এবার আপনার এন্ড্রয়েড ফোন ROOT করুন কোনোরকম Warranty হারানোর ভয় ছাড়াই।

আসসালামু আলাইকুম কেমন আছেন সবাই? আশা করি ভালো আছেন। আমি প্রতিবারই চেস্টা করি আপনাদের নতুন কিছু উপহার দেয়ার, সেই পরিপ্রেক্ষিতে আরো একটি টিউন নিয়ে এলাম আর এটা অবশ্যই একটি গুরুত্বপুর্ন টিউন। আজ আপনাদের দেখাবো কিভাবে আপনার এন্ড্রয়েড ফোন root করবেন তাও আবার কোনো রকম warranty হারানোর ভয় ছাড়াই। আগেই বলে নিচ্ছি এ বিষয়ে আগে যদি কেউ কোনো টিউন করে থেকে তাহলে নীজ গুনে ক্ষমা করবেন। আর হ্যা যা যা করবেন সব নীজ দায়ীত্বে করবেন। প্রয়োজনে অভিজ্ঞ্যদের সাহায্য নিবেন। অবশ্য এই পদ্ধতির rooting এর ক্ষেত্রে এখন পর্যন্ত কোনো অভিযোগ পাওয়া যায়নি।

তো চলুন কথা না বাড়িয়ে শুরু করা যাক=

*আপনার এন্ড্রয়েড ভার্সন ৪.০ এর নীচে হলে ট্রাই করবেন না।

যা যা লাগবেঃ

  • একটি পিসি অথবা ল্যাপটপ।
  • VRoot: পিসি সফটওয়্যার(এটি দিয়ে মুল কাজটি করতে হবে।
  • আপনার ফোনের device driver সফটওয়্যার। যেমনঃ samsung হলে Kies , অথবা htc হলে Sync ইত্যাদি আর যদি অন্য কোন মডেল হয় তাহলে গুগলে সার্চ করে নামিয়ে নিন। সবচেয়ে ভালো হয়ে আপনার ফোনের সাথে যেই ডিস্কটা দেয়া থাকে। গুগল সার্চ করে নামিয়ে নিলেও সমস্যা হবেনা।

এবার মূল কাজঃ

১.আপনার ফোনটি যদি samsung হয় আর সেটাতে অদি knox enable করা থাকে তাহলে Settings > Security desable lock reactivation করে দিন। অন্য কোনো ফোন হলে শুধু লক টা deactive করে দিন।

২.এবার আপনার কম্পিউটার বা ল্যাপটপে Vroot সফটয়্যারটি ইন্সটল করে ওপেন করুন।(chines লেখা দেখে ভয় পাওয়ার কিছু নেই, আপনার যে কাজ গুলো করতে হবে তা ইংরেজিতেই দেয়া আছে)

৩.এবার আপনার ফোনের Developer Options থকে USB Debugging মোড টা অন করুন। যদি আপনার Developer Option এক্টিভ না থাকে তাহলে Settings>About Phone>Build Number এর উপর ৭বার ক্লিক করুন, তাহলে আপনার Developer Option অন হয়ে যাবে।

৪.এবার USB দ্বারা আপনার ফোনটি পিসি বা ল্যাপটপের সাথে কানেক্ট করুন।

৫.এবার দেখুন Vroot সফটয়্যারটি আপনার ফোনকে খুজছে। অপেক্ষা করুন যতক্ষন না পর্যন্ত আপনার ফোনটি connected হচ্ছে।

৬.এখন নিচের চিত্র অনুযায়ী ROOT লেখা বাটনে ক্লিক করুন এবং ৪-৫ সেকেন্ড অপেক্ষা করুন। এখন আপনার ফোনটি Restart নিবে(নাও নিতে পারে)।


Congratulation! আপনার ফোনটি রুটেড হয়ে গেছে।

চেক করার জন্য Root Checker  নামিয়ে নিন।

দাড়ান! আরো একটু কাজ আছে।

যেহেতু আমরা vroot দ্বারা রুট করেছি সেহেতু vroot আমাদের ফোনে ডিফল্ট ভাবে superuser সফটওয়্যারটি ইন্সটল করে দিয়েছে যা কিনা অতি পুরনো এবং ভালোভাবে কাজও করেনা। আপনি যদি সেই superuser পরিবর্তন করে নতুন superuser ইন্সটল করতে চান তাহলে নিচের স্টেপ গুলো অনুসরণ করুনঃ

১.প্রথমে SuperSu নামিয়ে আপনার ফোনে ইন্সটল করুন।

২.এবার superuser ওপেন করে যা যা লেখা আসে শুধু ok/''允许'' করুন।

৩.এখন দেখুন superuser Binary প্রমোট চাইছে। শুধু ওকে করুন।

৪.এবার Titanium Backup টা নামিয়ে ইন্সটল দিন।

৫.এখন Titanium backup টা ওপেন করে vroot এর ডিফল্ট হিসেবে থাকা superuser টি ফ্রিজ করে দিন।

৬.এখন আবার আপনার নিজের ইন্সটল করা superuser টি ওপেন করুন এবং আবার SU binary ফাইলটা ইন্সটল দিন।

৭.ব্যাস আর কিছু করতে হবেনা।

এখন আপনার ফোন চেক করে দেখুন কোনোরকম কারনেল ভার্সন পরিবর্তন ছাড়াই আপনার ফোনটি Root হয়ে গেছে। কি! মজা না?

**কোথাও আটকে গেলে কমেন্ট করুন।

NOTE: অতিরিক্ত সতর্কতার জন্য আপনার ইম্পর্ট্যান্ট ডাটা গুলোর ব্যাকাপ নিয়ে নিন। যেমনঃ কন্ট্যাক্ট,মেসেজ ইত্যাদি।
আজ এ পর্যন্তই আবার দেখা হবে অন্য কোনো টিউন নিয়ে, সে পর্যন্ত সবাই ভালো থাকুন। খোদা হাফেজ।

সময় হলে আমার ব্লগটি থেকে একবার ঘুরে আসার অনুরোধ রইল।

Level 2

আমি অস্থির পোলা। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 12 বছর 2 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 19 টি টিউন ও 137 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 1 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 0 টিউনারকে ফলো করি।

বলার কিছুই নেই। আমার সাধারণ একজন মানুষ, চেস্টা করি সবাইকে খুশি রাখতে।


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস

Level 0

xolo a600 er device software ki hobe ?

    @আকরামুল হাসান: আপনাকেও ধন্যবাদ কমেন্ট করার জন্য

but warrenty কই থাকল??

    @CyBeR Assassin: android ফোন রুট করলে যদি কার্নেল ভার্সন পরিবর্তন না হয় তাহলে ওয়ারেন্টির কোনো ক্ষতি হয়না।

      @অস্থির পোলা: but, for example, Symphony এর অনেক সেট Mediatek এর। Mediatek এর কয়েকটি বাদ দিয়ে বেশীরভাগ kernel source রিলিজ হয়নি। তাহলে কোনো কাস্টম কার্নেল নাই। তার মানে ওইসব সেট রুট করলে ওয়ারেন্টি চলে যাবে না??

        এই পদ্ধতি ব্যাবহারে আপনার সিস্টেম এর কোনো রকম পরিবর্তন ছাড়াই রুট এর সুবিধা উপোভোগ করতে পারবেন। সুতরাং এখানে ওয়ারেন্টি হারানোর ভয় নেই। যদি আনরুট করতে চান তবে হ্যান্ডসেটটি একবার হার্ড রিসেট দিলেই আনরুট হয়ে যাবে। কমেন্ট করার জন্য ধন্যবাদ

valo post……

ধন্যবাদ তবে স্ক্রীন শট দিলে আরও ভলো করে বুজতাম। তবুও ভাল লাগল

    @মোঃ আল আমীন: আপনাকেও ধন্যবাদ কমেন্ট করার জন্য। আগামীতে আরো ভালো ভাবে বোঝানোর চেস্টা করব।

root korle love ta ki mane root ar subidhagulu ki ki???????

amr samsung gt-s5282 root holo na j…