পেশা হিসেবে কেনো ব্লগিং কে সিলেক্ট করবেন?

প্রকাশিত
জোসস করেছেন

ব্লগিং, সাম্প্রতিক সময়ে আলোচিত একটি শব্দ যা মূলত লেখালেখি করার একটি পেশা। যারা নিজের ক্যারিয়ারের ব্যাপারে স্বাধীনতাপ্রীয়, তাদের জন্য এটি উপযুক্ত একটি পেশা।  কেননা ব্লগিং হচ্ছে এমন একটি মাধ্যম যেখানে আপনি আপনার নিজের কথাগুলো স্বাধীনভাবে আপনার ব্লগে প্রকাশ করতে পারেন এবং শুধু আপনার কথা মানুষের সাথে শেয়ার করে আপনার নিজের ক্যরিয়ার দাড় করিয়ে ফেলতে পারেন।

তাহলে পড়তে থাকুন। আমি মোঃ শাকিব হাসান। পেশায় একজন ডিজিটাল মার্কেটার এবং ব্লগার।

আজকে আমি আপনাদের সাথে শেয়ার করবো ব্লগিং করার প্রয়োজনীয়তা এবং কিভাবে এটি শুরু করতে পারেন এ সম্পর্কে। প্রথমেই আছি কেনো এটি আপনি পেশা হিসেবে নিবেন।

১। অর্থ উপার্জনের পথঃ

ব্লগিং হতে পারে আপনার অর্থ আয়ের একটি মাধ্যম। আপনি যদি ভালো ভাবে এটি আয়ত্ত্ব করতে পারেন, তাহলে  ১ লক্ষ টাকাও হতে পারে আপনার মাসিক আয়। কিন্তু এর জন্য অবশ্যই আপনাকে ধৈর্যশীল হতে হবে। বাংলাদেশে এমন অনেকেই আছে যারা ব্লগিং করে মাসে ২ লক্ষাধিকও আয় করে থাকে।

২। এটি খুবই সহজে শুরু করা যায়ঃ

অন্যান্য ব্যবসাগুলো থেকে ব্লগিং এ টাকা ইনবেস্ট খুব কমই করা লাগে। আপনার যদি সাধারন একটি ডোমেইন এবং একটি হোস্টিং কেনার মতো পুঁজি থাকে তাহলেই আপনি এ ব্যবসাটি শুরু করতে পারেন। এবং স্বাধীনভাবে উপার্জন শুরু করে দিতে পারেন।

৩। ব্লগিং করতে সৃজনশীন মনোভাবের বিকাশ ঘটেঃ

আপনি যখন নিজে নিজে ব্লগ খুলে নিজে নিজে আর্টিকাল পাবলিশ করবেন, তাহলে আপনার সৃজনশীলতা অনেকটাই বেড়ে যাবে। কারন একজন ব্লগারের মস্তিষ্কে এটা সেট করা থাকে যে " আমাকে এমন কিছু করতে হবে যেনো মানুষ আমার ব্লগ সাইটে রেস্পন্স করে"। অর্থাৎ, নতুন নতুন জিনিস বের করে আনাতে আপনার ক্রিয়েটিভিটি অনেকটাই বেড়ে যাবে।

৪। ব্লগিং করে অনেক কিছু শিখা যায়ঃ

ব্লগিং যখন আপনি প্রথমে করতে যাবেন তখন হয়তো অনেক অনেক সমস্যার সম্মুখিন হতে হবে। যেমন একটি ওয়েবসাইট তৈরি করা, সুন্দর করে সাজানো ইত্যাদি। আর মনে রাখবেন, এ সকল সমস্যার সমাধার আপনাকেই করতে হবে। আর এসব সমস্যার সমাধান করতে করতে একসময় আপনি যখন এক্সপার্ট হয়ে যাবেন, তখন অর্থের বিনিময়ে আপনি আপনার স্কিল্গুলো বিভিন্ন ফ্রিলেন্সিং মার্কেটে বিক্রি করতে পারবেন।

৫। কমিউনিটি বিল্ড-আপঃ

ব্লগিং করার সবচেয়ে মজার এবং লাভজনক ব্যাপারটা আছে কমিউনিটি বিল্ড-আপ। অর্থাৎ, আপনি যদি নিয়মিত দর্শকের উপকার হয় এমন টিউন করেই যান আপনার ব্লগে তাহলে একসময় অনেক মানুষ আপনার পরিচিত হয়ে যাবে। এককথায়, আপনাকে ফলো করবে। আর, ইন্টানেট জগতে একটি কথা আছে, যত বেশি অডিয়েন্স তত বেশি গ্রো-আপ।  আপনি কল্পনা করতে পারবেন না হয়তো ঐ মুহূর্তটার কথা যে, ১০০টা মানুষ নিয়মিত আপনার সাইটে ভিজিট করে আপনার আর্টিকাল পড়ে উপকৃত হওয়ার ফিলিন্সটা যে কতো মজার।

 

তাছাড়া ব্লগিং করার অনেক উপকারীতা আছে। আর কতোভাবে যে ব্লগিং করে আয় করা যায় এটি আপনি চিন্তাই করতে পারবেন না।  এক আর্টিকালে এতো কিছু লিখা সম্ভব হচ্ছে না। তো আপনারা যদি চান তাহলে আমার ব্লগ সাইট ভিজিট করে  আসতে পারেন। সেখানে আজ থেকে নিয়মিত ব্লগিং রিলেটেড টিউন করবো আমি। যারা ব্লগিং করতে আগ্রহী, তাদেরকে আমার সেরাটা দেওয়ার চেষ্টা করবো ইনশাআল্লাহ।
ভালো থাকবেন।
ওয়েবসাইটঃ  Techbdtricks.com

 

 

 

Level 0

আমি শাকিব হাসান। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 7 মাস 2 সপ্তাহ যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 1 টি টিউন ও 0 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 0 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 0 টিউনারকে ফলো করি।


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস

ধন্যবাদ টিউনটির মাধ্যমে ব্লগিং এ অনুপ্রাণিত করার জন্য।