ফিশিং (Phishing) কি ? কিভাবে ফিশিং (Phishing) পদ্ধতি ব্যবহার করে হ্যাকাররা ফেসবুক/জিমেইল আইডি হ্যাক করে ? কিভাবে আপনি আপনার ফেসবুক/জিমেইল আইডি রক্ষা করবেন ?

যারা ফিশিং (Phishing) সম্পর্কে জানেন তারা এই টিউনটি এড়িয়ে যেতে পারেন। আর যারা যারা ফিশিং (Phishing) সম্পর্কে জানেন না, তারা অবশ্যই সম্পূর্ণ টিউনটি পড়বেন।

ফিশিং (Phishing) কি?

ফিশিং (Phishing) হচ্ছে এমন একটি টেকনিক যার মাধ্যমে একজন হ্যাকার খুব সহজেই আপনার জিমেইল/ফেসবুক সহ অনন্য আইডি কিংবা পার্সোনাল ইনফরমেশন হ্যাক করতে পারে। এবং এজন্য হ্যাকারের খুব বেশি হ্যাকিং নলেজ এর প্রয়োজন হয় না। একটি গবেষণায় দেখা গিয়েছে যে, শতকরা ৮০% হ্যাক হয় ফিসিং এর মাধ্যমে। এবং একটি হতাশার কথা হচ্ছে যে, প্রতি ১০ জনের মাঝে ৯ জন ফিশিং এর ফাদে পা দেয়।

ফিশিং (Phishing) পদ্ধতি কিভাবে কাজ করে?

আগেই বলে রাখি যে, ফিশিং কোন হ্যাকিং সিস্টেম না। বরং হ্যাকাররা এটাকে একটি স্প্যাম বলে থাকে। স্প্যাম হচ্ছে কাওকে লোভ দেখিয়ে এবং পরবর্তীতে তাকে ধোঁকা দিয়ে নিজের উদ্দেশ্য সাধন করা।

ধরুন আপনার কোন এক ফ্রেন্ড আপনার ফেসবুক আইডি হ্যাক করতে চায় ফিশিং পদ্ধতির মাধ্যমে। তাহলে সে প্রথমে ফেসবুক পেইজ এর মত  হুবুহু/ডুপ্লিকেট একটি নকল ফেসবুক পেইজ তৈরি করবে। যেটা দেখতে একদম অবিকল ফেসবুক পেইজ এর মত কিন্তু এর ইউআরএল হবে ভিন্ন।

এখন আপনার কাছে সে একটা লোভনীয় ইমেইল/মেসেজ করবে একটি লিংক দিয়ে  (যেমনঃ আমি অনলাইনে খুব সহজ উপায়ে টাকা কামানোর একটি সাইট পেয়েছি এবং প্রতিদিন ৫০০$ ইনকাম করছি নিচের সাইটটি হতে – ww.faecbook.com/Easy-Way-to-Earn-Money) এবং আপনাকে সেই লিংকে ক্লিক করার জন্য আমন্ত্রণ করবে। আপনি যদি সেই লিংকএ ক্লিক করেন তাহলে আপনার সামনে আপনার ফ্রেন্ড এর তৈরি করা ডুপ্লকেট ফেসবুক পেইজটি ওপেন হবে। আপনি ভাববেন, সেটি ফেসবুক এর আসল পেইজ।

আপনি আপনার ইউসারনেম এবং পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করতে চাইবেন। আপনি যখনই আপনার ইউসারনেম এবং পাসওয়ার্ড দিবেন লগইন করার জন্য, তখন সাথে সাথে আপনার ইউসারনেম এবং পাসওয়ার্ড আপনার ফ্রেন্ড এর ডাটাবেজে চলে যাবে। কিন্তু আপনি টেরও পাবেন না। কারন পরেরবার ফেসবুক এর আসল পেইজটি ওপেন হবে। আপনি হয়ত ভাববেন, আপনার নেট সমস্যার কারনে আবার লগইন করার কথা বলতেছে। আপনি আবার ইউসারনেম এবং পাসওয়ার্ড দিবেন লগইন করার জন্য এবং স্বাভাবিকভাবে লগইন হবে। যদি আপনি আপনার উদ্দেশ্যমত কোন পেইজ না পান, আপনি স্বাভাবিকভাবে ব্যাক করে চলে আসবেন। আর এর মাঝে আপনি হারিয়ে ফেলেছেন আপনার অতি গুরুত্তপূরন ফেসবুক আইডিটি।

এভাবেই আপনি আপনার ফেসবুক/জিমেইল আইডি হারাতে পারেন স্প্যামারদের কবলে পড়ে।

এখন তাহলে ফিশিং (Phishing থেকে বাচার উপায় কি?

ভেরি সিম্পল। যখন কোন লিংক এ ক্লিক করবেন সেই লিঙ্কটা যাচাই করে নিবেন। স্প্যামাররা ফিশিং এর জন্য বেশি ব্যবহার করে ইমেইল কে। তাই ইমেইল সহ যেকোন লিঙ্ক এ ক্লিক করার পূর্বে অবশ্যই লিঙ্কটি ট্রাস্টেড সাইট এর কিনা যাচাই করে নিবেন। তাহলেই আপনি স্প্যাম থেকে বাচতে পারবেন। আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ সম্পূর্ণ টিউনটি পরার জন্য। ভাল থাকবেন, সুস্থ থাকবেন আর আপনার নিজের খেয়াল রাখবেন।

আমার ইউটিউব চ্যানেল লিংক

Level 0

আমি টেক পরিবার। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 3 বছর 9 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 12 টি টিউন ও 2 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 0 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 0 টিউনারকে ফলো করি।


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস