Kieslect Ks Pro Calling Smart Watch! আপনার পছন্দ হবার মত দারুণ এক স্মার্টওয়াচ!

Level 1
পেইজ মোডারেটর ও কন্টেন্ট রাইটার, টটেজা, চট্টগ্রাম

বর্তমানে বাজারে নাম করা স্মার্টওয়াচ ব্রান্ড হচ্ছে Kieslect calling smart watch। এই স্মার্টওয়াচ এবার বের করেছে নতুন আপডেটেড ভার্সন Kieslect Ks pro calling smart watch। নিত্যনতুন স্মার্টওয়াচ প্রতি সপ্তাহেই বের হয়। এরই মধ্যে কিছু হয় কমের মধ্যে ভালো আবার কিছু হয় বেশি দামের মধ্যে সেরা। এখন ক্রেতা নিজস্ব চাহিদা ও সামর্থ্য অনুযায়ী কম বেশী সবাই  স্মার্টওয়াচ ক্রয় করতে পারে।
তাহলে এবার আসল কথায় আসা যাক সেটা হচ্ছে ওয়াচের বক্সের মধ্যে আমরা কি কি পাচ্ছি?
১. ম্যাগনেটিক ক্যাবল: প্রত্যেকটি স্মার্টওয়াচের সাথে ম্যাগনেটিক ক্যাবল দিয়ে থাকে। এই ক্যাবল দিয়ে চার্জ দিতে হয়।
২. ইউজার ম্যানুয়াল: ইউজার ম্যানুয়াল থাকায় সহজে নিজে পড়ে আর জেনে স্মার্টওয়াচ ব্যবহার করতে পারবে। যদিও বর্তমান সময়ে ইউটিউব ভিডিও দেখেও সহজে সব সিস্টেম জেনে নেওয়া যায়।
৩. অতিরিক্ত ১ জোড়া স্ট্রেপ: প্রত্যেকটি স্মার্টওয়াচ এর সাথে একটি স্ট্রেপ থাকলেও Kieslect ks pro calling smart watch অতিরিক্ত কালো রং আরেকটি স্ট্রেপ দিয়েছে।
পুরো স্মার্টওয়াচটি দেখতে সত্যিই অনেক প্রিমিয়াম।
ডিসপ্লে : আমরা সবাই কম বেশি নতুন স্মার্টওয়াচের ডিসপ্লের ব্যাপারে জানতে আগ্রহী হয়ে থাকি। এই স্মার্টওয়াচ টি হালকা একটু বাকানো ধরনের হয়ে থাকে।
পিছনের দিকে অংশটি প্লাস্টিকের হয়। আর এর ডিসপ্লে সাইজ হচ্ছে ২.০১ এবং এটিতে এমলেড প্যানেলও রয়েছে। আর ছবির রেজুলেশন ৪০×৫০২ হয়ে থাকে। বলা যেতে পারে, দাম অনুযায়ী পারফেক্ট হয়েছে। এটির ব্রাইটনেস ভালই আছে। ঘরের মধ্যে যেমন ঠিক তেমনটাই সূর্যের আলোর মধ্যেও হয়ে থাকে।
স্ট্রেপ: এই স্মার্টওয়াচের স্ট্রেপটি অনেক স্মার্ট। এটি কমলা আর সবুজ রঙের কম্বিনেশনে করা হয়েছে। আর সাথে ত আরও ১টি স্ট্রেপ আছেই। এছাড়াও কেউ ইচ্ছে করলে নিজের পছন্দসই অন্যরকমও নিতে পারে।
বডি ফ্রেম: Kieslect Ks pro calling smart watch এই স্মার্টওয়াচটির বডিটা স্টেইনলেস স্টিলের মত লাগলেও এলুমিনিয়াম এর তৈরী হতে পারে। এটার ওজন ভারী লাগলেও কিন্তু আরামদায়ক। এর ডানদিকে ২টা বাটন আছে আর ঘড়িতে ২ টা বাটন আছে পাশাপাশি স্পীকারও রয়েছে। এছাড়া নিচের দিকে চার্জ ইন প্রসেস থাকে।
টাচ রেসপন্স : এই স্মার্টওয়াচের টাচ রেসপন্স খুব ভালো। এই রেসপন্সটি ভালো হলে স্মার্টওয়াচ ব্যবহার করে খুব শান্তি পাওয়া যায় বলা যেতে পারে।
AOD (Always On Display)  : Kieslect ব্রান্ডের স্মার্টওয়াচে AOD থাকে। কিন্তু আবার বর্তমানের আপডেটেড ভার্সনটি পাওয়া যাবেনা। অর্থাৎ AOD নতুন ভার্সনে এই সিস্টেম যে ঘড়ি হাত থেকে রেখে দিলে এটি নিজ থেকে AOD সিস্টেম অফ করে দেই।
এনালগ ও ডিজিটাল মুড আছে।
Watch Faces: ২০০+ ওয়াচ ফেইসেস রয়েছে। কিন্তু ওয়াচ ফেইসগুলো সেট আপ করতে ভালোই সময় লাগে।
কলিং ফিচার : এই স্মার্টওয়াচের কলিং ফিচার ভালোই।  আর হাত কাছে রেখে কথা বললে অপর প্রান্তের যেকেউ ভালোই কথা শুনতে পারবে। তবে আশেপাশে আওয়াজ থাকলে সেই ক্ষেত্রে একটু সমস্যা হতে পারে। আর সত্যি বলতে স্মার্টওয়াচে খুব জরুরি প্রয়োজনে কথা বলা হয়। আর সবচেয়ে অন্যতম যে সুবিধাটি হচ্ছে বাংলা টাইপিংয়ে আসা মেসেজ গুলো পড়া যায় আর কোনো রকম সমস্যা হয় না।
আইপি৬৮ (IP68): পানিতেও ব্যবহার করা যাবে তাই বললে এটি দিয়ে সাঁতার কাটতে নামা যাবেনা। অল্প স্বল্প পানি পড়লে সমস্যা হবেনা।
স্পোর্টস মুড : এই স্মার্টওয়াচে ১০০ এর চেয়েও বেশী স্পোর্টস মুড আছে। যারা অনেক ওয়ার্ক আউট করে তাদের কাজে লাগতে পারে। এটির নিচের দিকের বাটন দিয়ে স্পোর্টস মুড যাওয়া যাবে। আর কেউ ইচ্ছে করলে বাটনটি অন্যকিছুতেও সেট আপ করতে পারবে।
গেমিং: এই স্মার্টওয়াচে গেমিং এর সুবিধাও রয়েছে। যে কেউ ফ্রি সময়ে গেইম খেলতে পারবে।
কানেক্টিভিটি : Kieslect ব্রান্ড এই স্মার্টওয়াচে ৫.২ ব্লুটুথ দিয়েছে। কিন্তু ইচ্ছে করলে আরেকটু আপডেটেড ভার্সনটি দিতে পারতো। তবে এটিও খারাপ বলা যাবেনা।
KIE OS: এই স্মার্টওয়াচটি KIE OS নামে অ্যাপস দিয়ে ওপেন করতে হয়। এটি ১০ মিটারের মধ্যে ভালো কাজ করছিল আর ইউজার ফ্রেন্ডলি বলা যেতে পারে। এই স্মাটওয়াচে আর যা যা আছে-
১. হার্টবিট সেন্সর: এই ওয়াচের হার্টবিট সেন্সর মোটামোটি ভালোই ফলাফল দিচ্ছিল।
২ ব্লাড প্রেসার মনিটর : স্মার্টওয়াচে ব্লাড প্রেসার মনিটর খুব একটা থাকেনা কিংবা থাকলেও কাছাকাছি মানের ফলাফল কখনোই দিতে পারেনা।
৩. ওয়েদার আপডেট: ওয়েদার আপডেটও বলা চলে ভালোই দিচ্ছিল। একটা ঘড়ি থেকে খুব বেশী আশা করাও উচিত না।
৪. স্টেপ কাউন্টিং : স্টেপ কাউন্টিং বরাবর দেওয়ার চেষ্টা করছিল। কিন্তু হাত নড়ালে ২-৩ টা বেশী কাউন্ট করে ফেলছিল। এছাড়াও রয়েছে Voice assistant, Alarm সহ আরো অনেকগুলো বৈশিষ্ট্য।
ব্যাটারী ব্যাকআপ: এই স্মার্টওয়াচে ব্যাটারী ৩০০ এমএএইচ। ফোনে কানেক্ট রেখে ব্রাইটনেস মিডিয়াম রেখে আর কলিং ফিচারে চালু রেখে প্রায় ৩-৪ দিন ব্যবহারে করা যাবে। কিন্তু যদি কেউ এসবের ব্যবহার কম করে তবে তার আরো বেশি দিন যাবে।
মূল্য: এটির মূল্য প্রায় ৭৫০০ এর মত পড়বে। কিন্তু দাম এর চেয়ে কম হলে আরো ভালো হতো। যদিও এটি প্রায় ১ বছরের অফিসিয়াল ওয়ারেন্টি দিচ্ছে।
সীমাবদ্ধতা: এই স্মার্টওয়াচের ব্যাটারী ব্যাকআপ আরেকটু বেশী হলে ভালো হতো। আর জিপিএস সুবিধা থাকলে খুবই সেরা হতো। কিন্তু দাম অনুযায়ী Kieslect Ks pro calling smart watch আসলেই খারাপ হবে না। বরঞ্চ Kieslect ব্রান্ডের ১০ হাজারের ভিতর এটি অন্যতম একটি স্মাটওয়াচ। তাই যেকোনো কেউ পছন্দ হলে এই স্মার্টওয়াচ  নিজের পছন্দসই কোনো গ্যাজেটস দোকান থেকে ক্রয় করে নিতে পারেন।

Level 1

আমি আত্তিয়া ফারাহ। পেইজ মোডারেটর ও কন্টেন্ট রাইটার, টটেজা, চট্টগ্রাম। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 4 মাস 2 সপ্তাহ যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 10 টি টিউন ও 2 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 3 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 2 টিউনারকে ফলো করি।


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস