পিসির ল্যাগিং দূর করার সেরা ৫ টি উপায় 

Level 4
Sonic টিউনার, টেকটিউনস, গাইবান্ধা, রংপুর

আসসালামু আলাইকুম। টেকটিউনস এর নতুন আরো টিউনে আপনাকে স্বাগতম। আমি স্বপন আছি আপনাদের সাথে আশাকরি সকলেই অনেক অনেক ভালো আছেন। তো বন্ধুরা আজকে আমরা একটু ভিন্ন রকম বিষয় নিয়ে আলোচনা করবো। আজকে আমরা পিসির ল্যাগি ভাব দূর করার বিষয় নিয়ে কিছু টিপস শেয়ার করবো। টিপস গুলো আপনাকে ফলো করলে আপনাদের লো ইন্ড পিসি গুলো আপনারা আরামসে কোনো রকম ল্যাগি ভাব ছাড়াই ইউজ করতে পারবেন। তো এখানেই অনেকেই হয়ত প্রশ্ন করতে পারেন যে ল্যাগি/ল্যাগ/ল্যাগিং জিনিস টা আসলে কি?

উত্তরঃ ল্যাগি/ল্যাগ/ল্যাগিং এই ৩ টি নাম আসলে মূলত একটি নাম বা একটা সমস্যা বুঝানোর জন্য ব্যবহার করা হয়েছে। তো চলুন এবার জেনে নেওয়া যাক ল্যাগিং বা ল্যাগি আসলে কি। ধরুন আপনি আপনার পিসিতে একটা সফটওয়্যার ওপেন করলেন কিন্তু সেটি ওপেন হতে অনেক সময় লাগলো বা সফটওয়্যার টি একটি অপশনে ক্লিক করলে কিছুক্ষণ আর অন্য অপশনে ক্লিক করা যায় না বা আপনি যেটাকে হ্যাং করা বলে থাকেন এটিই মূলত পিসির ল্যাগ বা ল্যাগিং। পিসি সফটওয়্যার জনিত সমস্যা বা উইন্ডোজ জনিত সমস্যা কিংবা Bios জনিত সমস্যা এমনকি র‍্যাম এর সমস্যার কারণেও আপনার পিসি ল্যাগ বা হ্যাং এমনকি স্লো কাজ করতে পারে। তো চলুন জেনে নেই কোন কোন টিপস ফলো করে আপনি আপনার লো ইন্ড পিসিকে সুপার ফার্স্ট করবেন।

১. সঠিক উইন্ডোজ ব্যবহার

আপনি আপনার পিসি বিল্ড এর উপর ভিত্তি করেই উইন্ডোজ দিবেন নয়তো আপনার পিসি বারবার অফ হয়ে যাওয়া থেকে শুরু করে হ্যাং করা, ল্যাগ করার মতো সমস্যা গুলো দেখতে পারবেন। মনে করুন আপনার পিসির যার্ম বা র‍্যাম অথবা SSD কিংবা HDD কম। মনে করুন আপনার পিসিতে র‍্যাম ৪ জিবি SSD নাই HDD ২৫৬ জিবি। আপনি এই পিসিতে উইন্ডোজ ১১ সেটাপ দিবেন বা দিতে চাচ্ছেন বা মনে করুন কোনোভাবে হলেও দিয়ে ফেলেছেন। এবার আপনি কিন্তু এই পিসি থেকে কাঙ্ক্ষিত স্প্রিট পাবেন না। আপনার পিসি হ্যাং হয়ে থাকবে। ল্যাগ করবে। এমনকি মাঝে মাঝে হঠাৎ কোন অ্যাপ থেকে অটোমেটিক ক্রাশ করে আপনাকে কাজ করা অবস্থায় বের করে দিবে। যা আসলেই খুব বিরক্তিকর একটি বিষয়। তাই আমাদের পিসিকে ল্যাগিং বা হ্যাং থেকে সুরক্ষিত রাখতে হলে অবশ্যই আমাদের প্রসেসর এর উপর ভিত্তি করেই আমাদের উইন্ডোজ সেটাপ করা উচিত।

২. অযথা বেশি সফটওয়্যার ইন্সটল না রাখা

পিসি ল্যাগি ভাবের জন্য অন্যতম একটি কারণ হলো বেশি বেশি সফটওয়্যার ইন্সটল করে রাখা। আপনার পিসি যদি একটি লো ইন্ড পিসি হয় কিংবা আপনার পিসিতে যদি র‍্যাম বেশি না থাকে তাহলে আপনার পিসিতে কোন ভাবেই বাড়তি সফটওয়্যার বা অযথা অপ্রয়োজনীয় সফটওয়্যার ইন্সটল করে রাখা ঠিক নয়। এতে অপ্রয়োজনীয় সফটওয়্যারটিও আপনার পিসির যথেষ্ট পরিমাণ জায়গা নিয়ে নিবে ফলে আপনার প্রয়োজনীয় কাজে বাধা হিসাবে কাজ করবে। যার ফলে আপনার প্রয়োজনীয় কাজের সময়ও সেই অপ্রয়োজনীয় সফটওয়্যারটি রানিং থাকবে। ফলে আপনার পিসিটি ল্যাগি ভাব চলে আসবে এমন কি আপনার পিসিটি হ্যাং ও হয়ে যেতে পারে।

৩. কয়েকটি সফটওয়্যারে একসাথে কাজ না করা

লো ইন্ড পিসির মূলত কার্যক্ষমতা কম থাকে। তাই এটিতে স্বল্প পরিসরে কাজ করা উচিত। আপনার পিসির বিল্ড কোয়ালিটির উপর লক্ষ রেখেই আপনার পিসিকে আপনি কাজে লাগাবেন। আপনার পিসি টি লো ইন্ড পিসি এটি আপনি জানেন আর এটিও আপনি জানেন যে আপনার পিসিতে হাই কোয়ালিটির কোনো সফটওয়্যার সার্পোট করবে না। এটি জানা সত্ত্বেও আপনি যদি আপনার পিসিতে হাই কোয়ালিটির সফটওয়্যার ব্যবহার বা রান করেন তাহলেও আপনার পিসিটি হ্যাং কিংবা ল্যাগি ভাব দেখা দিতে পারে। তাই যতটা পারেন হাই কোয়ালিটির সফটওয়্যার এগুলোকে এড়িয়ে চলবেন। এতে আপনার পিসির রানিং পারফরম্যান্স ভালো থাকবে।

৪. বড়ো সাইজের গেম-প্লে না করা

গেমিং এর জন্য কিন্তু এমনিতেই অনেক হাই কোয়ালিটির র‍্যাম, রম এমনকি প্রসেসর, গ্রাফিক্স লাগে যা আমরা সবাই জানি। তাই হাইকোয়ালির গেমগুলো পিসিতে ইন্সটল না করাই ভালো। কারণ বিশেষ করে গেম কিন্তু পিসিতে বিরাট প্রভাব ফেলে। আপনি আপনার সময় কাটানোর জন্য ৪ জিবি র‍্যাম এর পিসিতে সর্বোচ্চ ১০০ এম্বির গেমগুলো খেলে সময় কাটাতে পারেন। এছাড়া হাই কোয়ালিটির গেম গুলো আপনার লো ইন্ড পিসিতে প্লে করলে আপনার পিসি ল্যাগি হয়ে যাবে এমনকি হ্যাং ও হয়ে যেতে পারে। নিয়মিত সমস্যা দেখা দিতে পারে। তাই গেমিং এর জন্য নরমাল গেম গুলোকেই বাছাই করে ইন্সটল করা উত্তম।

৫. স্টোরেজ ফাঁকা রাখা

লো ইন্ড পিসির সেরা পারফরম্যান্স পাওয়ার জন্য এর স্টোরেজ ফাঁকা রাখাটা সেরা একটি টেকনিক্যাল উপায়। আপনার পিসি যদি একটু হালকা পাতলা ল্যাগি ভাব দেখা যায় আপনি চেষ্টা করবেন আপনার পিসির স্টোরেজ ফাঁকা রাখতে দেখবেন সেই আগেই ল্যাগি ভাবটা আর থাকবে না। এছাড়াও পিসির জন্য কিন্তু SSD স্টোরেজ বেস্ট। তাই আপনার পিসিতে যদি HDD লাগানো থাকে তাহলে সম্ভব হলে SSD শিফট করেন। আপনার লো-ইন্ড পিসির অনেক পরিবর্তন আপনি লক্ষ করবেন। আপনি পিসি দুর্দান্ত পারফরম্যান্স পেতে আপনার যতোটা সম্ভব হয় ততোটা আপনার পিসির স্টোরেজ ফাঁকা রাখুন। এতে আপনার পিসির হ্যাং বা ল্যাগি ভাবটা আর থাকবে না।

তো বন্ধুরা এই ছিল আমাদের আজকের টিউন লো ইন্ড পিসির ল্যাগিং দূর করার সেরা ৫ টি উপায়। আশাকরি টিউন টি আপনাদের ভালো লেগেছে। প্রতিদিন টেকনোলজি বিষয়ক নতুন নতুন টিপস এন্ড ট্রিক নিয়ে আর্টিকেল পড়তে ভিজিট করুন আমাদের ওয়েবসাইটে TrickNew দেখা হবে পরবর্তী টিউনে। ততক্ষণ অবধি ভালো থাকবেন সুস্থ থাকবেন আর টেকটিউনস এর সাথেই থাকবেন। ধন্যবাদ।

Level 4

আমি স্বপন মিয়া। Sonic টিউনার, টেকটিউনস, গাইবান্ধা, রংপুর। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 1 বছর 2 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 61 টি টিউন ও 28 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 3 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 0 টিউনারকে ফলো করি।

টেকনোলজি বিষয়ে জানতে শিখতে ও যেটুকু পারি তা অন্যর মাঝে তুলে ধরতে অনেক ভালো লাগে। এই ভালো লাগা থেকেই আমি নিয়মিত রাইটিং করি। আশা করি নতুন অনেক কিছুই জানতে ও শিখতে পারবেন।


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস