ডিজিটাল মার্কেটিং কি সমৃদ্ধ প্ল্যাটফর্ম? এর মাধ্যমে কি মিলিয়নিয়ার হওয়া যায়?

Level 4
Sonic টিউনার, টেকটিউনস, গাইবান্ধা, রংপুর

আসসালামু আলাইকুম। টেকটিউনস এর নতুন আরো একটি টিউনে আপনাকে স্বাগতম। আশাকরি আল্লাহর রহমতে আপনারা সবাই ভাল আছেন। বরাবরের মতো, আমি স্বপন আছি আপনাদের সাথে। আমরা প্রায়শই আমাদের মূল্যবান সময় গুলো নষ্ট করে থাকি, মোবাইল স্ক্রল করতে গিয়ে। কিন্তু সময়ের সাথে সাথে স্কিল শিখা কতটা জরুরি, তা আমরা সঠিক সময়ে বুঝতে পারি না। তাই আমাদের উচিত সময় থাকতেই সময়ের মূল্য দেওয়া। তাই সময়ের মূল্য দিতে আজকে আমরা কথা বলব কীভাবে একজন প্রফেশনাল ডিজিটাল মার্কেটার হওয়া যায়। তো বন্ধুরা এবার মূল কথায় আশা যাক।

ই-কমার্স ব্যবসায় সাফল্য লাভের মূল একটি মন্ত্র হলো ঠিকভাবে ব্যবসার প্রচারণা করা। কথায়তো  আছে, প্রচারেই প্রসার। ই-কমার্স ব্যবসার প্রসার তখনই হয় যখন এর প্রচারণার কাজটা ঠিকমতো হয়। ব্যবসা বাণিজ্যের শুরু থেকেই প্রচার-প্রসার ব্যাপারটি সাথে জড়িত আছে। তবে আধুনিকতার যুগে এই প্রচারণার ব্যবস্থাটিও হয়ে উঠেছে খুবই আধুনিক। আধুনিক তো হতেই হবে। কারণ পুরোনো জিনিসগুলো দেখতে খারাপ লাগে পুরোনো জিনিস দিয়ে আর কত? পুরোনো জিনিস জনসাধারণ আর কত দেখবে? আধুনিকতার এই  প্রচারণার  নামই হলো ডিজিটাল মার্কেটিং। চলুন তাহলে ডিজিটাল মার্কেটিং কী ও ডিজিটাল মার্কেটিং এর গুরুত্ব নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা যাক!

ডিজিটাল মার্কেটিং কী?

সহজতর ভাষায় বলতে গেলে, ডিজিটাল মার্কেটিং হলো এক প্রকার প্রচার। কিন্তু বর্তমান যোগাযোগ ব্যবস্থার সাথে মিল রেখে সকল প্রকার আধুনিক প্রযুক্তির মাধ্যমে প্রচার প্রসারনার নামই ডিজিটাল মার্কেটিং, বিশেষ করে ইন্টারনেটের সুবিধা ব্যবহার করে কোনো পণ্য বা সেবার প্রসার-প্রচারণা চালানো। ডিজিটাল মার্কেটিং এর অনেক প্রকার ও প্রকারভেদ রয়েছে এবং তা নির্ভর করে কোন ধরনের প্রচারণার জন্য এটি ব্যবহার করা হচ্ছে। ডিজিটাল মার্কেটিং এর মাধ্যমে যে কেবল ব্যবসার প্রসারের জন্যই মার্কেটিং করতে হয় তা কিন্তু না।

বর্তমান ডিজিটাল যুগে যেকোনো ধরনের সার্ভিস প্রদান কিংবা নতুন কিছু শুরু করার জন্য দরকার প্রচার-প্রসারণা। হোক সেটি কোনো ইভেন্ট, অনুষ্ঠান কিংবা প্রতিযোগিতার প্রচারণা অথবা যেকোনো নির্বাচনী প্রচারণা (যেমন রাজনৈতিক প্রচার)। আর যেহেতু যুগটি এখন ডিজিটাল, তাই প্রচারণার মাধ্যমটিও হওয়া দরকার ডিজিটাল। তাহলে প্রশ্ন উঠতেই পারে, আমরা টেলিভিশনে যত বিজ্ঞাপণ দেখি, সোশ্যাল মিডিয়াতে যত বিজ্ঞাপণ বা অ্যাড দেখি, মোবাইলে গেইম খেলার সময় যত অ্যাড দেখি, তার সবই ডিজিটাল মার্কেটিং। এগুলো সবই ডিজিটাল মার্কেটিং। এতক্ষণে মনে হয় বুঝেই ফেলেছেন ডিজিটাল মার্কেটিং এর গুরুত্ব।

ডিজিটাল মার্কেটিং এর বিভিন্ন পদ্ধতি

ডিজিটাল মার্কেটিং সময়ের সাথে সাথে খুবই জনপ্রিয় হয়ে উঠছে কারণ এটি ই-কমার্স বা ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে তাদের লক্ষ্য বাজারে পৌঁছাতে এবং বিক্রয় ক্রমান্বয়ে বৃদ্ধি করতে সহায়তা করছে ডিজিটাল মার্কেটিং- এর বিভিন্ন পদ্ধতি রয়েছে, যার মধ্যে কয়েকটি উল্লেখযোগ্য হল সার্চ ইঞ্জিন অপ্টিমাইজেশন (SEO) SEO হল এমন একটি প্রক্রিয়া যার মাধ্যমে একটি ওয়েবসাইট সার্চ ইঞ্জিন রেজাল্ট পেজ (SERP) -এ উচ্চতর র‍্যাঙ্ক অর্জন করতে পারে।

  1. ওয়েবসাইট ট্র্যাফিক বৃদ্ধি: এসইও এর মাধ্যমে কোন ওয়েবসাইট বা ওয়েব পৃষ্ঠা সার্চ ইঞ্জিনে উচ্চতর র‍্যাঙ্কিং পেতে পারে, যার ফলে ওয়েবসাইটে ট্র্যাফিক বৃদ্ধি পায়।
  2. ব্যবহারকারীদের আকর্ষণ: SEO মাধ্যমে এমন ব্যবহারকারীদের ওয়েবসাইটে আকর্ষণ করা সম্ভব যারা প্রকৃতপক্ষে ওয়েবসাইটের মাধ্যমে পণ্য ও কিনতে চায়।
  3. ব্র্যান্ড সচেতনতা বৃদ্ধি: উচ্চতর র‍্যাঙ্কিং এবং বেশি ট্র্যাফিক ও ব্র্যান্ড সচেতনতা বৃদ্ধিতে সাহায্য করে।
  4. বিক্রয় বৃদ্ধি: টার্গেটেড ট্র্যাফিক এবং ব্রেন্ড অ্যাওয়ারনেস সচেতনতাও বিক্রয় বৃদ্ধিতে সাহায্য করে। এসইও এর দুটি প্রধান ধরন:অন-পেজ এসইও: এটি ওয়েবসাইটের কোড এবং কন্টেন্টের অপ্টিমাইজেশন,  যা সার্চ ইঞ্জিনকে ওয়েবসাইটের বিষয়বস্তু বুঝতে এবং র‍্যাঙ্ক করতে সাহায্য করে।
  5. অফ-পেজ এসইও: এটি অন্যান্য ওয়েবসাইট থেকে ব্যাক লিঙ্ক তৈরির মাধ্যমে ওয়েবসাইটের ট্র্যাফিক বাড়ায়। এসইও এক্সপার্ট হয়েও আপনার প্রফেশনাল লাইফ শুরু করতে পারেন। এটা খুবই সম্ভাবনাময় সেক্টর।
  6. এসইও এর কাজ: ওয়েবসাইটে ট্র্যাফিক বৃদ্ধি করা এর কাজ। যখন আপনার ওয়েবসাইটে ট্র্যাফিক আসতে থাকবে, তখন আপনার ডিজিটাল প্রোডাক্ট বা যে কোন সার্ভিস মানুষের কাছে বেচতে পারবেন। তাই আমাদের বরাবরের মতো মনে হয়, এটি একটি সম্ভাবনাময় সেক্টর।

১. সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং

সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম যেমন ফেসবুক, টুইটার, ইনস্টাগ্রাম, টিকটক ইত্যাদি ব্যবহার করে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান তাদের লক্ষ্য বাজারে পৌঁছাতে পারে এবং তাদের পণ্য বা পরিষেবা সম্পর্কে প্রচার করতে পারে। এবং সোশ্যাল মিডিয়ায় এক প্রদান করে, ই-কমার্স ব্যবসাকে বা অফলাইন যে কোন ব্যবসাকে তার সার্ভিস বিক্রি বৃদ্ধি করাতে সক্ষম। সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং করতে হলে প্রথমে আপনাকে বিজনেস পেজ খুলতে হবে। তারপর আপনি সব সেটআপ করবে, কোন ধরনের অডিয়েন্স এর কাছে, কখন কোন সময় সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং করবেন, তা বিস্তারিত সোশ্যাল মিডিয়ায় এক্সপ্লেইন করে সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং করা যায়। সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং এর মাধ্যমে আপনি অনেক মানুষের কাছে আপনার ব্র্যান্ড প্রচার-প্রসারণা করতে পারবেন। সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং এর মাধ্যমে নিজের প্রোডাক্ট বা সার্ভিস বিক্রি করা ও সম্ভব।

২. কন্টেন্ট মার্কেটিং

কন্টেন্ট মার্কেটিং হল খুবই জনপ্রিয় এবং আকর্ষণীয় কন্টেন্ট তৈরি এবং প্রকাশ করার মাধ্যমে ক্লায়েন্টদের আকর্ষণ করার মাধ্যম। এর মাধ্যমে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান তাদের ব্র্যান্ড সচেতনতা বৃদ্ধি করতে পারে এবং গ্রাহকদের সাথে সুসম্পর্ক সম্পর্ক তৈরি করতে পারে। কিন্তু পরিতাপের বিষয় হল যে, এই সার্টেন সাইটে সবচেয়ে বেশি প্রতিযোগিতা রয়েছে। কনটেন্ট মার্কেটিং হতে পারে কোন লিখা, ভিডিও ইত্যাদি। কনটেন্ট মার্কেটিং করে নিজেদের সার্ভিস বিক্রি করা এখন অনেকটাই জনপ্রিয়। তাই আপনি কন্টেন্ট মার্কেটিং করেও নিজের প্রফেশনাল লাইভ শুরু করতে পারেন।

৩. পেইড অ্যাডভার্টাইজিং

পেইড অ্যাড হল Google Ads, Facebook Ads, ইত্যাদি প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে লক্ষ্য বাজারে পৌঁছানোর একটি পদ্ধতি। আপনি একজন  সোশ্যাল মিডিয়া ইন্সুরেন্সার কে, কিছু টাকার বিনিময়ে আপনার প্রোডাক্ট প্রমোট করিয়ে সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাড এর মাধ্যমে নিজের প্রোডাক্ট বা সার্ভিস বাঁচতে পারেন। ফেসবুক এবং google কে অর্থের বিনিময়ে নিজের সেবা সকলের মাঝে ছড়িয়ে দেওয়া যায়৷ আস্তে আস্তে বাংলাদেশের মানুষেরা সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাডভার্টাইজিং এর মাধ্যমে নিজের প্রোডাক্ট বা সার্ভিস বেচতে শুরু করেছে যা একটি জাতির জন্য পজিটিভ সাইন। বাংলাদেশে অনেক ফ্রি বুট ক্যাম্প চালু হয়, এর মধ্যে জয়েন হলে, আপনি জানতে পারবেন কীভাবে পেইড এড ম্যানেজমেন্ট করা যায়।

৪. অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং হল কোনো ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের সার্ভিস নিজের ওয়েবসাইটে বিক্রি করানোর মাধ্যমে কিছু পারসেন্টেজ নিজের পকেটে ঢুকিয়ে নেওয়াকে  অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং বলে। এটি একটি খুবই জনপ্রিয় মাধ্যম হয়ে উঠেছে। মনে করেন দারাজ একটি  ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান, দারাজ জনসাধারণকে সার্ভিস প্রোভাইড করে, এখন আপনি যদি দারাজের অনুমতি নিয়ে, আপনার নিজের ওয়েবসাইটে বা পেইজে  তাদের প্রোডাক্ট এর লিংক শেয়ার করেন, এবং আপনার ওয়েবসাইট বা পেইজে ঘুরতে আসা ট্র্যাফিক  যদি এখান থেকে লিংকে ক্লিক করে দারাজ এর কোন পণ্য কিনে ক্রয় করে, এই ক্রয় করার জন্য আপনি একটি বোনাস বা পারসেন্টেজ পাবেন। এটাকেই আসলে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং বলে।

৫. ভিডিও মার্কেটিং

 

ভিডিও মার্কেটিং হল ভিডিও ব্যবহার করে পণ্য প্রচার প্রসার করে নিজের সার্ভিস বিক্রি করা যায়। এটি বর্তমানে সবচেয়ে বেশি চলে। ডিজিটাল মার্কেটিং এর চাহিদা ও ভবিষ্যৎ কেমন হবে? বর্তমানে সোশ্যাল মিডিয়ায় অ্যাড প্রদান করে নিজের সেবা বিক্রি করার মাধ্যম অনেক বেড়ে গেছে, বাংলাদেশেও এর ব্যতিক্রম নয়। কিন্তু এই অ্যাড রান করার জন্য দরকার দক্ষ ডিজিটাল মার্কেটার। যা বহিঃ বিশ্বে অনেক কম রয়েছে। আপনি যদি যেকোনো একটি মার্কেটপ্লেসে যান, ধরে নিলাম আপনি ফাইবারে গেলেন এবং আপনি ফাইবারে যদি লেখেন ডিজিটাল মার্কেটিং, তাহলে দেখবেন হাজার হাজার মানুষ ডিজিটাল মার্কেটিং এর পরিষেবা চাচ্ছে। আমাদের টেকটিউনস প্লাটফর্মের মতে, ২০২৪ সালে এসে সবচেয়ে কার্যকরী স্কিল এর নাম ডিজিটাল মার্কেটিং। আমরা মনে করি, আগামী ২০ বছর পর্যন্ত ডিজিটাল মার্কেটিং এর সমান ভ্যালু থাকবে। তাই আমি আপনাদের সাজেস্ট করতেই পারি যে, এই স্কিলটা শিখতে পারেন।

৬. ই-মেইল মার্কেটিং

ই-মেইল মানে হলো ইলেকট্রনিক চিঠি। ই-মেইল মার্কেটিং হলো ইলেকট্রনিক মেইল ব্যবহার করে পণ্য, পরিষেবা, অথবা ব্র্যান্ড প্রচার করার একটি কার্যকর পদ্ধতি। এটি ডিজিটাল মার্কেটিং এর একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ যা বিভিন্ন লক্ষ্য পূরণে ব্যবহার করা হয়, এটি খুবই দামে সাশ্রয়ী। কম খরচে, অন্যান্য বিজ্ঞাপণ পদ্ধতির তুলনায় ই-মেইল মার্কেটিং বেশ কম খরচে করা যায়। ই-মেইল মার্কেটিং এর কয়েকটি ভালো দিক হলোঃ

  1. উচ্চ ROI: ই-মেইল মার্কেটিং বিনিয়োগের উপর উচ্চ রিটার্ন (ROI) প্রদান করতে পারে।
  2. সহজে পরিমাপযোগ্য: ই-মেইল মার্কেটিং ক্যাম্পেইনের ফলাফল সহজেই ট্র্যাক ও বিশ্লেষণ করা যায়।
  3. ট্র্যাফিক নির্ধারণ: নির্দিষ্ট গ্রাহকদের জন্য টার্গেটেড ই-মেইল ক্যাম্পেইন তৈরি করা যায়।
  4. ট্র্যাফিক একক বার্তা: প্রতিটি গ্রাহকের জন্য ব্যক্তিগতকৃত ই-মেইল বার্তা পাঠানো যায়।

ডিজিটাল মার্কেটিং কীভাবে শিখব?

বর্তমান ডিজিটাল যুগে এমন কোন জিনিস আবিষ্কৃত হয় নাই যে ইন্টারনেটে পাওয়া যাবেনা। স্পেসি ফি ক্যালি বলতে গেলে, google এবং ইউটিউব এর মাধ্যমে আপনি পূর্ণ ডিজিটাল মার্কেটার হতে পারবেন। এবং আপনি বিভিন্ন কোর্স  কিনে ডিজিটাল মার্কেটিং শিখতে পারবেন, সবসময় মনে  রাখবেন অনেক অসাধু মানুষ, সাধারণ মানুষজনদের ধোঁকা দিয়ে থাকে। তাই চেষ্টা করবেন সতর্ক থাকার। ডিজিটাল মার্কেটার হতে কত সময় লাগে? জানলে অবাক হবেন যে, একটি সম্পূর্ণ ডিজিটাল মার্কেটার হতে আপনার প্রায় এক বছর সময় লাগবে। কিন্তু মনে রাখবেন এই স্কিলটা আপনার সারা জীবন থেকে যাবে, এর মাধ্যমে আপনি ভালো অ্যামাউন্টের টাকা উপার্জন করতে পারবেন। প্রতিমাসে এক হাজার ডলার ইনকাম করা ও সম্ভব।

শেষ কথা

বর্তমান যুগ ডিজিটাল যুগ। ডিজিটাল দুনিয়ার সাথে তাল মিলিয়ে চলার জন্য, আপনার বিভিন্ন স্কিল শিখা দরকার। ডিজিটাল মার্কেটিং ও হতে পারে আপনার একটি সফল ক্যারিয়ার। মনে রাখবেন কখনো হাল ছাড়া যাবে না। পৃথিবীতে যারা সফল হয়েছে তারা সবাই ধৈর্য ধারণ করে ডেডিকেশনের সাথে কাজ করেছে। আমি প্রায় সবসময় একটি কথা বলে থাকি কোন কাজই সহজ নয়। আপনি যেটাই করুন না কেনো, বিশেষ করে যে কাজগুলো করলে আপনি অর্থ পাবেন সে কাজগুলো আপনাকে কষ্ট করেই সম্পূর্ণ করতে হবে। টেকটিউনস এর পক্ষ থেকে আমরা আপনার উত্তরোত্তর সফলতা কামনা করছি। আমরা আপনার ভবিষ্যতের জন্য শুভকামনা জানাচ্ছি। দোয়া করি আপনি যেন ডিজিটাল মার্কেটিং করে নিজের সফল ক্যারিয়ার গড়তে পারেন। এছাড়াও আজকের টিউনের বিষয়ে যদি কারো কোনো ভিন্ন মতামত থাকে তাহলে অবশ্যই তা টিউমেন্ট করে জানাবেন। আপনার কথাগুলো যদি গঠনমূলক হয় তাহলে অবশ্যই তা আমাদের টিউনে যুক্ত করে নিবো।

তো বন্ধুরা, এই ছিল আমাদের আজকের টিউন, ডিজিটাল মার্কেটিং কি সমৃদ্ধ প্ল্যাটফর্ম? এর মাধ্যমে কি মিলিয়নিয়ার হওয়া যায়? আশাকরি টিউন টি আপনাদের একটু হলেও হেল্পফুল হবে। আজকের মতো এখানেই বিদায় নিচ্ছি, দেখা হবে পরবর্তী টিউনে নতুন কোন বিষয় নিয়ে। ততক্ষণ অবধি সবাই ভালো থাকবেন সুস্থ থাকবেন এবং টেকটিউনস এর সাথেই থাকবেন।

Level 4

আমি স্বপন মিয়া। Sonic টিউনার, টেকটিউনস, গাইবান্ধা, রংপুর। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 1 বছর 1 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 55 টি টিউন ও 28 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 3 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 0 টিউনারকে ফলো করি।

টেকনোলজি বিষয়ে জানতে শিখতে ও যেটুকু পারি তা অন্যর মাঝে তুলে ধরতে অনেক ভালো লাগে। এই ভালো লাগা থেকেই আমি নিয়মিত রাইটিং করি। আশা করি নতুন অনেক কিছুই জানতে ও শিখতে পারবেন।


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস