ব্লগিং করে কিভাবে টাকা ইনকাম করা যায়

হ্যালো বন্ধুরা আশা করছি সবাই ভালো আছো। চলে আসলাম নতুন একটি ইনকাম এর ব্যবস্থা নিয়ে। সব সময় চিন্তা করি ইনকামের যত ব্যবস্থা রয়েছে তা সবগুলো বিস্তারিত যেন তুলে ধরতে পারি। আর তোমরাও জেনো শিখতে পারো আমার টিউনস পরে।

টিউমেন্ট করে জানাতে ভুলবে না কিন্তু কেমন লাগলো আমার টিউনস। আর যেকোনো সমস্যা হলে অবশ্যই টিউমেন্ট করে জানাবে। ইতিমধ্যে আমি ফেসবুক, ইউটিউব থেকে কিভাবে ইনকাম করতে হয়ে সে বিষয়ে টিউন পাবলিষ্ট করেছি।

তোমরা চাইলে একবার পড়ে আসতে পারো আমার ড্যাসবোর্ডে দেওয়া আছে। আজকে আমরা শিখবো ব্লগিং করে কিভাবে ইনকাম করা যায়। তো চলো শুরু করা যাক।

ব্লগিং কী: সর্বপ্রথম আমাদের জানা উচিত ব্লগিং কি? ব্লগিং কাকে বলে? ব্লগিং হচ্ছে একটি ওয়েবসাইটে যেকোনে বিষয়ে আর্টিকেল লিখে টিউন করা এবং সে ওয়েবসাইটে গুগল এডসেন্স এর মাধম্যে ইনকাম করা হচ্ছে ব্লগিং। এক কথাই বলতে গেলে কোনো ওয়েবসাইটে লেখালিখি করে ওয়েবসাইটে প্রকাশ করাই হচ্ছে ব্লগিং।

ব্লগিং দুইভাবে করা যায় যেমন ফ্রি ব্লগ হচ্ছে গুগলের ব্লগস্পট ডট কম, আর টাকা পেমেন্ট করে ওয়ার্ডপ্রেসে ব্লগিং করা সম্ভব।

ব্লগিং করতে আপনার কী লাগবে: আপনি যদি ফ্রিতে ব্লগিং করতে চান তাহলে আপনি গুগলের ব্লগস্পট ডট কম ব্যবহার করতে পারেন যেখানে আপনি ফ্রিতে একটি ওয়েবসাইট চালাতে পারবেন। সেক্ষেত্রে আপনাকে টুকিটাকি কোডিং জানা লাগবে। কোডিং জানা থাকলে আপনি সুন্দরভাবে ব্লগ সাজাতে পারবেন।

কোডিং জানা না থাকলে ব্লগষ্পটে আপনি ব্লগের ইডিটিং ও করতে পারবেন না। যেমন এই সাইটে কাজ করার জন্য কোন টাকা লাগে না তেমনি কিছু জটিলতাও রয়েছে। প্রাথমিক ভাবে শিখার জন্য আমি আপনাকে সাজেষ্ট করবো আপনি ব্লগষ্পটে কাজ শুরু করেন। কারনে প্রথমেই আমি ইনভেষ্ট না করার জন্যই বলবো।

আপনি ব্লগষ্পটে একটি সাইট খুলে শুরু করুন দেখুন আপনি কতটা পারছেন। তারপর যদি আপনি ভালোভাবে শিখে যান তখন আপনি ওয়ার্ডপ্রেসে যেতে পারেন।

ওয়ার্ডপ্রেস: ওয়ার্ডপ্রেসে কাজ করতে হলে আপনাকে প্রথমে একটি ডোমেইন ও হোষ্টিং ক্রয় করতে হবে।

ডোমেইন কী: আপনি যে সাইটটি বানাবেন সেই সাইটের নাম বা এড্রেস। ধরন কেউ আপনার সাইটে প্রবেশ করবে তখন তাকে আপনার লিংক এড্রেস টাইপ করতে হবে আর এই লিংককেই ডোমােইন বলে। যেমন ধরেন যেকোন নাম এর পরে ডট কম থাকে সেটিই ডোমেইন।

হোষ্টিং কী: আপনি আপনার সাইটে যতগলো কন্টেন্ট আপলোড করবেন সেগুলো রাখার জন্য তো মেমোরির প্রয়োজন তাই না হোষ্টিংই হচ্ছে এক ধরনের মেমোরি যা আপনার ওয়েবসাইটে সকল প্রকার কন্টেন্ট হোষ্টিংয়ে জমা থাকা। হোষ্টিং ক্ষমতা যত আপনার ওয়েবসাইটের তত ফাইল স্টোর করে রাখতে পারবেন।

এই জন্য আপনাকে ডোমেইন ও ক্রয় করতে হবে আবার হোষ্টিং ও ক্রয় করতে হবে।
এরপর আপনাকে আপনার ওয়েবসাইটটি ওয়ার্ডপ্রেসে ইনষ্টল করতে হবে। বর্তমানে বিশ্বের যত প্রকার ওয়েবসাইট রয়েছে তার মধ্যে সিংহ ভাগই ওয়ার্ডপ্রেসে তৈরি করা ওয়েবসাইট।

বর্তমান বাজারে ওয়ার্ডপ্রেসের চাহিদা ব্যপক হারে বেরেই চলেছে। এর জনপ্রিয়তা এখন অনেক। ওয়ার্ডপ্রেসে ওয়েবসাইট ইনষ্টল করার পর একটি সুন্দর দেখে থিম সেটাপ করতে হবে। এমন একটি থিম সেট করতে হবে যেটা ফ্রি ভার্সন আছে। আবার এদিক খেয়েল রাখতে হবে থিমটা যেনো হাল্কা হয়। তাহলে সাইট লোড হবে তাড়াতাড়ি হবে।

তারপর আসতে আসতে সাইট টাকে গুছাতে হবে। যেমন অপশন গুলো বানাতে হবে। হোম পেজ তৈরি করতে হবে, আরও যেসব ক্যাটাগরি আছে সেগলো তৈরি করতে হবে। তারপর সুন্দর ভাবে পুরো সাইটাকে সাজাতে হবে। তারপর যতগুলো আর্টিকেল আছে পাবলিশ করতে হবে।

প্রয়োজনীয় প্লাগইন গুলো সেটাপ করতে হবে। যেমন গুগল সাইট কিট, সিইওর জন্য র‌্যাংক ম্যাথ, সিকউরিটির জন্য প্লাগইন সেটাপ করতে হবে। এভাবেই নিয়মঅনুযায়ী কাজ করলে অবশ্যই ব্লগ করে আপনি মাসে মাসে টাকা উপার্জন করতে পারবেন।

শেষ কথা হচ্ছে আপনি ওয়ার্ডপ্রেসে ওয়েবসাইট খুলে ব্লগিং করলে আপনি টাকা উপার্জন করতে পারবেন। ব্লগিং করে টাকা কামানোর কোনো লিমিট নাই আপনি আনলিমিটেড আর্নিং করতে পারবেন।

আমার টিউনটি পরে আপনার কেমন লাগলো অবশ্যই জানাবেন টিউমেন্ট করে। আর কোন বিষয়ে বিস্তারিত জানতে চান সেটিও জানাবেন। আশা করছি যতটুকু পারি সহযোগীতা করবো ইনশাআল্লাহ।

Level 0

আমি মাহফুজ আহমেদ। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 11 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 4 টি টিউন ও 1 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 1 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 0 টিউনারকে ফলো করি।


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস