ছবি কথা বলে ,চিৎকার করে বলে, আমাদেরকে বলে……………

প্রথমেই বলে নেই এই টিউনটা মূলত আমার নিজের ব্লগের জন্য লিখেছিলাম লেখার পরে কেন জানি টেকটিউনসে পাবলিশ করতে ইচ্ছা হল দিয়ে দিলাম টেকটিউনসে

এই পিকচারটা অনেক আগেই আমি একটা পত্তিকাতে দেখেছিলাম আজকে হঠাৎ অজানা কোনো এক কারণে আমার এই ছবিটার কথা মনে পড়ে যায় তারপর নেটে সার্চ দিয়ে ছবিটা বের করলাম ।এই ছবিটা হচ্ছে বিশ্বের বিখ্যাত এবং পৃথিবী কাপানো ছবিগুলোর মাঝে একটা। এই ছবিটা তুলেছিলেন ফটোগ্রাফার Kevin Carter ।

Kevin Carter এই ছবিটি তুলেছিলেন ১৯৯৪ সালে সুদানে জাতিসংঘের খাদ্য গুদামের কাছে।ছবিটার মানে কি জানেন ??

শকুনটা অপেক্ষা করছে ছোট্র শিশুটার মৃত্যুর জন্য কারন মৃত্যুর পর শকুনটা এই শিশুটার শরীরের মাংশ খাবে

এই ছবিটা তখন সারাদুনিয়াতে আলোড়ন তুলেছিল তবে শিশুটার শেষপরিণতি কি হয়েছিল তা কেউ জানতে পারেনি এমনকি Kevin Carter ও না।এই ছবিটা Pulitzer Prize পেয়েছিল।ফটোগ্রাফার Kevin carter এই ছবিটা তোলার ৩ মাস পর সুইসাইড করে মারা গিয়েছিল ।পরে জানা গেছে ছবিটা তোলার পর থেকেই তিনি মানসিকভাবে ভেঙ্গে পড়েছিলেন এবং এই কারনেই তিনি সুইসাইড করেন।
অনেকেই এই ছবিটা দেখে অবাক হবেন মন খারাপ করবেন কিন্তু এই রকম হাজার হাজার শিশু আজ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে যেমন সুদান ইরাক আফগানিস্তানে মারা যাচ্ছে মারা যাচ্ছে না খেয়ে পেটের খিদায় ৪/৫ ঘন্টা ছটপট করতে করতে বা বোমার আঘাতে রক্তাক্ত হয়ে কল্পনা করতে পারেন ব্যাপারটা ??

আমার ব্যক্তিগতভাবে ছবিটা দেখার পর অনেক খারাপ লেগেছে।আপনাদের মন্তব্য আশা করছি।সবাই ভাল থাকবেন আর অসহায় দুস্হ মানুষের পাশে থাকবেন।

Level 0

আমি বিল্লাহ মামুন। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 15 বছর 8 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 142 টি টিউন ও 1447 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 2 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 0 টিউনারকে ফলো করি।

করি মায়ের ভাষায় চিৎকার........ http://bloggermamun.com


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস

একজন ভালো ফটোগ্রাফারের শক্তি অনেক ………. সত্যিই ভাবিয়ে তোলার মত!

    টিনটিন ভাইয়ের সাথে একমত পোষন করছি। সত্যিই একটি ছবি এবং একটি কলমের শক্তি পারমানবিক বোমার চেয়েও বেশী শক্তিশালী।

    ভাই আপনের ক্যামেরা কেনার কি খবর ???আমি আশা করি আগামী দুইমাসের মাঝে কিনতে পারব।

আসলে মামুন ভাই আপনি একজন ভাল টিউনারই না ভাল মনের মানুষও বটে। ধন্যবাদ………….

ছবিটি তোলার জন্য Kevin Carter পুরষ্কারও পেয়েছিলেন….

সত্যি!!!!! ছবিটা খুব মর্মান্তিক এবং জাতিসংঘের কাজের প্রভাব এতেই প্রমান হয়ে যায়……………………….

    জাতিসংঘতো নিরব দশর্ক ।দশর্ক ছাড়া খেলার মজা নাই তাই জাতিসংঘের সৃষ্টি।

মামুন, ………………কিছু বলার নেই ভাই।

কি মন্তব্য করব? কোন মন্তব্যের ভাষা নাই এমন টিউনের পর। সত্যিই মর্মান্তিক।

Level 0

খুবই কষ্টের

Level 0

সত্যি-ই ভাল লাগার মত টিউন……………..কি বলব আর….. আপনাকে ধন্যবাদ।

    ভাল লাগার মত টিউন????????

    Level 3

    ভাই আপনি এইটা কি বললেন?? ছবিটা দেখে আমার চোখে পানি এসে গেছে আর আপনি বলছেন “ভাল লাগার মত টিউন” কারো পোষ মাস কারো…………….নাস :(:(:(।

    আমার মনে হয় হুসাইস ভাই আসলে ওনার কমেন্টসটা ঠিকমত বুঝাতে পারে নাই।হুসাইন ভাই চাইলে আমি আপনার কমেন্টসটা ইডিটিং করে দিতে পারি।

    Level 0

    আসলে বিষয়টা মর্মান্তিক সেটা আমি বুঝতে পেরেছি…… সাবটাইটেল মামুন কে উদ্দেশ্য করে আমার মন্তব্যটি করেছিলাম কারণ ওনি এমন একটি ঘটনা সবার সাথে শেয়ার করেছেন তাই, আপনারা কে কিভাবে বিষয়টা নিয়েছেন জানিনা……….আশা করি বুঝতে পেরেছেন।

      @Hossain: মামুন ভাই আপনাকে বোঝাতে চেষ্টা করেছে যে এটি ঠিক টিউনের প্রসংশা করার মত কিছু নয়।

      আপনি বলতে পারতেন “সত্যিই ভাল লাগার মত একটি ফটোগ্রাফ”

ভয় পাইছি

    Level 0

    এখানে ভয় পাওয়ার কি আছে

ধন্যবাদ মামুন, এমন একটি টিউনের জন্য। আমিও জাতিসংঘ অফিসেই কাজ করি, এই জাতীয় অনেক ছবি আমাদের প্রজেক্ট রিপোর্টে দিতে হয়। কি যে মানসিক চাপের মধ্যে এইসব কাজ সম্পন্ন করতে হয় তা বুঝাতে পারবোনা।

    মাঝে মাঝে আমাদের সাথে এই রকম পিকচার শেয়ার করবেন আশা করি।ভাল থাকবেন।

বেদনার!

দিলেন তো মন্টা খারাপ করে

    আপনারতো মন খারাপ হয়েছে শুধু কিন্তু গাজায় আর ইরাকে যে প্রতিদিন শিশুরা বোমার আঘাতে রক্তাক্ত হয়

    হুম , কিন্তু আপনার – আমার কি করার আছে ।

http://www.beatlelinks.net/images/history/glptheconcertforbangladesh.gif

http://www.kamat.com/kalranga/momchild/1042.jpg

http://4.bp.blogspot.com/_MKvEfNTSz_g/SlGUPL14_wI/AAAAAAAAAgE/4wV4Deo0EiY/s400/rivingtonplace-bangladeshchild.jpg

এই ছবিটি খুব সম্ভবত আমার দেশের। আমি …………………..কি আর বলব।। টিউনটি সত্যিই হৃদয়বিদারক।।

Level 0

মামুন ভাই
এই দৃশ্য আজ আমাদেরদেশেও আছে। যারা সিডর আর আইলায় আক্রান্ত হয়েছে, তারা কি অবস্থায় আছে, আমরা কি সেই খবর রাখি। আমাদের নেতারা কি তাদের খবর নেয়? সকলের কাছে আমার প্রশ্ন।

    আসলে এই ছবিটাকে প্রতিকি ছবি বলা যেতে পারে।আর প্রাকৃতিক দূযোর্গে মারা যাওয়া আর একটা দেশে খাবারের অভাবে দুর্ভিক্ষে একটা শিশু মারা যাওয়া কিন্তু আলাদা ব্যাপার ।

    Level 0

    যারা সিডর বা আইলায় আক্রান্ত হয়েছে, তারা প্রাকৃতিক দূর্যোগের স্বীকার এটা ঠিক। কিন্তু এখন তারা এক প্রকার দূর্ভিক্ষের মধ্যে আছে। কারণ। তাদের না আছে বাড়িঘর, না আছে খাবার। খোলা আকাশের নীচে জীবনযাপন করছে। এটাকি কোনভাবে দূর্ভিক্ষের চেয়ে কম। সমাজে যারা বৃত্তবান আছেন, তাঁরা যদি সামান্য পরিমানে তাদের দিকে দৃষ্টি দেই, তাহলে আমরা তাদেরকে এই করুন অবস্থা থেকে উদ্ধার করতে পারি। কিন্তু আপসোস নিজের স্বার্থ ছাড়া আর কিছু জানিনা।

Level 0

এসব ছবি বোমার চেয়ে কিসে
এক সাথে কোটি কোটি মানুষের মনে আঘাত করে

জাতিসংঘ নিজেই এমেরিকার একটা পোষা “শকুন”

কিছু একটা করতে হবে ।. ……………………….
এভাবে আরনা…………………………………..

Level 0

ছবিটা দেখার পর থুব থারাপ লাগল।