হ্যাকারদের হাত থেকে আপনার ফোনের ডেটা নিরাপদ রাখার সেরা পাঁচটি পরামর্শ

টিউন বিভাগ সাইবার সিকিউরিটি
প্রকাশিত
জোসস করেছেন
Level 28
সুপ্রিম টিউনার, টেকটিউনস, ঢাকা

টেকটিউনস কমিউনিটি, কেমন আছেন সবাই? আশা করছি সবাই ভাল আছেন। বরাবরের মত চলে এসেছি নতুন কোন টিউন নিয়ে। আজকে আলোচনা করব সাইবার সিকিউরিটি নিয়ে।

আপনি আপনার ফোনের ডেটা নিয়ে কতটা সচেতন? ফোনের ডেটা লিক হলে এর ভয়াবহতা সম্পর্কে আপনি কতটা জানেন? নতুন একটা রিসার্চে উঠে এসেছে যুক্তরাষ্ট্রের প্রায় ৫০% এর মত ফোন ইউজার তাদের ফোনে কোন ধরনের সিকিউরিটি সফটওয়্যার ব্যবহার করে না। যেখানে যুক্তরাষ্ট্রের মত জায়গায় এই অবস্থা সেখানে আমাদের দেশের তো কথাই নেই।

আপনি হয়তো জানেন না ফোন থেকে ডেটা নিয়ে হ্যাকাররা আপনার ব্যাংক একাউন্টে এক্সেস নিয়ে নিতে পারবে। আপনার ক্রেডিট কার্ড এমনকি জাতীয় পরিচয় পত্রের মত গুরুত্বপূর্ণ জিনিস গুলো ব্যবহার করতে পারবে অবৈধ কাজে।

বীমা সংস্থা Insurance2go এর মার্কেটিং এবং ডিজিটাল বিভাগের প্রধান রিচার্ড গ্রে বলেছেন, "আমাদের মোবাইল ফোনে প্রচুর সঞ্চিত ডেটা থাকে এবং আপনার ব্যক্তিগত তথ্য সঠিকভাবে সেখানে সুরক্ষিত থাকে না, এটি সহজেই ভুল হাতে চলে যেতে পারে।

তিনি আরও বলেন, ‘SIM-jacking’ একটি সাধারণ পদ্ধতি যেখানে হ্যাকাররা Porting Authorisation Code (PAC) পেতে চুরি হওয়া ডেটা ব্যবহার করে। এরপর এটি আক্রান্তের ফোন নম্বরটি অন্য নেটওয়ার্কে এমনকি অন্য ফোনেও স্যুইচ করতে পারে। আর এর মাধ্যমে প্রায়ই বিভিন্ন ব্যক্তির ব্যাংক একাউন্ট, সোশ্যাল মিডিয়া একাউন্ট ইত্যাদি হ্যাক হয়।

যাই হোক, চলুন দেখা নেয়া যাক মোবাইল ফোনের ডেটা নিরাপদ রাখতে বা ঝুঁকি এড়াতে কি কোন কোন বিষয় গুলো মেনে চলবেন।

১. পাবলিক Wifi ব্যবহারে সচেতন হোন

পাবলিক Wifi আমাদের সবার কাছে দারুণ এক বিষয় কিন্তু এটি ব্যবহারে আপনাকে অবশ্যই সচেতন থাকতে হবে। সব পাবলিক Wifi ব্যবহার নিরাপদ নয় কিছু কিছু পাবলিক Wifi আপনার পারসোনাল ডেটা হাতিয়ে নিতে পারে।

পাবলিক Wifi ব্যবহার করে হ্যাকিং মেথডকে বলা হয়, Man-in-the-middle হ্যাকিং। এই পদ্ধতি তারা আপনার সোশ্যাল মিডিয়া একাউন্ট, ব্যাংক ডিটেল, ইত্যাদি সংগ্রহ করতে পারে।

পাবলিক Wifi ব্যবহার না করাই ভাল, তবে খেয়াল রাখুন পাবলিক Wifi দিয়ে কখন ভুলেও ব্যাংকিং অ্যাপে প্রবেশ করতে যাবেন। খুব বেশি জরুরি হলে VPN এর মাধ্যমে পাবলিক Wifi ব্যবহার করুন। VPN আপনার ডেটার নিরাপত্তা দিতে পারে।

২. বিভিন্ন শেয়ারিং ফিচার অফ রাখুন

প্রয়োজন ব্যতীত ফোনের সকল শেয়ারিং ফিচার অফ করে রাখুন যেমন, Location, Wifi, Bluetooth, NFC ইত্যাদি।

এই অপশন গুলো অন থাকলে হ্যাকাররা আপনার পারসোনাল ডেটাতে এক্সেস নিয়ে নিতে পারে।

৩. অনুমোদিত অ্যাপ ব্যবহার করুন

থার্ডপার্টি অ্যাপ ব্যবহারের মাধ্যমেও কিন্তু আপনি আপনার তথ্য হ্যাকারদের দিয়ে রাখতে পারেন। বিভিন্ন ওয়েবসাইট থেকে অ্যাপ ইন্সটল করলে আপনার প্রাইভেসি পড়তে পারে ঝুঁকিতে। কখনো কখনো হ্যাকাররা বিভিন্ন অ্যাপে ম্যালওয়্যার ইনজেক্ট করে রাখতে পারে।

নিরাপদ অ্যাপ ব্যবহার করতে সব সময় অফিসিয়াল স্টোর থেকে অ্যাপ ইন্সটল দিন। অ্যান্ড্রয়েডের জন্য Play Store এবং অ্যাপলের জন্য App Store ব্যবহার করুন। অফিসিয়াল স্টোর গুলোতে পরীক্ষা নিরীক্ষা করে অ্যাপ গুলো পাবলিশ করা হয় সুতরাং সেই সমস্ত অ্যাপ গুলো নিরাপদ।

৪. অ্যাপ পারমিশন নিয়ে সচেতন থাকুন

আপনার নির্দিষ্ট অ্যাপ কি কি পারমিশন চাচ্ছে সেটা অবশ্যই খেয়াল করুন। যেকোনো অ্যাপ ইন্সটল দেয়ার পর দেখুন কোন কোন পারমিশন দেয়া লাগছে। অসামঞ্জস্যপূর্ণ কোন পারমিশন চাইলে অবশ্যই সেই অ্যাপ এড়িয়ে চলুন।

ধরুন আপনি ফটো-এডিটর ইন্সটল দিয়েছেন সেক্ষেত্রে এটা স্বাভাবিকভাবে স্টোরেজের পারমিশন চাইবে কিন্তু এটা যদি আপনার কণ্টাক্ট এরও পারমিশন চায় তাহলে সতর্ক হয়ে যান।

৫. Auto-Login এড়িয়ে চলুন

আমরা যখন মাল্টিপল পাসওয়ার্ড ব্যবহার করি তখন অনেকে হয়তো Auto Login কে প্রেফার করি কারণ সব সময় এত আলাদা আলাদা পাসওয়ার্ড গুলো মনে রাখা সম্ভব হয় না। তবে আপনাকে একটি বিষয় মাথায় রাখতে হবে এই Auto login কিন্তু হ্যাকারদের আপনার ডেটা চুরি করার পথ আরও সহজ করে দেয়।

যারা পাসওয়ার্ড ভুলে যান তারা ভাল কোন পাসওয়ার্ড ম্যানেজার ব্যবহার করতে পারেন অথবা নোটপ্যাডে পাসওয়ার্ড গুলো সেভ রাখতে পারেন।

শেষ কথাঃ

আমাদের প্রতিদিনের সকল তথ্য এক্টিভিটি জমা হচ্ছে আমাদের ফোন গুলোতে আর এজন্যই হ্যাকাররা বেশিরভাগ সময় স্মার্টফোন গুলোকেই টার্গেট করছে। সব সময় খেয়াল রাখুন এই ২০২০ সালে ব্যক্তিগত ডেটার নিরাপত্তা নিশ্চিত করা খুব গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয় তাই আজকের সচেতন হোন।

কেমন হল আজকের টিউন জানাতে অবশ্যই টিউমেন্ট করুন, আমাদের জানান আপনি মোবাইল সিকিউরিটি নিয়ে কি ভাবছেন।

আজকের মত এই পর্যন্তই, পরবর্তী টিউন পর্যন্ত ভাল থাকুন। আল্লাহ হা-ফেজ।

Level 28

আমি সোহানুর রহমান। সুপ্রিম টিউনার, টেকটিউনস, ঢাকা। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 7 বছর 7 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 475 টি টিউন ও 186 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 56 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 0 টিউনারকে ফলো করি।

কখনো কখনো প্রজাপতির ডানা ঝাপটানোর মত ঘটনা পুরো পৃথিবী বদলে দিতে পারে।


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস