একজন ডিজিটাল উদ্যোক্তা হতে চান? জেনে নিন ডিজিটাল উদ্যোক্তা হতে আসলে কি লাগে?

ডিজিটাল উদ্যোক্তা ১০১

প্রযুক্তির কল্যাণে এখন ব্যবসা করাটা হয়ে উঠেছে আগের চেয়ে অনেক সহজ ও সাবলীল।

আপনার কাছে একটা দুর্দান্ত আইডিয়া আছে?

আপনার কাছে কি মোটামুটি একটা পরিমাণ অর্থ আছে?

আপনার কি সময় আছে?

আপনার কি ক্রিয়েটিভিটি আছে?

উপরের যদি অন্তত একটিও আপনার ভেতর থেকে থাকে- তাহলে আমি বলবো, আপনার পক্ষেও সম্ভব প্রযুক্তি ব্যবহার করে ব্যবসা শুরু করা বা একজন প্রপার ডিজিটাল উদ্যোক্তা হওয়া।

একজন উদ্যোক্তা হতে হলে আপনার মিনিমাম কোনো না কোনো একটা স্কিল থাকতে হবে।

  • আপনি কি প্রোডাক্ট তৈরি করতে জানেন?
  • আপনি কি প্রোডাক্ট বিক্রি করতে জানেন?
  • আপনি কি ভাল কোলাবোরেশন করতে জানেন?

একজন উদ্যোক্তা হয়ে উঠতে আপনাকে এই তিনটি বিষয়ের অন্তত একটি জানতে হবে। যদি দুইটি জানেন তাহলে আরও ভাল, আর যদি তিনটি জানেন তাহলে তো খুবই ভাল।

একজন ডিজিটাল উদ্যোক্তা আসলে কি?

ডিজিটাল উদ্যোক্তা হচ্ছে- যিনি ডিজিটাল প্লাটফর্ম ব্যবহার করে যে তার প্রোডাক্ট বা সার্ভিস বা সলিউশনকে তার টার্গেট কাস্টমারদের কাছে পৌঁছে দেন তাকেই বলতে পারি একজন ডিজিটাল উদ্যোক্তা। একজন খুব ভাল উদ্যোক্তা হয় অলরাউন্ডার। তার মানে তিনি অনেক কাজের পারদর্শী। যেটা আগেই বলেছিলাম, উপরের তিনটি গুন যার মধ্যে সবেচেয়ে বেশি আছে তিনিই একজন ভাল উদ্যোক্তা।

 

একজন উদ্যোক্তা তার উদ্যোগকে খুব ভাল একটা পর্যায়ে নিয়ে জেতে বিশেষ কয়েকটা বিষয় নিয়ে কাজ করতে হয়-

 ১. প্রোডাক্ট

প্রথমেই ভাবতে হবে, আমি যে প্রোডাক্টটি নিয়ে ভাবছি সেটা কি কি সমস্যার সমাধান করতে পারে? কাদের সমস্যার সমাধান করতে পারে? এই সমস্যার সমাধান অন্য কোন প্রোডাক্ট করতে পারছে কিনা? যদি একই সমস্যা ইতোমধ্যে কেউ না কেউ তাদের প্রোডাক্টের মাধ্যমে সমাধান করে ফেলে তাহলে, আপনাকে ভাবতে হবে, সেই প্রোডাক্ট ব্যবহার করার পরও কি কি সমস্যা রয়ে গেছে, আরও কি কি যোগ করে ঐ প্রোডাক্ট থেকে আপনার প্রোডাক্টকে আলাদা করা যায়? এই বিষয়টাকে বলে প্রোডাক্টের ইউনিক সেলিং প্রপজিশন বা ইউএসপি।

 ২. টার্গেট অডিয়েন্স

একটা প্রোডাক্ট নিয়ে যখন আপনি ভাবছেন তখনই আপনাকে ভেবে নিতে হবে আমার এই প্রোডাক্ট কোনো কোনো মানুষের সমস্যার সমাধান করতে পারছে।

কত মানুষের পেইন পয়েন্ট রিলিভ করতে পারছে।

প্রোডাক্ট অবশ্যই একটি নির্দিষ্ট ছোট টার্গেট গ্রুপের জন্য হতে হবে। কারণ একটা ছোট টার্গেট গ্রুপ নিয়ে যখন আপনি প্রোডাক্ট তৈরি করবেন যখন সেটা তাদের সমস্যাগুলো নিয়ে অনেক বেশি ফোকাস থাকবে। কিন্তু যখন আপনি অনেক বড় টার্গেট গ্রুপ নিয়ে ভাবেন তখন সমস্যা যেমন বেশি আসবে, তেমনি সেগুলো আপনার প্রোডাক্টের মাধ্যমে সমাধান করাটা বেশ কঠিন হয়ে যাবে। তাই অবশ্যই একটি ছোট টার্গেট গ্রুপের জন্য, তাদের কথা মাথায় রেখেই প্রোডাক্ট নিয়ে কাজ করতে হবে।

তাতে প্রোডাক্ট স্পেসিফিক সমস্যা নিয়ে কাজ করতে পারবে। সেই সাথে এটাও মনে রাখতে হবে যে, এই প্রোডাক্ট যদি আপনি তৈরি করেন তাহলে এই টার্গেট গ্রুপের মানুষগুলো আপনার প্রোডাক্ট পাওয়ার জন্য কতটা মরিয়া? তারা কি এর জন্য পকেট থেকে টাকা খরচ করতে প্রস্তুত? কি পরিমাণ মানুষ টাকা খরচ করে আপনার প্রোডাক্ট কিনতে পারে? এই সব কথা মাথায় রেখে আপনাকে- প্রোডাক্টের দাম, প্যাকেজিং ইত্যাদি নির্ধারণ করতে হবে।

 

উপরের এই দুইটা বিষয় নিয়ে আপনাকে পর্যাপ্ত পরিমাণে রিসার্চ করে নিতে হবে প্রথমে। তারপর যখন আপনার প্রাপ্ত ডাটা থেকে যথেষ্ট পরিমাণ সম্ভাবনা দেখতে পাবেন, তখনই শুরু করতে হবে প্রোডাক্ট ডেভেলপমেন্ট। প্রোডাক্ট ডেভেলপমেন্ট হয়ে গেল। প্যাকেজিং হয়ে গেল।

এখন কি করবেন?

৩. মার্কেটিং

প্রোডাক্ট তৈরি হয়ে গেলে এখন আপনাকে ফোকাস করতে হবে কীভাবে এই প্রোডাক্ট সম্পর্কে আপনি মানুষের কাছে জানাবেন। আপনার প্রোডাক্টে কীভাবে মানুষের সমস্যাগুলোর সমাধান করছে সেগুলো যদি মানুষজন নাই জানতে পারে তাহলে প্রোডাক্ট বিক্রি হবে কীভাবে? আপনার প্রোডাক্টের বিষয়ে মানুষজনকে জানানোর নামই হচ্ছে মার্কেটিং। একজন মার্কেটারের কাজ হচ্ছে-  কখন, কীভাবে এই প্রোডাক্টটি সম্পর্কে তার টার্গেট অডিয়েন্সের কাছে খুব সহজে প্রোডাক্টের গুনাগণ বা প্রয়োজনীয়তা তুলে ধরা যাই সেগুলো নিয়ে রিসার্চ করে একটা প্রপার মার্কেটিং স্ট্রাটেজি তৈরি করা। আর এক্ষেত্রে আমরা যেহেতু কথা বলছি ডিজিটাল মার্কেটিং নিয়ে, এই কাজটি যিনি করবেন তার নাম হচ্ছে ডিজিটাল মার্কেটার। আপনি যদি উদ্যোক্তা হয়ে থাকেন তাহলে আপনাকে এই স্কিলটি অনেকদুর এগিয়ে নিয়ে যাবে আপনি যদি ডিজিটাল মার্কেটিং জানেন। অন্তত আপনি কাজটি নিজে না করে একজন প্রফেশনাল ডিজিটাল মার্কেটারকে দিয়ে করালেও কিন্তু উদ্যোক্তা হিসেবে আপনাকে জানতে হবে ডিজিটা মার্কেটিং কি? কীভাবে কাজ করে? কীভাবে একজন সুন্দর ডিজিটাল মার্কেটিং স্টাটেজি করা যায় এই বিষয়ে।

৪. সেলিং

মার্কেটিং এর মাধ্যমে আপনার প্রোডাক্ট বা সার্ভিস সম্পর্কে ইতোমধ্যে আপনার টার্গেট অডিয়েন্স বা কাস্টমাররা জেনে গেছে। এখন প্রোডাক্ট কেনার জন্য প্রস্তুত। আপনার সেলস টিম এই কাজটি করবে। তারা মানুষজনের কাছে প্রোডাক্ট বিক্রি করতে শুরু করবে। এখানে একটা বিষয় বলে রাখা ভাল- মার্কেটিং এর কাজ হচ্ছে প্রোডাক্ট সম্পর্কে টার্গেট অডিয়েন্সকে জানানো ও তাদের ম মধ্যে আগ্রহ তৈরি করা। কিন্তু সেল করা তাদের কাজ নয়, প্রোডাক্ট সেল করবে সেলস টিম।

খুব অল্প পরিসরে বিষয়গুলো বোঝানোর চেষ্টা করেছি। আগামীতে আরও বিস্তারিত লিখবো। প্রোডাক্ট, মার্কেটিং, প্রোডাক্টিভিটি ইত্যাদি বিষয় নিয়ে। সে পর্যন্ত ভাল থাকুন।

Level 1

আমি স্বপ্নবাজ মানুষ। Contributor, www.ovijatri.com, Dhaka। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 7 বছর 3 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 8 টি টিউন ও 1 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 2 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 0 টিউনারকে ফলো করি।


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস