বিটটরেন্টে এর তালিম [পর্ব-০১] :: সিঙ্গেল-সোর্স ম্যাথোড শেয়ারিং ও বিটটরেন্ট এ ফাইল শেয়ারিং

টিউন বিভাগ ডাউনলোড
প্রকাশিত
জোসস করেছেন

কেমন আছেন সবাই? আশা করি সবাই ভালো আছেন, আর কেনই বা ভাল না কেননা বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস কমিউনিটির এর সাথে যারা থাকে তারা সব সময়ই ভাল থাকে।

বেশ কিছুদিন ধরেই আমি ঘোষণা দিয়ে আসছিলাম আমার Brand New চেইন টিউন বিটটরেন্ট তালিম নিয়ে। বিটটরেন্ট তালিম চেইন টিউন কি এবং এতে কি কি আছে তা বিস্তারিত জানুন আমার বিটটরেন্টে এর তালিম চেইন টিউনের ঘোষণা থেকে

টরেন্ট যেভাবে

আমরা যারা ইন্টারনেট ব্যবহার করছি, তারা প্রায় সবাই-ই টরেন্ট এর সাথে পরিচিত এবং অনেকেই টরেন্টে ফাইল শেয়ার এবং ডাউনলোড করে থাকেন। আর বর্তমানে অনেক কোম্পানি, মিডিয়া এবং সফটওয়্যার ডেভলপাররা সহজেই তাদের ফাইল টরেন্ট ব্যবহার করে শেয়ার করে থাকে।

এছাড়াও আপনি টরেন্ট ডাউনলোড এর মাধ্যমে মাত্র কয়েক মিনিটের মধ্যে ইন্টারনেটে বড় বড় ফাইলগুলি ছড়িয়ে দিতে সহায়তা করতে পারেন।

টরেন্ট পিয়ার-টু-পিয়ার (P2P) পদ্ধতি ব্যবহার করে ফাইল শেয়ার করে থাকে, যা আমরা অনেকেই জানি। আর এই পদ্ধতিতে বড় বড় ফাইল ট্রান্সফার করার জন্য সবচেয়ে কার্যকর একটি পদ্ধতি।

BitTorrent Inc সান ফ্রান্সিসকো ভিত্তিক একটি সংস্থা। এটি এত জনপ্রিয় যে ১৭০০ মিলিয়নেরও বেশি ব্যবহারকারী এই প্রযুক্তি মাসিক ভিত্তিতে ব্যবহার করে থাকে। BitTorrent’s protocol ফাইল ট্রান্সফার এর জন্য, প্রতিদিন বিশ্বের ইন্টারনেট ট্র্যাফিকের প্রায় 40% ই দখল করে রেখেছে।

টরেন্ট মানেই পাইরেসি নয়

দুর্ভাগ্যক্রমে, পাইরেটেড কন্টেন্ট শেয়ার করার কারনে বিশ্বজুড়ে বিট-টরেন্ট প্রোটোকলের দুর্নাম রয়েছে। তবে টরেন্ট মানেই যে পাইরেসি তা কিন্তু নয়।

এছাড়াও কিছু লিনাক্স ডিস্ট্রিবিউশন এবং ওপেন সোর্স প্রজেক্টগুলি টরেন্ট প্রোটোকল ব্যবহার করে ফাইল শেয়ার করে থাকে। এছাড়াও বিট-টরেন্ট ব্যবহার করে উবুন্টু ডেস্কটপের মতো অফিসিয়াল সফ্টওয়্যার ডাউনলোড করতে পারবেন অনায়েসেই।

বর্তমানে কোন কোন কন্টেন্ট ট্রেন্ডিং বা আলোচিত কন্টেন্টগুলি অনায়েসেই বের করা যায় টরেন্ট এর সাহায্যে। মিডিয়া স্ট্রিমিং জায়ান্ট নেটফ্লিক্স,  ট্রেন্ডিং কন্টেন্ট ফাইন্ড আউট করতে টরেন্ট সাইটগুলি রিসার্স করে থাকে। এছাড়াও টরেন্ট সাইটগুলি থেকে কি ডাউনলোড হচ্ছে তা নেটফ্লিক্স পর্যবেক্ষণ করে। পরিশেষে তাদের কাছে ট্রেন্ডিং কন্টেন্ট সম্পর্কে তথ্য পাওয়ার পরে সেই সব কন্টেন্ট কিনে তদের সাইটে পাবলিশ করে।

বিটটরেন্টে এর তালিম

বিটটরেন্টে এর তালিম এই চেইন টিউনে আমি আপনাদেরকে টরেন্ট থেকে ডাউনলোড করার জন্য পাওয়ার ইউজার হিসেবে যে বিষয়গুলো আপনার অবশ্যই জানা উচিত তা আমি নিচে ১০ টি আলাদা আলাদা বিষয় নিয়ে তা আলোচনা করবো, যা আপনাদের পাওয়ার ইউজার হিসেবে টরেন্ট থেকে কন্টেন্ট ডাউনলোড করতে সহায়ক ভূমিকা পালন করবে। নিচে সেই ১০ টি বিষয় উল্ল্যেখ করা হল, যা ক্রমানুযায়ী বিস্তারিত আলোচনা হবে।

  1. সিঙ্গেল-সোর্স ম্যাথোড শেয়ারিং
  2. বিট-টরেন্ট এ ফাইল শেয়ারিং
  3. বিট-টরেন্ট এর ব্যাসিক কম্পোনেন্টস
  4. ব্যাসিক কম্পোনেন্টস এর সব কিছু একই সাথে
  5. টরেন্ট থেকে ডাউনলোড করা কি বৈধ?
  6. বেস্ট ফ্রী টরেন্ট ডাউনলোডার ক্লাইন্ট
  7. ওয়েব ব্রাউজার দিয়ে যেভাবে টরেন্ট ডাউনলোড করবেন
  8. গোপনীয়তা রক্ষা করা টরেন্ট ডাউনলোড
  9. VPS Seedbox
  10. টরেন্টের ভবিষ্যত: এর পরে কী হতে পারে?

১. সিঙ্গেল-সোর্স মেথড ফাইল শেয়ারিং

বিটটরেন্ট এর মাধ্যমে যখন আপনি সিঙ্গেল-সোর্স থেকে কোনও ফাইল ডাউনলোড করবেন তখন ফাইলটি আপনার কম্পিউটারে স্ট্রিং আকারে সেন্ড হয়। যদি আরও ব্যবহারকারী একই সময়ে একই ফাইল ডাউনলোড করেন, তবে সিঙ্গেল-সোর্স এর সার্ভার ওভারলোড হয়ে যেতে পারে এবং ডাউনলোড এর সমস্যা হতে পারে। টরেন্ট কোম্পানি যদি এই মেথড এ ফাইল ট্রান্সফার করতে চায় তাহলে অতিরিক্ত ট্রাফিক এর চাপ সামলাতে খুবই শক্তিশালী সার্ভার দিয়ে সেবা প্রদান করতে হবে।

 

তবে ফাইল শেয়ারিং পদ্ধতি যেমন ইমেল, HTTP, বা FTP এগুলো হচ্ছে ছোট থেকে মাঝারি আকারের ফাইলগুলির শেয়ার করার জন্য উপযোগী মাধ্যম। তবে যখন বড় ফাইল শেয়ার করতে যাবেন, তাহলে সিঙ্গেল-সোর্স পদ্ধতির কিছু লিমিটেশন এর সম্মুখীন হবেন।

উদাহরণস্বরূপ, ইমেইলে অ্যাট্যাচমেন্ট অ্যাড করতেও সাইজ লিমিটেশন রয়েছে, আপনি ২৫ এমবি এর বড় কোন ফাইল ইমেইলে অ্যাট্যাচ করতে পারবেন না। আর FTPS বা SFTP হচ্ছে ক্লায়েন্ট/সার্ভার, যার জন্য খুবই শক্তিশালী সার্ভার প্রয়োজন এবং এক্ষেত্রেও বড় বড় ফাইলগুলির ট্রান্সফার করতেও আপনারা ধীর গতির সমস্যার সম্মুখীন হতে পারে। আরও শক্তিশালী রিসোর্স ব্যবহার করে এই সমস্যার অস্থায়ী সমাধান করতে পারেন তবে তা টরেন্ট কোম্পানির জন্য দীর্ঘমেয়াদে ব্যয়বহুল হয়ে দাঁড়াবে। আর বিট-টরেন্ট এখানেই তাদের কারিস্মা দেখায়।

২. বিট-টরেন্ট এ ফাইল শেয়ারিং

পিয়ার-টু-পিয়ার (P2P) পদ্ধতিতে ফাইল ট্রান্সফার করার জন্য বিট-টরেন্ট হচ্ছে খুবই জনপ্রিয় একটি মাধ্যম। কোন রকম দ্বিধা ছাড়াই বলা যায় যে,  পিয়ার-টু-পিয়ার (P2P) প্রোটোকলটি হচ্ছে বড় ফাইলগুলি ডাউনলোড করার জন্য দ্রুততম মাধ্যম।

সিঙ্গেল-সোর্স মেথড এর ফাইল শেয়ার এর পদ্ধতি থেকে বিট-টরেন্ট এর বিভিন্ন সোর্স থেকে বা বিভিন্ন "সীড" থেকে ডাউনলোড করে। একাধিক সোর্স থেকে কন্টেন্ট ডাউনলোড করার ফলে আপনি হাইস্পিড গতিতে কন্টেন্ট ডাউনলোড করতে পারবেন।

সিঙ্গেল-সোর্স এর থেকে বিটটরেন্ট অন্য পদ্ধতিতে ফাইল ডাউনলোড করে এবং প্রতিটি ডাউনলোডারকে তার নিজস্ব সোর্স বানিয়ে নেয়। একাধিক সোর্সে একটি ফাইল থাকলে ফাইলটি সহজেই ট্রান্সফার করা যায়। ফলে ডাউনলোডকারীরা তাদের প্রয়োজনীয় ফাইলের টুকরোগুলো সহজেই ডাউনলোড করতে পারেন এবং অন্য ডাউনলোডারদেরও একই সাথে ফাইল ট্রান্সফার করতে পারেন।

বিট-টরেন্ট এর সকল ডাউনলোডারদের কে সিডার/সোর্স রূপান্তর করে থাকে এবং আর যত বেশি সিডার/সোর্স একটি ফাইলে থাকে সেই ফাইলটি তত দ্রুত ডাউনলোড হবে। সমস্ত পিয়ার একসাথে ফাইল ট্রান্সফার এর কাজ করে, কারণ তারা সবাই একে অপরকে একটি ফাইল সম্পূর্ণ করার জন্য একটি ফাইলের মিসিং হাওয়া টুকরো গুলো ট্রান্সফার করে থাকে।

আগামী পর্বে থাকছে

আজকে আলোচনা করলাম

  • ১. সিঙ্গেল-সোর্স ম্যাথোড
  • ২. বিট-টরেন্ট এ ফাইল শেয়ারিং

আগামী পর্বে থাকছে

  • ৩. বিট-টরেন্ট এর ব্যাসিক কম্পোনেন্টস
  • ৪. ব্যাসিক কম্পোনেন্টস এর সব কিছু একই সাথে

সে পর্যন্ত ভালো থাকুন। ৫ ওয়াক্ত সালাত আদায় করুন।

টিউন জোসস করুন, আমার টিউন শেয়ার করুন, টেকটিউনসে আমাকে ফলো করুন, আপনাদের মতামত জানান

আমি এরকম নিত্যনতুন কাজের সফটওয়্যার নিয়ে টেকটিউনসে হাজির হবো নিয়মিত। তবে সে জন্য আপনার যা করতে হবে তা হলো আমার টেকটিউনস প্রোফাইলে আমাকে ফলো করার জন্য 'Follow' বাটনে ক্লিক করুন। আর তা না হলে আমার নতুন নতুন টিউন গুলো আপনার টিউন স্ক্রিনে পৌঁছাবে না।

আমার টিউন গুলো জোসস করুন, তাহলে আমি  টিউন করার আরও অনুপ্রেরণা পাবো এবং ফলে ভবিষ্যতে আরও মান সম্মত টিউন উপহার দিতে পারবো।

আমার টিউন গুলো শেয়ার বাটনে ক্লিক করে সকল সৌশল মিডিয়াতে শেয়ার করুন। নিজে প্রযুক্তি শিখুন ও অন্য প্রযুক্তি সম্বন্ধে জানান টেকটিউনসের মাধ্যমে।

Level 8

আমি রায়হান ফেরদৌস। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 7 বছর 9 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 157 টি টিউন ও 128 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 52 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 1 টিউনারকে ফলো করি।


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস