায় নিচ্ছি, আবার ও টেকটিউনসে নতুন কোন টিউনে আলোচনা হবে, খোদা হাফেজ।

Level 5

আমি মাহবুব আলম তারেক। Sonic টিউনার, টেকটিউনস, সিলেট। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 3 বছর 6 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 69 টি টিউন ও 128 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 7 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 3 টিউনারকে ফলো করি।

I am a Graphics Designer, and have worked on a few other Web Sites.


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস